somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

আইল বাঁধার প্রচেষ্টা

১৪ ই জুলাই, ২০১৩ বিকাল ৩:১১
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

আইলের কথা সবাই জানেন। তারপরও বলা যায়, আইল জমির চারদিকের সীমানা। জমির ভেতরের পানি, সার ইত্যাদি যাতে বাইরে না যায় তা আটকায় আইল। ক্ষেত চাষার সময় আইল বাঁধাটা জরুরী। এই আইল বাঁধাটা কেবল জমিতেই নয়, অন্য ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। এরকম একটা চমৎকার ক্ষেত্রের কথা বলেছেন আবদুর রাজ্জাক। জাতীয় অধ্যাপক আবদুর রাজ্জাক। শিরোনামটা তার কথা থেকেই ধার করা। তাকে নিয়ে লেখা আহমদ ছফার যদ্যপি আমার গুরু যারা পড়েছেন তাদের জানার কথা। আবদুর রাজ্জাক এবং আহমদ ছফার অনেকটা কথোপকথনধর্মী বইটা। প্রাসঙ্গিক অংশটুকু উদ্ধুত করছি, যেখানে আহমদ ছফা বলছেন- ‘রাজ্জাক স্যার জিগ্গেস করলেন, পড়ার সময় দরকারি অংশ টুইক্যা রাখার অভ্যাসটা করছেন কি না? আমি চুপ করে রইলাম। তার অর্থ এই যে আমি কোনো নোট রাখিনি। স্যার মন্তব্য করলেন, তাইলে ত কোনো কামে আইব না। ক্ষেত চষবার সময় জমির আইল বাইন্ধ্যা রাখতে হয়।’
এই আইল বাঁধার কাজটা যেহেতু জরুরী, বইটা পড়ার সময় ভাবলাম আমি এখনি শুরু করে দিবো। যদিও আগ থেকে এ কাজটা করলে খুব ভালো হতো। এতদিনের পড়া বইগুলোর কিছু লিখে রাখলেও অনেক উপকারে দিত। অবশ্য আমার মনে আছে কয়েক বছর আগে পড়া রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নৌকাডুবি উপন্যাসটা অসাধারণ লেগেছিলো। তখন ডায়েরিতে কিছু প্রশ্ন লিখে রেখেছিলাম, যাতে বোদ্ধা কারো কাছ থেকে উত্তরগুলো পাওয়া যায়। কিন্তু কাউকে জিজ্ঞেস করা হয়নি। যদিও রবীন্দ্রনাথের নৌকা ডুবির চেয়ে গোরাটা বেশি ভালো লেগেছিলো। সে যাই হোক, কিছুদিন ধরে আবার ভাবছিলাম প্রত্যেকটা বই পড়ার পর ছোট করে হলেও একটা রিভিউ বা অত্যন্ত গুরুপূর্ণ অংশ লিখে আমার ওয়েবসাইটে প্রকাশ করবো। সে অনুযায়ী সম্প্রতি পড়া বইগুলোর কিছু কিছু ডায়েরিতে টুকেও রেখেছি। প্রাসঙ্গিকভাবে বলি, ২০১০ সালের প্রথম দিকে যখন আমি ইউনিভার্সিটির তৃতীয় বর্ষের শেষ পর্যায়ে তখন আনা ফ্রাঙ্কসহ আরও অনেকের ডায়েরি পড়ছিলাম। অসাধারণ ডায়েরিগুলো আমাকে ডায়েরি রাখতে উদ্বুদ্ধ করেছিলো। তখন থেকেই শুরু করা ডায়েরি লেখাটা আমার এখনও চলছে। আর আহমদ ছফার যদ্যপি আমার গুরুর বদৌলতে এখন বই রিভিউ সে অর্থে না হলেও কিছুটা আইল বাঁধার চেষ্টা শুরু করছি। এই চেষ্টা আমার ওয়েবসাইটের পাঠোদ্ধার বিভাগে অব্যাহত থাকবে আশা করি। জানিনা কতদিন অব্যাহত রাখতে পারবো।
সাম্প্রতিক সময়ে পড়া বইয়ের নাম বলি। যে বইগুলো পড়ার পর থেকে ডায়েরিতে টুকা শুরু করলাম। এই চর্চার বয়স বেশি দিন হবে না। যেটা বলাচলে আমার জীবনের পড়ার তৃতীয় মৌসুম। ইউনিভার্সিটি লাইফের আগে এক মৌসুম। ইউনিভার্সিটি লাইফটা এক মৌসুম। আর এখন অনার্স-মাস্টার্স শেষ করার পর মোটামুটি চাকরিতে ঢুকে তৃতীয় মৌসুম। এ মৌসুমে পড়া প্রথম বই পাওলো কোয়েলহোর দি আলকেমিস্ট। চুনিলাল মুখোপাধ্যায়ের করা অনুবাদ আমি পড়েছি । দ্বিতীয় বই ওয়াল্টার আইজ্যাকসনের স্টিভ জবস: আনটোল্ড স্টোরিজ এর বাংলা অনুবাদ বণিক বার্তা প্রকাশ করেছে অপ্রকাশিত স্টিভ জবস নামে। অনুবাদ করেছেন জায়েদ ইবনে আবুল ফজল। তৃতীয় বই মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়ের পুতুল নাচের ইতিকথা। চতুর্থ বই উইলিয়াম হান্টারের দি ইন্ডিয়ান মুসলমান। অনুবাদ করেছেন আবদুল মওদুদ। পঞ্চম বই বঙ্কিমচন্দ্রের দুর্গেশনন্দিনী। ষষ্ঠ বই আহমদ ছফার যদ্যপি আমার গুরু। আর সপ্তম বই চার্লস ডিকেন্সের নিকোলাস নিকলবি। সেবা প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত বইটি রূপান্তর করেছেন কাজী শাহনূর হোসেন।
যাহোক পড়া বইগুলো নিয়েই কথা বলি। শুরুর পর্ব হিসেবে এখন একসাথে সাতটি বই নিয়েই আলোচনা করি। এরপর থেকে প্রতিটি বই আলাদা করে করবো আশা করি।

বিস্তারিত এখানে - Click This Link
সর্বশেষ এডিট : ১৫ ই জুলাই, ২০১৩ দুপুর ১২:৫২
২টি মন্তব্য ২টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

খেলারাম খেলে যাও দেখারাম দেখে যাও...

লিখেছেন সাইন বোর্ড, ২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:৫৬


বলছি না যে সোনার বাংলার সব সোনা হঠাৎ করে শিশ্নতে এসে জমা হয়েছে আর মাঝে মাঝে তা ফাল দিয়ে উঠছে ।

তবে এর ব্যাবহার যাচ্ছেতাইভাবে বেড়ে গেছে । আসলে উন্নয়ন... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমাদের শাহেদ জামাল (ষোল)

লিখেছেন রাজীব নুর, ২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিকাল ৩:০৬



অবিশ্বাস্য ঘটনা ঘটে গেছে!
শাহেদ জামাল চাকরি পেয়ে গেছে। তার ধারনা তার মতো এত এত সিভি আর কেউ জমা দেয় নি। বিডি জবস এ তার চোখ সব সময়... ...বাকিটুকু পড়ুন

ব্লগে পর্ণগ্রাফি, অশ্লীল ও অরুচিকর ছবি প্রদানকারীর পরিচয় সম্পর্কে।

লিখেছেন কাল্পনিক_ভালোবাসা, ২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০১

প্রিয় সহব্লগারবৃন্দ,
আপনাদের জানার সুবিধার্থে বলছি, সামহোয়্যারইন ব্লগ এক ব্যক্তির একাধিক নিক রেজিষ্ট্রেশন সাপোর্ট করে। কারন অনেক লেখকই ছদ্ম নামে লেখালেখি পছন্দ করেন। কিন্তু যদি এটা প্রমানিত হয় যে, এই এক... ...বাকিটুকু পড়ুন

ব্লগের ছবি দেখে মনের ছবি ভেসে ওঠে....

লিখেছেন খায়রুল আহসান, ২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৮:৪০


(সেদিনের আসন্ন সন্ধ্যায়, অস্তগামী সূর্যের ম্লান আলোতে আমাদের স্টীমারের সমান্তরালে সেই লোকগুলোর ক্লান্ত পায়ে হেঁটে চলার দৃশ্যটি আমার মনে আজও গেঁথে আছে)

‘পাগলা জগাই’ ওরফে ‘মরুভূমির জলদস্যু’ এ ব্লগের একজন... ...বাকিটুকু পড়ুন

বাসমতি চাল নিয়ে লড়াই

লিখেছেন শাহ আজিজ, ২৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ রাত ৯:০৭




এবার কাশ্মীর নিয়ে নয় বা লাদাখের অংশ বিশেষ নিয়েও না , লড়াই চাল নিয়ে । সেকি চাল তো কর্কট রেখা বরাবর সবখানেই হয় , তাহলে ? ভারত... ...বাকিটুকু পড়ুন

×