somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

প্রাণের একুশে বই মেলাঃ প্রিয় ব্লগার শিখা রহমান এর গ্রন্থসমূহ

৩১ শে জানুয়ারি, ২০১৯ সকাল ৯:২৯
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



দিনখানা ফুরোতে যা দেরি, প্রাণের বই মেলা ওরে.........
প্রিয় প্রিয় যত ব্লগারদের পরম আদর মাখা মায়ায় লেখা আহা মধু বই সব। সিটি বাজিয়ে সুখনর্তনের মতন আরো এক মহা খুশির সন্দেশ হলো বই প্রকাশ হতে যাচ্ছে সামুর দাপুটে ব্লগার ও রঙবাজ কবি শিখা রহমানের। ব্লগীয় এই চরম খরার যুগেও নক্ষত্র ব্লগযোদ্ধা যে ক'জনা স্ব-লেখনীর জাদুশৈলীতে আজো ব্লগকূল/সামু প্রাণবন্ত করে রেখেছেন 'শিখা রহমান' তাদের মধ্যেও অন্যতম শ্রেষ্ঠ। স্বমহিম স্বঠমকি জেল্লাদার সে এক নাম বটে। এইতো সেদিন এলেন যেনো, শুরুতে অনিয়মিত হলেও যেই কিছুটা উঁকিঝুকি দেয়া শুরু করলেন, ছটা-জেল্লায় তার পাঠককূল ঠিকি চিনে নিলো নয়া এই ধূমকেতুকে। অল্প কদিনে হয়ে গেলেন মহা সামুরত্ন। যা ছুঁবেন, যা কবেন সবি যেনো ধ্রপদি কাব্য! অনুপম উপমার অপূর্ব অভিনব সব শব্দঝংকারে পাঠককূল মোহাবিষ্ট। অনুভূতিকে অনুরনিত করে মোহিত পাঠককে ধরে রাখার এক জাদুকরি ক্ষমতাময় কবি। ইন্দ্রিয়গ্রাহী সব লেখনীতে পাঠককে ভাবান তিনি। মন কেমন করা সব পাঠের শেষেও লেখাটা মাথায় ঘুরতে থাকে। রেশ রয়ে যায় বহু বহু ক্ষন। একি লেখা তার বারবার পড়তে ইচ্ছা করে। চমকিত পাঠক অজান্তেই বলে উঠে, 'আরে এ যে সব আমারি কথা'! 'ওরে কি মিষ্টি প্রকাশ আহা'! কবি তার চিন্তাকে পাঠকের মাঝে একিভূত করে দেন। সম্মোহনী জাদুবলে পাঠকের মন-মগজে খেলেন তিনি। সম্মোহিত পাঠক কবির চিন্তার স্রোতে নিজেকে অজান্তেই ভাসিয়ে দেয়। কবির চিন্তার গতিধারা তারা বুঝতে চায়, জানতে চায়। এখানেই কবির সার্থকতা। মিষ্টি প্রিয়ভাষি এই কবি কিন্তু আদতে এক দুঃসাহসি কবি। প্রচলিত ধ্যান ধারনা বা মনন কল্পের উর্ধ্বেরও কিছু অনুভূতি তিনি অসম সাহসে অনায়াসে অকপটে শৈল্পিক মুন্সিয়ানায় প্রকাশ করেন তীর্যক সমালোচনার বান উপেক্ষা করে। বৈরি বাধা সব মোকাবেলা করার সৎ সাহস এবং দৃঢ়তা কোনটারই কমতি নেই তার। পুরোপুরি কবিতার মেয়ে তিনি। কবিতায় তার নিত্য বসত। সে-ই তার প্রথম প্রেম, সংবেদনশীলতা আবার স্পর্শকাতরতাও। আকর্ষনিয়া জেল্লাময় এক ব্যক্তিত্বের অধিকারিনী সাহিত্যিক কবি 'শিখা রহমান'। খেয়ালি এই কবি লেখালেখি করছেন আজ তিন বছর। লেখাটা তার নেশা। নেশায় বুঁদ এই লেখক কেবল প্রথম বছরেই লিখে ফেলেছিলেন একশোরও বেশি গল্প! পাঠক-ভক্তকূলের অনুরোধে সদয় কবির অগত্যা মহা সুমতিতে অপ্রকাশিত সে সব গল্প থেকে বাছাইকৃত বেশ ক'খান নিয়ে এবারই প্রথমবারের মতন প্রকাশিত হতে যাচ্ছে তার দুটো গল্প সংকলন ''আগুনের ফুল''''রঞ্জনের প্রেমিকারা''
গুণমুগ্ধ পাঠক হিসেবে 'শিখালেখনি' যতটা চিনি বা জানি মন বলছে কিছু একটা ধামাকা হয়ে যাবে এবার বইদুটো নিয়ে। বাংলা সাহিত্যাকাশে নয়া এক নক্ষত্রের আগমন হলো বলে।
শুভ কামনা 'আগুনের ফুল' এবং 'রঞ্জনের প্রেমিকারা'।
মুখিয়ে আছি নয়া মলাটের গন্ধ, শিখাকাহিনীর অমৃত আর
প্রিয় কবির অটোগ্রাফের জন্য........



গল্পগ্রন্থঃ আগুনের ফুল
প্রকাশকঃ ছায়াবিথী প্রকাশনী
স্টল নম্বরঃ ২১৬-২১৭
এই বইটি ১লা ফেব্রুয়ারী থেকে বইমেলায় ও অনলাইনে পাওয়া যাবে।



গল্পগ্রন্থঃ রঞ্জনের প্রেমিকারা
প্রকাশকঃ পার্ল পাবলিকেশন্স
প্যাভিলিয়ন নম্বরঃ ২৩
এই বইটি ৫ই ফেব্রুয়ারী থেকে বইমেলায় ও অনলাইনে পাওয়া যাবে।

এছাড়াও ফেসবুকের ''লেখাজোকা'' নামক সাহিত্য গ্রুপের প্রকাশিততব্য সংকলনে থাকছে আরো একটি গল্প।



'লেখাজোকা' সংকলন
সম্পাদনাঃ শায়মা হক ও গিয়াস উদ্দীন লিটন
প্রচ্ছদঃ নবী হোসেন
প্রকাশকঃ এক রঙ্গা এক ঘুড়ি
স্টল নংঃ ৪৩৪
এই বইটি ৮ই ফেব্রুয়ারী থেকে বইমেলায় ও অনলাইনে পাওয়া যাবে।

লেখক পরিচিতিঃ
শিখা রহমান পেশায় একজন পুরকৌশলী। স্নাতক ডিগ্রী অর্জন করেছেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (BUET) থেকে। লেখিকা যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া ইন্সটিটিউট অফ ইঞ্জিনিয়ারিং এণ্ড টেকনোলজি (Geoirgia Tech) থেকে পি এইচ ডি করেছেন পুরকৌশলে। বর্তমানে গবেষনা ও অধ্যাপনায় নিযুক্ত আছেন ক্যালিফোর্নিয়া স্টেট ইউনিভার্সিটিতে। পূর্বে তিনি বুয়েটে প্রভাষক হিসেবে এবং যুক্তরাষ্ট্রের মিসিসিপি অঙ্গরাজ্যে অবস্থিত জ্যাকসন স্টেট ইউনিভার্সিটিতে অধ্যাপক হিসেবে কাজ করেছেন। শিখা রহমান বেশ কিছুদিন ধরে অনলাইনে বিভিন্ন গ্রুপে ও ব্লগে লেখালেখিতে যুক্ত আছেন। বুয়েটের ‘আড়িপেতে শোনা সংকলন’ সহ কয়েকটি গল্প সংকলনে ওনার লেখা প্রকাশিত হয়েছে। ওনার একটি ছোটগল্প নাটক হিসেবেও যুক্তরাষ্ট্রে মঞ্চস্থ হয়েছে। বর্তমানে উনি নিজের পেশা ও লেখালেখি নিয়েই আছেন। তিনি দুই পুত্র ও জীবনসঙ্গীকে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যে বসবাস করছেন।
সর্বশেষ এডিট : ০৩ রা ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ভোর ৬:১৯
৩৫টি মন্তব্য ৩৫টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

করোনা

লিখেছেন ম্যাড ফর সামু, ২৭ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৫:২২




বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে এবার ভর্তি হলেন কোন একজন মন্ত্রী মহোদয়, যিনি সিঙ্গাপুর থেকে আক্রান্ত হয়ে দেশে এসে ভর্তি হয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়-এ।

তাঁকে আপাতত কোন... ...বাকিটুকু পড়ুন

সময় এসেছে ঘরে ঘরে মুসলিম,হিন্দু ঐক্যবদ্ধ সংঘঠন গড়ে তুলতে হবে

লিখেছেন :):):)(:(:(:হাসু মামা, ২৭ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:২০

ভ্স্মীভূত কোরআন এভাবেই মাটিতে পুঁতে রাখছেন স্থানীয়রা। ছবি: এএফপি[/sb
আজকাল কথায় কথায় ব্লগ সহ প্রায় সকল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে নানান ধরনের কমেন্টে দেখা যায়,এক পক্ষ আছেন
যারা বিভিন্ন সংঘাত বা ঝামেলার... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্লিজ

লিখেছেন ইসিয়াক, ২৭ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৩৫


কিছু কথা আছে,
ফোনটা রেখোনা …………প্লিজ।

একা বসে আছি তোমারই অপেক্ষায়,
আর নিজেকে সামলাতে পারছিনা কিছুতেই
জানো কিনা জানিনা.
বোঝ কিনা বুঝিনা।
আমি সত্যি আর পারছিনা প্রিয়তমা।
আমার ঘেটে যাওয়া জীবনটাতে তোমাকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

এনআরসি প্রতিবাদে মুসলমানদের রাস্তায় নামা কি ঠিক?

লিখেছেন চাঁদগাজী, ২৭ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:০৮



প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যেইদিন দিল্লী এলো, সেইদিনটি কি রাস্তায় এনআরসি প্রতিবাদের জন্য "উপযুক্ত দিন" ছিলো? ট্রাম্পের ভিজিট মাত্র ১ দিন, এই দিন সম্পর্কে মোদীর সরকার ও বিজেপি খুবই সেন্সসেটিভ;... ...বাকিটুকু পড়ুন

ভারতের মুসলিমদের উপর অত্যাচার এবং বাংলাদেশে মুজিব বর্ষে মোদির প্রাসঙ্গিকতা।

লিখেছেন রাজজাকুর, ২৭ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১০:১৫

ভারতের Citizenship Amendment Act (CAA) এর উদ্দেশ্য আফগানিস্তান, বাংলাদেশ এবং পাকিস্তান থেকে আগত হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ, জৈন, পারসি এবং খ্রিষ্টান এই ছয় ধর্মাবলম্বী অভিবাসীদের ভারতীয় নাগরকিত্ব দেয়া। কিন্তু প্রশ্ন হলো-... ...বাকিটুকু পড়ুন

×