somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

অর্থপূর্ন ও বরকতময় নামাজ পর্ব ৭ /তাশাহ্’হুদ (আত্তাহিয়্যাতু) অর্থ কি কেন বলি

১১ ই মে, ২০১২ দুপুর ১:৫১
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
তাশাহ্’হুদ (আত্তাহিয়্যাতু):


ভুমিকা: তাশাহ্’হুদ (আত্তাহিয়্যাতু) নামাজে বসা অবস্থায় পড়া হয় দ্বিতীয় রাকাতে এবং শেষের রাকাতে

তাশাহ্’হুদ (আত্তাহিয়্যাতু) নামাজের অতি গুরুত্বপু্র্ন অংশ. নামাজের আলোচনা সাধারনত এর ফিকহ [নিয়ম ও বোঝা] এর মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে খুব অল্পই নামাজের অর্থের বা অলঙ্কার নিয়ে আলোচনা হয়

তাশাহ্’হুদ (আত্তাহিয়্যাতু) পাচ রকমের পাওয়া যায় হাদিসের মাঝে(প্রত্যেকটির নামকরন করা হয়েছে সাহাবাদের নামে যিনি তা বর্ণনা করেছেন)

আমরা শিখব যেটা ইবনে মাসউদ বর্ণনা করেছেন- তিনি বর্ণনা করেন যে নবী হযরত মুহাম্মদ (সঃ) তাকে শিক্ষা দিয়েছেন তার হাত নবী (সঃ) হাতের মাঝে রেখে, ইবনে মাসউদ পরবতীতে বর্ণনা করেছেন তার ছাত্র আলকামাহকে ঠিক সেই ভাবে যেভাবে মুহাম্মদ (সঃ) তাকে শিক্ষা দিয়েছেন এবং আলকামাহ শিক্ষাদেন তার ছাত্র ইবরাহিম -আন-নাকাহ কে ঠিক একই ভাবে ইবরাহিম থেকে হাম্মাদ ইবনে সালামাহ এবং তারপর আবু হানীফা সকলেই একইভাবে হাতের মাঝে হাত রেখে তাদের ছাত্রকে শিক্ষা দেন --এতেই বুঝা যায় তাশাহ্’হুদ (আত্তাহিয়্যাতু) এর গুরুত্ব।

ইবনে আব্বাস ইবনে মাসউদ এবং বাকীরা বর্ননা করেন যে নবী করিম (সঃ) তাশাহ্’হুদ (আত্তাহিয়্যাতু) শিক্ষা দিতেন যেন তিনি কোরআনের সুরা শিক্ষা দিচ্ছেন এটাই প্রামান করে তাশাহ্’হুদ (আত্তাহিয়্যাতু) এবং এটা মুখস্ত করার গুরুত্.।

তাশাহ্’হুদ (আত্তাহিয়্যাতু) ইবনে মাসউদ হতে বর্ননা :
আত্তাহিয়্যাতু লিল্লাহি ওয়াচ্ছালাওয়াতু ওয়াত্’ত্ব্ইয়্যিবাতু
(সমস্ত্ তা’যীম, সমস্ত্ ভক্তি, নামায, সমস্ত্ পবিত্র ইবাদত বন্দেগী আল্লাহর জন্য্, আল্লাহর উদ্দেশ্যে),
আস্’সালামু আ’লাইকা আইয়্যুহান্’নাবিয়্যু ওয়া রহ্’মাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু
(হে নবী! আপনাকে সালাম এবং আপনার উপর আল্লাহর অসীম রহমত ও বরকত)
আস্’সালামু আ’লাইনা ওয়া আলা ই’বদিল্লাহিছ্ ছ্বালিহীন
(আমাদের জন্য এবং আল্লাহর নেক বান্দাদদদের জন্য আল্লাহর পহ্ম্ থেকে শান্তি অবতীর্ন হোক)।
আশহাদু আল্লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়া আশহাদু আন্না মুহাম্মাদান আবদুহু ওয়া রাসুলুহু
(আমি সাহ্ম্ দিচ্ছি যে এক আল্লাহ ব্যতীত অন্য কোন উপাস্য নাই এবং মোহাম্মদ (দঃ) আল্লাহর বন্দা ও রাসুল।) ।


তাশাহ্’হুদ (আত্তাহিয়্যাতু) এর অর্থ:
আত্তাহিয়্যাতু লিল্লাহি ওয়াচ্ছালাওয়াতু ওয়াত্’ত্ব্ইয়্যিবাত।

আত্তাহিয়্যাত=সম্ভাষণ/অভিনন্দন
বহুবচন ত্তাহিয়্যাত(সম্ভাষণ) এসেছে মুল শব্দ হায়াত মানে জীবন- কারন পূর্ব ইসলামী জাহেলীয়া যুগে মানুষ একে অপরকে সম্ভাষণ/অভিনন্দন জানাত "হায়াকাল্লাহ" বলে যার অর্থ অপর জনের জীবনের জন্য দোয়া. মহানবী (সঃ) পরে আমাদের শিক্ষা দেন ইসলামী সম্ভাষণ/অভিনন্দন ( আসসালামু আলাইকুম) কিন্তু তাহিয়া শব্দ অপরিবর্তিত থেকে যায়।

লিল্লাহি= আল্লাহর জন্য
এটা কি বুঝায় ?? আমরা আল্লাহকে সম্ভাষণ/অভিনন্দন জানাই না, কারন তিনি আস সালাম তাই না?? আমরা কি বলি আল্লাহ আস সালামুআলাই কুম??

একজন বিদ্বান/শিক্ষিত আবদুল্লাহ বি সালিহ আল ইজলি বর্ননা করেন : তিনি বলেন তিনি খুবই কৌতূহলী ছিলেন জানার জন্য এটা "লিল্লাহি" দ্বারা কি বুঝায়। তিনি আর একজন বিদ্বান/শিক্ষিত ব্যক্তির কাছে যান যার নাম আল-কাইশাঈ এবং তিনি বলেন এটার অর্থ "বরকত (আশীর্বাদ/কল্যাণ)" তার পর তিনি বললেন বরকত বলতে কি বুঝায় ?? আল-কাইশাঈ বলেন তিনি এরচেয়ে বেশি জানেন না . আল ইজলি সন্তুষ্ট হতে পারেননি এবং তিনি মুহাম্মদ বিন হাসান আশ-শায়বানির কাছে যান এবং জিগ্গেস করেন " আত্তাহিয়্যাতু লিল্লাহি" বলতে কি বুঝায় এবং মুহাম্মদ বিন হাসান উত্তর দেন এটা একটা শব্দ যা আমরা আল্লাহকে উপাসনা বা শ্রদ্ধা করতে বুঝাই এটুকুই তিনি বলতে পারেন .

আল ইজলি তখনো সন্তুষ্ট হতে পারেন নি মুহাম্মদ বিন হাসান এর উত্তরে তারপর তিনি মুহাম্মদ বিন ইদ্রিস আস-শাফাঈর দ্বারস্থ হন এবং তাকে জিগ্গেস করেন এবং বলেন যাদের কাছেই আমি জিগ্গেস করি কিন্তু সঠিক উত্তর পাচ্ছিনা ,আস-শাফাঈ বলেন তাপনি তাদের কেন জিগ্গেস করেন তারা তো কবিতা জানে না !! . (কারন ঈমাম আস-শাফাঈ একজন দীপ্তিমিান্/উজ্জ্বল কবি ছিলেন) তিনি বলেন


যখন আপনি রাজার দরবারে যান, আপনি রাজাকে সম্ভাষণ/অভিনন্দন করেন মহামান্য/মর্যাদাবান/খ্যাতিমান/উদার রাজা বলে . ঠিক তেমনি " আত্তাহিয়্যাতু লিল্লাহি" বলে আমরা সম্ভাষণ/অভিনন্দন শুধু মাত্র আল্লাহর জন্য করছি যখন আমরা তার সাহাজ্য প্রর্থনা করি নামাজে.

তার মানে "রাজকীয় সম্ভাষণ/অভিনন্দন উপযুক্ত শুধু মাত্র মাহান প্রভু/ আমাদের মালিক আল্লাহর জন্য"-- এটা বলার মানে এমন যে আমরা আল্লাহর হাজ দরবারে প্রবেশ করছি এবং তাকে বলছি সকল প্রশংসা একমাত্র আল্লাহর জন্য।


ওয়াচ্ছালাওয়াত: বহুবচন সালাহর অর্থ আমাদের নামাজ শুধু মাত্র আল্লাহর জন্য এটা দ্বারা উল্লেখ করে সকল প্রকার ইবাদত যা আমরা করি।

ওয়াত্’ত্ব্ইয়্যিবাত: বহুবচন ত্ব্ইয়্যিবের অর্থ সুন্দর জিনিস সমুহ অগ্রহ / আকর্ষন করা কিছু

ওয়াচ্ছালাওয়াতু ওয়াত্’ত্ব্ইয়্যিবাত একসাথে ব্যবহার হয় যা বুঝায় সকল সুন্দর কাজ এবং আমাদের সকল ভাল গুনাবলি ও কাজ এবং অন্যের সাথে ভাল ব্যবহার যাই করি শুধু মাত্র আল্লাহর জণ্য.
দেখুন এই চারটি শব্দের ব্যাপকতা !!!

সুফল: এটা আন্তরিকতা নিশ্চিত করে যে একজন মানুষ তার উন্নতচরিত্র গঠনে সচেস্ট থাকবে. এমন কি আমরা যখন অন্যের সাথে আচার - ব্যবহার করি তার মুল কারন থাকে আল্লাহর সাথে দ্বায় বদ্ধাতা উন্নতচরিত্র গঠনে, এ কারনে নয় যে অন্য জন আমার সাথে কি ভাবে ব্যবহার করল বা তার সম্পকে আমার অনুভূতি/ভাবনা কেমন তার জন্য তা নয় বরং সকলের সাথে উন্নত ব্যবহার নিশ্চিত করা শুধু মাত্র আল্লাহর জন্য।

আস্’সালামু আ’লাইকা আইয়্যুহান্’নাবিয়্যু ওয়া রহ্’মাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু

আস-সালাম: অর্থ শান্তি ও নিরাপত্তা, ইসলাম এসছে একই মুল শব্দ হতে কারন আল্লাহর কাছে আনুগত্য প্রকাশের মাধ্যমে আমরা শান্তি ও নিরাপত্তা পাই/ অর্জন করি।

সুল্লাম: নির্দেশ করে সিড়ি বা মই এসেছে একই শব্দ হতে। কেন? কারন সিড়ি /মই আমাদের নিরাপত্তাহীন /বিপজ্জনক কিছু মনে করায় তাই আরবরা তখন সুল্লাম নাম দিয়েছে যাতে আমাদের প্রথমেই মনে হয় শান্তি ও নিরাপত্তার কথা।

আলাইকা: আপনার উপর ( যেমন আপনার উপর শান্তি বষিত হোক) এটা আরো জোরাল ও আবেগপুর্ণ (ইসমিয়া থেকে) আগে আল্লাহুম্মা সাল্লিম আলা ফুলান, যা আগে ব্যবহৃত হত।

আইয়্যুহান্’নাবিয়্যু: অর্থ হে নবী. নবী এসেছে দুটা মুল শব্দ হতে নাবা: যা বুঝায় খবর যা ১) খুবই শুরুত্বপুর্ন ২) আপনার সাথে সম্পর্ক যুক্ত।
তার মানে নবী হচ্ছেন যিনি খুবই শুরুত্বপুর্ন খবর/সংবাদ আনেন যা আপনার/সকলের জন্য প্রযোজ্য। এমন কিছুই নেই যা নবী (সঃ)বলেছেন যা শুরুত্বপুর্ন ও প্রয়োজনীয় নয়

নাবউন: উচ্চপদ বা প্রসারিত অবস্থা, নবী (সঃ) এমন উচ্চতায় যা সাধারন সকল মানুষ হতে উপরে.

ওয়া রহ্’মাতুল্লাহি: অর্থ অনুকম্পা /ক্ষমা প্রবৃত্তি (আল্লাহর ক্ষমা)
আল্লাহ আপনাকে ক্ষমা করুন/ আল্লাহ আপনাকে অনুকমপা বর্ষন করুন।

ওয়া বারাকাতুহু : অর্থ এবং তার দয়া বারাকাহ এটার মুল শব্দ বুঝায় আল্লাহর আশীর্বাদ যা দীর্ঘস্থায়ী /দীর্ঘ আয়ু ব্যাপি
উদাহরন : আমরা বলি "এবং আল্লাহ তাহার দীর্ঘস্থায়ী আশীর্বাদ আপনার উপর বর্ষন করুন"

আস্’সালামু আ’লাইনা ওয়া আলা ই’বদিল্লাহিছ্ ছ্বালিহীন
(আমাদের জন্য এবং আল্লাহর নেক বান্দাদদদের জন্য আল্লাহর পহ্ম্ থেকে শান্তি অবতীর্ন হোক)।

আস্’সালামু আ’লাইনা=আমাদের জন্য শান্তি অবতীর্ন হোক
ওয়া আলা=এবং (তাদের) উপর
ই’বদিল্লাহিছ্ ছ্বালিহীন = আল্লাহর নেক বান্দাদের
ই’বদিল্লাহ= ইবদ হচ্ছে আবদ এর বহুবচল যার অর্থ বান্দা/গোলাম
ইবাদ- শুধু মাত্র আল্লাহর বান্দা/গোলাম এর ক্ষেত্রে ব্যবহ্যত হয় যেমন ইবাদুর রহমান, ইবাদউল্লাহ ইত্যাদি

আস-ছ্বালিহীন = ন্যায়পরায়ণ/ধার্মিক/সচ্চরিত্র বান্দা
আশহাদু আল্লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়া আশহাদু আন্না মুহাম্মাদান আবদুহু ওয়া রাসুলুহু(আমি সাহ্ম্ দিচ্ছি যে এক আল্লাহ ব্যতীত অন্য কোন উপাস্য নাই এবং মোহাম্মদ (দঃ) আল্লাহর বন্দা ও রাসুল।)

আশহাদু= মুল শব্দ শাহিদা হতে এসেছে যার অর্থ কোন কিছু স্বচক্ষে দেখা/
সাক্ষ্য দেওয়া/প্রমাণ করা যেমন: ·আমি সাক্ষ্য দিচ্ছিযে.
শাহিদ মানে এমন একজন যাকে সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য ডাকা হয় যিনি সচক্ষে দেখেছেন বা কিছু প্রমান করতে পারেন।

আরো দেখেন শহিদ- নিজেকে সবচেয়ে বর/চূড়ান্ত/অধিকতম ভাবে কোরবানি দেয় জীবন বিসর্জন দেয় সবকিছু ত্যাগ করে
আন= অর্থ যে বা যিনি

লা ইলাহা ইল্লাল্লা
লা= নেই/ না প্রধানত বোঝায় একেবারে না - অবশ্যই না - কোন সম্ভাবনা নেই এমন
ইলাহা= ইলাহ রব প্রভু বা উপাসনা/বন্দনা/সেবা/ভক্তি/শ্রদ্ধা
ইলা অর্থ ছাড়া
আল্লাহ
ওয়া= এবং
আশহাদু = আমি সাক্ষ্য দিচ্ছিযে, আমি প্রমান দিচ্ছি যে
আন্না= যে ( অবশ্যই)

এখানে জোর দেয়া হয়েছে কেন এখানে ? কারন প্রথম বাক্যে বিশেষ "লা" জোরালভাবে বা মনের উপর ছাপ রেখে এমন ভাবে প্রকাশ করে কিন্তু এখানে এই লা এর প্রয়োজন ছিল না কারন প্রথম বাক্যে বলা হয়েছে এং এখানে আবার লা বলার কারন যাতে এ দুটো বাক্যই সমান ভাবে জোরালো ভাবে বলা হয় মানে দুটোই সমান গুরুত্বপুর্ন আর এর মাধ্যমে দুটি বাক্যের মাঝে সামঞ্জস্য বজায় থাকে (সুবহানাল্লাহ)

মোহাম্মাদান= যার মুল শব্দ হচ্ছে হামদ মানে প্রশংসা করা - এমন একজন যাকে সমসময় প্রশংসা করা হয় (আহমেদ- যার প্রশংসা করা হয় খুবই সুন্দর আর বিশদ /সম্প্রসারিত ভাবে.

" মোহাম্মাদ " শব্দটি মাত্র চার বার কোরআনে বলা হয়েছে - মোহাম্মদ (সঃ) কে সরাসরি উল্লেখ করে নয় কিন্তা উনার সম্পর্কে বলতে গিয়ে (এবং এর মাঝে তিন বার রাসুল শব্দটি আছে একই আয়াতে)

লক্ষ্য করুন: কোরআনে যখন আল্লাহ অন্য নবীদের সম্পর্কে বলেন তিনি তাদের নামে সম্মোধন করেন যেমন ( ইয়া মুসা, ইয়া ইবরাহিম, ইয়া ঈসা) কিন্তু যখন মুহাম্মদ (সঃ) সম্পর্কে বলেন তখন তাহার শিরোনাম বা টাইটেল দিয়ে সম্মোধন করেন যেমন ইয়া নাবী, ইয়া রাসুল.

আবদুহু = মানে তাহার বাণ্দা/ ক্রীতদাস/গোলাম ,এটা অনেক শক্তিশালী. আমরা জানি নবী বলতে তাদেরকে বুঝায় যাদের স্থান সাধারন মানুষ হতে উপরে তবুও তারা আল্লাহন বাণ্দা/ ক্রীতদাস/গোলাম.

আভিজাত্য, উত্কর্ষ, মহত্ত্ব ,মর্যাদা ,সম্ভ্রম,উপাধি সকলই পাওয়া যায় আল্লহর বাণ্দা/ ক্রীতদাস/গোলাম হওয়ার মাধ্যমে.

ওয়া রাসুলুহু= এবং তাহার (আল্লাহর) বার্তাবহন কারী/দূত/সংবাদ বহন কারী। রাসুল মুল শব্দ বুঝায় ঊর্ধ্বতন/সর্বোচ্চ/সর্বোত্কৃষ্ট কারো কাছ থেকে কোন সংবাদ পাঠানো।

ভাষাগত পার্থক্য নবী ও রাসুলের মাঝে: কোরআনে যখন নবী ব্যবহার করা হয়েছে - তখন সাধারনত বুঝায় উচ্চ স্থান কে এবং গুরুত্বপুর্ন ও সম্পর্ক যুক্ত বার্তা/সংবাদ প্রদানে। নবী শব্দটি মানুষের প্রসঙ্গে বুঝান হয়েছে যেমন হে নবী...বলুন আপনার স্ত্রী দের.. বা বলুন বিশ্বাসী মহিলাদের ইত্যাদি।

কিন্তু যখন আলোচনা প্রসঙ্গ আল্লাহর হয় তখন রাসুল ব্যবহ্যত হয়েছে যেমন "বলুন হে মানব, নিশ্চয়ই আমি আল্লাহর রাসুল/ (সংবাদ বাহক ) যাকে তুমাদের জন্য প্রেরন করা হয়েছে" আবার যেমন বলা হয়েছে হে রাসুল আমার বা্র্তা প্রদান করুন/ ছরিয়ে দিন যা আপনার কাছে প্রকাশ করা হয়েছে


তাত্পর্য: আমরা দোয়াতে সর্বদা বহুবচন ব্যবহার করি - যা সাধারনত মুসলিম উম্মার একত্রতা/এক জাতি/ এক সত্বা হিসেব বোঝাতে জোর দেয়া হয়েছে.

উপকারিতা ১: নামাজের মাধ্যমে আমরা একতা প্রদর্শন করি অনুশীলন করি ও মনোযোগ দেই এক হবার জন্য- যখন সবাই নামাজে দাড়াই একে অপরের পাশে তখন বিবেচনা বা চিন্তা করিনা পাশের জনের অর্থ, বিত্ত, প্রভাব, শিক্ষা, ধনি গরিব, সাদা কালো ইত্যাদি সকলে এক কাতেরে এক সমান আল্লাহর কাছে.

উপকারিতা ২: আমরা দোয়া করতে গিয়ে যাতে স্বার্থপর না হই কিন্তু আমাদের কে বিচক্ষণতা ও সচেতনতার বাস্তবিক হতে হয়। আমরা আমাদের জন্য প্রথমে দোয়া করি তার পর বাকি সকল ঈমানদার মানুষের জন্য দোয়া করি। চিন্তা করে দেখুন যখন বিমানে/প্লেনে ইমারজেন্সি সমপকে বলা হয় তখন বলে অক্সিজেন মাস্ক নামার সাথে সাথে আগে নিজে পড়বেন তার পর আপনার পাশের জন কে পড়াবেন কোরআলে কি তাই বলে না ?? যেমন নিজেকে বাচাও এবং তোমার পরিবারকে বাচাও.

উপকারিতা ৩: আমরা কি সকল মানুষের জন্য দোয়া করি না কি কোন দলের মানুষের জন্য দোয়া করি? নিদ্দিস্ট দলের জন্য তা হল ই’বদিল্লাহিছ্ ছ্বালিহীন = আল্লাহর নেক বান্দাদের জন্য

সকল মুসলিম ঈমানদার বান্দা নামাজে দোয়া করছেন সমসময় পৃথিবী সবখানে. আমি যদি আমাকে মুসলিম ঈমানদার বান্দা হিসেবে ধরি তবে আমিও নিজেকে দোয়াতে যুক্ত করতে পারি সকল মুসলিম ঈমানদার বান্দাদের দোয়াতে সকল নামাজে সকল সময় পৃথিবী সবখানে পরবর্তী প্রজন্মের সময় ও পুর্ববর্তী প্রজন্মের সময়। সুভানাল্লাহ কত বড় নেয়ামত আল্লাহর বরকত আল্লাহর শিক্ষা কত মহান।

The Meaning of the Tashahhud -
Preview of Meaningful Prayer from Bayyinah
- AbdulNasir Jangda


বিদ্র: আমি যথা সাধ্য চেস্টা করছি কোরআন বা সহীহ হাদিসের রেফারেন্স + ছবি ও ভিডিও সহ দিতে . যদি ভুল ভ্রন্তি হয় ক্ষমার চোখে দেখবেন এবং আমাকে অবশ্যই জানাবেন যাতে শুধরে নিতে পারি। সাথে থাকুন ইনশাআল্লাহ পযায়ক্রমে বাকি গুলোও পোস্ট করব

অর্থপূর্ন ও বরকতময় নামাজ পুর্বের পোস্ট সমুহ দেখতে
Click This Link
সর্বশেষ এডিট : ১১ ই মে, ২০১২ বিকাল ৫:১২
৪টি মন্তব্য ৪টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

ফিতনা ফাসাদের এই জামানায় ঈমান বাঁচানো কঠিনতম কাজ

লিখেছেন নতুন নকিব, ১৮ ই জানুয়ারি, ২০২১ সকাল ৯:৪৬

ছবিঃ অন্তর্জাল।

ফিতনা ফাসাদের এই জামানায় ঈমান বাঁচানো কঠিনতম কাজ

পবিত্র কুরআনুল হাকিম ঘোষনা করেছে, কেয়ামত নিকটবর্তী। ইরশাদ হচ্ছে-

اقْتَرَبَتِ السَّاعَةُ وَانشَقَّ الْقَمَرُ

কেয়ামত আসন্ন, চন্দ্র বিদীর্ণ হয়েছে। -সূরাহ আল ক্কামার, আয়াত-০১

The Hour... ...বাকিটুকু পড়ুন

যাপিত জীবন কড়চাঃ শীতের পীঠে, হারানো ঐতিহ্য নাকি আরব্য রজনী?

লিখেছেন জাদিদ, ১৮ ই জানুয়ারি, ২০২১ দুপুর ১২:২১


গ্রামের একটা অদ্ভুত মজার ব্যাপার হচ্ছে ভোর পাঁচটা ছয়টার পর কিছুতেই আর ঘুমানো যায় না। যে ঘুম হয়ত এলার্ম ঘড়িও ভাঙাতে পারবে না, মোরগের ডাক ঠিকই সেই ঘুম ভেঙে... ...বাকিটুকু পড়ুন

অভিনন্দন জাফর ইকবাল স্যার, শেষ পর্যন্ত আপনার বস্তা-পচা আবেগের কাছে বৈজ্ঞানিক যুক্তির পরাজয় হলও !!!!

লিখেছেন মোস্তফা কামাল পলাশ, ১৮ ই জানুয়ারি, ২০২১ দুপুর ১:২৩



অভিনন্দন জাফর ইকবাল স্যার, শেষ পর্যন্ত আপনার বস্তা-পচা আবেগের কাছে বৈজ্ঞানিক যুক্তির পরাজয় হলও। আপনার প্রস্তাবিত ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলাতেই বাংলাদেশ সরকার ২১৩ কোটি টাকা খরচ করে মানমন্দির স্থাপনের সিদ্ধান্ত... ...বাকিটুকু পড়ুন

ফুটো নৌকা এবং রঙ মিস্ত্রী

লিখেছেন রাজীব নুর, ১৮ ই জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৩:১১



একজন রঙ মিস্ত্রীকে বলা হলো- নৌকাটি ভালো করে রঙ করে দেয়ার জন্য।
রং মিস্ত্রী নৌকা রং করতে গিয়ে দেখেন- নৌকার তলায় ছোট একটা ফুটো। রং মিস্ত্রি ভালো করে নৌকাটি... ...বাকিটুকু পড়ুন

অনলাইন ক্লাস পরিচালনার কলা কৌশল

লিখেছেন শায়মা, ১৮ ই জানুয়ারি, ২০২১ রাত ৯:০৬



"অনলাইন ক্লাস" ২০২০ এ এসে এই নতুন রকম ক্লাসের নামটি শুনতে কারো বাকী নেই। বেশ কিছু বছর ধরেই কাজ করছি বাচ্চাদের সাথে। যদিও পেশায় আমি লেখাপড়ার টিচার... ...বাকিটুকু পড়ুন

×