somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

করোনা প্রতিরোধে কেরালা মডেল অনুসরনীয় হতে পারে এদেশেও!

১৩ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১০:৩৮
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
সারা ভারত যখন করোনা ঝুঁকিতে কাঁপছে তখন আশার আলো দেখাচ্ছে কেরালা রাজ্য।


যেখানে প্রথম সংক্রমণের ১০০ দিন পেরিয়ে গেলেও সর্বশেষ ১২ এপ্রিল সেখানে করোনায় চিকিৎসাধীন ছিলেন ৩৪৬ জন। চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়ে চলে গেছেন ১২৩ জন। আর মারা গেছেন মাত্র তিনজন। তিনকোটি জনগনের এই রাজ্যে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা কখনোই ৪০০ ছাড়ায় নাই। কেরালার অনেক লোক বিদেশে থাকে এবং তাদের একটি অংশ দেশে ফিরলেও কেরালা রাজ্য সরকার সফল ভাবে ১ লাখ ৩০ হাজার মানুষকে তাদের নিজ নিজ বাড়িতেই আইসোলেশনে রাখতে পেরেছে।

মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতে ধর্মীয় নেতৃবৃন্দ ও সামাজিক সংগঠনগুলোকে ব্যবহার করা হয় কেরালায়। ‘সামাজিক দূরত্ব’ কথাটাও এড়িয়ে যায় তারা। সেখানে এটাকে বলা হয় ‘শারীরিক দূরত্ব, কিন্তু সামাজিক সংহতি’। যা গতকাল আইইডিসিআর বলেছে এতদিনের সামাজিক দূরত্ব বলবার বদলে।

এরই মধ্যে কেরালার রাজ্য সরকার সেখানেই ২৫% মানুষের বাড়িতে অন্তত দুই সপ্তাহের খাবার পৌঁছে দিয়েছে যা পরবর্তী ২ সপ্তাহের মধ্যেই তারা আবারও বাড়িতে থেকেই পেয়ে যাবে। অর্থাৎ ত্রাণ নিতে তাদের আমাদের দেশের মত চেয়ারম্যান-মেম্বারসব রাজনীতিবিদদের পিছে ছুটতে হচ্ছে না। খাবারের অভাবে দুশ্চিন্তায় পরে নিজেকে শেষ করে দেবার প্রয়োজন বা চালচোরদের থেকে নিজেদের হক বুঝে নিতে ত্রানের ট্রাকে হানা দিতেও হচ্ছে না।

উন্নয়নের ক্ষেত্রে কেরালার নেতৃবৃন্দ ‘প্রবৃদ্ধি’, ‘মাথাপিছু আয়’ ইত্যাদি সূচকের দিকে ছোটেননি। বরং চেষ্টা করা হয়েছে জীবনযাত্রার মান বাড়ানোর। এই চেষ্টাটা এমনভাবে করা হয়েছে যেন পুরো জনপদে সবার জীবনযাত্রার মান বাড়ে। আশপাশের রাজ্য ও দেশগুলোতে যেমন কিছু ঝলমলে শহর, শপিং মল বা ইট-সিমেন্টের বড় অবকাঠামোকে উন্নয়নের প্রতীক হিসেবে তুলে ধরা হয়, কেরালা তা করেনি। তারা জোর দিয়েছে স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও বিশেষভাবে রাজনৈতিক সচেতনতার ওপর। ফলে সারা ভারতের মধ্যে মানব উন্নয়ন সূচকে তাদের অবস্থান প্রথম। কেরালার শিক্ষা মডেল বলা যায় বিশ্বের অন্যতম সেরা। ১৯৫১ সালে রাজ্যটিতে সাক্ষরতার হার ছিল ৪৭ শতাংশের মতো। এখন তা ৯৪ থেকে ৯৫ শতাংশ। আমাদের সরকার গত পরশু কৃষকদের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার স্বল্প সুদে ঋণদান কর্মসূচী হাতে নিয়েছে কেননা এত দিন পর তারা কৃষির গুরুত্ব কিছুটা বুঝতে পেরেছে অথচ কেরালা সরকার কৃষকদের জন্য পেনশন পর্যন্ত চালু করেছে একইসাথে ভর্তুকি মূল্যে খাদ্য সরবরাহ করছে।

৫৫ শতাংশ হিন্দুর পাশাপাশি প্রায় ৪৫ শতাংশ মুসলমান ও খ্রিষ্টান রয়েছে কেরালায়। কিন্তু সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার ঘটনা অতি বিরল। এর কারণ খুব সহজ। শাসকদের তরফ থেকে সে ধরনের উসকানি দেওয়া হয় না। কেরালার লোকেরা তাই গর্ব করে বলে, এটা ‘ঈশ্বরের নিজের দেশ’!দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে পুরোনো চার্চ, সেনেগগ, মসজিদগুলোর অক্ষত অবস্থা রাজ্যটির বিকল্প উন্নয়ন মডেলের আরেক প্রতীক। যদি এসব সৌহার্দ্যকে ‘উন্নয়ন’ বলতে মানুষ আদৌ শেখে কোনো দিন।

কার্টেসিঃ প্রথম আলোর আজকের লেখা থেকে সংগৃহীত ও পরিমার্জিত।
সর্বশেষ এডিট : ১৩ ই এপ্রিল, ২০২০ সকাল ১০:৩৮
৪টি মন্তব্য ৪টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

সাহাবীরা নবী সা. কে কেমন ভালবাসতেন!

লিখেছেন এস েজ রতন, ৩১ শে অক্টোবর, ২০২০ সকাল ১১:৩০


গতকাল ছিল ১২ রবিউল আওয়াল, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বশেষ নবী হযরত মুহাম্মদ সা. এর জন্ম ও ওফাত দিবস। ৫৭০ খ্রীষ্টাব্দের সোমবার ছিল ০৮ রবিউল আওয়াল। আর সে কারণেই মহানবীর জন্ম... ...বাকিটুকু পড়ুন

গল্পঃ ম্যানেজার সাব

লিখেছেন অপু তানভীর, ৩১ শে অক্টোবর, ২০২০ দুপুর ১:৩৬

-ম্যানেজার সাব, এই নেন আপনের কপি !

আমি কাস্টমারের কাছ থেকে টাকা হিসাব করে নিচ্ছিলাম তখনই কথাটা শুনতে পেলাম । তাকিয়ে দেখি হোটেলের বেয়ারা রমিজের হাতে আমার কফি খাওয়ার কাপটা... ...বাকিটুকু পড়ুন

আর ধর্মান্ধতা চাই না। একবিংশ শতাব্দীতে এসে মধ্যযুগে ফেরত যেতে চাই না।

লিখেছেন অব্যয় ০১, ৩১ শে অক্টোবর, ২০২০ দুপুর ২:৪১



আমার মনে হয় অদূর ভবিষ্যতে মুসলিম জাতিগোষ্ঠী যারা রয়েছে সমগ্র বিশ্বজুড়ে তারা ব্যাপকভাবে খুব কঠিন রকমের বৈষম্য, ঘৃণা-বিদ্বেষ এবং আক্রমণের শিকার হবে। কিছু কিছু তো এরমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে,... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমাদের শাহেদ জামাল (বিশ)

লিখেছেন রাজীব নুর, ৩১ শে অক্টোবর, ২০২০ বিকাল ৪:০২



আমি এখন যে কথাটা বলবো, তা কেউ বিশ্বাস করবে না।
অবশ্য এই কথাটা আমাকে কেউ বললেও, আমি নিজেও বিশ্বাস করতাম না। অনেক কিছু ঘটে যা দেখা যায় না, তবে... ...বাকিটুকু পড়ুন

সকল চিন্তা বা তৎপরতা মগজধোলাইয়ের ফলাফল নয়!

লিখেছেন মানস চৌধুরী, ৩১ শে অক্টোবর, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:২১

একটা সাদাসিধা জিনিস অনেক লোকেই বুঝতে চাইছেন না। অনেকদিন ধরেই বুঝতে নারাজ; নিকট-ভবিষ্যতেও যে বুঝবেন তার ভরসা পাই না। নাবুঝ বানানোর এই কারিগরিতে একাডেমিয়া আর মিডিয়া কোনটার যে বেশি কৃতিত্ব... ...বাকিটুকু পড়ুন

×