somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

সার সংক্ষেপ: জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১০

২৭ শে অক্টোবর, ২০১০ সন্ধ্যা ৬:০৯
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১০ শিক্ষামন্ত্রনালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয় এ মাসের তিন তারিখ। একত্রিশ মে’তে মন্ত্রীসভার বৈঠকে অনুমোদন করা হয়। এ শিক্ষানীতি নিয়ে আলোচনা বা সমালোচনার আগে দেখা দরকার এখানে কি আছে। যে কেউ ঊনাশি পৃষ্ঠার পুরো শিক্ষানীতি না পড়েও যাতে বুঝতে পারে এতে কি আছে। সে জন্যেই এ প্রয়াস। ঘুরে আসা যাক তাহলে-
প্রাক-কথন: শিক্ষানীতির শুরুতেই আছে প্রাক-কথন। কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পাঁচশত পয়ষট্টি শব্দের এ কথনের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটা লাইন তুলে ধরছি।
* ”আওয়ামী লীগ আগামী প্রজন্মকে নৈতিক মূল্যবোধ, জাতীয় ঐতিহ্য ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ করে জ্ঞান ও প্রযুক্তিতে দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে একটি যুগোপযোগী শিক্ষানীতি প্রণয়নের প্রস্তুতি পূর্বেই গ্রহণ করেছিল।
* বর্তমান শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদকছিলেন
* এই শিক্ষানীতির উল্লেখযোগ্য দিক হল এখানে ধর্ম, বিজ্ঞান ও কারিগরি শিক্ষাকে প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। এতে মানুষের স্বভাবজাত অনুভুতিকে যেমন গুরুত্ব দেয়া হয়েছে, তেমনি পার্থিব জগতে জীবন জীবিকার সুযোগ সৃষ্টিকারী শিক্ষা প্রদানের ব্যবস্থা রয়েছে- যা কর্মসংস্থানের দ্বার উন্মোচিত করবে। দেশ অগ্রগতির পথে এগিয়ে যাবে। আধুনিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিসম্পন্ন জ্ঞানলাভ করে বাংলাদেশকে আমরা জাতির পিতার স্বপ্নের দারিদ্রমুক্ত সোনার বাংলা গড়ে তুলতে সক্ষম হব।”
মুখবন্ধ: মুখবন্ধ আমাদের শিক্ষামন্ত্রীর। এগারশ তিনশব্দ বলার পর মুখবন্ধ শেষ হয়েছ্।ে গুরুত্বপূর্ণ দুটি কথা এখানে এসেছে।
(১) এটা কোনো দলীয় শিক্ষানীতি নয়- জনগণ তথা জাতির আকাক্সক্ষা ও প্রত্যাশার প্রতিফলন ঘটিয়ে তৈরি করা হয়েছে জাতীয় শিক্ষানীতি।
(২) শিক্ষানীতিকোনো অপরিবর্তনীয় বিষয় নয়, এর পরিবর্তন ও উন্নয়নের পথ সব সময়ে উন্মুক্ত থাকবে। কোনো ভুল-ত্রুটি হলে তা সংশোধন করা যাবে।
আরেকটা গুরুত্বপূর্ণ কথা আছে- ‘ শিক্ষানীতির মূলে প্রতিফলিত হয়েছে জনগণের রায় ও প্রত্যাশা এবং আমাদের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, লক্ষ্য ও আদর্শের প্রতিফলন এবং আমাদের সংবিধানের মূল দিকনির্দেশনা। সবরকম বৈষম্যের অবসান ঘটিয়ে সকলের জন্য শিক্ষার অধিকার ও সুযোগ নিশ্চিত করার লক্ষ্য শিক্ষানীতির মৌলিক ভিত্তি হিসেবে অনুসরণ করা হয়েছে।’
সূচিপত্র: মুখন্ধের পর আছে সূচি পত্র। এখানে শিক্ষানীতির আটাশ অধ্যায় ও দুটি সংযোজনী আছে। একনজরে দেখা যাক-
অধ্যায় - ১ : শিক্ষার উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য
অধ্যায় - ২ : প্রাক-প্রাথমিক ও প্রাথমিক শিক্ষা
অধ্যায় - ৩ : বয়স্ক ও উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা
অধ্যায় - ৪ : মাধ্যমিক শিক্ষা
অধ্যায় - ৫ : বৃত্তিমূলক ও কারিগরি শিক্ষা
অধ্যায় - ৬ : মাদ্রাসাশিক্ষা
অধ্যায় - ৭ : ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা
অধ্যায় - ৮ : উচ্চশিক্ষা
অধ্যায় - ৯ : প্রকৌশলশিক্ষা
অধ্যায় - ১০ : চিকিৎসা, সেবা ও স্বাস্থ্য শিক্ষা
অধ্যায় - ১১ : বিজ্ঞানশিক্ষা
অধ্যায় - ১২ : তথ্য প্রযুক্তি শিক্ষা
অধ্যায় -১৩ : ব্যবসায়শিক্ষা
অধ্যায় - ১৪ : কৃষিশিক্ষা
অধ্যায় - ১৫ : আইনশিক্ষা
অধ্যায় - ১৬ : নারীশিক্ষা
অধ্যায় - ১৭ : কারুকলা ও সুকুমারবৃত্তি শিক্ষা
অধ্যায় - ১৮ : বিশেষ শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও শারীরিক শিক্ষা, স্কাউট ও গার্ল গাইড এবং ব্রতচারী
অধ্যায় - ১৯ : ক্রীড়াশিক্ষা
অধ্যায় - ২০ : গ্রন্থাগার
অধ্যায় - ২১ : পরীক্ষা ও মূল্যায়ন
অধ্যায় - ২২ : শিক্ষার্থীকল্যাণ ও নির্দেশনা
অধ্যায় - ২৩ : শিক্ষার্থী ভর্তি
অধ্যায় - ২৪ : শিক্ষক প্রশিক্ষণ
অধ্যায় - ২৫ : শিক্ষকদের মর্যাদা, অধিকার, দায়িত্ব
অধ্যায় - ২৬ : শিক্ষাক্রম, পাঠ্যসূচি ও পাঠ্যপুস্তক
অধ্যায় - ২৭ : শিক্ষা প্রশাসন
অধ্যায় - ২৮ : শিক্ষার স্তর নির্বিশেষে বিশেষ কয়েকটি পদক্ষেপ
সংযোজনী -১ : বাংলাদেশের সংবিধানের শিক্ষা সংশ্লিষ্ট কতিপয় বিধান
সংযোজনী -২ : জাতীয় শিক্ষানীতি প্রণয়ন কমিটি

এর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়গুলো দেখা যাক-
শিক্ষার উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য: সাতশ ঊনষাট শব্দের এ অধ্যায়ে মোট ত্রিশটি উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য নির্ধারণ কর হয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো বলা আছে এভাবে- ‘এই শিক্ষানীতি সংবিধানের নির্দেশনা অনুযায়ী দেশে গণমুখী, সুলভ, সুষম, সর্বজনীন, সুপরিকল্পিত,বিজ্ঞান মনস্ক এবং মানসম্পন্ন শিক্ষাদানে সক্ষমন শিক্ষাব্যবস্থা গড়ে তোলার ভিত্তি ও রণকৌশল হিসেবে কাজ করবে।’ ত্রিশটি উদ্দেশ্য ও লক্ষ্যে আর যেসব বিষয়গুলোকে গুরুত্ব দেয়া আছে সেগুলো হলো- সংবিধান, দেশের স্বাধানতা সার্বভৌমত্ব, দেশজ আবহ, জাতীয় ইতিহাস ঐতিহ্য, গণতান্ত্রিক মনোভাব, বিশ্বপরিমন্ডলের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অংশগ্রহণ ইত্যাদি।
প্রাক-প্রাথমিক ও প্রাথমিক শিক্ষা: পুরো শিক্ষানীতির কথা বললে বড় পরিবর্তনটা আসলে এখানেই। আগে প্রাক-প্রাথমিক ছিলোনা এখন প্রথম শ্রেণীর আগে করা যোগ করা হলো এট্ ি। একবছর মেয়াদের। শিক্ষানীতিতে এটাকে দেখানো হয়েছে বিদ্যালয় প্রস্তুতি পর্ব হিশেবে। শিক্ষাদান প্রক্রিয়া শিশুসুলভ হবে তা বলা আছে। শিক্ষার কৌশল হিশেবে এখানে ধর্মকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। যেমন বলা আছে- ‘ মসজিদ, মন্দির, গীর্জা ও প্যাগোডায় ধর্ম মন্ত্রণালয় কর্তৃক পরিচালিত সকল ধর্মের শিশুদেরকে ধর্মীয়জ্ঞান, অক্ষরজ্ঞান সহ আধুনিক শিক্ষা ও নৈতিকতা শিক্ষাপ্রদানের কর্মসূচি প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষার অংশ হিসেবে গণ্য করা হবে।”

প্রাথমিক শিক্ষাকে পঞ্চম শ্রেনী হতে তিন বছর বাড়িয়ে অষ্টম শ্রেনী পর্যন্ত করা হয়েছে। শিক্ষানীতির ভাষায় ‘। দেশের সব মানুষের শিক্ষার আয়োজন এবং জনসংখ্যাকে দক্ষ করে তোলার ভিত্তিমূল প্রাথমিক শিক্ষা’। আরও বলা আছে ‘ প্রাথমিক শিক্ষা হবে সর্বজনীন, বাধ্যতামূলক, অবৈতনিক এবং সকলের জন্য একই মানের’। এ শিক্ষার দায়িত্ব রাষ্ট্রের। একে কোন এনজিওর হাতে তুলে দেবেনা, বলছে শিক্ষানীতি। ২০ ১১-১২ অর্থ বছর থেকে প্রাথমিক শিক্ষায় ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত চালু করার জন্য নতুন পাঠক্রম, শিক্ষক, অবকাঠেিমার আবশ্যকতা মেটানোর কথা বলা হয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষায় বিভিন্ন ধারার মাঝে সমন্বয় করতে নির্দিষ্ট শ্রেণীর পাঠ্যসূচি অনুযায়ী নির্ধারিত বিষয়সমূহ অর্থাৎ বাংলা, ইংরেজি, নৈতিক শিক্ষা, বাংলাদেশ স্টাডিজ, গণিত, সামাজিক পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তনের ধারণাসহ প্রাকৃতিক পরিবেশ পরিচিতি এবং তথ্যপ্রযুক্তি ও বিজ্ঞান বাধ্যতামূলকভাবে পড়তে বলা হয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষার বয়স ৬+ এতে ২০১৮ সালের মধ্যে শিক্ষক শিক্ষার্থী আনুপাত হবে ১ : ৩০। বিদ্যালয় পরিবেশ শিশুসুলভ করা, ঝরে পড়া রেধে দুপুরে খাবারের ব্যবস্থা, ভালো শিক্ষক নির্বাচন ইত্যাদি বিষয়ও বলা আছে। প্রাথমিক স্তরে পরীক্ষার কতা বলা হয়েছে এভাবে ‘ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীতে ধারাবাহিক মূল্যায়ন এবং তৃতীয় থেকে সকল শ্রেণীতে ত্রৈমাসিক, অর্ধবার্ষিক ও বার্ষিক পরীক্ষা চালু থাকবে। পঞ্চম শ্রেণী শেষে উপজেলা/পৌরসভা/থানা (বড় বড় শহর) পর্যায়ে সকলের জন্য অভিন্ন প্রশ্নপত্রে সমাপনী পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। অষ্টম শ্রেণী শেষে আপাতত: জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষা নামে একটি পাবলিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে এবং এই পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট শিক্ষা বোর্ড দ্বারা পরিচালিত হবে”। প্রাথমিক শিক্ষার মনোন্নয়নে জনস্পৃক্ততা বাড়ানো। আদিবাসী, প্রতিবন্ধী এবং বঞ্চিত শিশুদের পড়ার সুযোগের কথা বলা আছে।

মাধ্যমিক শিক্ষা: এবারের শিক্ষা নীতিতে মাধ্যমিক শিক্ষা অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কারণ শিক্ষানীতির প্রাথমিকের পর বড় পরিবর্তণটা এখানে। নতুন শিক্ষা কাঠামোয় নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত মাধ্যমিক শিক্ষা স্তর হিসেবে বিবেচিত হবে। এ শিক্ষার পর শিক্ষার্থীরা একদিকে যেমন উচ্চশিক্ষার বিভিন্ন ধারায় যেতে পারবে তেমনি কেউ ইচ্ছে করলে আবার বৃত্তিমূলক শিক্ষার ভিত্তিতে বা আরো বৃত্তিমূলক শিক্ষার মাধ্যমে জীবিকার্জনের পথে যেতে পারবে। এখানে উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য হিসেবে যেসব কথা বলা হয়েছে। শিক্ষার্থীর অন্তর্নিহিত মেধা ও সম্ভাবনার পরিপূর্ণ বিকাশে সাহায্য করা। উচ্চশিক্ষার ভিত শক্তিশালী করা। কৌশল হিশেবে পাঠ্যসূচীর বিষয়ে বলা হয়েছে- সব ধারাতেই জন-সমতাভিত্তি সৃষ্টির লক্ষ্যে কয়েকটি মৌলিক বিষয়ে
যথা- বাংলা, ইংরেজি, বাংলাদেশ স্টাডিজ, সাধারণ গণিত ও তথ্যপ্রযুক্তি শিক্ষায় অভিনড়বড়ব শিক্ষাμম ও
পাঠ্যসূচি বাধ্যতামূলক থাকবে। মাধ্যমিকের মূল্যায়ন পদ্ধতির বিষয়ে বলা হয়েছে- ‘দশম শ্রেণী শেষে জাতীয় ভিত্তিতে পাবলিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এই পরীক্ষার নাম হবে মাধ্যমিক পরীক্ষা এবং এই পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত বৃত্তি প্রদান করা হবে। দ্বাদশ শ্রেণীর শেষে অরো একটি পাবলিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে, এর নাম হবে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা। উভয় পরীক্ষা হবে সৃজনশীল পদ্ধতিতে এবং পরীক্ষার মূল্যায়ন হবে গ্রেডিং পদ্ধতিতে। উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে উচ্চশিক্ষার জন্য বৃত্তি প্রদান করা হবে।’ ইংরেজী মাধ্যমের ও লেভেল এবং এ লেভেলকে সাধারণ ধারার অন্তর্ভূক্ত করতে শিক্ষানীতি বলেছে- ‘ও’লেভেল উত্তীর্ণকে এস.এস.সি এবং ‘এ’ লেভেল উত্তীর্ণকে এইচ.এস.সি-র সমমান হিসেবে বিবেচনা করা হবে।

মাদরাসা শিক্ষা: শিক্ষানীতি মাদরাসা শিক্ষার স্বকীয়তা রেখে একে সাধারণ ধারার সাথে মিলানোর প্রয়াস হিশেকে দেখেছে। উদ্ধেশ্য ও লক্ষ্যে বলেছে- শিক্ষার্থীর মনে সর্বশক্তিমান আল্লাহতায়ালা ও তাঁর রাসূল (সা)-এর প্রতি অটল বিশ্বাস গড়ে তোলা এবং শান্তির ধর্ম ইসলামের প্রকৃত মর্মার্থ অনুধাবনে সমর্থ করে তোলা। মাদরাসা শিক্ষাকে সাধারন ধারার সাথে - ইবতেদায়ি আট বছর , দাখিল দুই এবংআলিম দুই বছর করা হবে। সাধারণ ধারায় উচ্চশিক্ষার সাথে সমন¦য় রেখে প্রয়োজনীয় যোগ্যতা সম্পনড়ব শিক্ষক ও অন্যান্য উপকরণ নিশ্চিতকরণ সাপেক্ষে ৪ (চার) বছর মেয়াদি ফাজিল অনার্স এবং এক বছর মেয়াদি কামিল কোর্স চালুর কথা বলা হয়েছে। সিলেবাস হিশেবে এখানে - ইবতেদায়ি পর্যায়ে নির্দিষ্ট শ্রেণীর শিক্ষাμম অনুযায়ী নির্ধারিত বিষয়সমূহ, অর্থাৎ বাংলা, ইংরেজি, গণিত ,নৈতিক শিক্ষা, বাংলাদেশ স্টাডিজ, সামাজিক পরিবেশ এবং জলবায়ু পরিবর্তনের ধারণাসহ প্রাকৃতিক পরিবেশ পরিচিতি, তথ্যপ্রযুক্তি ও বিজ্ঞান
বাধ্যতামূলকভাবে অনুসরন করা হবে। ষষ্ঠ শ্রেণী থেকে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত প্রাক-বৃত্তিমূলক শিক্ষা এবং তথ্যপ্রযুক্তি শিক্ষা প্রদান করা হবে। দাখিল পর্যায়ে বাংলা, ইংরেজি, সাধারণ গণিত, বাংলাদেশ স্টাডিজ এবং তথ্যপ্রযুক্তি বিষয় বাধ্যতামূলক থাকবে। মাদরাসা শিক্ষা আলিম পর্যন্ত দেখবে মাদরাসা বোর্ড এরপর ফাজিল কামিল দেখবে ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়।

ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা: এখানে ইসলাম ধর্মসহ প্রচলিত চারটি ধর্মের ধর্মীয় বিভিন্ন বিষয় বলা আছে। শিক্ষানীতি এর বাইরে ও অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদের কথা ও বলেছে। নৈতিক শিক্ষার ব্যাপারে বলছে- নৈতিকতার মৌলিক উৎস ধর্ম। তবে সামাজিক ও সংস্কৃতিক বৈশিষ্ট্যসমূহ এবং দেশজ আবহও গুরুত্বপূর্ণ উৎস। নৈতিকতা শিক্ষার ক্ষেত্রে এসকল বিষয়ে গুরুত্ব দিয়ে পাঠ্যপুস্তক প্রণয়ন করে নৈতিক শিক্ষাদান পদ্ধতি নির্ধারণ করা হবে। তবে কোন শ্রেণী হতে কোন শ্রেণী এ শিক্ষা থাকবে সেব্যাপারে শিক্ষানীতি কিছুই বলেনি।


উচ্চশিক্ষা: শিক্ষানীতি উচ্চশিক্ষার উদ্দেশ্য দেখেছে- জ্ঞান সঞ্চারণ ও নতুন জ্ঞানের উদ্ভাবন এবং সেই সঙ্গে দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলাকে। এ ক্ষেত্রে বিশ্বমানকে ও প্রাধান্য দেয়ার কথা আছে। শিক্ষানীতি চার বছরের সম্মান ডিগ্রিকে সমাপনী ডিগ্রি হিসেবে এবং উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষকতা ব্যতীত অন্য সকল কর্মক্ষেত্রে যোগদানের প্রয়োজনীয় যোগ্যতা হিসেবে বিবেচনা করার কথা বলেছে। ফলে যে সকল কলেজে তিন বছর মেয়দি স্নাতক ডিগ্রি কোর্স চালু আছে পর্যায়μমে সেখানে চার বছরের স্নাতক সম্মান ডিগ্রি কোর্স চালুর কথা বলেছে। মাস্টার্স, এম.ফিল বা পি.এইচ.ডি-কে বিশেষায়িত শিক্ষা হিসেবে বিবেচনা করা হবে এবং শুধুমাত্র গবেষণা ও উচ্চশিক্ষায় শিক্ষকতা করতে আগ্রহী শিক্ষার্থীদেরকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করতে হবে। ছাত্রবেতনের বিষয়টিও এনেছে শিক্ষানীতি বলেছে- সরকারি অনুদান ছাড়াও উচ্চশিক্ষার প্রতিষ্ঠানগুলোকে ব্যয়নির্বাহের জন্য শিক্ষার্থীর বেতন ব্যবহার করতে হবে এবং ব্যক্তিগত অনুদান সংগ্রহের চেষ্টা চালাতে হবে। বাংলাদেশে বর্তমানে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজগুলোতে ভর্তি ফি ও বেতন খুবই সামান্য। তবে মেধাবী শিক্ষার্থীদের জন্য ফেলোশিপের কথাও এসেছে এ নীতিতে- প্রত্যেক বিশ্ববিদ্যালয়ে মেধাবী শিক্ষার্থীদেও গবেষণার উদ্দেশ্যে যথেষ্ট সংখ্যক আকর্ষণীয় মূল্যের গবেষণা অনুদান এবং স¤প্রতি প্রবর্তিত বঙ্গবন্ধু ফেলোশিপ ছাড়াও আরো ফেলোশিপের ব্যবস্থা করতে হবে। সঙ্গে সঙ্গে ডিগ্রি কলেজগুলোতে গবেষণার জন্য প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা সৃষ্টির পদক্ষেপ নেওয়া হবে। উচ্চশিক্ষার শিক্ষকদের গবেষনায় উৎসাহিত করেছে এ নীতি।

পরীক্ষা ও মূল্যায়ন: পরীক্ষা ও মূল্যায়নে সৃজনশীল পদ্ধতির কথা বলেছে শিক্ষানীতি। মুখস্থ নির্ভর শিক্ষার বাইরে শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশের কথা বলেছে এ নীতি। এ জন্য সেধরনের বই, সিলেবাস প্রণয়নেও উৎসাহ দেযা হয়েছে এখানে। পরীক্ষা প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীতে আনুষ্ঠানিকভাবে থাকছেনা। তৃতীয় শ্রেণী হতে বর্তমান প্রচলিত নিয়মেই পরীক্ষা হবে। স্তর বিন্যাস ভিত্তিক পরীক্ষা ও আগের মতই থাকেছে। যেমন ৫ম শ্রেণীর পর হবে সমাপনী পরীক্ষা। অষ্টম শ্রেণী শেষে হবে জেএসসি পরীক্ষা দশম শ্রেণী শেষে এসএসসি পরীক্ষা আর দ্বাদশ শ্রেণীর পর আগের মতই উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা। বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে শিক্ষানীতি আন্ত: মূল্যায়নও বহিমূল্যায়নের কথা বলেছে এছাড়া পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা পদ্ধতির মধ্যে সামঞ্জস করার কথা বলেছে। শিক্ষানীতি নোট, গাউড, কোচিং, টিউশনি ইত্যাদিকে অনুৎসাহিত করেছে। ফেল করার ক্ষেত্রে- মাধ্যমিক পর্যায়ের পাবলিক পরীক্ষায় কোন শিক্ষার্থী এক বা দুই বিষয়ে অকৃতকার্য হলে তাকে সে বিষয়ে/বিষয় দু’টিতে দু’বার পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দেওয়া হবে।

শিক্ষার্থী ভর্তি: বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির নির্দেশণা হলো- প্রত্যেক পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় যথাযথ নীতিমালা নির্ধারণ করে কেন্দ্রীয়ভাবে একটি নির্বাচনী পরীক্ষা গ্রহণ করবে। এতে ভাষা (বাংলা ও ইংরেজি) এবং বিষয়ভিত্তিক প্রশ্ন থাকবে। পূর্ববর্তী পাবলিক পরীক্ষায় অর্জিত ফলাফলকে ভর্তির ব্যাপারে যথাযথ গুরুত্ব দেওয়া হবে এবং সেটি মূল্যায়নের বিধিমালা থাকবে। উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের এক মাসের মধ্যে ভর্তি পরীক্ষার প্রμিয়া সম্পন্ন হবে। প্রথম শেনীতে ভর্তিও বিষয়ে বলেছে- ‘নীতিগতভাবে প্রম শ্রেণীতে ভর্তির জন্য নির্বাচনী পরীক্ষা থাকবে না তবে যেসকল বিদ্যালয়ে আসন
সংখ্যা অপেক্ষা ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেশি হবে সেসকল বিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার ব্যবস্থা করা যেতে পারে’।


শিক্ষানীতি কমিটিতে যারা-

১. চেয়ারম্যান
জাতীয় অধ্যাপক কবীর চৌধুরী
২. কো-চেয়ারম্যান
ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ
চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ উন্নয়ন পরিষদ
সভাপতি, বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতি

৩. সদস্য-সচিব
অধ্যাপক শেখ ইকরামুল কবির
পরিচালক (প্রশিক্ষণ ও বাস্তবায়ন),
জাতীয় শিক্ষা ব্যবস্থাপনা একাডেমী (নায়েম), ঢাকা।

সদস্য
৪.অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুলড়বাহ
উপাচার্য, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, গাজীপুর
৫.অধ্যাপক আর আই এম আমিনুর রশীদ
উপাচার্য, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, গাজীপুর
৬.অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম
সমাজবিজ্ঞান বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা
৭.অধ্যাপক মুহঃ জাফর ইকবাল
বিভাগীয় প্রধান, কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং
শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট।
৮.অধ্যাপক ড. ফকরুল আলম
ইংরেজী বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা
৯.অধ্যাপক ছিদ্দিকুর রহমান
শিক্ষা গবেষণা ইনস্টিটিউট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা
১০.অধ্যাপক ড. জারিনা রহমান খান
লোক প্রশাসন বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা
১১.অধ্যাপক নিতাই চন্দ্র সূত্রধর
মহাপরিচালক, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর, শিক্ষা ভবন, ঢাকা
১২.অধ্যক্ষ কাজী ফারুক আহমদ
সভাপতি, বাংলাদেশ কলেজ শিক্ষক সমিতি, ঢাকা
১৩.জনাব সিরাজ উদ্দীন আহমেদ
অতিরিক্ত সচিব (অবসর প্রাপ্ত)
১৪.জনাব মোঃ আবু হাফিজ
অতিরিক্ত সচিব (অবসর প্রাপ্ত)
১৫.মাওলানা অধ্যাপক এ বি এম সিদ্দিকুর রহমান
প্রাক্তন অধ্যক্ষ, সরকারি আলিয়া মাদরাসা, ঢাকা ও সিলেট
১৬.বেগম নিহাদ কবির
ব্যারিষ্টার, সিনিয়র পার্টনার সৈয়দ ইশতিয়াক আহমেদ এন্ড এসোসিয়েটস
১৭.অধ্যক্ষ এম. এ আউয়াল সিদ্দিকী
সভাপতি, বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি
১৮.অধ্যাপক শাহীন মাহ্বুবা কবীর
ইংরেজি বিভাগ, জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়, সাভার, ঢাকা



এখানেও আছে





সর্বশেষ এডিট : ১৮ ই নভেম্বর, ২০১৪ দুপুর ১২:২১
৩টি মন্তব্য ২টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

আমরা কেন অটোপ্রমোশন চাচ্ছি?

লিখেছেন জাহিদ হাসান, ১৪ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ১০:২৬

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বলছে অধিভুক্ত কলেজগুলো পুনরায় খোলার এক মাসের মধ্যে তারা সবার ফাইনাল পরীক্ষা নেবে। কিন্তু আমাদের কলেজ আবার কবে খুলবে বা কত বছর পরে খুলবে কেউ জানে না।... ...বাকিটুকু পড়ুন

অপ্রকাশিত পান্ডুলিপি

লিখেছেন বিদ্রোহী ভৃগু, ১৪ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ১১:৪৪

জীবনের প্রাপ্তি কি?
প্রশ্নের মূখে নিজেকে বড়ই অসহায় মনে হয়!
কেঁচোর মতো গুটিয়ে যাই নিজের ভেতর!

ভাবনা তো ভার্চুয়াল
চেতনা তো অদৃশ্য
আসলেইতো! নিজেকেই নিজে প্রশ্ন করে হাঁপিয়ে উঠি!

সততা: দুর্বলতা হিসেবে প্রতিপন্ন
কৃচ্ছতা- ব্যার্থতার অনুফল হিসেবে... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমার জিজ্ঞাসা

লিখেছেন রাজীব নুর, ১৪ ই জুলাই, ২০২০ দুপুর ১:৪২



১। আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে যারা দূর্নীতি করে ধনী হলো তাদের সরকার গ্রেফতার করছে না কেন?

২। চিপা গলির মধ্যে রাস্তায় অসংখ্য দোকানপাট, পুলিশ বা সিটিকরপোরেশন ওদের সরিয়ে দিচ্ছে... ...বাকিটুকু পড়ুন

ঝাড়ফুঁকের নামে নারীদের ধর্ষণ করতেন মাদ্রাসার ভাইস প্রিন্সিপাল ।

লিখেছেন নেওয়াজ আলি, ১৪ ই জুলাই, ২০২০ দুপুর ২:৪৪


  উনি এক মাদ্রাসার ভাইস প্রিন্সিপাল। এই কাঠমৌল্লার বিরুদ্ধে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ করেছেন এক গৃহবধু। এর আগেও এই মৌল্লা ঝাড়ফুঁকের নামে একাধিক নারীকে ধর্ষণ করেছেন। কিন্তু লোক... ...বাকিটুকু পড়ুন

শীর্ষ শিল্পপতিদের মৃত্যু যেন অভ্যন্তরীণ শ্রমবাজারে নতুন সংকট বয়ে না আনে!

লিখেছেন এক নিরুদ্দেশ পথিক, ১৪ ই জুলাই, ২০২০ দুপুর ২:৫০

১।
মির্জা আব্বাসের কল্যাণে নুরুল ইসলাম বাবুল ভূমিদস্যু পরিচয় পেয়েছেন সত্য, তবে বসুন্ধরার মালিক আহমেদ আকবর সোবাহান সহ বড় বড় ভূমিদস্যু বাংলাদেশে রাজার হালতেই আছে। শীর্ষ বেসরকারি ভুমিদস্যু বসুন্ধরা, ইস্টার্ণ, স্বদেশ,... ...বাকিটুকু পড়ুন

×