somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

রিমন রনবীর
প্রোগ্রামার হিসেবে কাজ করছি প্রায় চার পাঁচ বছর। কতটুকু ইঞ্জিন আর কতটুকু মানবিকতা ধারণ করছি জানি না, তবে আরেকটু বেশি মানবিকতা জাগ্রত করার অবিরাম প্রচেষ্টায় আছি।আমার লিঙ্কডইন প্রোফাইলঃ http://bd.linkedin.com/in/sayemkcn

আরিপ খান যখন ডাক্তার B-)) B-)) (ছোট্টমনিদের গল্প)

২৭ শে জানুয়ারি, ২০১৩ বিকাল ৫:৩০
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

এক দেশে এক রাজা ছিল। তার একটা ছেলে ছিল। রাজার ছেলে।
সে ছিল রাজকুমার। রাজার ছেলে রাজকুমার না হয়ে পারে?
তার আচরনও ছিল ঠিক রাজকুমারের মত। তবে রাজকুমারের আচরন কিরকম হতে পারে সে আমাকে জিজ্ঞেস করনা প্লিজ।
কারন আমি জানিইনা রাজকুমারদের আচরন কেমন। কেনই বা জানব!! আমি তো আর রাজকুমার না !!

সে যাক!! সেই রাজকুমারের একটা অদ্ভুত অভ্যাস ছিল। সে প্রতিদিন রাতে কাচা ডিম দিয়ে কুলকুচি করত। কি অদ্ভুত না?
তো একদিন হল কি, কুলকুচি করতে গিয়ে সেই রাজকুমার বমি করে দিল। কেন দিল জানো?
কারন ডিমটা ছিল দুর্গন্ধযুক্ত।
কেন দুর্গন্ধযুক্ত জানো? কারন ডিমটা ছিল পঁচা। ওয়াক থু।

তো বমি করতে করতে সে বেহাল দশা!! বমি আর থামেই না থামেই না।

কত হেকিম কবিরাজ বদ্যি এল কিছুই করতে পারল না।
রাজামশাই কি করবেন কি করবেন ভেবে ভেবে তার প্রেশার বাড়িয়ে ফেলছিলেন। শেষে আর লোড নিতে না পেরে টিভি খুলে স্টার জলসা দেখা শুরু করে দিলেন।
তারপর অটোমেটিক তার প্রেশার কমে গেল।
বন্ধুরা তোমরা হয়ত দেখেছো যে মাথাব্যাথার সময় যদি বমি কর তাহলে ঐ বমি করার সময়টুকুতে তখন আর মাথাব্যাথা অনুভব করনা।
কি ঠিক বলিনি?

তেমনই ঘটেছে রাজামশাইয়ের বেলায়। তিনি স্টার জলসা দেখছিলেন আর ঐদিকে তার ছেলে বমি করতেই আছে।
শেষে তার উজির একজন ডাক্তারকে ডেকে নিয়ে এলেন। সেই ডাক্তার এসেই বললেন এটা আমার কাছে কোন ব্যাপারই না।

বন্ধুরা তোমরা কি জানো এটা কিন্তু তার কাছে আসলেই কোন ব্যাপার না। কারন সেই বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী ডাক্তার একাধারে মডেল এবং গায়ক। তার ওস্তাদের নাম ছিল সাউজা। সেই সাউজা কিন্তু শুধু বহুমাতৃক না অতিমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী ছিলেন। একাধারে তিনি লেখক,পাঠক,গায়ক,নায়ক,ঔপন্যাসিক,ইঞ্জিনিয়ার,সেন্সিটিভিটি বিশেষজ্ঞ,স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ,টকশো উপস্থাপক,টয়লেট ইঞ্জিনিয়ার এবং জাতিসংঘের বিশেষজ্ঞ প্যানেলের সদস্য।

তখনকার দিনে জাতসংঘ ছিল কিনা সেটা জানতে চেয়ে আমাকে কিন্তু লজ্জা দিও না বন্ধু্রা।
যাহোক ডাক্তার আসলেই কিন্তু কাজের মানুষ ছিলেন। তার ছিল অলৌকিক ক্ষমতা। তবে তার চিকিৎসার ধরনও ছিল ভিন্ন।

এদিকে রাজকুমার বমি করতেই আছে করতেই আছে আর থামছেনা।
তখন ডাক্তার এসেই তার নিজের শার্ট খুলে ফেলল। কি বন্ধুরা ভাবছ ডাক্তারের গরম লেগেছিল বলেই শার্ট খুলে চিকিতসা করবে? নাহ।
আসলে শার্ট খোলাটাই ছিল চিকিৎসা।

আর কি আশ্চর্য দেখ!! সাথে সাথেই তার বমি করা বন্ধ হয়ে গেল।

দেখেছো কি অলৌকিকতা?
আসলে এর ভতরেও সেই বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা টা আছে। কারন পচা ডিমের যেই গন্ধ ছিল সেই ডাক্তারের গায়ে তার চেয়ে বেশী গন্ধ ছিল। আর তার ছিল ঘানা থেকে ইম্পোর্টেড বগল যেখানে সাউজা বগলের সামান্যই ফ্লেভার ছিল।

তখন সে গন্ধে রাজকুমারের ব্রেইন আগের দুর্গন্ধ ভুলে গিয়ে বমি বন্ধ করে দিল এবং নতুন করে যখন বমি করার প্রস্তুতি শুরু করছিল ঠিক তখনই একটা ভয় এসে তার সেই প্রস্তুতিকে ভ্যানিশ করে দিল।
কি ভয়? আরে বলনা আর !! বমি বন্ধ না করলে তো আর ডাক্তার এখান থেকে সরছেনা !! সেই ভয়টাই রাজকুমারের মস্তিস্ক তার পাকস্থলির কাছে সিগনাল আকারে ট্রান্সফার করে দিল। আর কোন পাকস্থলির এত সাহস যে ব্রেইনের হুকুম পালন করতে অস্বীকার করবে?
দারুন না?

হ্যা আসলেই দারুন ব্যাপার।এরকম ডাক্তারই আজকাল ঘরে ঘরে চাই। অবশ্য বেশিরভাগ বামা মা ই এরকম ডাক্তার প্রসব করার চিন্তাও করে না। সে ভিন্ন কথা।

তোমরা নিশ্চয়ই সে ডাক্তারের পরিচয় জানার জন্য কৌতুহলী হয়ে আছো তাইনা?
বলোতো কে হতে পারে?
হ্যা ঠিক ধরেছ। সে তোমাদেরই প্রিয় মডেল আরিপ খান। বিএসসি ইন জার্নালিজম।
সর্বশেষ এডিট : ০৩ রা মার্চ, ২০১৩ রাত ১০:৫৫
১৭টি মন্তব্য ১৭টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

শ্রদ্ধেয়া প্রধানমন্ত্রী, রাজাকারের সব নাতী রাজাকার হতে পারে না

লিখেছেন সত্যপথিক শাইয়্যান, ১৫ ই জুলাই, ২০২৪ রাত ৮:২৪

আমার নানা'র বাবা সিলেটে শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন। আমার নানা'র বড় ভাই পাকিস্তানের শাসনামলে পুলিশের সুপার ছিলেন এবং বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করেছিলেন। কিন্তু, আমার মায়ের বাবা অর্থাৎ আমার নানা আওয়ামী লিগের... ...বাকিটুকু পড়ুন

জামায়াত শিবির আবারও একটি সুন্দর আন্দোলনকে মাটি করে দিল।

লিখেছেন মোহাম্মদ গোফরান, ১৫ ই জুলাই, ২০২৪ রাত ৯:৩৪


নোট: এটি একটি সেনসেটিভ পোস্ট, পোস্ট না পড়ে, কিংবা পোস্টের মর্মার্থ না বুঝে, কিংবা পোস্ট এর অংশ বিশেষ পড়ে, কিংবা পোস্টে কি বুঝাতে চেয়েছি সেটা না... ...বাকিটুকু পড়ুন

জামাত-শিবির-বিএনপি চাচ্ছে, দেশ মিলিটারীর হাতে যাক।

লিখেছেন সোনাগাজী, ১৫ ই জুলাই, ২০২৪ রাত ১০:৩৫



বিএনপি ছিলো মিলিটারীর সাইনবোর্ড, আর জামাত-শিবির ছিলো মিলিটারীর সিভিল জল্লাদ; এখন মিলিটারী তাদের পক্ষে নেই। এরপরও, তারা চায় যে, দেশ কমপক্ষে মিলিটারীর হাতে যাক, কমপক্ষে আওয়ামী লীগ থেকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

এবং নিরবতা প্রশ্ন করে, আপনি কী উত্তর দিবেন?

লিখেছেন সৈয়দ তাজুল ইসলাম, ১৬ ই জুলাই, ২০২৪ রাত ৩:৪১



জী, হ্যা। আপনের বিশ্বাস না হলে গতকালের ঘটনাগুলো দেখতে পারেন। দয়া করে, কেউ এটাকে ছবি ব্লগ বা জামাইত্তা ব্লগ মারাইতে আইসেন না। আমি আওয়ামীলীগের কুকুরদের জামাতি কুকুর বলা লোক না।... ...বাকিটুকু পড়ুন

কোটা সিষ্টেম থেকে বেরিয়ে আসার কোন পথ আছে?

লিখেছেন সোনাগাজী, ১৬ ই জুলাই, ২০২৪ ভোর ৫:৪১



কোটা সিষ্টেম থেকে বেরিয়ে আসার কোন পথ আছে? অবশ্যই আছে, এবং সব সময় ছিলো; দরকার সদিচ্ছা, কিছু অর্থনৈতিক ও ফাইন্যান্সিয়াল জ্ঞান।

চাকুরী সৃষ্টি করতে হবে; জিয়া, এরশাদ,... ...বাকিটুকু পড়ুন

×