somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

ইমতিয়াজ আহমেদ ইমন
অন্তর্জালে আমার বাড়ি

মা'র গল্পগুলো 001

০২ রা মার্চ, ২০০৭ সকাল ৭:১২
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

[গাঢ়]এইটা ছিল সবচেয়ে মজার:[/গাঢ়]
এক পুরোহিত শীতের রাতে পাশের গ্রামে পূজো সেরে বাসায় আসছে। গায়ে একটা চাদর জড়ানো আর পরণে ধূতি। বেশ ঠান্ডা লাগছে তার। যেতে যেতে সামনে পড়ল একটা বিশাল মাঠ। মাঠের মাঝখান দিয়ে যাওয়ার সময়সে দেখল এককোনায় দুজন বসে আগুন পোহাচ্ছে। সে উর্ধশ্বাসে, "তাপাই, তাপাই, তাপাই" বলে আগুনের দিকে ছুটে গেল। এদিকে আগুন পোহাচ্ছিলেন তাপাই আর তার বউ এবং তারা দুজনই ভুত। বউয়ের সামনে ভুতকে নাম ধরে ডাকা হল বলে সে খুব ক্ষেপে গেল। পুরোহিতকে পাকড়াও করে বলল,
"তুই আমার নাম ধরে ডাকলি, দাড়া তোর ঘাড় মটকে দেব।"

পুরোহিতেরতো ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি অবস্থা। সে বলে, "আমি আবার কি করলাম? মুখ্খু সুখ্খু মানুষ আমি। পূজা পাঠ করে বেড়াই। আমাকে কেন মারবেন?"

তাপাই বলে, "তাওতো বটে। কিন্তু আমিতো একবার বলে ফেলেছি তাই কাজটা আমাকে করতেই হবে। আচ্ছা যাহ্, কাল এসময় এসে যদি তুই আমাকে আমার তিন পুরুষের নাম বলতে পারিস তাহলে টোকে ছেড়ে দেব।" এতটুকু বলেই তাপাই বউ সহ নাই হয়ে গেল।

পুরোহিত মনের দুঃখে বাসায় আসল। সারারাত না ঘুমিয়ে এপাশ ওপাশ করেই কাটাল। পরদিন সারাদিন মন বেজাড় করে ঘুরে বেড়াল। বিকেল বেলা সেই মাঠের পাশের বিশাল বনে মোটামুটি আত্নহত্যা করা যায় এরকম উঁচু একটা ডালের চড়ে তাতে দড়ির একমাথা বেঁধে আরেক মাথায় ফাঁস বানিয়ে নামিয়ে দিল। গাছ থেকে নামার সময় সে শুনতে পেল দুজন ভুত কথা বলছে। ভুত দুটো আর কেউ না তাপাই আর তার বউ।

তাপাই এর বউ তাপাইকে বলছে, "কিগো তুমি এ্যাঁ? পুরোহিত তোমার তিন পুরুষের নাম বলবে কি করে এ্যাঁ? আমি নিজেইতো জানিনা।"
তাপাই বলে, "এই কথা। এটা কোন ব্যাপার হল। শোন তাহলে,
প্রথমে হারমু
তার বেটা ছাড়মু
তার বেটা আপাই
তার বেটা তাপাই।

পুরোহিত সব শুনেতো খুশিতে ডগমগ। সে দড়িডাড়ি সব গুছিয়ে নিয়ে বাসায় চলে আসল। তারপর মাঠে গিয়ে তাপাইকে সব কিছু ঠিকঠাক মত বলে নতুন জীবন নিয়ে হৃষ্টচিত্তে বাসায় আসল।
সর্বশেষ এডিট : ৩১ শে ডিসেম্বর, ১৯৬৯ সন্ধ্যা ৭:০০
৬টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

" হিজি ;) বিজি " - ২ - আমি এবং আমার বই পড়া ও কিছু লেখার চেষ্টা।

লিখেছেন মোহামমদ কামরুজজামান, ০৫ ই ডিসেম্বর, ২০২১ বিকাল ৫:৫০


ছবি - odhikar.news

" আমাদের সমাজে চলার পথে একেক মানুষের একেক রকম নেশা থাকে । কেউ টাকা ভালবাসে, কেউ ভালবাসে ক্ষমতা, কেউ ভালবাসে আড্ডা আবার কেউ ভালবাসে গান... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমি আর ব্লগে আসবো না।

লিখেছেন ইমরোজ৭৫, ০৫ ই ডিসেম্বর, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:০৭



আমি অনিদিষ্ট কালের জন্য ব্লগে আসতেছি না। কারন আমার মন খারাপ। আর গ্রামীনফোন দিয়ে সামহোয়্যারইন ব্লগে ঢুকা যাচ্ছে না। আরবা ভিপিএন এ দিয়ে তখন আবার ঠিকই প্রবেশ... ...বাকিটুকু পড়ুন

হেফজখানা জীবনের এক শীতের রাতের কথা

লিখেছেন আহমাদ মাগফুর, ০৫ ই ডিসেম্বর, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:২৫



তখন হেফজখানায় পড়ি। সাত - আট সিপারা মুখস্থ করেছি মাত্র। সিপারার সাথে বয়সের তফাৎটাও খুব বেশি না। তো একদিন রাতের কথা। শীতের রাত। সবাই ঘুমিয়ে গেছে। আমার ঘুম আসছে... ...বাকিটুকু পড়ুন

মেঘের কাছে রোদ্দুরের চিঠি-০৭

লিখেছেন কাজী ফাতেমা ছবি, ০৫ ই ডিসেম্বর, ২০২১ রাত ১০:২৩


#মেঘের_কাছে_রোদ্দুরের_চিঠি_৭

#একটু_ভাল্লাগা_দিবে?
হ্যালো মেঘ,
আছো কেমন, আলহামদুলিল্লাহ ভালো আছি। বাসায় মেহমান ছিল তাই চিঠি লেখা হয়ে উঠে নাই। মন খারাপ বা অভিমান হয়নি তো! আর মোবাইলে লিখতে লিখতে মে থাক গেয়ি। পিসি... ...বাকিটুকু পড়ুন

বাবু খাইছো? - বাবা খাইছো?

লিখেছেন ঋণাত্মক শূণ্য, ০৬ ই ডিসেম্বর, ২০২১ রাত ৩:৫০

গত কিছুদিন থেকে আমি পরিবারের সাথে থাকছি না। তারা দেশে বেড়াতে গেছে। আর আমি একলা পুরা বাসা নিজের রাজত‍্য প্রতিষ্ঠা করে বসে আছি।



রাজত‍্য প্রতিষ্ঠার মূল ধাপ শুরু হয়েছে... ...বাকিটুকু পড়ুন

×