somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

শান্তনু চৌধুরী শান্তু
চিন্তায় মুক্ত - ভাষায় প্রকাশে ভীত , কল্পনার সীমানা মহাকাশ ছাড়িয়ে - বাস্তবতায় পা বাড়াই না সীমানার বাহিরে

লকডাউনে রেনডমলি যে মুভিগুলো দেখলাম - পর্ব ০২ ( হালকা স্পয়লার এলার্ট)

০৯ ই মে, ২০২০ রাত ১২:০২
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



১। Bloodshot (2020)
মুভি প্লট - রে নামে এক সোলজার ঘুম থেকে জেগে উঠে কিছু মনে করতে পারে না । পরে মনে পড়ে এক লোক তার সামনে তার স্ত্রীকে মেরে ফেলেছে ও তাকেও গুরুতর আহত করে । একদল সাইন্টিস তার উপর বায়োট্যাক্ট প্রযুক্তি ব্যবহার করে তাকে জীবিত করে তুলে । প্রতিশোধের নেশায় সে হয়ে উঠে কিলিং মেশিন । তার নাম দেওয়া হয় bloodshot ।
মতামত - মার্ভেলস কমিক ইউনিভার্স ও ডিসি কমিকের ইউনিভার্স বাদেও Valiants কমিক নামে আরেকটি ইউনিভার্স আছে । সেই ইউনিভার্সের একটি সুপারহিরো হল Bloodshot । Valiants কমিক খুব জনপ্রিয় না হলেও ভালো ভালো কিছু সুপার হিরো আছে । ভবিষ্যতে মার্ভেলস ও ডিসি'র বাজার ধরার চেষ্টায় আছে । মুভির গ্রাফিক্সের কাজ চমকপ্রদ হলেও কাহিনী খুবই দুর্বল । একদম যা তা বলা চলে । মনে হয় Valiants কমিক প্রতিযোগিতায় নামার আগে মুখ থুবরে পড়বে ।
- নট রিকমেন্ডেড



২। Star War : The Rise of Skywalker
মুভি প্লট - প্যালপাটিন মারা গিয়েছে বলে জানতো সবাই । কিন্তু সে ফিরে এসেছে । প্যালপাটিন এর অশুভ ফোর্স ছড়িয়ে পড়েছে পুরো ইউনিভার্সে । সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ সিথ লর্ডের সাথে রে ও কাইলো রেন-এর সর্বশেষ যুদ্ধ অনুষ্ঠিত হবে। তার আগে রে ও কাইলোকে তাদের বিরোধ মিটিয়ে লক্ষ্য ঠিক করতে হবে। জানতে হবে রে'র প্রকৃত পরিচয় ।
মতামত - সিরিয়াসলি ম্যান !! কথা নেই, বার্তা নেই, কোন ধরনের সূত্র নেই আর প্যালপাটিন এসে হাজির ! যেন তাকে জোর করে মুভিতে ঢুকানো হয়েছে । যা একজন স্টার ওয়ারের ফ্যান হিসেবে মেনে নেওয়া কঠিন । কেবল তাই না গত পঞ্চাশ বছর ধরে চলে আসা স্টার ওয়ারের বেসিক নিয়ম গুলোর যা তা অবস্থা করে ফেলেছে । শুধু টাকা কামানোর জন্যই মুভিটা করা হয়েছে । চোখ ধাঁধানো গ্রাফিক্স আর অযৌক্তিক কাহিনী মিলে ১.০৭৪ বিলিয়ন ডলার কামিয়েছে ।
- চোখ ধাঁধানো গ্রাফিক্স দেখতে চাইলে রিকমেন্ডেড



৩। The Autopsy of Jane Doe (2016)
মুভি প্লট - একটি বাড়িতে পাঁচটি লাশ পাওয়া গেছে । পঞ্চম লাশটির সাথে বাকি চারটি লাশের কোন সম্পর্ক নেই । চারটি লাশের মৃত্যু খুব ভয়াবহ ভাবে হলেও পঞ্চম লাশটির শরীরে কোন দাগ নেই । পঞ্চম লাশটি পোস্টমর্টেম করার জন্য দুই বাবা ছেলে শবদেহটি কাটাছেঁড়া করে । তারপর ঘটতে থাকে একের পর এক ভয়ঙ্কর দুর্ঘটনা ।
মতামত - পারফেক্ট হরর মুভি বলে কিছু থাকলে এটা হচ্ছে পারফেক্ট হরর মুভি । যতক্ষণ দেখেছি হাত-পা ঠাণ্ডা হয়ে গেছিল । নিজের স্নায়ুর সাথে যুদ্ধ করছিলাম । লাশটি সম্পর্কে শেষমেষ যে তথ্যটি জানলাম তা আমাকে রীতিমতো কাঁপিয়ে দিয়ে দিয়েছে। এই মুভিটি দেখার পর বেশ কদিন হরর মুভি থেকে দূরে ছিলাম।
- হাইলি রিকমেন্ডেড



৪। Chhichhore (2019)
মুভি প্লট – এক কিশোর প্রচুর পড়ালিখা করেও কাঙ্ক্ষিত কলেজে এডমিশন না পাওয়ায় আত্মহত্যার চেষ্টা করে । হসপিটালের বেডে মৃত্যূর সাথে লড়তে থাকা ছেলেটিকে তার বাবা তার ইউনিভার্সিটির ছয় বন্ধু আন্নি, ডেরেক, সেক্সা, মাম্মি, বেওড়া, অ্যাসিড- এর গল্প শুনিয়ে তাকে বেঁচে থাকার আশা যোগায় ।
মতামত- ২০১৯ সালের অন্যতম সেরা হিন্দি মুভি বলা চলে । মুভিটিতে ভালো একটা ম্যাসেজ দেওয়া আছে । অনেকে একে থ্রি ইডিয়েটসের সাথে তুলনা করলেও মুভিটি মোটেও সেই লেভেলে যায় না । মুখ্য চরিত্রে সুশান্ত সিং রাজপুত ও শ্রদ্ধা কাপুরের অভিনয় বেশ দায়সারা টাইপের । মধ্য বয়সে ছয় বন্ধুর মেকআপও যেমন তেমন । যারা কলেজ ইউনিভার্সিটিতে হোস্টেল লাইফে ছিলেন তারা নস্টালজিয়ায় আক্রান্ত হতে মুভি দেখতে পারেন ।
- রিকমেন্ডেড



৫। Lucky Number Slevin (2006)
মুভি প্লট- স্যালভিন বন্ধুর বাসায় এসে বন্ধুকে না পেলেও বন্ধুর পাওনাদারদের হাতে ধরা পড়ে । সবাই তার থেকে টাকা দাবী করে । স্যালভিন আটকা পড়ে দুই মাফিয়া লিডার দ্যা রাব্বী ও দ্যা বসের চলমান ওয়ারের মাঝে । পেছন থেকে কলকাটি নাড়ায় কুখ্যাত অ্যাসাসিন গুডক্যাট । যে কিনা দুই মাফিয়া লিডার থেকে একে অন্য মারার কন্ট্রাক নিয়ে বসে আছে । ধীরে ধীরে খোলাসা হয় অতীতের কিছু কাহিনী ।
মতামত – প্রথম দিকে একটু বিরক্ত লাগলেও শেষের দিকে চরম উত্তেজনা ছিল । বিশেষ করে মুভির টুইস্টগুলো দেখার মত ছিল । বিশেষ করে শেষ মুহূর্তে দুই মাফিয়া লিডারের কথোপকথন মানব জীবনের চিরচারিত হাহাকারকে ফুটিয়ে তুলে । সর্বপরি প্রেসার না নিয়ে দেখার মত মুভি ।
- রিকমেন্ডেড



৬। In the Tall Grass (2019)
মুভি প্লট – ভাই ও বোন বের হয়েছে কেন্সাসের পথে । পথিমধ্যে রাস্তার পাশে লম্বা ঘাসের জঙ্গল থেকে একটা বাচ্চার ছেলের সাহা্য্যের ডাক শোনা যায় । বাচ্চাটিকে খুঁজতে গিয়ে তারাও এই ঘাসের জঙ্গলে হারিয়ে যায় । কেউ এই ঘাসের জঙ্গল থেকে বের হতে পারে না । কাল ও সময়ের হিসাবে সেখানে আলাদা । সূর্যও তার নিজের নিয়মে চলে । সেখানে আটকা পড়ে আছে বাচ্চা ছেলেটির পরিবারটিও । কে শেষমেষ এই অভিশপ্ত জায়গা থেকে বের হতে পারবে ?
মতামত – মুভির কনসেপ্টটি ইউনিক লাগলেও ভয় দেখানো ব্যাপারগুলো গতানুগতিক হরব মুভির মত । বেশি ভয় পাওয়ার মত কিছু নেই । তবে উপভাগ্য
- সময় না কাটলে রিকমেন্ডেড



৭। Dolittle (2020)
মুভি প্লট – Dr. John Dolittle সকল ধরণের প্রাণীর ভাষা বুঝতে পারেন । যাদের সহযোগিতায় ইংল্যান্ডের রানী ভিক্টোরিয়াকে সুস্থ করার প্রেক্ষিতে রানী ডাক্তার ও তার স্ত্রীকে পশুদের অভয়ারণ্য ও চিকিৎসার জন্য বিশাল জায়গা উপহার দেন । এরপর অনেক সময় কেটে যায় । দুর্ভাগ্যবশত ডাক্তারের স্ত্রী জাহাজ ডুবিতে মারা যায় । ফলে ডাক্তার মনুষ্য সংস্পর্শ থেকে দূরে থাকা শুরু করে । এর মধ্যে রানী আবার অসুস্থ হয়ে পড়েন । তাকে বাঁচাতে ডাক্তারকে আবার এডভেঞ্চারে বের হলো ।
মতামত- কাহিনী তেমন একটা ভালো না । গ্রাফিক্সের কাজও মুগ্ধ করার মত নয় । সবাই হয়ত ভেবেছিল স্টার রবার্ট জন ডাউনি জুনিয়রের কাঁধে চেপে মুভিটা পার হয়ে যাবে । ক্রিটিক্সদের কাছেও তেমন একটা গুরুত্ব পায়নি।
বাচ্চাদের সাথে দেখতে চাইলে রিকমেন্ডেড ।



৮। Patient Zero (2018)
মুভি প্লট – পৃথিবীর প্রায় সব মানুষ এক অজ্ঞাত ভাইরাসের কারণে মারা গিয়েছে বা জম্বিতে পরিণত হয়েছে । মুভির নায়ক জম্বির কামড়েও ইনফেক্টেড হয়নি । অদ্ভুত কারণে সে এই ভাইরাস থেকে সুরক্ষিত । ফলে সে জম্বির ভাষা বুঝার ক্ষমতা অর্জন করেছে । এক মিলিটারী বেইসে তাকে পেসেন্স জিরো তথা যার থেকে এই রোগের উৎপত্তি তাকে খোঁজার মিশন দেওয়া হয়েছে ।
মতামত – একদম দায়সারা মুভি । ট্রেন টু বুশান দেখলে এইগুলো যে গার্ভেজ লাগবে টা আগেই বুঝা উচিত ছিলো । ইউনিক কিছুই নেই ।
হাইলি নট রিকমেন্ডেড ।



৯। Underwater (2020)
মুভি প্লট- পৃথিবীর গভীরতম বিন্দু মারিয়ানা ট্রেঞ্চের একটি ড্রিলিং সাইটে এক রহস্যময় ভুমিকম্পে সেখানকার রিসার্চ ফ্যাসিলিটি ধ্বংসপ্রাপ্ত হয় । সেখানকার কর্মীরা সাগরের তলদেশ দিয়ে কাছাকাছি আরেকটি ডিলিং সাইটে যেতে থাকে । পথিমধ্যে তাদের দেখা হয় মারমেইডদের সাথে ! যারা মূলত এই ভূমিকম্পের জন্য দায়ী । কিভাবে তারা মারমেইডদের হাত থেকে বেঁচে ফিরে আসবে ? একই সাথে মানুষদের জন্য ক্ষতিকর এই প্রাণীকে কিভাবে ধ্বংস করবে ?
মতামত – কাহিনীতে কিছুটা ইউনিকনেস আছে । এছাড়া আর তেমন কিছু দেখার নেই । হালকা উত্তেজনা আর শেষ মূহুর্তে ছোটখাট টুইস্ট । সর্বপরি দেখা মত তবে দেখতেই হবে এমন কিছু না ।
সময় কাটানোর জন্য রিকমেন্ডেড



১০। My Spy (2020)
মুভি প্লট – জে জে একশনে অসাধারণ হলেও বুদ্ধিতে কিছুটা কম । ৯ বছরের সোফির পরিবারের উপর গোয়েন্দাগিরি করতে গিয়ে অতি বুদ্ধিমান সোফির কাছে জে জে ধরা পড়ে যায় । বিষয়টা যেন তার সিনিয়ররা না জানে সেজন্য সে সোফির সাথে চুক্তি করে এই শর্তে যে সে সোফিকে স্পাই হওয়ার ট্রেনিং দিবে ।
মতামত – সফট পারিবারিক কমেডির জন্য চমৎকার একটি মুভি । মাইন্ড ফ্রেস করার জন্য দেখা যাবে ।
রিকমেন্ডেড



১১। The Green Mile (1999)
মুভি প্লট- পুরো মুভিটি একজন প্রাক্তন প্রিজন গার্ড পল- এর জবানীতে বলা । পল ছিল জেলের Green Mile ব্লকের আনা আসামিদের মৃত্যুদন্ড প্রদানের দায়িত্বে । একদিন ধর্ষণ ও খুনের অভিযোগে জন কফি নামের এক রহস্যময় কয়েদি জেলে আসে । তার আসার পর থেকে সেখানে অদ্ভুত কিছু ঘটনা ঘটতে থাকে ।
মতামত – এই মুভি নিয়ে কি বলবো ? স্মরণকালের সেরা একটা মুভি । যে শশাংক রিডেমশন বানিয়েছে (Frank Darabont) তার থেকে এই ধরণের মুভিই আশা করাই যায় । টান টান স্টোরিলাইন । অসাধারন সব ডায়লগ । এই মুভি নিয়ে কথা বলতেও যোগ্যতা লাগে । শেষ মূহুর্তে মনটা একটা ডাইলগে হাহাকার করে উঠেছিল । "I’m tired, boss. Tired of being’ on the-road, lonely as a sparrow in the rain. Tired of not ever having me a buddy to be with, or tell me where we're coming from or going to, or why. Mostly I’m tired of people being ugly to each other. I’m tired of all the pain I feel and hear in the world every day.”

এই জিনিস দেখেন নেই তো কি দেখেছেন ?



১২ । Gulaal (2009)
মুভি প্লট – কাল্পনিক শহর রাজপুরে এক প্রতিভাবান ছেলে দিলীপ পড়তে আসে । র্যা গিং সরূপ ইউনিভার্সিটির কিছু গুন্ডারা তাকে নেংটা করে ইউনিভার্সিটির এক তরুনী লেকচারারের সাথে অন্ধকার রূমে আটকে করে রাখে । পরবর্তীতে দিলিপের পরিচয় ঘটে স্থানীয় রাজার ছেলে রানাঞ্জয় সিং এর সাথে । যার মাধ্যমে ঘটনার পারিপার্শ্বিকতায় সে ক্রমে ক্রমে স্থানীয় রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়ে ।
মতামত – এই ধরণের বিচিত্র প্লটে মুভি কেবল অনুরাগ কাশ্যপ -এর দ্বারাই সম্ভব । শুরুতে মুভির আগামাথা কিছুই বুঝছিলাম না । পরে ক্রমে ক্রমে পরিস্কার হতে শুরু করলো । মুভির শেষ অংশ তো মেনে নিতেই পারছিলাম না । কাহিনীর এত বিচিত্র টার্ণ । এই কাহিনীর জন্য অনুরাগ কাশ্যপ বেশ প্রশংসিত ও সমালোচিতও হয়েছেন । বিচিত্রতার কারণে আমারও খুব পছন্দ হয়েছে ।
রিকমেন্ডেড – তবে সবাই বুঝবে বলে মনে হয় না ।



১৩। Happy Death Day (2017)
মুভি প্লট – এক মাতাল রাতের পর ইউনিভার্সিটি ছাত্রী টেরেসার ঘুম ভাঙ্গে তার ক্লাশ মেট কার্টার ডেভিস এর বিছানায়। দিনটি তার জন্মদিন । পরবর্তীতে সে লেডিস হোস্টেলে ফিরে যায় এবং এক মুখোশ পরা খুনির হাতে মারা যায় । পুনরায় তার ঘুম ভাঙ্গে তার ক্লাশ মেট কার্টার ডেভিস এর রুমে । একই দিনে । এই লুপ বার বার চলতে থাকে । বার বার সে মারা যায় খুনির হাতে আর বারবার একই দিনে জেগে উঠে । এই সবের কারণ কি ও তার খুনি কে এই নিয়ে কাহিনী ।
মতামত- একই প্লটের আরো অনেক মুভি আমরা দেখেছি । এই মুভিতেও নতুন কিছু নেই তবে সেন্স অব হিউমার বেশ ভালো ছিল । রেটিং ৬.৫/১০ । ডার্ক কমেডি জেনারে এত ভাল রেটিং আশা করা যায় না ।
টাইম পাসের জন্য রিকমেন্ডেড



১৪। Happy Death Day 2 U (2019)
মুভি প্লট – টেরেসার ঘুম আবার ভাঙ্গে তার ক্লাশ মেট কার্টার ডেভিস এর রুমে । দিনটি তার জন্মদিন । আবার লুপ শুরু হয়েছে । তবে আগেরটা সাথে এবারের ব্যতিক্রম হচ্ছে এইবারে তার খুনি ভিন্ন একজন । কেবল তাই না এবার সে ভিন্ন একটা ইউনিভার্সে আছে যেখানে তার মা বেঁচে আছে এবং অনেক সম্পর্ক বদলে গেছে ।
মতামত- আগেরটার চেয়ে এটাতে বেশি মজা পেয়েছি । সেন্স অব হিউমারও মানসম্মত । বিশেষ করে টেরেসার বিভিন্ন উপায়ে সুইসাইড করার চেষ্টা । অনেকক্ষণ হেসেছি । রেটিং ৬.২/১০।
টাইম পাসের জন্য রিকমেন্ডেড



১৫। Searching (2018)
মুভি প্লট – ডেভিট কিমের স্ত্রী পামেলা ক্যান্সারে মারা যায় । মা হারা ম্যাগেটকে কিম একাই বড় করতে তুলে কিন্তু মায়ের অভাব পূরণ করতে না পারায় ম্যাগট বাবার সাথে থেকেও বিচ্ছিন্ন জীবন যাপন করে । একদিন ম্যাগট গ্রুপ স্টাডিতে গিয়ে আর ফিরে আসেনি । তাকে খুঁজতে অসহায় পিতার আপ্রাণ প্রচেষ্টার কাহিনী ।
মতামত – পুরো মুভিটি পিসি/ল্যাপটপ/স্মার্টফোনের স্ক্রীনের মাধ্যমে শেষ করেছে । ভীষণ চিত্তাকর্ষক থ্রিলার মুভি । একবারের জন্যও আমাকে বোর হতে হয়নি । মেকিং অত্যন্ত চমৎকার ।
হাইলি রিকমেন্ডেড

সর্বশেষ এডিট : ০৯ ই মে, ২০২০ রাত ১২:০২
৪টি মন্তব্য ৪টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

আমাদের শাহেদ জামাল- (চৌত্রিশ)

লিখেছেন রাজীব নুর, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১:০১


ছবিঃ আমার তোলা।

গতকাল রাতের কথা-
সুরভি আর ফারাজা গভীর ঘুমে। রাতের শেষ সিগারেট খাওয়ার জন্য চুপি চুপি ব্যলকনিতে গিয়েছি। দিয়াশলাই খুঁজে পাচ্ছি না। খুবই রাগ লাগছে।... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্রিয় জীবন.....

লিখেছেন জুল ভার্ন, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ভোর ৫:৫৮

প্রিয় জীবন......

জীবন তোমা‌কে কষ্ট দিতে চাইলে তু‌মিও জীবনকে দেখিয়ে দাও- তু‌মি কতটা কষ্ট সহ্য করার ক্ষমতা রাখ। তু‌মি হয়তো এখন জীবনের অনেক খারাপ একটা সময় পার করছ অথবা অনেক আনন্দের... ...বাকিটুকু পড়ুন

ভারতীয় নাগরিক সওজের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী! ক্ষমতাশীনদের বিশেষ সম্প্রদায় তোষণের একটি উদাহরণ!

লিখেছেন দেশ প্রেমিক বাঙালী, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১১:২৬

যিনি বাংলাদেশে অবস্থান করে ভারতীয় পাসপোর্ট ব্যবহার করবেন তিনি নিঃশ্চয় বাংলাদেশী না তিনি ভারতীয় একথা সকলেই একবাক্যে মেনে নিবেন। কিন্তু কি করে একজন ভারতীয় নাগরিক বাংলাদেশী হিসেবে বহাল তবিয়তে... ...বাকিটুকু পড়ুন

সময় নির্দেশের ক্ষেত্রে AM ও PM ব্যবহার করার রহস্য

লিখেছেন নতুন নকিব, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ দুপুর ১২:৪২

ছবি, Click This Link হতে সংগৃহীত।

সময় নির্দেশের ক্ষেত্রে AM ও PM ব্যবহার করার রহস্য

সময় নির্দেশের ক্ষেত্রে AM ও PM কেন ব্যবহার করা হয়, এর কারণটা জেনে রাখা ভালো। আমমরা অনেকেই বিষয়টি... ...বাকিটুকু পড়ুন

গাছ-গাছালি; লতা-পাতা - ০৭

লিখেছেন মরুভূমির জলদস্যু, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৫০

প্রকৃতির প্রতি আলাদা একটা টান রয়েছে আমার। ভিন্ন সময় বিভিন্ন যায়গায় বেড়াতে গিয়ে নানান হাবিজাবি ছবি আমি তুলি। তাদের মধ্যে থেকে ৫টি গাছ-গাছালি লতা-পাতার ছবি রইলো এখানে।


পানের বরজ


অন্যান্য ও আঞ্চলিক... ...বাকিটুকু পড়ুন

×