somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

যারা বলে ধর্ম এগিয়ে যাওয়ার অন্তরায়

২৯ শে নভেম্বর, ২০২১ দুপুর ১:৪৩
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



গায়ে ঢিলেঢালা লম্বা জামা।মাথায় সফেদ টুপি।মুখে লম্বা দাড়ি। সদা হাস্বজ্জ্বল একজন মানুষ তিনি ।চেহারায় আভিজাত্যের ছাপ লেগেই থাকে সবসময়।

" আচ্ছা, এপোশাক পড়েই আপনি মেডিকেল কলেজে ক্লাস নেন। চেম্বারে বসেন।মিটিং, কনফারেন্সে অংশগ্রহণ করেন। এজন্য কখনো ক বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়েননি?"
"না।এ পোশাকের কারনে আমি কখন বিব্রতকর অবস্থায় পড়িনি।এ পোশাক সম্মানের।এ পোশাক অনেক জায়গায় আমার সম্মানকে বৃদ্ধি করেছে।যারা হিনমন্যতায় ভুগে তারা এ পোশাকের কারনে বিব্রতকর পরিস্থিতি পড়ে।"
বলছিলাম একজন হাফেজ মাওলানা ডাক্তারের গল্প।তিনি আব্দুল বারী। ময়মনসিংহ CBMCB(কমিউনিটি বেজ্ড মেডিকেল কলেজ বাংলাদেশ)এর এসোসিয়েট প্রফেসর (ইন্টার্নাল মেডিসিন) আমাদের জানামতে বাংলাদেশে দ্বিতীয় এমন কেউ নেই যিনি হাফেজ মাওলানা হওয়ার পর পুনরায় মেডিকেলে পড়ে ডাক্তার হয়েছেন।

শৈশবের দুরন্তপনা,দুষ্টুমি, ডাংগুলি, ক্রিকেট সবকিছুতেই ফাস্ট হতেন তিনি। মাদরাসায় যখন হেফজখানায় পড়তেন তখন তার স্কুলের বন্ধুরা তাকে মাদরাসায় পড়ে বলে নাক সিটকাতো।সেই থেকে তার জিদ চেপে বসে।লেখা পড়াতেও সে তাদের থেকে এগিয়ে যাবে।সেই থেকে তার শুরু স্বপ্ন জয়ের পেছনে ছোটা। আর পেছনে ফিরে তাকাননি। হিফজ শেষ করে ভর্তি হোন মিরপুর ৬ নাম্বারের দারুল উলুমে।এরপর পাঁচ বছর পড়া লেখা করেন ঢাকার ঐতিহ্যবাহী জামিয়া শারইয়্যাহ মালিবাগে।এরপর চলে আসেন ময়মনসিংহে। ময়মনসিংহের জামিয়া ইসলামিয়া থেকে ভালো রেজাল্ট করে দাওরায়ে হাদীস উত্তীর্ণ হলেন ১৯৯১সনে।১৯৯০ এ এসএসসি। ১৯৯২ তে আনন্দমোহন কলেজ ময়মনসিংহ থেকে এইস এস সি তে স্টার মার্কস পেয়ে উত্তীর্ণ হোন। এরপর ভর্তি হোন ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে।সেখান থেকে ২০০০ সনে MBBS এবং ঢাকা ভার্সিটি থেকে ২০১২ সনে MD(doctor of medicine in internal) করেন।
তিনি হাফেজ হোন ১৯৮২ সনে। সেই সময় থেকে ৩৭ বৎসর যাবত তিনি খতমে তারাবির ইমাম।হাফেজ হওয়ার পর থেকে ২০০০সন পর্যন্ত আসাদ গেইটের কাছাকাছি নিউ কলোনিতে তারাবির ইমামতি করতেন। ২০০০সন থেকে বাসাতেই বাবা মা পরিবারকে নিয়ে তারাবির ইমামতি করছেন।
তারাবীকে কেন্দ্র করে বাসায় মাগরিবের পর থেকেই তৈরী হয় নুরানী এক পরিবেশ। তিনি কুরআন তেলাওয়াতে মগ্ন থাকেন। মার তর্জনী ঘুরতে থাকে তাসবির দানায়। শিশুরা জায়নামাজে বসে থাকেন তারাবির অপেক্ষায়।তারাবির পর পঠিত আয়াতগুলোর ওপর সংক্ষিপ্ত তাফসীরও পেশ করেন।আলোচনা করেন বিভিন্ন মাসআলা মাসায়িল নিয়েও।
তার বাবা ইন্তেকাল করেছেন। ৯৫ বৎসর বয়সী বৃদ্ধা মা এখনো হাফেজ, আলেম ছেলের পেছনে তারাবি আদায় করেন।আব্দুল বারী পহেলা রমজানে তার মাকে নিয়ে একটি আবেগঘন স্ট্যাটাস দেন,
"আলহামদুলিল্লাহ।৯৫ বছরের বৃদ্ধা আম্মা কে সাথে নিয়ে ঘরোয়া খতম তারাবীহর নামাজ আদায় করতে পারার প্রশান্তি অন্য রকমের.....
সুম্মা আলহামদুলিল্লাহ।"তার আম্মাও খুব গর্ববোধ করেন ছেলের পেছনে তারাবির নামাজ পড়তে পেরে।
"সেই সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত হাসপাতালের ডিউটি ক্লাস,অফিস,চেম্বার এত ব্যস্ততার মাঝেও তারাবি পড়ান কীভাবে?"
"সারা বছর কুরআন তেলাওয়াতের যেভাবে হক আদায় করা উচিত সেভাবে তেলাওয়াত করতে পারি না। তাই শত ব্যস্ততার মাঝেও রমযানে খতমে কুরআনের তারাবিহ পড়াই, যাতে এ উসিলায় কুরআন তেলাওয়াতের কিছুটা হক আদায় হয়। এতে কুরআনের হিফজটাও ঠিক থাকে।
এর দ্বারা বাসায় একটা কুরআনী পরিবেশও তৈরি হয়।এ সময়টাতে সত্যিকারের অর্থে আত্মিক একটা প্রশান্তি পাই। যা ভাষায় প্রকাশ করার মত না।"

তিনি কিছু দিন আগে খুব আবেগ আপ্লুত হয়ে আমাদেরকে শোনান,আরেকটি খুশির সংবাদ। করোনায় ছেলে সাদ আবদুল্লাহর স্কুল বন্ধ থাকায় বাসাতে যেনো তার সময়ের সঠিক ব্যবহার হয় তাই তাকে কুরআন হিফজ করাতে শুরু করেন,আলহামদুলিল্লাহ, এক বছরেই ছেলে সাদ আবদুল্লাহ বাসাতে পড়েই হিফজ সম্পন্ন করেন।এবং রমজানে কয়েক রাকাত করে তারাবীর নামাজও পড়ান।
তিনি ২০১৮ এর অক্টোবরে দক্ষিণ আফ্রিকায় WICM (ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস অফ ইন্টার্নাল মেডিসিন)এর একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে অংশ গ্রহণ করেন। তিনি দক্ষিন আফ্রিকারকেপটাউন,জোহানসবার্গ,প্রিটোরিয়া,সানসিটি সহ ভারতের বেশ কয়েকটি রাজ্য, আমেরিকা ও সৌদি আরবে একদিকবার সফর করেন।স্ত্রীকে সাথে নিয়ে হজ্জব্রতও পালন করেন একাধিক বার।

তিনি প্রতি বৎসর তার CBMCB কলেজের ছাত্র শিক্ষকদের নিয়ে সীরাত ও বৈচিত্র্যময় ইসলামী প্রতিযোগিতার আয়োজন করেন।ছাত্র ছাত্রীরা ব্যপক উৎসাহের সাথে এতে অংশগ্রহণ করেন।

আব্দুল বারী মেডিকেলের শিক্ষক হলেও শিকড় তাঁর কওমীতে।তিনি মনে করেন,তাঁর মত শত শত মেধাবী ছাত্র আছে কওমীতে।দাওরার পর তাদের একটা অংশ যদি মেডিকেল সাইন্স, ইঞ্জিনিয়ারিং, আইন ইত্যাদিতে পড়া লেখা করে তাহলে তারা দেশ ও জাতির আরো ব্যপকভাবে কল্যাণ বয়ে আনতে সক্ষম হবে।
তিনি মনে করেন,বর্তমান মুসলিম প্রজন্মের বিশাল একটি অংশ পরিপুর্ণ কুরআন সুন্নাহ অনুযায়ী জীবন যাপন করছে না। জীবনে প্রকৃত সফল হতে হলে আমাদেরকে কুরআন সুন্নার কাছে ফিরে আসতে হবে।
আব্দুল বারী সারাদিনের কর্ম ব্যস্ততার মাঝেও ময়মনসিংহের স্বনামধন্য এক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পার্ট টাইম হাদীসের দরস দেন।
একজন ডাক্তার আলেমের কন্ঠে তখন "কালা হাদ্দাসানা" র সুর জীবন্ত থেকে আরো জীবন্ত হয়ে উঠে।আব্দুল বারীর ভ্রমণ খুব প্রিয়।অবসর পেলে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় লেখা লেখিও করেন।

মুজীব রাহমান।
সর্বশেষ এডিট : ২৯ শে নভেম্বর, ২০২১ দুপুর ১:৪৪
১৪টি মন্তব্য ৭টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

বাংলাদেশে কি ইনফ্লেশান শুরু হয়েছে?

লিখেছেন সোনাগাজী, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ সকাল ১০:০৩



আমি দেশ থেকে দুরে আছি, দেশের কি অবস্হা, ইনফ্লেশান কি শুরু হয়েছে? কোভিড ও ইউক্রেন যুদ্ধ মিলে ইউরোপ, আমেরিকাকে ভয়ংকর ইনফ্লেশানের মাঝে ঠেলে দিয়েছে; বাংলাদেশে ইহা এখন... ...বাকিটুকু পড়ুন

ছদ্মবেশী রম্য!!!

লিখেছেন ভুয়া মফিজ, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ সকাল ১০:৩৪



আমার ফেসবুকে একটা নামমাত্র একাউন্ট আছে। সেখানে যাওয়া হয় না বলতে গেলে। তবে ইউটিউবে সময় পেলেই ঢু মারি, বিভিন্ন রকমের ভিডিও দেখি। ভিডিওগুলোর মন্তব্যে নজর বুলানো আমার একটা অভ্যাস। সেখানে... ...বাকিটুকু পড়ুন

ঘোওওল....মাখন.....মাঠায়ায়ায়া.....

লিখেছেন জুল ভার্ন, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ দুপুর ২:৪৬

ঘোওওল....মাখন.....মাঠায়ায়ায়া.....

আমার ছোট বেলায় আমাদের এলাকায় ২/৩ জন লোক বয়সে প্রায় বৃদ্ধ, ঘোল-মাখন বিক্রি করতেন ফেরি করে। তাঁদের পরনে থাকত ময়লা ধুতি মালকোঁচা দেওয়া কিম্বা ময়লা সাদা লুংগী পড়া। খালি পা।... ...বাকিটুকু পড়ুন

পাঠের আলোচনায় ব্লগারদের বই!

লিখেছেন মনিরা সুলতানা, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ বিকাল ৫:২৬

আমার আত্মজরা আমার চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের মাঝে যে বৈশিষ্ট্য নিয়ে মাঝেমাঝে হতাশা প্রকাশ করে! সেটা হচ্ছে আমার খুব অল্পে তুষ্ট হয়ে যাওয়া ( আলাদা ভাবে উল্লেখ করেছে অবশ্যই তাদের... ...বাকিটুকু পড়ুন

'সহবাসের জন্য আবেদন'...

লিখেছেন নান্দনিক নন্দিনী, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ রাত ১০:১৯



রোকেয়া হলে আবাসিক ছাত্রী হিসেবে দীর্ঘ ৭বছর কেটেছে। হলের নানা গল্পের একটা আজ বলি। হলের প্রতিটি কক্ষে ৪টা বেড থাকলেও থাকতে হতো ৫জনকে। মানে রুমের সব থেকে জুনিয়র দুইজনকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

×