somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

মনের ভেতরের কথা । The beauty inside । ২০১৫ সালের কোরিয়ান মোস্ট রোমান্টিক চলচ্চিত্র :) :) :) :) :)

২৫ শে নভেম্বর, ২০১৫ রাত ৮:৫৫
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :




প্রতিটি সকাল সুন্দর স্নিগ্ধ হওয়ার কথা ছিল , কিন্তু মানুষের একেকটি দিন একেকরকমভাবে শুরু হয় । সেটাই স্বাভাবিক । অওজিন’র সকালগুলো একটু বেশিই ভিন্নভাবে শুরু হয় প্রতিদিন । প্রতিদিন ঘুম থেকে উঠে ভিন্ন অওজিনকে আবিষ্কার করে সে । আঠারো বছরের পর থেকেই এই ভিন্নতা ধরা পরে তার । প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠেই সে লক্ষ্য করে তার চেহারার পরিবর্তন । প্রথম যেদিন পরিবর্তন হয় সেদিন খুব কেঁদেছিল । তার মা প্রথমে তাকে চিনতে পারেনি । সেদিন থেকেই লেখাপড়াকে সে বিদায় জানায় । কারণ প্রতিদিন ভিন্ন চেহারার একজন মানুষকে কি আর আগেরদিনের মানুষ চিনবে । কিভাবে প্রমাণ দিবে সে ! সে যে অওজুন ।

অওজিন’র মা আর শৈশবের এক প্রিয় বন্ধু ছাড়া কেউই তাকে চিনতে পারেনা । প্রতিদিন ভিন্নরুপ , ভিন্নরকম দেখতে মানুষ হয়ে উঠে সে । প্রতিদিন তার পরিবর্তন হতে থাকে । কিন্তু একটা জিনিস পরিবর্তন হয়না তার , সেটা শরীরের ভেতরের মন । তার সুন্দর মন আছে , সুন্দর সুন্দর উদ্ভাবনী চিন্তা আছে তার মনে । সেই চিন্তাগুলোই সে বাস্তব জীবনে রুপ দেয়ার চেষ্টা করে । প্রতিদিন নতুন নতুন আইডিয়া নিয়ে তার চিন্তার পৃথিবী ঘুরপাক খায় । আর প্রিয় বন্ধুর সাথে সেটা নিয়ে আলাপ-আলোচনা চলতে থাকে । এই উদ্ভাবনী চিন্তা মনমানসিকতাই তাকে বাঁচিয়ে রাখে পৃথিবীর মাঝে , উদ্ভুতভাবে প্রতিটি দিন শুরু হওয়ার পরেও তার মাঝে নতুন ধ্যানধারণা নিয়ে কাজ করা থেমে থাকেনা ।

যেদিন প্রথম সকালবেলা জীবনে নিজের এই পরিবর্তন খেয়াল করেছিল সেদিন সে এবং তার মা দুজন খুব কেঁদেছিল । একজন মানুষের জীবনের প্রতিদিন নতুন বিড়ম্বনা খুবই বিরক্তিকর। বাসায় অসংখ্য জুতা , জামাকাপড় । কারণ একেকদিন একেক সাইজের জামাকাপড় তার পরতে হয় । তবুও বেঁচে থাকায় এক অদ্ভুত আনন্দ আছে । সেইজন্যে এই ভিন্নতা নিয়েও বেঁচে থাকতে উদগ্রীব থাকে সে ।গতকাল যার সাথে খুব হেসে হেসে কথা হয়েছিল আগামীকালই সে মানুষটা তাকে চিনবেনা । কি অদ্ভুত ব্যাপার ! বিশেষ করে নিজের কর্মক্ষেত্রে এই বিড়ম্বনা আরও ব্যাপকভাবে দেখা দেয় ।

ফার্নিচার ডিজাইনার হিসেবেই নিজেকে গড়ে তুলতে শুরু করে, যেদিন থেকে বুঝতে পারে অওজিন নিজের এই প্রতিদিনের পরিবর্তন । একজনকে খুব ভালো লেগে যায় একসময় অওজিন’র । সেই মেয়েকে ভালোবেসে ফেলে সে এবং বিড়ম্বনাটা তখন প্রকট আকারে তার কাছে ধরা পরে । সেই মেয়ে ইয়েসো এর কথা , তাকানো , হাসি গভীরভাবে তার মনে স্পর্শ করে কিন্তু নিজের প্রতিদিনের এই অস্বাভাবিক পরিবর্তনের কথা মনে করে তার খারাপ লাগতে শুরু করে । সে যে পরেরদিনেই পরিবর্তন হয়ে যাবে আর তখন তার ভালোবাসার মানুষটিকে সে নিজেকে চেনাতে পারবে । সিদ্ধান্ত নেয় একসময় এই মেয়েকেই সে খুব ভালোবাসবে আর তাকে ভালোবাসার কথা বলবে । ভালোবাসার এক ঘোর পেয়ে বসে । গল্পের ভিন্নতা শুরু এখানেই ! পুরো প্রায় একটি দিন নিজেরা একসাথে ঘুরল এবং যখন বিদায় নিলো অওজিন তখন একটা বিষয় ঘুরপাক খাচ্ছে তার মনে , আগামীদিন কি হবে !

গল্পটা যে ভালোবাসার গল্প , ভালোবাসার মানুষের সাথে থাকা মুহূর্তগুলো খুব চমৎকার মনে হয় । সময়গুলো যেন খুব দ্রুত ছোটে । ‘দ্য বিউটি ইনসাইড’ চলচ্চিত্র নির্মাতা বেই জং ইয়ল ভালোবাসার কথা পর্দায় উপস্থাপনের এক নান্দনিক প্রচেষ্টা চালিয়েছেন অনায়াসে । চমৎকার গল্প , চমৎকার ক্যামেরা এবং দৃশ্যায়নের কাজ তবুও কিছু জায়গায় মনে হয়েছে অসামাঞ্জস্যতা । প্রতিদিন যে মানুষটির চেহারা পরিবর্তন হয় সেই মানুষটা কিভাবে বিদেশে যখন গিয়েছিল ভিসা তখন কিভাবে পেয়েছিল ! তার মুখের অবয়ব সবইতো নিত্যদিন পরিবর্তনশীল । সেটা ঠিক বোধগম্য হয়নি । এই জায়গায় দুর্বল মনে হয়েছিল এই গল্প । তবে চলচ্চিত্রটির এই বিষয়টি বাদে বাকি বিষয়গুলো ছিল মনকাড়ার মতন । গল্প যেমন চমৎকার , অভিনয় তেমনি । প্রতিদিন যে নতুন নতুন চেহারার মানুষ অওজুন’কে পর্দায় দেখানো হয়েছে তাদের সবার অভিনয় ছিল সাবলীল ও মনে রাখার মতন । আর কোরিয়ান চলচ্চিত্রগুলোর সংগীতায়োজন ছিল চমৎকার , ‘ট্রু রোমান্স’ গানটি চলচ্চিত্রপ্রেমীদের মনকে যথেষ্ট আন্দোলিত করবে নিঃসন্দেহে ।

চলচ্চিত্রটি ছিল রিমেক । ২০১৫ সালে মুক্তি পাওয়া ‘দ্য বিউটি ইনসাইড’ এই দক্ষিণ কোরিয়ান চলচ্চিত্রটি পরিচালক বেই জং ইয়ল ২০১২ সালের ছয় পর্বে নির্মিত আমেরিকান সোশ্যাল ফিল্ম ‘দ্য বিউটি ইনসাইড’ এর গল্প অবলম্বনে নির্মাণ করেছেন । তখনকার সেই সিরিজটি ‘ ডেটাইম এমিঅ্যাওয়ার্ড’ পুরস্কার পায় চমৎকার গল্প ও উপস্থাপনের মাধ্যমে । সেটা পরিচালনা করেছিল দ্রেক দরিমাস এবং গল্পটি দ্রেক দরিমাস এর লেখা । কোরিয়ান চলচ্চিত্র নির্মাতা বেই জং ইয়ল এর ‘দ্য বিউটি ইনসাইড’ চলচ্চিত্র দিয়েই চলচ্চিত্র নির্মাতা জীবনের অভিষেক ।


সর্বশেষ এডিট : ১৮ ই ডিসেম্বর, ২০১৫ রাত ১:০৮
১৩টি মন্তব্য ১৩টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

অনলাইনের কিছু বাজে অভিজ্ঞতা, একা বসে কান্না ছাড়া আর উপায় দেখি না!

লিখেছেন সাহাদাত উদরাজী, ২১ শে অক্টোবর, ২০২০ দুপুর ১:৫৭

আমাদের দেশের প্রায় সব বয়সি নারীরা এমন একটা অভিযোগ করেন যে, তিনি অনলাইনে নানাভাবে উত্যাক্ত হয়ে থাকেন। বলা নাই কয়া নাই হঠাত করে তিনি একম কিছু মেসেজ বা কল পান... ...বাকিটুকু পড়ুন

জীবনধারণ খুব ব্যয়বহুল হয়ে যাচ্ছে। নূন্যতম খাবারের দামও ধরা ছোয়ার বাইরে চলে যাচ্ছে...........

লিখেছেন নীল আকাশ, ২১ শে অক্টোবর, ২০২০ দুপুর ২:২৪



যারা কাঁচাবাজারে যান তারা তো জানেনই, তারপরও বলছি। দেশে এখন জীবনধারণ খুব ব্যয়বহুল হয়ে যাচ্ছে।
নূন্যতম খাবারের দামও ধরা ছোয়ার বাইরে চলে যাচ্ছে।
বাজারের কাঁচা শাক সবজির আগুন মতো... ...বাকিটুকু পড়ুন

কেউ কেউ ঈশ্বরে আস্তিক, কেউ কেউ ধর্মে নাস্তিক

লিখেছেন রাজীব নুর, ২১ শে অক্টোবর, ২০২০ বিকাল ৫:১২



মানুষ যা বুঝতে পারে না, যার কারন ব্যখ্যা করতে পারে না, যা কিছু নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না, ও যাকে ভয় পায় তাকেই ঈশ্বর বলে মানে। তবে তার জন্য... ...বাকিটুকু পড়ুন

ব্লগ ছেড়ে যাবেন না; ব্লগ ছাড়লে আপনাকে কেহ চিনবেন না।

লিখেছেন চাঁদগাজী, ২১ শে অক্টোবর, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৪০



আজকে, আমার একটা পোষ্টে ব্লগার জাহিদ হাসান কমেন্ট করে জানায়েছেন যে, তিনি ব্লগ ছেড়ে চলে যাচ্ছেন; আমি না করেছি। উনাকে সম্প্রতি জেনারেল করা হয়েছে, সেটা হয়তো উনাকে হতাশ করেছে;... ...বাকিটুকু পড়ুন

একটা বৃহৎ জীবনের নেশা

লিখেছেন সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই, ২১ শে অক্টোবর, ২০২০ রাত ১১:০৪

এমন সময়ে তুমি আসবে, যখন বিভোর বসন্ত
অঘোরে লাল-নীল-হলুদ ছড়াবে; তখন নবীন কিশলয়ের
মতো গজিয়ে উঠবে প্রেম। পৃথিবীর চোখ
তৃষ্ণায় ছানাবড়া হবে, মানুষে মানুষে অদ্ভুত সম্মিলন।

কখনো কখনো এত বেশি ভালো লাগে,... ...বাকিটুকু পড়ুন

×