somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

বাংলাদেশ: ফিরে দেখা ১৫ আগস্ট

১৫ ই আগস্ট, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:০৪
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


সহজলভ্য রেফারেন্সের অভাবে বাংলাদেশের ইতিহাসের অনেক ঘটনা বিভিন্ন ব্যক্তি বিভিন্নভাবে বিশ্লেষণ করেন। এতে ইচ্ছায় বা অনিচ্ছায় বাংলাদেশের ইতিহাস বিকৃত হচ্ছে, সৃষ্টি হচ্ছে অসংখ্য বিতর্কের। তাই ইতিহাসের উল্লেখযোগ্য ঘটনার তথ্য সহজলভ্য করার উদ্দেশ্যে 'ফিরে দেখা বাংলাদেশ' সিরিজ। প্রায় সব তথ্য যাচাই-বাচাই করে দেশের প্রধান সংবাদপত্রসমূহ থেকে নেয়া হয়েছে।
বাংলাদেশের ইতিহাসে ১৫ আগস্ট ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য রাজনৈতিক ও সামাজিক ঘটনাবলি:

১৯৭১
====
মুক্তিবাহিনীর গেরিলাদের দুঃসাহসিক অপারেশন জ্যাকপট।
চট্টগ্রামে সমরসরঞ্জাম ভর্তি দুটো জাহাজ এম ভি আল আব্বাসএম ভি হরমুজ এবং ওরিয়েন্ট বার্জে লিমপেট মাইনের সাহায্যে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ২০,৫৯৬ টন যুদ্ধোপকরণ বিনষ্ট।

১৯৭২
====
নারায়ণগঞ্জ-ডেমরা রোডে বাস দুর্ঘটনায় নিহত ১০ ও আহত ৩৫।

১৯৭৩
====
পার্বত্য চট্টগ্রামে লামা থানার ফৈথান ফাঁড়িতে হামলা।

১৯৭৫
====


১। খুব ভোরে সামরিক বাহিনীর একটি অংশের ক্যুতে প্রেসিডেন্ট শেখ মুজিবর রহমান ও তাঁর পরিবারের সদস্যগণ নিহত। খন্দকার মুশতাক আহমেদের রাষ্ট্রপতির দায়িত্বগ্রহণ। দেশে সামরিক আিন জারি। বিগত মন্ত্রিপরিষদের ভাইস প্রেসিডেন্ট, ১০ জন মন্ত্রী ও ৬ জন প্রতিমন্ত্রী পুনর্ভাল। খন্দকার মুশতাকের সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠক।
বাংলার ইতিহাসে আজ সেই তারিখ! বৃষ্টিঝরা শ্রাবণের অন্তিম দিনে সেদিন বৃষ্টি নয় রক্ত ঝরেছিলো। বাংলার ছাপ্পান্ন হাজার বর্গমাইলের মতো বিশাল তাঁর বুক থেকে রক্তগোলাপের মতো লাল রক্ত ঝরেছিলো ঘাতকের বুলেটে।
- - - - - - - -
২। পাকিস্তান কর্তৃক বাংলাদেশের নতুন সরকারকে সমর্থন দান।

১৯৭৬
====
১। জোটনিরপেক্ষ সন্মেলনের রাজনৈতিক কমিটিতে বাংলাদেশ প্রতিনিধি এম আর সিদ্দিকীর ভাষণ।
২। প্রেসিডেন্টের অনুপস্থিতে দায়িত্বপালনের বিধি জারি।

১৯৭৯
====
১। কক্সবাজার উপকূলে ঘূর্ণিঝড়, ৫০টি লাশ উদ্ধার।
- - - - - - - -
২। একটি রাজনৈতিক মহলের ১৫ আগস্ট শোক দিবস পালন এবং অপর রাজনৈতিক মহলের নাজাত দিবস পালন।

১৯৮০
====
জাকাতের কাপড় নিতে ঢাকার জুরাইনে ভিড়ের চাপে ১৩ জনের মৃত্যু।

১৯৮১
====
চট্টগ্রাম বিদ্রোহ ও জিয়া হত্যার দায়ে সেনাবাহিনীর ৩১ জন অফিসার অভিযুক্ত।

১৯৮৪
====
বায়তুল মোকাররমে আওয়ামী লীগের সভায় বোমাবাজি, প্রহারে এক ব্যক্তি নিহত।

১৯৯২
====
১। ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বিল বাতিলের দাবীতে সারাদেশে আওয়ামী লীগের ডাকে অর্ধদিবস হরতাল ও জাতীয় শোকদিবস পালিত।
- - - - - - -
২। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগ-ছাত্রদল সংঘর্ষ।

১৯৯৩
====
শেখ মুজিবের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে সারাদেশে আওয়ামী লীগের ডাকে অর্ধদিবস হরতাল পালিত।

১৯৯৪
====
শেখ মুজিবের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে সারাদেশে আওয়ামী লীগের ডাকে অর্ধদিবস হরতাল পালিত।

১৯৯৯
====
চীনের ইউনান প্রদেশের কুনমিং শহরে বাংলাদেশ, ভারত, মায়ানমার ও চীনের মধ্যে অর্থনৈতিক পরাশক্তির মোকাবেলায় ৩য় বৃহত্তম বাণিজ্যগোষ্ঠী গড়ে তোলার আলোচনা।

২০০১
====
১। রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বঙ্গবন্ধু হত্যার দিনে জাতীয় শোক দিবস পালন।
- - - - - - - -
২। বরিশালে জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে হামলা।
- - - - - - - -
৩। ফেনীতে ছাত্রলীগ ও ছাত্রদলের বন্দুকযুদ্ধে নিহত ১।
- - - - - - - -
৪। 'গত দশ বছরে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের ৬.৫ বিলিয়ন ডলার বাণিজ্য ঘাটতি।'—দ্য ফিন্যানশ্যাল এক্সপ্রেস

২০০২
====
জমিসংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে ঢাকার মালিবাগে টিঅ্যান্ডটি কর্মচারী ও আনসারদের সঙ্গে মাদ্রাসা ছাত্রদের সংঘর্ষে গুলিতে চারজন নিহত।
- - - - - - - -
আওয়ামী লীগের আহবানে দেশব্যাপী অর্ধদিবস হরতাল পালিত।

২০০৩
====
১। জয়পুরহাটে জমিয়াতুল মুজাহিদীন বাহিনীর সঙ্গে পুলিশের যুদ্ধ।
- - - - - - - -
২। ঢাকায় বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে বোমা বিস্ফোরণে একজন নিহত।

২০০৪
====
বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার রায় কার্যকর করার দাবীতে ৬ট-১২টা হরতাল।

২০০৬
====
১। ১৫ আগস্টের অনুষ্ঠানকে ঢাকায় কামরাঙ্গীরচরে বিএনপি-আ.লীগের সংঘর্ষ, পুলিশের গাড়িতে ভস্মীভূত।
- - - - - - - -
২। শোকদিবস বাতিলের প্রতিবাদে আ.লীগসহ ১৪ দলের আহবানে দেশব্যাপী অর্ধদিবস হরতাল।
- - - - - - - -
৩। ঢাকায় মিরপুরে সন্ত্রসীদের গুলিতে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা হাজী মনির উদ্দীন মনু (৩২) নিহত।[
- - - - - - - -
৪। খালেদা জিয়ার ৬২তম জন্মদিন। সরকারি নথিপত্রে তাঁর পাঁচটি জন্মদিনের তারিখ পাওয়া যায়!
i) ঢাকা থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক আনন্দপত্র পত্রিকায় ১৯৯১ সালের ১৮ জানুয়ারি প্রকাশিত সাক্ষাৎকারে খালেদা জিয়ার বাবা মোহাম্মদ ইস্কান্দার মজুমদারের বরাত দিয়ে বলা হয়, ১৯৪৫ সালের ৫ সেপ্টেম্বর খালেদা জিয়া জন্মগ্রহণ করেন
ii) ২০০০ সালের ১৭ আগস্ট দৈনিক মাতৃভূমি পত্রিকায় প্রকাশিত হয়, শিক্ষাবোর্ড সূত্রে পরীক্ষার রেকর্ড অনুযায়ী তাঁর জন্মদিন ১৯৪৬ সালের ৫ সেপ্টেম্বর।
iii) প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণের পর সরকারি তথ্য বিবরণী অনুযায়ী তাঁর জন্মদিন ১৯৪৭ সালের ১৯ আগস্ট
iv) পরবর্তী সময়ে প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার তথ্য সচিবের দৈনিক বাংলায় প্রদত্ত তথ্যানুযায়ী তাঁর জন্ম ১৯৪৭ সালের ১৫ আগস্ট
v) প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সাথে বিয়ের কাবিননামা অনুযায়ী সর্বশেষ ভোটার তালিকায় দেওয়া তথ্যে তাঁর জন্ম তারিখ ১৯৪৬ সালের ১৫ আগস্ট

২০০৭
====
১। বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে রাষ্ট্রপতি ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ, প্রধান উপদেষ্টা ফখরুদ্দীন আহমেদ ও তিন বাহিনীপ্রধান জেনারেল মইন ইউ আহমেদের শ্রদ্ধার্ঘ্য। সীমিত কর্মসূচীতে অন্যদের মৃত্যুবার্ষিকী পালন।
- - - - - - - -
২। ডিইপিজেডে শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষ, আহত ৫০।
- - - - - - - -
৩। শাহজাহান সিরাজের ছেলের বউয়ের ছয় বছর জেল।
- - - - - - - -
৪। সুরকার প্রণব ঘোষ (৫৭)-এর মৃত্যু।

২০০৮
====
১। দুর্নীতি নির্মূল সম্ভব নয় প্রতিকারের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে : হাসান মশহুদ চৌধূরী
‘বাস্তবতার কারণেই দুর্নীতি দমন বা নির্মূল করা সম্ভব নয়, প্রতিরোধের মাধ্যমে এই সমস্যাকে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসতে হবে ’-এ মন্তব্য দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব) হাসান মশহুদ চৌধূরীর। বিগত দেড় বছরেরও বেশি সময় ধরে সাংবিধানিক এই প্রতিষ্ঠানের শীর্ষ পদে দায়িত্ব পালনকারী বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সাবেক এই শীর্ষ কর্মকর্তা মনে করেন দুর্নীতি দমন ও প্রতিরোধ একইসঙ্গে চালিয়ে যাওয়া উচিত। তবে প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধ কার্যক্রমকেই অগ্রাধিকার দেয়া উচিত। এক্ষেত্রে বিদ্যমান আইনি কাঠামোর বাইরে গিয়ে জনসচেতনতা সৃষ্টির মাধ্যমেই বেশি সুফল পাওয়া সম্ভব।
- - - - - - - -
২। জাতীয় শোকদিবসে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে রাষ্ট্রপতি ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ, প্রধান উপদেষ্টা ফখরুদ্দীন আহমেদের শ্রদ্ধা নিবেদন। ।
- - - - - - - -
৩। রাজধানীতে যাত্রীবাহী বাসে ডাকাতি আটক ১১।

২০০৯
====
১। দশ ট্রাক অস্ত্র আটক মামলা : এনএসআইয়ের সাবেক দুই প্রধান আসামি হচ্ছেন নতুন সাতজনসহ আসামি হচ্ছে ৫০


চট্টগ্রামের ইউরিয়া সার কারখানার (সিইউএফএল) জেটিঘাটে প্রায় পাঁচ বছর আগে ১০ ট্রাক অস্ত্র ও গোলাবারুদ আটকের ঘটনার অধিকতর তদন্ত প্রায় শেষ পর্যায়ে। পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) দুজন জ্যেষ্ঠ সহকারী সুপার (এএসপি) গত ১৬ মাসে পর্যায়ক্রমে আলোচিত এ মামলার চতুর্থ দফা তদন্ত করেন। পুনঃতদন্তে অস্ত্রের উত্স, গন্তব্য, অর্থায়ন এবং অস্ত্র পরিবহনের পুরো প্রক্রিয়া উদ্ঘাটন করা হয়েছে বলে দাবি করছে সংশ্লিষ্ট সূত্র। বিগত চারদলীয় জোট সরকারের আমলে তিনজন তদন্ত কর্মকর্তা মামলাটি তদন্ত করেন। কিন্তু তাঁদের তদন্তে এসব বিষয়ের উল্লেখ এবং স্পষ্টতা ছিল না। এ কারণে গত বছরের ১২ ফেব্রুয়ারি আদালতের নির্দেশে মামলার অধিকতর তদন্ত শুরু হয়।
অধিকতর তদন্তের সঙ্গে সম্পৃক্ত কর্মকর্তারা জানান, সার্বিক পরিস্থিতি না বদলালে সর্বশেষ গ্রেপ্তার সাতজনকেই আসামি করা হচ্ছে। ফলে সম্পূরক অভিযোগপত্রে মোট আসামির সংখ্যা হবে ৫০। জোট সরকারের আমলে তিনজন তদন্ত কর্মকর্তা তদন্ত ও অধিকতর তদন্ত শেষে একবার অভিযোগপত্র এবং দুই দফায় সম্পূরক অভিযোগপত্র দেন। আসামির সংখ্যা ছিল ৪৩।
নতুন যে সাতজন আসামি হচ্ছেন তাঁরা হলেন—এনএসআইয়ের সাবেক দুই মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) এম আবদুর রহিম চৌধুরী ও মেজর জেনারেল (অব.) রেজ্জাকুল হায়দার চৌধুরী, সাবেক পরিচালক (নিরাপত্তা) উইং কমান্ডার (অব.) সাহাব উদ্দীন আহমদ, উপপরিচালক মেজর (অব.) লিয়াকত হোসেন, মাঠ কর্মকর্তা আকবর হোসেন খান এবং সিইউএফএলের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মহসিন উদ্দীন চৌধুরী ও সাবেক মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) এ কে এম এনামুল হক। তাঁরা এখন চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে আছেন।
- - - - - - - -
২। বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার আপিল শুনানির বিশেষ উদ্যোগ
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ৩৪ বছর আগে এই দিনে সপরিবারে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। ঘটনার ২১ বছর পর বিচারপ্রক্রিয়া শুরু হলে ১৩ বছরেও এই মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তি হয়নি। সরকার সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে শুনানির বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছে। ঈদ ও পূজার দীর্ঘ ছুটির আগে যাতে শুনানি শুরু হয়, সেই চেষ্টা করছে সরকারপক্ষ।
১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু নিহত হলেও দীর্ঘদিন এই ঘটনার বিচার হয়নি। ১৯৯৬ সালে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর শুরু হয় বিচার কার্যক্রম। ১৯৯৮ সালের ৮ নভেম্বর বিচারিক আদালত রায় ঘোষণা করেন। রায়ে ১৫ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়। এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল ও মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিতকরণের শুনানি হয় হাইকোর্টে। হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ এই মামলায় দ্বিধাবিভক্ত রায় দেন। পরে তৃতীয় বেঞ্চ ২০০১ সালের ৩০ এপ্রিল ১২ জনের মৃত্যুদণ্ড অনুমোদন করে রায় দেন। এই রায়ের বিরুদ্ধে আসামিদের আপিল গত আট বছর সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে ঝুলে রয়েছে।
বিগত চারদলীয় জোট সরকারের আমলে পাঁচ বছর আপিল বিভাগে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার শুনানির কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে করা আসামিদের আপিল অনুমতির আবেদন (লিভ টু আপিল) বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে এসে শুনানি হয়। ২০০৭ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর মৃত্যুদণ্ড পাওয়া পাঁচ আসামির আপিল অনুমতির আবেদন মঞ্জুর হয়। ওই বছরের ৩০ অক্টোবরের মধ্যে প্রয়োজনীয় সব কাগজপত্র জমা দিয়ে নিয়মিত আপিল করতে আসামিপক্ষকে নির্দেশ দেওয়া হয়। আসামিপক্ষ যথাসময়ে মামলার শুনানি করতে যেসব কাগজপত্র প্রয়োজন তা আপিল বিভাগে জমা দেন। এরপর দেড় বছর পার হলেও আপিল শুনানি হয়নি।
বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পরেও গত আট মাসে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার আপিল শুনানির উল্লেখযোগ্য কোনো অগ্রগতি হয়নি। গত জানুয়ারিতে বর্তমান সরকার ক্ষমতা গ্রহণের পর আপিল বিভাগের বিচারক সংকট দূর করতে গত ১৪ জুলাই চারজন বিচারক নিয়োগ দেওয়া হয়। রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের আইনজীবীরা বলেছেন, এখন আর বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার শুনানির জন্য বিচারপতি সংকট নেই। তবে হত্যা মামলার সারসংক্ষেপ আদালতে জমা না দেওয়ায় এখনো শুনানির জন্য বেঞ্চ গঠন করা হয়নি।
- - - - - - - -
৩। বঙ্গবন্ধুর ছয় খুনির বিরুদ্ধে ফের ইন্টারপোলের পরোয়ানা একজনের ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের তথ্য
বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ১২ আসামির মধ্যে পাঁচজন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে আছেন। একজন বিদেশে মারা গেছেন। বিদেশে পলাতক বাকি ছয় আসামির বিরুদ্ধে ১০ বছর ধরে ইন্টারপোলের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি (রেড নোটিশ) ছিল। কিন্তু এটি নবায়ন না করায় মাঝে ১৫ মাস এই ছয় আসামি বিরুদ্ধে পরোয়ানা ছিল না। গত জানুয়ারিতে আবার তাঁদের বিরুদ্ধে ইন্টারপোল পরোয়ানা জারি করে।
পরোয়ানা জারির পরই পলাতক এক আসামি লে. কর্নেল (অব.) এম এ রাশেদ চৌধুরীর ব্যাপারে ইন্টারপোলের মাধ্যমে বাংলাদেশকে তথ্য জানায় যুক্তরাষ্ট্র। বাংলাদেশের ইন্টারপোল শাখা জানায়, গত ২১ জুন আনুষ্ঠানিক খবর আসে ওয়াশিংটনে অবস্থানকারী রাশেদ চৌধুরী যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ী বসবাসের অনুমতি চেয়ে আবেদন করেছেন। বাংলাদেশ তাঁর ব্যাপারে কী ভাবছে জানতে চায় যুক্তরাষ্ট্র। জবাবে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে তাঁর অবস্থান চিহ্নিত ও গ্রেপ্তার করার অনুরোধ জানানো হয়। একই সূত্র জানায়, পররাষ্ট্র ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের হোমল্যান্ড সিকিউরিটি বিভাগের সঙ্গেও এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হচ্ছে।
পলাতক বাকি পাঁচ আসামি লে. কর্নেল (অব.) খন্দকার আবদুর রশিদ, লে. কর্নেল (অব.) শরিফুল হক ডালিম, লে. কর্নেল (অব.) এম এইচ বি নূর চৌধুরী, ক্যাপ্টেন (অব.) আবদুল মাজেদ ও রিসালদার মোসলেম উদ্দিনের ব্যাপারেও খোঁজ নেওয়া হয়েছে।
বহিসংযোগ → প্রথম আলো : ১৫-০৮-২০০৯

২০১০
====
১। বঙ্গবন্ধুর ছয় খুনি কোথায়


বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মস্বীকৃত খুনিদের দেশে ফিরিয়ে আনতে সরকার যুক্তরাষ্ট্রসহ কয়েকটি দেশের সহায়তা চেয়েছে। অবস্থান নিশ্চিত হওয়া খুনিদের বিষয়ে প্রত্যর্পণ চুক্তি সই করাসহ তাঁদের ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে কূটনৈতিক যোগাযোগ হচ্ছে। অন্যদিকে, অবস্থান নিশ্চিত হতে না পারা খুনিদের ব্যাপারে ইন্টারপোলের সহায়তা চাওয়া হয়েছে।
বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ১২ জন আসামির মধ্যে ছয়জন প্রায় এক যুগ ধরে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। তাঁরা হলেন খন্দকার আবদুর রশিদ, শরিফুল হক ডালিম, এ এম রাশেদ চৌধুরী, এস এইচ এম বি নূর চৌধুরী, আবদুল মাজেদ ও মোসলেম উদ্দিন। তাঁরা সবাই সাবেক সেনা কর্মকর্তা। পলাতক অবস্থায় মারা গেছেন আরেক আসামি আজিজ পাশা। এ ছাড়া পাঁচজন কারাবন্দী আসামি সৈয়দ ফারুক রহমান, সুলতান শাহরিয়ার রশিদ খান, মুহিউদ্দিন আহমেদ (আর্টিলারি), বজলুল হুদা ও এ কে এম মহিউদ্দিন আহমেদের (ল্যান্সার) মৃত্যুদণ্ড গত ২৭ জানুয়ারি কার্যকর হয়।
কূটনৈতিক সূত্রে জানা গেছে, পালিয়ে থাকা ওই সব খুনি যুক্তরাষ্ট্র, লিবিয়া ও কানাডায় অবস্থান করছেন। তবে মন্ত্রণালয়ের কাছে দুজনের ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট তথ্য আছে। তাঁদের মধ্যে লে. কর্নেল এ এম রাশেদ চৌধুরী এখন যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসে অবস্থান করলেও কানাডায় রাজনৈতিক আশ্রয় নেওয়ার চেষ্টা করছেন। বেশ কিছুদিন জার্মানিতে লুকিয়ে থাকার পর লে. কর্নেল এস এইচ এম বি নূর চৌধুরী এখন রয়েছেন কানাডায়। পলাতক বাকি চারজন কে কোথায় অবস্থান করছেন—এ ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট ও আনুষ্ঠানিক কোনো তথ্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে নেই। তবে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, তাঁরা লিবিয়া ও পাকিস্তানে অবস্থান করছেন। তাঁদের মধ্যে লে. কর্নেল খন্দকার আবদুর রশিদ অবস্থান করেন মূলত লিবিয়ার বেনগাজি শহর ও পাকিস্তানে। লে. কর্নেল শরিফুল হক ডালিমের ব্যবসাসহ বিভিন্ন কর্মকাণ্ড কেনিয়াকে কেন্দ্র করে পরিচালিত হলেও তিনি মাঝেমধ্যে লিবিয়া ও পাকিস্তানে যাওয়া-আসা করেন।
- - - - - - - -
২। কেক কেটে জন্মদিন পালন করলেন খালেদা জিয়া
বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার ৬৬তম জন্মদিন আজ। গতকাল দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে গুলশান কার্যালয়ে দলীয় নেতা-কর্মীদের নিয়ে চারটি কেক কেটে জন্মদিন পালন করেন তিনি। এ সময় ঢাকা সিটি করপোরেশনের মেয়র ও বিএনপির নেতা সাদেক হোসেন খোকা, আবদুস সালাম, জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক আমিরুল ইসলাম, মহিলা দলের সভাপতি নূর-ই-আরা সাফা ও সাধারণ সম্পাদক শিরিন সুলতানা এবং স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান ও সাধারণ সম্পাদক সারাফাত আলীসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।
দলীয় নেতা-কর্মীরা এ সময় খালেদা জিয়াকে ফুল দিয়ে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানান এবং তাঁর দীর্ঘায়ুর জন্য বিশেষ মোনাজাত করা হয়।
এর আগে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে রাত ১২টা এক মিনিটে দলের মহাসচিব খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন কেক কেটে খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালন করেন। এক প্রশ্নের জবাবে খোন্দকার দেলোয়ার বলেন, মানুষের জন্ম-মৃত্যু একটি স্বাভাবিক ব্যাপার। এর ওপর মানুষের কোনো হাত নেই।
- - - - - - - -
৩। ইব্রাহিম হত্যাকাণ্ড : সাংসদের গাড়ি ও পিস্তল জব্দ করেছে পুলিশ
আওয়ামী লীগের কর্মী ইব্রাহিম আহমেদ নিহত হওয়ার ঘটনায় ভোলা-৩ আসনের সরকারি দলের সাংসদ নুরুন্নবী চৌধুরী শাওনের লাইসেন্স করা পিস্তল ও পাজেরো গাড়িটি জব্দ করেছে পুলিশ। মামলা দায়েরের পর এসব জব্দ করা হয়। ইব্রাহিমের মৃত্যুর ঘটনায় তাঁর স্ত্রী রীনার দায়ের করা অভিযোগ পুলিশ গ্রহণ করেনি। রীনা জানান, অভিযোগ নিয়ে তিনি শেরেবাংলা নগর থানায় গেলে পুলিশ তাঁকে জানান, একটি অপমৃত্যু মামলা হওয়ায় নতুন করে আর কোনো মামলার দরকার নেই।
- - - - - - - -
৪। ছাত্রলীগের একপক্ষ অন্যপক্ষের কর্মীকে দোতলা থেকে ফেলে দিল
ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের ধরে এবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের একপক্ষ অপরপক্ষের কর্মীকে দোতলা থেকে ফেলে দিয়েছে। ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক-সমর্থিত এক কর্মীকে পিটিয়ে আহত করে দোতলা থেকে ফেলে দিয়েছে সভাপতি-সমর্থিত ছাত্রলীগের কর্মীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের শাহ মখদুম (এসএম) হলে এ ঘটনা ঘটে। আহত ওই ছাত্রলীগের কর্মীর নাম নাসরুল্লাহ নাসিম।
মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল খায়ের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ছাত্রলীগের দুজন কর্মীকে আটক করা হয়েছে। তাদের থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।
- - - - - - - -
৫। যশোরে সাংসদের হাতে ওসি লাঞ্ছিত
যশোরের শার্শায় সরকারদলীয় সাংসদের হাতে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লাঞ্ছিত হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার পারুইখুপি গ্রামে বিএনপির কর্মী আবদুল হামিদ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মামলা নেওয়ায় ওসি লাঞ্ছিত হয়েছেন বলে তাঁর দায়ের করা সাধারণ ডায়েরি (জিডি) থেকে জানা গেছে।
মামলা নেওয়াকে কেন্দ্র করে লাঞ্ছিত হওয়ার অভিযোগে স্থানীয় সাংসদ শেখ আফিল উদ্দীনের বিরুদ্ধে করা জিডিতে ওসি উল্লেখ করেন, ‘মামলার কপি নিয়ে সাংসদ শেখ আফিল উদ্দীন তাঁর জুট মিলের অফিসে ডেকে নিয়ে বলেন, “আমারে না জানিয়ে বিএনপি কর্মীদের মামলা নিলি কেন? ওই মামলায় আমার লোকজনরে ফাঁসিয়ে কাজটি তুই ভালো করিসনি।” এ সময় সাংসদ এসে গালে থাপ্পড় মেরে জামা ছিঁড়ে দেন। এ সময় তিনি বলেন, সকালের মধ্যে শার্শা থানা না ছাড়লে আমার লোকজন দিয়ে তোকে খুন করাব।’ তিনি জিডিতে উল্লেখ করেন, ঘটনাস্থলে থাকা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আসাদুজ্জামানসহ দুই-তিনজন পুলিশ তাঁকে উদ্ধার করে।

২০১১
====
১। ডিবি কার্যালয়ে ‘সেই’ বাসচালক


মানিকগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় বাসচালক জামির হোসেনকে গতকাল রোববার দিবাগত রাতে মেহেরপুর থেকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। ওই দুর্ঘটনায় বরেণ্য চলচ্চিত্রকার তারেক মাসুদ ও এটিএন নিউজের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মিশুক মুনীরসহ পাঁচজন নিহত হন।
আজ সোমবার দুপুরে জামিরকে ঢাকায় ডিবি কার্যালয়ে হাজির করা হয়। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘ওইদিন খুব বৃষ্টি হচ্ছিল। আমি ঢাকা থেকে বাস নিয়ে আরিচার দিকে যাচ্ছিলাম। বিপরীত দিক থেকে একটি একটি মাইক্রোবাস ঢাকার দিকে যাচ্ছিল। তখন রাস্তায় অন্য গাড়ি ছিল না। তাই ওভারটেকের প্রশ্নও আসে না।’ চালক দাবি করেন, ‘মাইক্রোবাসটি রাস্তার সাদা দাগ অতিক্রম করে ডান দিকে গিয়ে বাসের সঙ্গে ধাক্কা লাগায়।’ বৃষ্টির কারণে মাইক্রোবাসের চালক রাস্তার মাঝ দিয়ে আসছিল বলে তিনি মনে করেন।
- - - - - - - -
২। শিগগিরই নূর ও রাশেদ চৌধুরীকে দেশে আনা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন বলেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিদেশে পালিয়ে থাকা খুনিদের দেশে ফিরিয়ে ফাঁসি কার্যকর করতে সরকার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রে পালিয়ে থাকা রাশেদ চৌধুরীকে আনতে সে দেশের অ্যাটর্নি জেনারেল অফিসের সহযোগিতা চেয়েছে বাংলাদেশ। সাহারা খাতুন বলেন, বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডে মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আসামিদের মধ্যে দুজনকে এই সরকারের মেয়াদেই দেশে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হবে। তাঁরা হলেন—নূর চৌধুরী ও রাশেদ চৌধুরী। নূর চৌধুরী কানাডায় ও রাশেদ চৌধুরী যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছেন বলে সরকার নিশ্চিত হয়েছে।
- - - - - - - -
৩। জন্মদিনে চারটি কেক কাটলেন খালেদা


বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ৬৭তম জন্মদিন আজ। এ জন্য দিনের প্রথম প্রহর রাত ১২টা এক মিনিটে কেক কেটে খালেদা জিয়ার ৬৭তম জন্মদিন উদ্যাপন করেছে বিএনপি। চেয়ারপারসনের জন্মদিন উদ্যাপনে মধ্যরাতে গুলশান কার্যালয়ে বিএনপি ও এর অঙ্গসহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা সমবেত হন। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দলের পক্ষ থেকে খালেদা জিয়াকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানান।
গুলশান কার্যালয়ে রাত ১২টা এক মিনিটে খালেদা জিয়া প্রথমে মহানগর বিএনপি ও স্বেচ্ছাসেবক দলের নেওয়া ৬৭ পাউন্ড ওজনের দুটি কেক কাটেন। এরপর বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটি ও ছাত্রদলের পক্ষ থেকেও দুটি কেক কাটেন তিনি। খালেদা জিয়া সব কটি কেক এতিমখানায় পাঠিয়ে দেন। কেক কাটার পর বিএনপির চেয়ারপারসন একটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেন। বইটির নাম ‘মাতৃস্নেহে বাংলাদেশ’। বইটিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য এমাজউদ্দীন আহমদ, মনিরুজ্জামান মিঞা, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, সাদেক হোসেন খোকা ও সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলালের লেখা কয়েকটি প্রবন্ধ রয়েছে।
কার্যালয়ের ভেতরে কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে জন্মদিনের শুভেচ্ছা বিনিময়ের পর খালেদা জিয়া কার্যালয়ের ফটকে দাঁড়িয়ে কর্মীদের ফুলের শুভেচ্ছা গ্রহণ করেন। এ সময় তাঁরা করতালি ও স্লোগান দেন।
- - - - - - - -
৪। সমাজচ্যুত করায় দুই সন্তান নিয়ে গৃহবধূর আত্মাহুতি!
গ্রাম্য সালিসবৈঠকে সমাজচ্যুত হওয়ার ক্ষোভে দুই শিশু সন্তানসহ গৃহবধূ ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আত্মাহুতি দিয়েছেন। ওই গৃহবধূর নাম ফেরদৌস আক্তার (৩২)। এ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছে আরও দুই শিশু। হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার আন্দিউড়া ইউনিয়নের সুলতানপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

২০১২
====
১। খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালন
বিএনপি চেয়ারপারসন ও বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়ার ৬৮তম জন্মদিন কেক কেটে উদযাপন করেছেন দলীয় নেতা-কর্মীরা। গতকাল মঙ্গলবার রাত ১২টা ১ মিনিটে বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে ও নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালন করেন বিএনপি ও এর অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনগুলোর নেতা-কর্মীরা।
ওমরাহ পালনের উদ্দেশ্যে খালেদা জিয়া বর্তমানে সৌদি আরবে অবস্থান করছেন। তাই অন্যবারের মতো এবার আর কেক কেটে তিনি জন্মদিন উদযাপন করতে পারছেন না।
- - - - - - - -
২। রেলের চার কর্মকর্তা-কর্মচারী বরখাস্ত, শোকজ
কর্তব্যে অবহেলার জন্য বাংলাদেশ রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের প্রধান বৈদ্যুতিক প্রকৌশলী সাবা উদ্দীনকে কারণ দর্শানো এবং বদলির নির্দেশ দিয়েছেন যোগাযোগ ও রেলমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। সকালে ঢাকা রেলওয়ে স্টেশন পরিদর্শনকালে একটি ট্রেনের লাইট এবং ফ্যান নষ্ট থাকায় যাত্রীদের ভোগান্তি এবং অভিযোগের ভিত্তিতে মন্ত্রী এ ব্যবস্থা নেন। এ ছাড়া পরিদর্শনকালে অর্থের বিনিময়ে অবৈধভাবে আসন বিক্রির অভিযোগে অ্যাটেনন্ডেন্ট মো. নিজাম উদ্দীনকে তাত্ক্ষণিক সাময়িক বরখাস্তের নির্দেশ দেন মন্ত্রী।
- - - - - - - -
২। লিমনের ঘটনায় র‌্যাব সদস্যদের অব্যাহতির সুপারিশ


ঝালকাঠির রাজাপুরের নিরীহ কলেজছাত্র লিমন হোসেনকে গুলি করে হত্যাচেষ্টা মামলায় রাজাপুর থানা পুলিশ আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। প্রতিবেদনে লিমন হত্যাচেষ্টার অভিযোগ থেকে র‌্যাবের উপসহকারী পরিচালক (ডিএডি) লুৎফর রহমানসহ র‌্যাবের ছয় সদস্যকে অব্যাহতির সুপারিশ করা হয়েছে। তদন্ত কর্মকর্তা রাজাপুর থানার উপপরিদর্শক আ. হালিম তালুকদার গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে আদালত পুলিশের জেনারেল রেজিস্ট্রার কর্মকর্তার (জিআরও) কাছে এ প্রতিবেদন জমা দেন।
মামলার ভিকটিম এবং এক নম্বর সাক্ষী লিমন প্রথম আলো ডটকমকে বলেন, ‘তদন্ত কর্মকর্তা আ. হালিম ১৫ মাস ধরে কী তদন্ত করেছেন আমি জানি না। কারণ মামলার ভিকটিম এবং সাক্ষী হিসেবে তিনি আমার সাথে কোনো দিন কথা বলেননি। রাজাপুর পুলিশের কাছ থেকে আমি কোনো দিন ন্যায়বিচার পাব না। প্রথম থেকেই তারা মামলা গ্রহণেও টালবাহানা করেছে।’
উল্লেখ্য, গত বছরের ২৩ মার্চ ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার সাতুরিয়া গ্রামে বাড়ির কাছে মাঠে গরু আনতে গিয়ে র‌্যাবের গুলিতে পা হারায় লিমন হোসেন (১৬)। লিমনের অভিযোগ, র‌্যাবের সদস্যরা তাকে ধরে পায়ে অস্ত্র ঠেকিয়ে গুলি করে। পরে গ্রামবাসীর চাঁদায় দরিদ্র লিমনের চিকিৎসা চলে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে। পঙ্গু হাসপাতালে জীবন বাঁচাতে লিমনের বাম পা ঊরুর নিচ থেকে কেটে ফেলেন চিকিৎসকেরা। ঘটনার ১৩ দিন পর গত বছরের ৬ এপ্রিল প্রথম আলোতে ‘চরম নিষ্ঠুরতা’ শিরোনামে লিমনের ওপর নির্যাতনের ঘটনা প্রকাশিত হলে সারা দেশে নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান লিমনকে সান্ত্বনা জানাতে ছুটে যান পঙ্গু হাসপাতালে। এ ঘটনায় র‌্যাবের উপসহকারী পরিচালক লুৎফর রহমান বাদী হয়ে ওই বছরের ২৩ মার্চ রাজাপুর থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেন।

২০১৩
====
১। জঙ্গিবাদ ও ধর্মান্ধ তেঁতুল তত্ত্ব রুখে দেওয়ার আহ্বান
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৩৮তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তারা জঙ্গিবাদ, সাম্প্রদায়িকতা ও ধর্মান্ধ তেঁতুল তত্ত্বের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী সব শক্তির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তাঁরা আগামী জাতীয় নির্বাচনে মহাজোটকে বিজয়ী করতে প্রগতিশীল সব শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার ওপর গুরুত্ব দেন।
গতকাল বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) যৌথ উদ্যোগে ওই আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। শোকসভার শুরুতে বঙ্গবন্ধু ও ১৫ আগস্ট তাঁর পরিবারের নিহত সদস্যদের স্মরণে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।
সভায় তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘দেশে গণতন্ত্র থাকবে, নাকি সাম্প্রদায়িক শক্তি জামায়াত-শিবির, হেফাজত ও তেতুঁল তত্ত্বের হুজুররা থাকবে—এ নিয়ে দেশ আজ দুই ভাগে বিভক্ত। রাজনীতিসচেতন দেশবাসীর এখন আর মাঝখানে থাকার কোনো সুযোগ নেই। হয় গণতন্ত্রের পক্ষে আসতে হবে, তা না হলে ধর্মান্ধ সাম্প্রদায়িক শক্তির নেত্রী খালেদা জিয়ার পক্ষে যেতে হবে।’
বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কলামিস্ট আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী বলেন, জামায়াত ও হেফাজতকে পৃষ্ঠপোষকতা করছে চিহ্নিত কিছু বিদেশি শক্তি। তারা বাংলাদেশকেও পাকিস্তান-আফগানিস্তানের বলয়ে অন্তর্ভুক্ত করতে এ অর্থ জোগান দিয়ে যাচ্ছে। তিনি বলেন, ‘হেফাজতের সমাবেশের আগে খালেদা জিয়া সিঙ্গাপুরে শুধু চিকিৎসার জন্য নয়, সেখানে তিনি তেলসমৃদ্ধ একটি রাষ্ট্রের উচ্চপদস্থ প্রতিনিধির সঙ্গে বৈঠক করেছেন। ওই বৈঠকে তারেক জিয়াও ছিলেন। তারা বাংলাদেশকে একটি মৌলবাদী রাষ্ট্রে পরিণত করতে ও প্রগতিবিরোধী গোষ্ঠীকে ক্ষমতায় নিয়ে আসতে চাইছে।’
প্রবীণ সাংবাদিক এবিএম মূসা বলেন, সমালোচনা করা মানেই কোনো ব্যক্তি বা দলকে খারাপ বলা নয়। মূলত তাকে সতর্ক করে দেওয়া বা দিকনির্দেশনা দেওয়া। তিনি বলেন, ‘এখন মনে হয় আমি যদি বঙ্গবন্ধুরও সমালোচনা করতাম তাহলে তাঁকে এত দ্রুত হারাতে হতো না। তখন বঙ্গবন্ধুর সমালোচনা না করে আমি বড় ভুল করেছি।’
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব একটি ব্যক্তি নয়, একটি বিপ্লবের নাম। এই বিপ্লবকে স্তব্ধ করে দিতেই স্বাধীনতাবিরোধী কুচক্রী মহল প্রতিবিপ্লব ঘটিয়েছিল। সেদিন তারা শুধু মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নয়, গণতন্ত্রকেও হত্যা করেছিল। তিনি আরও বলেন, গুটি কয়েক ব্যক্তিকে ফাঁসি দিলেই বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার সম্পন্ন হবে না। তাই মূল চক্রান্তকারীদের খুঁজে বের করতে একটি কমিশন গঠনের আহ্বান জানান তিনি।
- - - - - - - -
২। চট্টগ্রামের সেই দরপত্র : যুবলীগ জয়ী!
চট্টগ্রামে গত ২৪ জুন রেলওয়ের দুটি উন্নয়ন কাজের দরপত্র নিয়ন্ত্রণে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের ক্যাডারদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছিল। নিহত হয়েছিল এক শিশুসহ দুজন। সেই লড়াইয়ে জয়ী হয়েছে যুবলীগ। আলোচিত সেই কাজ পেয়েছেন স্থানীয় যুবলীগের দুই নেতা। তাঁদের একজন আবার হত্যা মামলার আসামি বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে। রেল কর্মকর্তারা জানান, গত ২৪ জুন দুই পক্ষের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পরও রেল কর্তৃপক্ষ দরপত্র বাতিল না করে মূল্যায়ন কমিটিতে পাঠায়। ১৩ জন ঠিকাদার দরপত্র কিনলেও সংঘর্ষের কারণে মাত্র চারজন দরপত্র জমা দিতে সক্ষম হন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ঠিকাদার জানান, সংঘর্ষের কারণে ঠিকাদারেরা দরপত্র জমা দিতে পারেননি। এ সুযোগে দুই কাজের জন্য সর্বনিম্ন দরদাতা অভিহিত মূল্য থেকে প্রায় ১০ শতাংশ দর বাড়িয়ে দরপত্র জমা দেন। সবাইকে সুযোগ দেওয়া হলে অভিহিত দরের চেয়ে কমে দরপত্র জমা হতো।
রেলের দুটি উন্নয়নকাজের দরপত্রের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে গত ২৪ জুন নগরের সিআরবি এলাকায় যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হেলাল আকবর চৌধুরীর (বাবর) অনুসারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহসম্পাদক সাইফুল ইসলামের (লিমন) অনুসারীদের গুলিবিনিময় হয়। এতে শিশু আরমান হোসেন (৮) ও স্থানীয় যুবলীগের নেতা সাজু পালিত (২৫) নিহত হন। ওই দুই খুনের ঘটনায় হেলাল আকবর, সাইফুলসহ ৮৭ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ৩০-৪০ জনকে আসামি করে মামলা করা হয়।
- - - - - - - -
৩। শেষ হলো জামায়াতের ৪৮ ঘণ্টার হরতাল : সহিংসতায় শিবির নেতা নিহত
জামায়াতে ইসলামীর ডাকা ৪৮ ঘণ্টা হরতালের দ্বিতীয় দিনে গতকাল সকালে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকায় পুলিশের সঙ্গে ছাত্রশিবিরের সংঘর্ষে খলিলুর রহমান নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এ সময় সাংবাদিকসহ বেশ কয়েকজন পথচারী আহত হন। খলিলুল রহমান (২২) ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সদস্য ও ঢাকা মহানগর ৮৮ নম্বর ওয়ার্ড শাখার সভাপতি। তাঁর বাড়ি পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার করমজা গ্রামে। তাঁর বাবার নাম আবদুল বাতেন। এ ছাড়া গতকাল হরতাল চলাকালে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে জামায়াত-শিবিরের কর্মীরা ঝটিকা মিছিল বের করে বেশ কিছু ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটালেও বড় ধরনের কোনো ঘটনা ঘটেনি।
- - - - - - - -
৪। বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনিদের ফেরানো এখনো অনিশ্চিত
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পলাতক ছয় খুনির মধ্যে দুজনকে ফেরাতে চার বছর ধরে চেষ্টার পরও অগ্রগতি নেই। অন্য চারজনের অবস্থান সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট তথ্যের অভাবে নেওয়া যায়নি কার্যকর উদ্যোগ। ফলে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় পাঁচজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়ার প্রায় চার বছর পরও মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত ওই ছয়জনকে দেশে ফেরানোই অনিশ্চিত থেকে গেছে।

২০১৪
====
১। বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
- - - - - -
২। জাতীয় শোক দিবসে প্রার্থনা সভা


বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৩৯তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সর্বধর্ম প্রার্থনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে এ সভার আয়োজন করে সাংবাদিক সমাজ। সভায় ১৯৭৫ সালের এই দিনে নিহতদের আত্মার শান্তি কামনা করে দোয়া ও হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের শাস্তির দাবি করা হয়। এতে বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন। সভার শুরুতে পবিত্র বাইবেল, ত্রিপিটক, গীতা ও পবিত্র কোরআন থেকে কিছু অংশ পাঠ করা হয়।
- - - - - -
৩। 'বঙ্গবন্ধুর হত্যার পেছনে বামদের উস্কানি ছিল'
আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর হত্যার পেছনে বামপন্থীদের উস্কানি ছিল। অনেক বাম সংগঠনও সে সময় বঙ্গবন্ধুর যে কোন কাজের সমালোচনা করতেন। বামপন্থীরা ছিলেন সরকারের সমালোচনায় মুখর। আজকে তারাই আবার ভুল স্বীকার করে দিনরাত বঙ্গবন্ধুর গুণকীর্তন করছেন।
- - - - - -
৪। নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয় ঘিরে রেখেছে পুলিশ
রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় ঘিরে রেখেছে পুলিশ। আজ শুক্রবার সকাল থেকেই ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ৬৯তম জন্মদিন উপলক্ষে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সকাল ১০টার দিকে কেক কাটার কথা ছিল দলটির অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের।

২০১৫
====
১। জাতির জনকের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা


সারাদেশে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪০তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হচ্ছে। গভীর শোক আর বিনম্র শ্রদ্ধায় জাতি অবনত মস্তকে স্মরণ করছে ১৫ আগস্টের কালরাতে শাহাদাত বরণকারী বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারকে।

২। কেক কাটলেন খালেদা জিয়া


বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া তার ৭০তম জন্মদিনের কেক কেটেছেন। শনিবার রাতে গুলশান কার্যালয়ে দলের শীর্ষ নেতাদের নিয়ে তিনি কেক কাটেন। এসময় নেতারা খালেদা জিয়াকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানান। যুক্তরাজ্যে অবস্থানরত বড় ছেলে তারেক রহমান, পুত্রবধূ ডা. জোবায়দা রহমান, নাতনী জায়মা রহমান এবং মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত ছোট পুত্রবধূ শর্মিলা রহমান, নাতনী জাহিয়া ও জাফিয়া রহমান টেলিফোনে খালেদা জিয়াকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানান।
১৫ আগস্ট প্রথম প্রহরে কেক না কাটলেও শনিবার রাত ৯টা ২০ মিনিটে বিএনপি প্রতীক সংবলিত ৭০ পাউন্ডের কেক কাটেন খালেদা জিয়া।
- - - - - -
৩। কুষ্টিয়ায় শোক র‌্যালিতে আ'লীগের দু'গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ১
কুষ্টিয়ায় জাতীয় শোক দিবসের র‌্যালিতে আওয়ামী লীগের দু'পক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছেন। নিহত সবুজ হোসেন (২৮) শহর আওয়ামী লীগের বহিস্কৃত সাধারণ সম্পাদক মোমিনুর রহমানের সমর্থক। দুপুর একটার দিকে শহরের মজমপুর গেটের কাছে এ ঘটনা ঘটে। এতে আহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন।
- - - - - -
৪। বাড্ডায় তিন খুন : আধিপত্য বিস্তারের বিরোধে হত্যাকাণ্ড
আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধে রাজধানীর বাড্ডায় আওয়ামী লীগ নেতাসহ তিনজনকে গুলি করে হত্যা করা হয় বলে ধারণা করছেন স্বজন ও তদন্ত-সংশ্লিষ্টরা। নিহত স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মাহবুবুর রহমান গামার সঙ্গে ঝুট ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দ্বন্দ্ব ছিল মৃত বাউল সুমনের অনুসারীদের। তারা মনে করেন, সুমনের গ্রেফতার ও 'রহস্যজনক মৃত্যু'র পেছনেও গামার ভূমিকা ছিল। এদিকে মেরুল বাড্ডার কোরবানির পশুর হাটের ইজারা নিয়ে বিরোধেও হত্যাকাণ্ড ঘটতে পারে বলে মনে করেন কেউ কেউ। এ ঘটনায় গামাই ছিলেন হত্যাকারীদের মূল টার্গেট। তবে এলোপাতাড়ি গুলিতে আরও দু'জন খুন ও একজন আহত হন।

২০১৬
====
১। ঢাবিতে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিস্মারক চেয়ার উন্মোচন


১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আগমণ উপলক্ষে প্রস্তুত করা চেয়ার উন্মোচন করা হয়েছে।
সোমবার ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিস্মারক এ চেয়ার উন্মেচন করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সমাবর্তন অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর আসন হিসাবে টিএসসি মিলনায়তনে এ চেয়ারটি প্রস্তুত রাখা হয়েছিল। এ প্রসঙ্গে উপাচার্য অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক সাংবাদিকদের বলেন, '১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট টিএসসি মিলনায়তনে হতে যাওয়া সমাবর্তনে বঙ্গবন্ধুর বসার জন্য চেয়ারটি তৈরি করা হয়েছিল। এটা এতদিন টিএসসির সংরক্ষণাগারে ছিল। সোমবার সেটি আনুষ্ঠানিকভাবে উন্মোচন করেছি।'
আলোচনা সভায় উপাচার্য বলেন, ১৯৭৫ সালের এই দিনে বঙ্গবন্ধুর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আসার কথা ছিল। সেদিন তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্যাদা প্রদান করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তার আর বিশ্ববিদ্যালয়ে আসা হয়নি। এর আগেই ঘাতকদের নির্মম বুলেটে তাকে শাহাদাৎ বরণ করতে হয়।
- - - - - - -
২। শোক দিবসে জঙ্গিবাদ রুখতে চট্টগ্রামে ৪০ কিলোমিটার মানবপ্রাচীর
জাতীয় শোক দিবসে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ রুখতে ব্যতিক্রমী কর্মসূচি পালন করেছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন। করপোরেশনের উদ্যোগে সোমবার সকাল ৯টা থেকে সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ৪০ কিলোমিটার দীর্ঘ মানবপ্রাচীর তৈরি করা হয়। ‘শোকের শক্তিতে রুখো সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ’ স্লোগানে আয়োজিত এ কর্মসূচিতে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, কাউন্সিলর, কর্মকর্তা-কর্মচারী ও সিটি করপোরেশন পরিচালিত ৯০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থী অংশ নেন।
- - - - - - -
৩। 'রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে বঙ্গবন্ধু হত্যার রায় দেন আদালত'
রাষ্ট্রের প্রতিটি ক্রান্তিকালে বিচার বিভাগ এগিয়ে এসেছে—এ মন্তব্য প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা বলেছেন, 'রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার রায় দিয়েছিলেন ঢাকার জেলা ও দায়রা জজ কাজী গোলাম রসুল। এ মামলায় সাক্ষী পাওয়া যাচ্ছিল না। রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে বিচারিক আদালত রায় দিলেন। হাইকোর্টে ডেথ কনফারমেশনের (মৃত্যুদণ্ড অনুমোদন) জন্য আসে। এ নিয়ে প্রতিকূলতা ছিল; তা আর আমি বলতে চাচ্ছি না।'
জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সোমবার সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে আয়োজিত রক্তদান কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান বিচারপতি একথা বলেন। জাতীয় শোক দিবসে এবারই প্রথম সুপ্রিম কোর্টের উদ্যোগে কর্মসূচি পালন করা হলো।
- - - - - - -
৪। কেক কাটেননি খালেদা জিয়া, গ্রহণ করেননি ফুলও
এবার জাতীয় শোক দিবসে কেক কেটে জন্মদিন উদযাপন করেননি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। তবে ছাত্রদল আগের মতোই নেত্রীর জন্মদিন হিসেবে উদযাপন করেছে দিনটিকে। প্রথম প্রহরে ঘটা করে কেক কেটে সে ছবিও প্রকাশ করেছে সংগঠনটির নেতা-কর্মীরা। এবার জন্মদিনের আয়োজন থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রেখেছেন খালেদা জিয়া। এমনকি তাকে শুভেচ্ছা জানাতে নেতারা ফুল নিয়ে গেলে তিনি তা গ্রহণও করেননি।
খালেদা জিয়ার পাশাপাশি বিএনপি ও এর প্রায় সবগুলো অঙ্গ সংগঠনের নেতারা দলীয় প্রধানের ‘জন্মদিন’ পালন থেকে বিরত থাকে। তবে ব্যতিক্রম শুধু ছাত্রদল। সংগঠনটির সভাপতিসহ কেন্দ্রীয় অনেক নেতা এবং বিভিন্ন ইউনিটের নেতারা কেক কেটে তাদের নেত্রীর জন্মদিন পালন করেছেন। জানতে চাইলে বিএনপির ভাইসচেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, এইদিন চেয়ারপারসনের জন্মদিন পালন না করার সিদ্ধান্ত সরকারের সঙ্গে বিএনপির দূরত্ব কমাতে ভূমিকা রাখবে বলে আমি বিশ্বাস করি। ছাত্রদল কী করেছে তা জানি না। তবে সামগ্রিক অবস্থায় ম্যাডামের সিদ্ধান্ত মেনে নিলে ভালো হতো। নেত্রীকে শুভেচ্ছা জানাতে যাওয়া নেতারা ফিরেছেন ‘খালি হাতে’।


কেক না কেটে মিলাদের মাধ‌্যমে এবার দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালন করেছে বিএনপি। সোমবার বিকালে নয়া পল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই মিলাদে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ সহস্রাধিক নেতা-কর্মী অংশ নেন।
- - - - - - -
৫। পরিচয় মিলল 'জঙ্গি নেতা' মারজানের


রাজধানীর গুলশানের 'হলি আর্টিজান বেকারিতে' হামলায় সন্দেহভাজন 'জঙ্গি নেতা' মারজানের পরিচয় মিলেছে। পাবনা সদর উপজেলার হেমায়েতপুর ইউনিয়নের আফুরিয়া গ্রামের ছেলে মারজানের প্রকৃত নাম নুরুল ইসলাম। তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের ছাত্র- মারজান মো. নাজিম উদ্দিন ও সালমা খাতুনের ১০ সন্তানের মধ্যে দ্বিতীয়। ওই দম্পতির পাঁচ ছেলে ও পাঁচ মেয়ে। তার বাবা-মা বলছে, প্রায় আট মাস ধরে পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন মারজান।
প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার সকালে ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার ও কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, গুলশানের 'হলি আর্টিজান বেকারিতে' হামলার 'মূল দায়িত্বে' থাকা আরেক ব্যক্তিকে চিহ্নিত করা হয়েছে। তার সাংগঠনিক নাম মারজান; তার ছবিও পাওয়া গেছে। নিজের ফেসবুকে মারজান গুলশান হামলার ছবি আপলোড করেছিল।

২০১৭
====
১। এ ফুল ভালোবাসার


প্চারদিকে মানুষের প্রবল স্রোত। ছাত্রনেতা-যুবনেতা, বিভিন্ন সংগঠনের সঙ্গে শ্রদ্ধা জানাতে এসেছেন সাধারণ মানুষও। সবার হাতে ফুলের তোড়া। সবার একটাই চাওয়া, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুলের অর্ঘ্য দিয়ে শ্রদ্ধা জানাবেন।
- - - - - - -
২। টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২ তম শাহাদৎ বার্ষিকীতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন। আজ সকাল ১০টা ৫মিনিটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।
- - - - - - -
৩। শোক দিবসের পোস্টার ছেঁড়ায় ঢাবির ১১ শিক্ষার্থীকে পুলিশে সোপর্দ
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি হলের বিভিন্ন দেয়ালে সাঁটানো বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি সম্বলিত জাতীয় শোক দিবসের পোস্টার ছেঁড়ার অভিযোগে ১১ শিক্ষার্থীকে পুলিশে দিয়েছে হল প্রশাসন।
- - - - - - -
৪। ভয়াবহ বন্যার পদধ্বনি
দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের অন্তত ২০টি জেলা গত চারদিন ধরে বন্যা কবলিত। প্রতিদিনই নদ-নদীগুলোতে পানি বাড়ছে, প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। সবচেয়ে বেশি পানির ধারক যমুনা নদীর বাহাদুরাবাদ পয়েন্টে গত ৭০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ স্তরে পানি বেড়েছে। এদিকে, বাংলাদেশের উজানের দেশ চীন, নেপাল ও ভারতে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। এসব দেশের বন্যার সিংহভাগ পানি বাংলাদেশের নদ-নদী হয়ে বঙ্গোপসাগরে গিয়ে পড়বে। এর মধ্যে আগামী ২০ ও ২১ আগস্ট অমবস্যার প্রভাবে সাগরের পানির উচ্চতা এমনিতেই বাড়বে। ১৯৮৮ ও ১৯৯৮ সালের বন্যার পর এবারই প্রথম বড় তিন নদীর পানি একসাথে বৃদ্ধি পাচ্ছে। সবমিলিয়ে চলতি বর্ষা মৌসুমে দীর্ঘ এলাকাব্যাপী ভয়াবহ বন্যার আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা।
- - - - - - -
৫। বন্যায় দুর্গতদের কথা বিবেচনায় জন্মদিনের কেক কাটিনি: রিজভী
বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া চিকিত্সার জন্য বিদেশে আছেন। তাছাড়া দেশের এই ভয়াবহ বন্যায় দুর্গত মানুষের কথা বিবেচনায় আমরা এবার জন্মদিনের কেককাটা অনুষ্ঠান করছি না। বরং দেশব্যাপী খালেদা জিয়ার আশু রোগমুক্তি ও দীর্ঘায়ু কামনায় দোয়া ও মিলাদ মাহফিল করছি এবং বন্যাদুর্গতদের পাশে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করছি।

২০১৮
====


সূচীপত্র:→ বাংলাদেশ: ফিরে দেখা

________________
তথ্য ও ছবিসূত্র:
দৈনিক ইত্তেফাক, দৈনিক প্রথম আলো, দৈনিক সমকাল, দৈনিক যুগান্তর এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ মাধ্যম।
বাংলাদেশের তারিখ : বিচারপতি মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান।
বাংলাদেশের ইতিহাস সংক্রান্ত বিভিন্ন বই-পুস্তক ও পত্রপত্রিকা।
ইন্টারনেট, উইকিপিডিয়া, বাংলাপিডিয়া।
সর্বশেষ এডিট : ১৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ৮:০৩
৭টি মন্তব্য ৬টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

বিগত শতকের ফতুয়ার বিবর্তন

লিখেছেন এ আর ১৫, ০২ রা ডিসেম্বর, ২০২০ সকাল ৭:৩১


মুর্তি আর ভাষ্কার্যের পার্থক্য নির্বাচনে ব্যর্থ মুখস্ত বিদ্যায় জ্ঞানী মুর্খরা জগতে আর কি কি হারাম ফতোয়া দিয়ে নিজেদের, মুসলমানের আর ইসলামের ইজ্জতের বারোটা বাজিয়েছিলেন, আসুন লিস্ট নিয়ে বসি:
১। এই উপমহাদেশে... ...বাকিটুকু পড়ুন

সালমার মহানুভবতা

লিখেছেন রামিসা রোজা, ০২ রা ডিসেম্বর, ২০২০ সকাল ১০:১৩






হাসিখুশি প্রাণোচ্ছল মেয়ে সালমা যার আনুমানিক বয়স হবে ১৯/২০। খুব ছোটবেলায় বাবাকে হারিয়েছে এবং মা অন্যত্র বিয়ে বসেছে । সালমা যখন কিশোরী তখন থেকেই অন্যের বাসায় কাজ... ...বাকিটুকু পড়ুন

খালের ধারেই রাতের মেলা (ছবি ব্লগ)

লিখেছেন জুন, ০২ রা ডিসেম্বর, ২০২০ সকাল ১০:২৪


অং আং ক্লং --- আজ এই করোনাকালে ক্লং অর্থাৎ খালটিকে বদলে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ ,গড়েছে নাগরিকদের জন্য এক বিনোদনের স্থান

চীনা আর ভারতীয় রিটেইল আর... ...বাকিটুকু পড়ুন

ফ্রেমবন্দির গল্প (মোবাইলগ্রাফী)-৮

লিখেছেন কাজী ফাতেমা ছবি, ০২ রা ডিসেম্বর, ২০২০ সকাল ১১:৫৭

১।



©কাজী ফাতেমা ছবি
=ফ্রেমবন্দির গল্প=
আমি যেন টোপাপানা, আমি যেন কচুরীপানা, ভেসে ভেসে চলে এসেছি কোথা হতে কোথায়। অথচ আমার শৈশব কৈশোর আর তারণ্য কেটেছে টোপাপানা আকাশে উড়িয়ে, টোপাপানার নিচে কত... ...বাকিটুকু পড়ুন

আজকের দিনটা মানব সভ্যতার একটি ঐতিহাসিক দিন।

লিখেছেন চাঁদগাজী, ০২ রা ডিসেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৩৯



আজকের দিনটি মানুষের জ্ঞান, বিজ্ঞান, টেকনোলোজীর আরেকটি মাইলষ্টোন।

আজকের দিনটি মানব সভ্যতার ইতিহাসে এক ঐতিহাসিক দিন; মানব জাতি এই ১ম'বার এতো কম সময়ে ভয়ংকর কোন ভাইরাসের ভ্যাকসিন... ...বাকিটুকু পড়ুন

×