somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

বাংলাদেশ: ফিরে দেখা ২৬ আগস্ট

২৬ শে আগস্ট, ২০১৮ বিকাল ৩:০৫
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


সহজলভ্য রেফারেন্সের অভাবে বাংলাদেশের ইতিহাসের অনেক ঘটনা বিভিন্ন ব্যক্তি বিভিন্নভাবে বিশ্লেষণ করেন। এতে ইচ্ছায় বা অনিচ্ছায় বাংলাদেশের ইতিহাস বিকৃত হচ্ছে, সৃষ্টি হচ্ছে অসংখ্য বিতর্কের। তাই ইতিহাসের উল্লেখযোগ্য ঘটনার তথ্য সহজলভ্য করার উদ্দেশ্যে 'ফিরে দেখা বাংলাদেশ' সিরিজ। প্রায় সব তথ্য যাচাই-বাচাই করে দেশের প্রধান সংবাদপত্রসমূহ থেকে নেয়া হয়েছে।
বাংলাদেশের ইতিহাসে ২৬ আগস্ট ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য রাজনৈতিক ও সামাজিক ঘটনাবলি:

১৯৭২
====
১। চীনের ভেটো প্রয়োগের প্রতিবাদে ঢাকায় তীব্র প্রতিবাদ।
- - - - - - - -
২। স্টেডিয়ামে গোলযোগ, ঢাকা ফুটবল লীগ স্থগিত ঘোষণা।

১৯৭৭
====
ঢাকা-ব্যাংকক বিমানচুক্তি স্বাক্ষরিত।
- - - - - - -
সংবাদপত্র কর্মচারী বেতন বোর্ড আইন সংশোধন।

১৯৭৯
মন্ত্রীপরিষদের পরিসর বৃদ্ধি।

১৯৮০
====
জাতিসংঘের বিশেষ অধিবেশনে প্রেসিডেন্ট জিয়ার ভাষণ।

১৯৮১
====
আওয়ামী লীগের ডাকে অর্ধদিবস হরতাল পালিত।

১৯৮২
====
সাবেক মন্ত্রী এস এ বারীর ৩ বছর সশ্রম কারাদন্ড।

১৯৮৬
====
সংসদের ৮টি উপ-নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থীরা বিজয়ী।

১৯৮৭
====
ঝড়-বর্ষণে কক্সবাজার সমুদ্রে ৫ শত আরোহীসহ ৪১টি নৌযান নিঁখোজ, ৪৪টি লাশ উদ্ধার।

১৯৮৯
====
সব বিদ্যালয়ে নজরুল চেয়ার প্রবর্তনের সিদ্ধান্ত।
- - - - - - -
আহত ছাত্রদল নেতা কবিরের মৃত্যু, ২২ ছাত্র সংগঠনের সমাবেশ।

১৯৯৩
====
সারাদেশে মহামারি আকারে ডায়ারিয়া।

১৯৯৪
====
প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার বুড়িগঙ্গা সেতু নির্মাণ কাজের উদ্বোধন।

১৯৯৮
====
শতাব্দীর ভয়াবহ বন্যা। দেশের ৬০% জলমগ্ন, ২ কোটি লোক ক্ষতিগ্রস্থ, ২০০ মৃত। অর্থমন্ত্রীর ৬০ কোটি ডলার এবং ১৪ লাখ টন খাদ্য সাহায্যের আবেদন।

১৯৯৯
=====
১। ব্যাংকের টাকা আত্মসাতের জন্য সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী দোহা ও তাঁর স্ত্রীর ১০ বছর কারাদন্ড।
- - - - - - -
২। মতিঝিলে ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের বোর্ড সভায় সন্ত্রাসী তান্ডব, অস্ত্রের মুখে চেয়ারম্যানের পদ দখল।

২০০২
=====
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদলের দুই গ্রুপের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধে।

২০০৩
=====
১। খুলনা শোকের ক্ষোভের শহর। নিহত মঞ্জুরুল ইসলামের রিক্সায় সহযাত্রী আহত বিজনবিহারীর মৃত্যু।
- - - - - - - -
২। খাগড়াছড়ির মহালছড়িতে পাহাড়ি-বাঙালি সংঘর্ষে নিহত ১। ৯টি গ্রামের শতাধিক বাড়িতে অগ্নিসংযোগ।
- - - - - - - -
৩। গুলিস্তানে সন্ত্রসীদের গুলিতে আ. লীগ নেতা মোজাম্মেল হক খুন।

২০০৫
=====
১। সাভারে ইপিজেডে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড অর্ধশতাধিক শ্রমিক আহত
সাভারে অবস্থিত ঢাকা রফতানী প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চলের (ইপিজেড) নতুন জোনে একটি কারখানায় স্মরণকালের ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে কারখানাটি সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে। ক্ষতির পরিমাণ ২০০ কোটি টাকা বলে কর্তৃপক্ষ দাবি করেছে। অগ্নিকাণ্ডে কারখানা থেকে তাড়াহুড়ো করে বের হবার সময় আহত হয়েছে অর্ধশতাধিক শ্রমিক। অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে তাইওয়ানের রফতানীমুখী প্রতিষ্ঠান কুং কেং টেক্সটাইল (বিডি) লিমিটেডে।
- - - - - - - -
২। রাজশাহীতে সক্রিয় ছিল বাংলাভাই ক্যাডাররা
দেশব্যাপী সিরিজ বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় গতকাল শুক্রবার সাতক্ষীরা থেকে আরো দু’জনকে রাজধানীতে জয়েন্ট ইন্টারোগেশন সেলে (জেআইসি) নিয়ে আসা হয়েছে। এদিকে রাজশাহী বিভাগের অধিকাংশ জেলায় বাংলা ভাইয়ের ক্যাডাররা বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে বলে গোয়েন্দা সূত্র জানায়। এছাড়া চাঁপাইনবাবগঞ্জে নিষিদ্ধ ঘোষিত জামাআতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশ (জেএমবি) এর চার ক্যাডারকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এদের কাছ থেকে ১৭ আগস্টের বোমা বিস্ফোরণের ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে।
- - - - - - - -
৩। দুবাইগামী ফ্লাইটে বোমাতঙ্ক, চট্টগ্রামে তল্লাশি।

২০০৬
=====
১। ফুলবাড়িতে এশিয়া এনার্জি অফিস ঘেরাওকালে পুলিশ বিডিআরের গুলিবর্ষণ


ফুলবাড়িতে উন্মুক্ত পদ্ধতিতে কয়লা উত্তোলন কার্যক্রম বন্ধের দাবিতে ফুলবাড়ি নিমতলা মোড়ে বহুজাতিক কোম্পানী এশিয়া এনার্জি অফিস ঘেরাওকালে পুলিশ ও বিডিআরের গুলিতে ৬ জন নিহত হয়েছে। ১০ পুলিশসহ আহত হয়েছে ২ শতাধিক। ঘটনার প্রতিবাদে আগামীকাল রবিবার ফুলবাড়িতে পূর্ণদিবস হরতাল ডাকা হয়েছে।
এশিয়া এনার্জি কোম্পানির বিরুদ্ধে দিনাজপুরের দক্ষিণাঞ্চলের ৪টি উপজেলার কয়েক সহস্র বিক্ষুব্ধ জনতা লাঠি-সোঁটাসহ পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ শনিবার বিকেলে ফুলবাড়িস্থ এশিয়া এনার্জি অফিসে হামলা চালালে পুলিশ ও বিডিআরের নির্বিচার গুলিবর্ষণের ফলে ঘটনাস্থলেই ১ জন ও হাসপাতালে অপর ৫ জন মারা যায় এবং ২ শতাধিক লোক আহত হয়েছে। নিহতরা হচ্ছেন খায়রুল (১০), চুন্নু (২০), আহসান হাবিব (২৫), তরিকুল (২২), অজ্ঞাত পরিচয় ২ জন।
- - - - - - - -
২। বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত: অলিকে বহিষ্কার করা ও ১২টি নির্বাচনী কৌশল চূড়ান্ত
পাঁচ বছর পর গতকাল বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সভায় সারা দেশের নেতারা আগামী নির্বাচনে চারদলের বিজয় নিশ্চিত করতে দলের বিদ্রোহীদের বহিষ্কার, এরশাদকে জোটে আনা, সরকারের ৫ বছরের সাফল্য ভোটারদের সামনে তুলে ধরাসহ মাঠের শক্তিকে কাজে লাগানোর জন্য বেগম খালেদা জিয়াকে পরামর্শ দিয়েছেন। আজ সকাল ১১টা থেকে রাত সোয়া ৯টা পর্যন্ত শেরে বাংলা নগরে প্রধানমন্ত্রী ভবনে ‘ম্যারাথন’ সভায় ৩৮৭ জন নেতার মধ্যে ৪৭ জন বক্তৃতা করেন। পরে রাত দশটায় সভায় সিদ্ধান্ত হয় যে, দলে বিশৃংখলা সৃষ্টিকারী কর্নেল অলি আহমেদকে বহিস্কার করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন দলের চেয়ারপার্সন। এছাড়া ১২ দফা নির্বাচনী কৌশল চূড়ান্ত করা হয়। যার মধ্যে রয়েছে জোটের সম্প্রসারণ, দলে শৃংখলা বিরোধী কথাবার্তা যারা বলেন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ, অঙ্গদলগুলোর মেয়াদ উত্তীর্ণ কেন্দ্রীয় কমিটি পুনর্গঠন, সাংগঠনিকভাবে দল শক্তিশালীকরণ, নির্বাচনী প্রচারণায় ৫ বছরের সাফল্য ভোটারদের সামনে তুলে ধরা প্রভৃতি।
- - - - - - - -
৩। জনগণের ভোটাধিকার ভূলুণ্ঠিত করতে চায় জোট সরকার: জলিল
১৪ দল সমন্বয়ক ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল জলিল আজ শনিবার রংপুর শহীদ মিনার চত্বরে পদযাত্রা পূর্ব এক সমাবেশে বলেছেন, আমার ভোট আমি দেব, যাকে খুশি তাকে দেব, জনগণের এ অধিকার সরকার ভূলক্তিত করতে চায়। বিএনপি সরকার দলীয়করণের মাধ্যমে তারা প্রশাসনকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে। এই সরকার বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশকে ৫ বার দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন করেছে। সেইসাথে তারা বোমাবাজি, সন্ত্রাস, চাদাঁবাজি, অপহরণ, হত্যা, ধর্ষণসহ সকল অপকর্মেও চ্যাম্পিয়ন। তিনি বলেন, দেশের বিচার বিভাগের স্বাধীনতা আন্দোলন দেশবাসীর প্রাণের দাবি হলেও এ সরকার তা সমাধানে ব্যর্থ হয়েছে।
- - - - - - - -
৪। রাণীশকৈলে বিএসএফের গুলিতে দুই বাংলাদেশি যুবক নিহত।
- - - - - - - -
৫। বিদ্যুৎ সংকটে উত্তরাঞ্চলে অনেক শিল্প কারখানা বন্ধ ।। শত শত শ্রমিক বেকার
- - - - - - - -
৬। খুলনায় নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ
- - - - - - - -
৭। আইভরিকোস্টে দুর্ঘটনায় ৬ বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী নিহত ও ১২ জন আহত।
- - - - - - - -
৮। 'দেশের প্রয়োজনে এখন চার দলে এরশাদকে দরকার, এটাই বাস্তবতা। কে রাজাকার কে স্বৈরাচার তা দেখে লাভ নেই।'—ভূমি উপমন্ত্রী রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু নির্বাহী কমিটির সভায়

২০০৭
=====
১। সরকার পতনের আন্দোলনে রূপ দেয়াই ছিল লক্ষ্য
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শুরু হওয়া সাম্প্রতিক ছাত্র আন্দোলনকে পর্যায়ক্রমে সরকার পতনের আন্দোলনে রূপ দেয়ার লক্ষ্যে নেপথ্যে সক্রিয় ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ক’জন শিক্ষক এবং ছাত্রদল ও ছাত্রলীগের কতিপয় নেতা। তারা নিজেদের মধ্যে শলা-পরামর্শের ভিত্তিতে আন্দোলনকে ক্যাম্পাসের বাইরে ছড়িয়ে দিয়েছিলেন। এ ক্ষেত্রে টাকা-পয়সার যোগান দিয়েছে কারাগারে আটক বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও পলাতক আওয়ামী লীগ নেতা হাজী সেলিমের লোকজন। এছাড়া পূর্ব-পরিকল্পনা অনুযায়ী দু’টি টেলিভিশন চ্যানেল তাদের পরিবেশিত সংবাদ ও টক শো’র মাধ্যমে সুকৌশলে আন্দোলনকে উস্কে দেবার নিরন্তর চেষ্টা চালিয়েছে। সাম্প্রতিক ছাত্র আন্দোলনের ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া শিক্ষক ও ছাত্র নেতারা জিজ্ঞাসাবাদে এসব তথ্য দিয়েছেন বলে একটি সূত্র জানায়।
- - - - - - -
২। এইচএসসিতে পাসের গড় হার ৬৪.২৭ শতাংশ, জিপিএ-৫ পেয়েছেন ১০,২২৫ জন।
- - - - - - -
৩। চাঁদাবাজির মামলায় মেয়র মিনুসহ ১১ জনের ১৩ বছরের জেল।
- - - - - - -
৪। দুর্নীতির মামলায় আ. স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা পঙ্কজ দেবনাথ ও তাঁর স্ত্রীর ৬ বছর জেল।
- - - - - - -
৫। বড়পুকুরিয়া ক্যলা খনিতে প্রায় পুরো উদ্যমে কাজ শুরু।

২০০৮
=====
১। খালেদা ও তারেকসহ আরো অনেকের জামিন মঞ্জুর
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় জামিন পেয়েছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া। একই মামলায় তার বড় ছেলে ও বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব তারেক রহমানকেও জামিন দিয়েছে হাইকোর্ট। গতকাল মঙ্গলবার বিচারপতিশরীফউদ্দিন চাকলাদার ও বিচারপতি মোঃ ইমদাদুল হক আজাদের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ প্রদান করেন। এদিকে হাইকোর্টের একই বেঞ্চ বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি সংক্রান্ত দুর্নীতির মামলায় জামায়াতে ইসলামীর আমীর ও সাবেক শিল্পমন্ত্রী মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীকে আগাম জামিন দিয়েছে।
এছাড়া বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার সংসদ বিষয়ক উপদেষ্টা সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী, সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার স্ত্রী এডভোকেট সিগমা হুদা ও ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুন পৃথক পৃথক একাধিক দুর্নীতির মামলায় উচ্চ আদালত থেকে জামিন পেয়েছেন।
- - - - - - -
২। ২০১০ সালে পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ শুরুর সিদ্ধান্ত

২০১০
=====
১। সপ্তম সংশোধনী অবৈধ ও অসাংবিধানিক


সংবিধানের সপ্তম সংশোধনী অবৈধ ও অসাংবিধানিক ঘোষণা করেছেন হাইকোর্ট। আজ বৃহস্পতিবার বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী ও বিচারপতি শেখ মো. জাকির হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই রায় দেন। সাবেক সামরিক শাসক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ক্ষমতা গ্রহণ ও ১৯৮২ থেকে ’৮৬ সাল পর্যন্ত জারি করা সামরিক আইন, ফরমান, আদেশ ও নির্দেশকে বৈধতা দান করা হয় সংবিধানের সপ্তম সংশোধনীর মাধ্যমে।
জানা যায়, ওই সময়ে সামরিক আদালতের রায়ে সাজাপ্রাপ্ত চট্টগ্রামের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সিদ্দিক আহমেদ সংবিধানের সপ্তম সংশোধনীর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে গত এপ্রিলে হাইকোর্টে রিট করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে ৫ এপ্রিল আদালত রুল জারি করেন। যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত সিদ্দিক আহমেদের জামিন মঞ্জুর করা হয়।
গতকাল বুধবার অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল এম কে রহমান শুনানিতে বলেন, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ক্ষমতা দখল অবৈধ। মার্শাল ল জারিও অবৈধ। কারণ, সংবিধানে সামরিক আইন ও সামরিক শাসনের কোনো বিধান নেই। এরশাদ সেনাপ্রধান হিসেবে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করেছিলেন। তাঁর জারি করা সামরিক আইন, ফরমান, আদেশ এবং তাঁর রাষ্ট্র পরিচালনা ছিল সংবিধান অনুযায়ী অবৈধ। এটি ফৌজদারি অপরাধ। অবৈধ ও সংবিধান-বহির্ভূতভাবে ক্ষমতা দখল করায় তাঁর বিচার হওয়া উচিত। প্রচলিত আইনে এ বিচার সম্ভব।
- - - - - - -
২। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়: ছাত্রলীগের ২২ নেতা-কর্মীকে বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কার
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ ২২ নেতা-কর্মীকে বিভিন্ন মেয়াদে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এর মধ্যে ছয়জনকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেটের সভা শেষে রাতে উপাচার্য শরীফ এনামুল কবির সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। এ ছাড়া সিন্ডিকেটের সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রস্তাবিত জহির রায়হান মিলনায়তনের নাম ‘নাট্যকার জহির রায়হান’ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রস্তাবিত নতুন একটি ছাত্রীনিবাসের নাম ‘শেখ হাসিনা হল’ করা হয়েছে।
- - - - - - -
৩। জাতীয় সংসদের নোয়াখালী-৬ আসনের নির্বাচনী ফলাফল বাতিল করে পুনরায় তফসিল ঘোষণা করতে হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার বিচারপতি এমদাদুল হকের নেতৃত্বাধীন নির্বাচনী ট্রাইব্যুনাল একটি আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এই আদেশ দেন।
- - - - - - -
৪। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বোরকা বা ধর্মীয় পোশাক পরতে বাধ্য করা যাবে না বলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জারি করা পরিপত্রকে ইসলামবিরোধী আখ্যা দিয়েছে কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড বেফাকুল মাদারাসিল আরাবিয়া (বেফাক)।

২০১১
=====
১। আইনজীবী এম ইউ আহমেদের মৃত্যু: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে থানায় এজাহার
গ্রেপ্তারের পর আইনজীবী এম ইউ আহমেদকে পুলিশ হেফাজতে নির্যাতন করা হয়েছে। আর এতেই অসুস্থ হয়ে তিনি মারা গেছেন। এ অভিযোগ এনে আজ শুক্রবার রাতে রমনা থানায় মামলার জন্য এজাহার দাখিল করেছেন এম ইউ আহমেদের স্ত্রী সেলিনা আহমেদ। পুলিশ এজাহারটি গ্রহণ করেছে। তবে, এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত তা মামলা হিসেবে তালিকাভুক্ত হয়নি। এজাহারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুনসহ ছয়জনকে আসামি করা হয়েছে। অন্য আসামিরা হলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহাবুবে আলম, স্বরাষ্ট্র সচিব, ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার, গোয়েন্দা পুলিশের মিন্টু রোডস্থ উপ-কমিশনার (ডিসিডিবি, মিন্টু রোড) ও শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা।
- - - - - - -
২। কর্ণফুলীতে জাহাজের ধাক্কায় ট্রলারডুবি, তিনজনের মৃত্যু

২০১২
=====
১। গ্রামীণ ব্যাংক নিয়ে ঘৃণ্য রাজনীতি থেকে সরে আসুন
গ্রামীণ ব্যাংক নিয়ে ‘ঘৃণ্য ও ভ্রান্ত’ রাজনীতির পথ থেকে সরে আসতে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী। আজ রোববার এক বিবৃতিতে এই আহ্বান জানান তিনি।
বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেন, ‘নইলে একদিন এই রাজনীতিরই শিকার হবে আওয়ামী লীগ। আর ইতিহাসে এই কথা লেখা হবে কালো অক্ষরে।’
বিবৃতিতে বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি বলেন, গ্রামীণ ব্যাংকের মতো একটি ব্যতিক্রমী ব্যাংককে সাধারণ ব্যাংকের পর্যায়ে নিয়ে গিয়ে প্রতিষ্ঠানটিকে খাটো করা হচ্ছে। যে প্রতিষ্ঠানটি নিজস্ব স্বকীয়তা এবং ৮৬ লাখ নারীর প্রচেষ্টায় নোবেল পুরস্কার আনতে পারে, সেই প্রতিষ্ঠানটিকে খাটো করার চেষ্টা করা উচিত নয়। এতে গ্রামীণ ব্যাংক খাটো হবে না, বরং দেশ হিসেবে বাংলাদেশ ছোট হয়ে যাবে।’
- - - - - - -
২। পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়া ওষুধ কারখানা স্থাপন এবং উত্পাদন-কার্যক্রম পরিচালনার অপরাধে ইবনে সিনা ফার্মাসিউটিক্যালস ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের কাছ থেকে ৫০ লাখ টাকা জরিমানা আদায় করেছে পরিবেশ অধিদপ্তর।

২০১৩
=====
স্বার্থ বিসর্জন দিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে চুক্তি নয়: মমতা
ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, ‘রাজ্য সরকারের সম্মতি ছাড়া কেন্দ্রীয় সরকার বাংলাদেশকে ভূমি দিয়ে দেওয়ার যে প্রস্তাব করেছে, তা মেনে নেওয়া কষ্টকর। এ চুক্তি হলে পশ্চিমবঙ্গ পাবে মাত্র সাত হাজার একর ভূমি। বিনিময়ে বাংলাদেশকে দিতে হবে ১৭ হাজার একর ভূমি। বাংলাদেশের সঙ্গে আমরা অবশ্যই বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক চাই। কিন্তু সেটা পশ্চিমবঙ্গের মানুষের স্বার্থকে বিসর্জন দিয়ে নয়।’

২০১৪
=====
১। জামায়াত-শিবিরের ১৫৪ নেতাকর্মীর বিচার শুরু


ছাত্র শিবিরের সাবেক ও বর্তমান সভাপতিসহ ১৫৪ জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে পুলিশকে হত্যাচেষ্টা, গাড়িতে ভাংচুর এবং অগ্নিসংযোগের মামলায় অভিযোগ গঠন করেছেন আদালত। ২০১৩ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত দলের শীর্ষ নেতাদের মুক্তির দাবিতে রাজধানীতে অনুমতি ছাড়া মিছিল বের করে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা। এ সময় তারা পুলিশের ওপর হামলা চালায় এবং শহরের বিভিন্ন এলাকায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে। সেদিনই ১৫৪ জনকে আসামি করে পল্টন থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়।
- - - - - - -
২। সিরাজগঞ্জে ২৯ অ্যানথ্রাক্স রোগী সনাক্ত
সিরাজগঞ্জের দুটি উপজেলায় ২৯ অ্যানথ্রাক্স রোগী সনাক্ত করেছে স্বাস্থ্য বিভাগ। আক্রান্তদের মধ্যে উল্লাপাড়ায় ২০ জন ও শাহজাদপুরে ৯ জন রয়েছেন। এদের সবাইকে বাড়িতে রেখেই চিকিৎসা দিচ্ছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

২০১৫
=====
১। আমার সামনে ইনুর নেতৃত্বেই প্রথম গুলি করা হয় :গয়েশ্বর


বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু বাংলাদেশে প্রথম গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে সশস্ত্র রাজনীতি শুরু করেন। এটা ঐতিহাসিক সত্য। তিনি হাসানুল হক ইনু ও কর্নেল তাহেরের ভাই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক আনোয়ার হোসেনকে ১৯৭৪ সালে তত্কালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এম মনসুর আলীর বাড়িতে গুলিবর্ষণ করতে দেখেছিলেন বলে দাবি করে বলেন, গুলিটা প্রথম আনোয়ার হোসেন ও হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বেই শুরু হয়। মঙ্গলবার (২৫/০৮) জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী তৃণমূল দলের জেলা প্রতিনিধি সভা উপলক্ষে আলোচনা সভায় তিনি এই মন্তব্য করেন।
তিনি বলেন, ‘আমরা জানি, মন্ত্রীর বাড়ির গেটের সামনে যাব, সরকারের পক্ষ থেকে কেউ আসবে, স্মারকলিপি নেবে। কিন্তু আমার সামনেই গুলিটা প্রথম এই আনোয়ার হোসেন ও হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বেই শুরু হলো। যখন আত্মরক্ষার্থে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাসভবন থেকে পাল্টা গুলি এল, তখন আমরা দিগ্বিদিক ছোটাছুটি করছি। কারও হাত নেই, কারও পা নেই। কত জন মারা গেছে তখন জানার সুযোগ ছিল না।’ গয়েশ্বর আরো বলেন, ১৯৭৪ সালে সরকারের বিরুদ্ধে হরতালের ডাক দেয় জাসদ। সেই হরতালে বোমা ব্যবহারের জন্য বোমা বানানোর দায়িত্ব দেয়া হয় ইঞ্জিনিয়ার নিখিল চন্দ্র সাহাকে। যাত্রাবাড়ীর পরিত্যক্ত বাড়ির মধ্যে কয়েক জনকে নিয়ে নিখিল বোমা বানাতে যায়। হঠাত্ করে তার নিজের হাতের মধ্যে একটা বোমা ফাটে। নিখিলের সম্মানার্থে পেট্রোল বোমার নাম রাখা হলো ‘নিখিল’। আপনারা তথ্যমন্ত্রীকে (ইনু) জিজ্ঞাসা করবেন, বোমার অপর নাম নিখিল ছিল কি না?
নেতাকর্মীদের উদ্দেশ করে তিনি বলেন, হতাশ হওয়ার কিছু নেই। ২০১৯ সালে নয়— এর আগেই সরকারকে জাতীয় সংসদ নির্বাচন দিতে হবে। আর সেই নির্বাচন অবশ্যই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে হবে।
- - - - - - -
২। ‘ছেলেধরা’ সাজিয়ে তিন ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে হত্যা
একটি যাত্রীবাহী বাস থেকে ৭/৮ জন ব্যক্তি ৩ জনকে টেনে হিঁচড়ে নামিয়ে আনে। তারা ঐ তিন ব্যক্তিকে মারধর করতে থাকে। এসময় চিত্কার করতে থাকে, ‘ছেলেধরা’। অমনি আশেপাশের জনতা ছেলেধরা সন্দেহে ঐ ৩ ব্যক্তিকে গণপিটুনি দিতে থাকে। এক পর্যায়ে তাদের মৃত্যু হয়। পরে দেখা গেলো গণপিটুনিতে নিহত ঐ তিন ব্যক্তি গরু ব্যবসায়ী। ব্যবসায়ীক দ্বন্দ্বের জের ধরে প্রতিপক্ষরা তাদের ‘ছেলেধরা’ সাজিয়ে গণপিটুনি দিয়ে হত্যা করায়। এই ঘটনাটি ঘটেছে পাবনার চরমপন্থি অধ্যুষিত এলাকা সাঁথিয়ার করমজা চতুর হাট এলাকায়।

২০১৬
======
১। ‘জঙ্গিবিরোধী অভিযানের সমালোচকদের দেশপ্রেম নিয়ে প্রশ্ন আইজিপির’


কল‌্যাণপুরে ‘তাজ মঞ্জিলে’ অভিযানে জঙ্গি হতাহতের ঘটনার সমালোচনাকারীদের দেশপ্রেম নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন পুলিশ প্রধান শহিদুল হক। পুলিশের কর্মকাণ্ডের সমালোচনাকারীদের ‘জঙ্গি সমর্থক’ বলেও মন্তব‌্য করেন শহিদুল হক। তিনি বলেন, ‘নেপথ্যে আপনি (সমালোচনাকারীরা) সন্ত্রাসী জঙ্গিদের সমর্থন করছেন। এরা জঙ্গিদের সার্পোট করে। এরা চায় জঙ্গিরা অপতৎপরতা করুক, সরকার বিপাকে থাক।’ শুক্রবার মিরপুর সরকারি বাংলা কলেজে জঙ্গি ও সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশে এসব কথা বলেন তিনি।
- - - - - - -
২। সুন্দরবনে র‌্যাবের সঙ্গে 'বন্দুকযুদ্ধে' সাইজ্যা বাহিনী প্রধান নিহত
- - - - - - -
৩। হলের দাবিতে আবারো ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।
- - - - - - -
৪। আগে সর্বস্তরে কমিটি পরে আন্দোলন: খালেদা জিয়া
- - - - - - -
৫। বঙ্গবন্ধু হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী ‘খুনি’ জিয়াউর রহমান ও খন্দকার মোশতাকের মরণোত্তর বিচার দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ।।
- - - - - - -
৬। 'ইসলামাবাদে ৮ম সার্ক অর্থমন্ত্রীদের বৈঠক'
- - - - - - -
৭। ব্রাহ্মণবাড়িয়া-কলকাতা রুটে রয়েল কোচ নামে নতুন একটি বাস সার্ভিস চালু করা হয়েছে।

২০১৭
======
১। ৩ দিনে ৬ হাজার রোহিঙ্গা প্রবেশ


সীমান্তের জিরো পয়েন্টে হাজারো রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশের অপেক্ষায় রয়েছে। গতকাল বিকাল ৫টায় ঘুমঘুম তমব্রু এলাকার জলপাইতলী গ্রামে প্রায় ১ হাজার রোহিঙ্গা ঢুকে পড়েছে। এদের মধ্যে নারী-শিশুদের সংখ্যা বেশী। মধ্যম তুমব্রু ও পশ্চিমকুল গিয়ে দেখা যায়, নির্যাতিত রোহিঙ্গা পরিবার জিরো পয়েন্টের খালের ওপর তাবু গেড়েছে। ওই এলাকার বাসিন্দা দীল মোহাম্মদের ছেলে মো. ফারুখ জানান, বৃহস্পতি ও শুক্রবার ২ দিনে অন্তত ১ হাজার রোহিঙ্গা প্রবেশ করে বিভিন্নস্থানে চলে গেছে। এদের মধ্যে ৪জন গুলিবিদ্ধ ছিল। বিজিবি সদস্যদের উপস্থিতির পর তারা সেখানে তাবু গেড়ে আশ্রয় নিয়েছে। তবে যে কোন সময় ফাঁকফোকর পেলেই ঢুকে পড়তে পারে।
- - - - - - - -
২। হজযাত্রীদের ফেলে পালালো বহু এজেন্সি
হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরুর বাকি মাত্র তিন দিন। শেষ মুহূর্তে রাজধানীর আশকোনার হজ ক্যাম্পে হজযাত্রীদের কান্নাকাটি আর আহাজারিতে ভারি হয়ে উঠেছে পরিবেশ। হজ যাত্রীদের ফেলে পালিয়েছে বহু এজেন্সি। তাদের মোবাইল বন্ধ, অফিসেও তালা। ইতিমধ্যে হজ অফিসে ৬৪টি হজ এজেন্সির বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট গাফিলাতি ও প্রতারণার অভিযোগ দাখিল হয়েছে। অনেকের ভিসা আছে কিন্তু টিকেট হয়নি। কারো কারো টিকেট থাকলেও ভিসা করেনি এজেন্সি। যাদের বিমানের টিকিট কাটা বাকি রয়েছে, তাদের হজে যাওয়া অনিশ্চিত।
- - - - - - - -
৩। বাংলাদেশ ভ্রমণে আবারো যুক্তরাষ্ট্রের সতর্কতা জারি
বাংলাদেশে নতুন করে ভ্রমণ সতর্কতা জারি করেছে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর হুমকি অব্যাহত রয়েছে উল্লেখ করে বাংলাদেশে অবস্থানরত এবং বাংলাদেশে ভ্রমণেচ্ছু মার্কিন নাগরিকদের প্রতি এ সতর্কতা দেয়া হয়েছে। কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা অবলম্বন ও সতর্ক থাকার পাশপাশি স্থানীয় নিরাপত্তা পরিস্থিতি সম্পর্কে অবহিত থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে মার্কিনিদের।
- - - - - - - -
৪। ‘বন্যার্তদের ঘরবাড়ি ও ভূমিহীনদের জমি দেওয়া হবে’
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বন্যায় যারা বাড়ি-ঘর হারিয়েছে তাদের ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হবে। এছাড়া ভূমিহীনদের জমি দেওয়া হবে। দেশের ২১টি জেলার ফসল বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বন্যা পরবর্তী কৃষি পুনর্বাসনের জন্য সব ধরনের সহায়তা দেওয়া হবে।
- - - - - - -
৫। ২৫ দিনে ৪০০ পৃষ্ঠার রায় লেখা অসম্ভব: শামসুদ্দিন চৌধুরী
সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ের পর্যবেক্ষণ প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার লেখা কি না তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করে বলেছেন, ‘উনি মাত্র ২৪ দিন সময়ের মধ্যে ৪০০ পৃষ্ঠার কথা লিখেছেন, এটা ইমপসিবল, এটা হতে পারে না। এটা তার লেখা রায় মোটেও নয়। অন্য কেউ লিখে দিয়েছে, সম্ভবত পাকিস্তানি কোনো আইএসআই লিখে দিয়েছে।’ শনিবার দুপুরে ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটির স্বাধীনতা হলে স্বাধীনতা পরিষদ নামে একটি সংগঠনের উদ্যোগে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের সমাবেশে চালানো গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি আরো বলেন, ‘তার (প্রধান বিচারপতি) লেখা রায় পড়লে আপনারা দেখতে পাবেন, অনেক শব্দ আছে যেসব শব্দ তার লেখা আগের কোনো রায়ে নাই। অর্থাত্ এটা পরিষ্কার, এই রায় তার লেখা নয়।’
বিচারপতি অপসারণের ক্ষমতা সংসদের হাতে নিতে সংবিধানে আনা ষোড়শ সংশোধনী বাতিল করে গত ৩ জুলাই আপিল বিভাগ চূড়ান্ত রায় দেয়, ১ আগস্ট পূর্ণাঙ্গ রায়টি প্রকাশ করা হয়। ৭৯৯ পৃষ্ঠার ওই রায়ের বেশিরভাগ অংশজুড়ে প্রধান বিচারপতির পর্যবেক্ষণ রয়েছে; যা নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে চলছে তুমুল আলোচনা। ওই রায়ের পর্যবেক্ষণে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে খাটো করা হয়েছে অভিযোগ তুলে প্রধান বিচারপতির পদত্যাগ দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের নেতারা। গত বছর অবসর নেয়ার সময় প্রধান বিচারপতির সঙ্গে কোন্দলে জড়িয়ে পড়া বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরীও ক্ষমতাসীনদের ওই দাবিতে সমর্থন জানিয়েছেন।

২০১৮
======

সূচীপত্র:→ বাংলাদেশ: ফিরে দেখা

________________
তথ্য ও ছবিসূত্র:
দৈনিক ইত্তেফাক, দৈনিক প্রথম আলো, দৈনিক সমকাল, দৈনিক যুগান্তর এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ মাধ্যম।
বাংলাদেশের তারিখ : বিচারপতি মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান।
বাংলাদেশের ইতিহাস সংক্রান্ত বিভিন্ন বই-পুস্তক ও পত্রপত্রিকা।
ইন্টারনেট, উইকিপিডিয়া, বাংলাপিডিয়া।
সর্বশেষ এডিট : ২৬ শে আগস্ট, ২০১৮ বিকাল ৩:০৬
৪টি মন্তব্য ২টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

কবিতা ফিরিয়ে আনুক হারিয়ে যাওয়া শব্দ কথা…...

লিখেছেন নতুন নকিব, ১৪ ই অক্টোবর, ২০১৯ সকাল ৯:৩৮



কবিতা ফিরিয়ে আনুক হারিয়ে যাওয়া শব্দ কথা…...

আধুনিক অন্ধকারে অবরুদ্ধ প্রত্যুষ
রাতের শরীরে অবিমৃষ্য ঘোর তমসা
কুয়াশাদের আনাগোনায় দৃষ্টি বিভ্রম
বাতাসে আলগোছে নুয়ে পড়া বিমর্ষ দীর্ঘশ্বাস.......

ক্ষয়িষ্ণু দুপুরগুলো নির্বাক বোবামুখ
ধূলি ধূসরিত গোধূলিও... ...বাকিটুকু পড়ুন

মগ্নতা

লিখেছেন ইসিয়াক, ১৪ ই অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:০৬


তোমাতে মগ্ন ছিলো আমার পুরো যৌবনকাল !
তোমার তৈলচিত্রের প্রতিটি ভাঁজে ভাঁজে
সৌন্দর্য খুঁজে বেরিয়েছে আমার শৈল্পিক হাত ।
সেখানে খুঁজে পেয়েছিলাম আমি সুখের নীলকান্ত মনি ।
যা আমার জীবনকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

» গ্রামের ছবি, মায়া জড়িয়ে আছে যেখানে (মোবাইলগ্রাফী-৩৭)

লিখেছেন কাজী ফাতেমা ছবি, ১৪ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৩:১১

১।


উপরের ছবিটি আমাদের পুকুর পাড় থেকে তোলা।
-------------
এগুলো আমাদের গ্রামের ছবি, হবিগঞ্জ, চুনারুঘাট, পীরেরগাও থেকে তোলা। আমাদের গ্রাম ধীরে ধীরে শহর হয়ে যাচ্ছে। সামনে পিছনে পাকা রাস্তা। এমনিতে অনেক সুন্দর গ্রাম... ...বাকিটুকু পড়ুন

কোথাও কেউ নেই

লিখেছেন ভুয়া মফিজ, ১৪ ই অক্টোবর, ২০১৯ বিকাল ৪:৩০



আবরার ফাহাদকে খুন করা হলো অক্টোবরের ৬ তারিখ রবিবারে।

এরপর থেকে আমার প্রধান কাজ হয়ে দাড়ায় এ'সম্পর্কিত খবর পড়া, দেখা এবং শোনা। অনলাইনে বিভিন্ন পত্রিকা, ইউটিউব, টিভি; এর মধ্যেই ঘুরপাক... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্রগতিশীলতার পীড়ন নয় - চাই পেশাদারিত্বের পরিচয়।

লিখেছেন , ১৪ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১০:০৮

প্রগতিশীলতার পীড়ন নয় - চাই পেশাদারিত্বের পরিচয়।



আপনার হাতের স্মার্টফোন ব্যবহার করে ভিডিও, ছবি তুলে আমাদের কাছে পাঠিয়ে আপনিই হয়ে উঠুন একজন সাংবাদিক --- কিছুদিন আগে এইরকম... ...বাকিটুকু পড়ুন

×