somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

শান্তনু চৌধুরী শান্তু
চিন্তায় মুক্ত - ভাষায় প্রকাশে ভীত , কল্পনার সীমানা মহাকাশ ছাড়িয়ে - বাস্তবতায় পা বাড়াই না সীমানার বাহিরে

লকডাউনে রেনডমলী যে মুভিগুলো দেখলাম পর্ব ০৩ (হালকা স্পয়লার এলার্ট)

১৭ ই মে, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৫৩
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



১। Bad Times at the El Royale (2018)

মুভি প্লট – ১৯৫৯ সালে এক লোক হোটেল অ্যাল রয়েল- এর এক রুমের ফ্লোরে টাকা ভর্তি ব্যাগ লুকায় । তবে রুম হতে বের হতে গিয়েই আততায়ীয় হাতে মারা পড়ে । ১০ বছর পর এই হোটেলে একজন প্রিস্ট, একজন গায়িকা, একজন সেলসম্যান ও একজন হিপ্পি এলো । প্রতিজনের চরিত্র অত্যন্ত রহস্যজনক । সবার চেয়ে রহস্যজনক হল পুরো হোটেলের একজন মাত্র কর্মচারী মাইলস্ । সবাই কিছু না কিছু লুকাচ্ছে । প্রতিটা রূমের সাথে লাগানো আছে একটি রহস্যময়ী আয়না । আয়নার পিছে কি আছে ? এর মধ্যে হোটেলে হাজির হল এক আধ্যাত্মিক লিডার । তার হারিয়ে যাওয়া প্রেমিকার সন্ধানে ।

মতামত – প্লট শুনে কোন গোয়েন্দা গল্প মনে হলেও এর কাহিনী খুব ইউনিক ও আনপ্রডেক্টিবল । ঘটনা কোথা থেকে কোথায় যাচ্ছে বুঝে উঠা মুসকিল । মুভির মেকিং এতটাই ভালো যে আপনাকে একটু একটু করে এগিয়ে নিবে তারপর এমন কিছু টুইস্টের সাথে দেখা করিয়ে দিবে যে কল্পনাতীত । বোর হবেন না ।

রিকমেন্ডেড ।



২। The Departed (2006)

মুভি প্লট - বোস্টন শহরের আইরিশ মাফিয়া বস ফ্রান্সিস ফ্র্যাংক কস্টেলো অন্য আট দশটা মাফিয়া বসের মত নয় । কলিন নামের এক প্রতিভাবান ছেলেকে পড়ালিখা করিয়ে বড় করে তুলেন শুধুমাত্র পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের ভিতরে তার গোপন এজেন্ট হিসেবে নিয়োগ দিতে । অন্যদিকে ক্রিমিন্যাল ফ্যামিলি থেকে উঠে আসা উইলিয়াম পুলিশে এসেছে তার পরিবারের কলংক দূর করতে । তার বিশ্বস্ততা প্রমাণ করতে স্টেট পুলিশ কস্টেলোর বিরুদ্ধে প্রমাণ সংগ্রহের জন্য তাকে আন্ডারকাভার এজেন্ট নিয়োগ করে । উইলিয়াম কস্টেলোর গ্যাং-এ নিজেকে অন্তর্ভুক্ত করতে সফল হয় । একসময় মাফিয়া আর পুলিশ উভয় পক্ষই জেনে যায় যে, তারা একে অপরের তথ্য ফাঁস করার জন্য এজেন্ট নিয়োগ করেছে। তখন কলিন ও উইলিয়াম একে অপরের পরিচয় ফাঁস করতে ইঁদুর বিড়ালের খেলায় মেতে উঠে । এই আগুনে তেল পড়ে তখনই যখন ঘটনাক্রমে উভয়ই একই মেয়ের প্রেমে পড়ে ।

মতামত – আমি জানি না ৮.৫/১০ আইএমডিবি রেটিং- এর এই মুভিটি না দেখে আমি এতদিন কেমনে ছিলাম । তার উপর লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও, ম্যাট ডেমন, জ্যাক নিকোলসন, মার্ক ওয়ালবার্গ মত হেভিওয়েট স্টাররে ভর্তি মুভি । আর মুভির এন্ডিং দেখে কিছুক্ষণ বিশ্বাস করতে পারছিলাম না এন্ডিং এই রকমও হতে পারে । একেকটি বুলেট একেকটি স্বপ্নের মৃত্যু ঘটিয়েছে । এই ছবির বেশ কয়েক স্থানে ইংরেজি "X" প্রতীক ব্যবহার আছে । এক্স হল মৃত্যুর চিহ্ন। যে চরিত্রের আশে পাশে এক্স চিহ্ন দেখা গিয়েছে তারা সবাই মারা যায় । মুভিটি ১টি গোল্ডেন গ্লোভ ও চারটি অস্কারও বাগিয়ে নেয় ।

হাইলী রিকমেন্ডেড ।



৩। Psycho Raman বা Raman Raghav 2.0 (2016)

মুভি প্লট- রামান নামের এক সাইকো কিলার এসে পুলিশকে জানালো সে ৯ টি খুন করেছে । স্বাভাবিকভাবে পুলিশ বিশ্বাস করেনি । কেবল তাই নয় পুলিশের সময় নষ্ট করার জন্য তাকে এমন মার দেওয়া হয় যে পরবর্তীতে সে আরো ক্ষেপাটে হয়ে উঠে । এখানে সিরিয়াল কিলার একজন নয় দুইজন । একজন জেনে শুনে সিরিয়াল কিলার আরেকজন নিজের অজান্তে । রামান বিশ্বাস করে অপর সিরিয়াল কিলার তার সোলমেট । রামান দায়িত্ব নিয়েছে অপর সিরিয়াল কিলারটিও যেন তাকে সোলমেট হিসেবে মেনে নিয়ে সঠিক (!) পথে ফিরে আসে ।

মতামত – ভিকি কৌশল ও নেওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকির অভিনয়ের কথা কিছু বলার নেই । তবে মুভিটি অন্য ৮/১০টা সিরিয়াল কিলিং এর মত নয় । এখানে কোন মাষ্টারমাইন্ডের কোন খেলা নেই । আছে মানুষের নিষ্ঠুর প্রবৃত্তি মাত্র । রামান যখন এক বাচ্চা ছেলে মারতে যায় তখন সে ছেলেটার নাম দেয় পকেট । কেউ যদি বলে সে কেন তাকে মেরেছে তখন যেন সে বলতে পারে - সে শুধু পকেট মেরেছে । সর্বপরি দেখা মত মুভি হলেও সহজে উপভোগ্য নয় ।

টাইম পাসের জন্য রিকমেন্ডেড



৪। The Miracle বা Mucize (2015)

মুভি প্লট- একজন স্কুল শিক্ষক ঘটনাক্রমে তুরস্কের এমন এক দূর্গম প্রত্যন্ত অঞ্চলে স্কুল শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন যেখানে স্কুলের কোন অস্তিত্ব নেই । ঘটনার পারিপার্শ্বিকতায় স্কুল শিক্ষকটি ঐ এলাকার মানুষদের সরল মনের পরিচয় পেয়ে এতটাই অভিভূত হন যে নিজের বড়লোক স্ত্রীর কাছে নিজের মিথ্যা কিডন্যাপিং- এর খবর বলে টাকা আদায় করেন । আর ঐ টাকায় স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন । মুভিটিতে একটি স্কুল ও একটি আদর্শবান শিক্ষক কারণে ক্রমে ক্রমে ঐ এলাকাটি ও এক প্রতিবন্ধীর জীবন কিভাবে বদলে যায় তাই দেখানো হয়েছে ।

মতামত – মুভি জগত সম্পর্কে খবর রাখেন আর এই মুভিটি সম্পর্কে জানেন না এমন মানুষ বোধ খুব কমই আছে । মুভিটির রসিকতাসমূহ অত্যন্ত উচ্চমানের । কিছু জায়গায় আমি স্বশব্দে হেসে দিয়েছি । কিছু জায়গা এতটা মন খারাপ করছিল যে টেনে দেখতে হয়েছে । সর্বপরি পুরো মুভিটির আত্মতৃপ্তি মুভির শেষ ডাইলগে এসে পূর্ণতা পেয়েছে ।

হাইলি রিকমেন্ডেড



৫। Mucize 2: Ask

মুভি প্লট- Mucize মুভির সেকেন্ড পার্ট এটি । Mucize মুভিতে স্কুল শিক্ষকটি একটি প্রতিবন্ধীকে সুস্থ করে নেওয়ার দায়িত্ব নিয়েছিলেন । ২য় ভাগে এসে দেখানো হয় কিভাবে প্রতিবন্ধীটি তার স্ত্রী ও শিক্ষকটির সহযোগিতায় সুস্থ হয়ে উঠে ।

মতামত – প্রথমটির মত মাস্টারপিস না হলেও সহজে উপভোগ্য । কিছু জায়গাতে ইমোশনাল হয়ে গেছিলাম। প্রতিবন্ধী চরিত্রে অভিনেতার অভিনয় মুগ্ধ হওয়ার মত। তবে আমার ধারণা শুধুমাত্র প্রথম মুভি করেই রেখে দেওয়া উচিত ছিল । ২য় মুভিটি শুধুমাত্র মুভিটির জনপ্রিয়তার কারণে বানানো করা হয়েছে । যেহেতু ১মটি দেখেছি তাই ২য়টিও দেখলাম ।

রিকমেন্ডেড



৬। Okja (2017)

মুভি প্লট – ২০০৭ সালে মিরান্ডো কর্পোরেশন নামের একটি মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানি ব্রিডিং এর মাধ্যমে একধরণের সুপার পিগ প্রস্তুত করেছে মর্মে ঘোষনা দেয় । আরো জানানো হয় মাংসের চাহিদা পূরণে ভবিষ্যৎ গবেষণার জন্য ২৬ টি সুপার পিগকে বিভিন্ন কৃষকের হাতে দেওয়া হয় এবং ১০ বছর পর সেরা স্বাস্থ্যবান সুপার পিগ কৃষককে পুরস্কৃত করবে । দক্ষিন কোরিয়ায় মিওজা নামের বালিকার বেষ্ট ফ্রেন্ড হল ওকজা নামের এক সুপার পিগ । ২০১৭ সালে মিরান্ডো কর্পোরেশন যখন ওকজাকে নিয়ে যায় । মিওজা পাহাড় থেকে বেড়িয়ে পড়ে তার বেষ্ট ফেন্ডকে উদ্ধারের জন্য । তার সাথে যোগ দেয় অ্যানিম্যাল লিভারেশন ফোর্স ।

তামত –শেষ মূহুর্তে যখন প্রাণিগুলোকে নিষ্ঠুরতার সাথে মেরে কেটে প্যাকেট জাত করে ফেলা হচ্ছিল তখন তাদের হাহাকার ভরা ডাক মন খারাপ করে দিয়েছিল । সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম আর কোনদিন মাংস খাবো না । অবশ্য মুভি শেষে মত চেঞ্জ করে করেনিলাম । যাইহোক আহামারী কোন দেখার মত কোন মাষ্টারপিস জিনিস না । বাচ্চাদের জন্য ।

বাচ্চাদের সাথে দেখার জন্য রিকমেন্ডেড



৭। The Prestige (2006)

মুভি প্লট - অ্যাঞ্জিয়ার এবং বর্ডেন দুই শিক্ষানবিশ ম্যাজিশিয়ান । বর্ডেনের ভুলে কারণে অ্যাঞ্জিয়ার – এর স্ত্রী একটি ম্যাজিক ট্রিক দেখাতে গিয়ে মারা যায় । সেই থেকে তারা একে অন্যের জানে দুশমন হয়ে পড়ে । একে অন্যের ম্যাজিক ক্যারিয়ার ধ্বংস করে দিতে উঠে পড়ে লাগে । দুজনই খ্যাতি চূড়ায় উঠেও বারে বারে অন্যের কারণে মুখ থুবড়ে পড়ে । সর্বশেষ বর্ডেন এমন ট্রিক দেখায় যা অ্যাঞ্জিয়ার বুঝতে না পেরে পাগল হওয়ার দশা হয় । যার রহস্য ভাঙ্গতে অ্যাঞ্জিয়ারকে যেতে হয় বিখ্যাত নিকোলাস টেসলারের কাছে । নিকোলাস টেসলার তাকে এমন এক ম্যাজিক বক্স তৈরি করে দেন যা তাকে যাদু বিশ্বে অন্যন্য করে দেওয়ার সাথে সাথে কেড়ে নেয় অনেক কিছু ।

মতামত – ক্রিস্টোফার নোলানের ৮.৫/১০ আইএমডিবি রেটিং -এর মুভি নিয়ে কি বা বলার আছে ? যদি মতামত দিয়েই হয় তাহলে ম্যাজিকের ভাষায় দিতে হবে । প্রতিটি ম্যাজিকের তিনটি গুরূত্বপূর্ণ ধাপ থাকে । যথাক্রমে (দ্য প্লেজ) যেখানে জাদুকর আমাদের খুব সাধারণ কিছু করে দেখান, (দ্য টার্ন) এরপর সেই খুব সাধারণ কিছু দিয়েই করে দেখান কোন অসাধারণ কিছু, সর্বশেষ ধাপে আগের ধাপের হারিয়ে যাওয়া কোনকিছু আমাদের সামনে আবার নিয়ে আসা হয় । যা দেখে দর্শক মুগ্ধতার সাথে হাততালি দেন । নোলান সাহেবও এই ধাপে এই রকম কিছু দেখালেন । আমি কেবল হাততালি দিতে ভুলে গেছিলাম ! এন্ডিংটা আমার কাছে ভীতিকর ছিল ।

হাইলি রিকমেন্ডেড ।



৮। Before Sunrise (1995)

মুভি প্লট - ভিয়েনা গামী একটি ট্রেনে একজন তরুন আমেরিকান যুবক জেসি’র দৃষ্টি পড়ে একজন ফরাসি রমণী কেলাইন’এর উপর। পরিচয় শেষে সারা রাস্তা তারা কথা বলে । হঠাৎ তারা সিদ্ধান্ত নেয় তাদের বাকি ১৪ ঘণ্টা ভিয়েনা শহরে তারা একসঙ্গে সারারাত ঘুরে বেড়ানো এবং একে অপরকে অন্তরঙ্গভাবে জানবে । এই মুভিটি এই দীর্ঘ ১৪ ঘণ্টায় ঘটে যাওয়া বিভিন্ন ঘটনা নিয়ে । শেষ মূহুর্তে একে অন্যের কাছে একটি প্রমিস করে ।

মতামত – রোমান্টিক মুভি নিয়ে আমার বিতৃষ্ণা আছে । তবেও ৮.১/১০ আইএমডিবি রেটিং দেখে আর না করতে পারিনি । পুরাই সংলাপ নির্ভর মুভি । মুভির বড় অংশ এক শটে শেষ করা । ফলে চোখ সরানো যায় না । রোমান্টিক মোমেন্টগুলো বুক মোচড় দেওয়া । বিশেষ করে ফেরিস হুইলে ভালোবাসাবাসির মুহূর্তগুলো । মুভির এন্ডিং দেখে বুঝলাম কিছু একটা এখনও বাকি আছে ।

সিঙ্গেল না হলে রিকমেন্ডেড



৯। Before Sunset (2004)

মুভি প্লট – ০৯ বছর পরের কথা । তরুন আমেরিকান যুবক জেসি এখন বেষ্ট সেলার লেখক । ভিয়েনাতে কাটানো সময়গুলো নিয়ে লিখা বইটি তাকে খ্যাতিমান করে তুলেছে । ফলে সারা ইউরোপ জুড়ে তাকে বিভিন্ন বুক ট্যুর দিতে হচ্ছে । প্যারিস বুক ট্যুরে তাকে এক সাংবাদিক জিজ্ঞাস করলো বইয়ের শেষে কি হয় ? তারা কি তাদের প্রমিস পূরণ করতে পেরেছিল কিনা । জেসি জানালো সে ম্যারিড । তখনই দরজায় এক রমনীর দেখা মিলে ।

মতামত – যেহেতু ১মটা দেখেছি তাই ২য়টাও দেখতে হলো । ৮.০/১০ আইএমডিবি রেটিং । যথারীতি পুরাই সংলাপ নির্ভর মুভি । মুভির বড় অংশ এক শটে শেষ করা । প্রিয় মুহূর্ত হলো গিটার বাজিয়ে যখন কেলাইন যখন জেসিকে গান শোনায় ।

সিঙ্গেল না হলে রিকমেন্ডেড



১০ । Before Midnight (2013)

মুভি প্লট – আরো ০৯ বছর পরের কথা । জেসি ও কেলাইন এখন স্ব পরিবারে গ্রীসে বসবাস করছে । এখনও একে অন্যকে ভীষন ভালোবাসে । তারা যমজ সন্তানের জনক জননী । তবু কিছু একটা মিসিং । মধ্যবয়সে কি তাদের রোমান্স হারিয়ে বসেছে ? এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে বেড়িয়ে পড়লো গ্রীস ছেড়ে ।

মতামত – যেহেতু ১মটা দেখেছি তাই ২য়টাও দেখলাম । তাই ৩য়টাও দেখলাম । ৭.৯/১০ আইএমডিবি রেটিং । মধ্যবয়সের ভালোবাসার গভীরতা বাড়লেও ক্রমে ক্রমে তার জৌলুস হারাতে থাকে । মুভির ১ম দুইটার মত ভালো লাগেনি । ওয়েল, মধ্য বয়সের সমস্যা ও ভালোবাসা বুঝা অক্ষমতাও একটা কারণ হতে পারে । মজার ব্যাপার হল প্রতি ৯ বছরে পরিচালক একটি করে মুভি তৈরি করেছেন । পরের মুভিটি ২০২২ এ আসবে ।

১ম দুটাই দেখে থাকলে রিকমেন্ডেড



১১। Extraction (2020)

মুভি প্লট - কিছু বলার দরকার আছে ?

মতামত - জীবনের মূল্যবান প্রায় দুটো ঘন্টা নষ্ট করে এই মুভি দেখলাম শুধুমাত্র হাইপের জন্য। নাহলে মুভিটা আর দশটা একশন মুভি মতই । হাইপটা শুধুমাত্র বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে মুভিটা তৈরী হয়েছে এই প্রচারণার কারণে। বাংলায় ভুল। বাংলা বলার টোনে ভারতীয় বাংলার টান। ঢাকার পরিবেশও ঠিকমত ফুটে উঠেনি। এগুলো সঠিক পরিবেশে শুট না করার ফল। এরকম আরো ছোটখাট ভুলে ভর্তি । তাছাড়া নেটফ্লিক্সের উচিত ছিল অন্তত কিছু বাংলাদেশী অভিনেতা নেওয়া। ট্রেইলার অসাধারণ ছিল। তবে মুভিটা নিতান্ত দায়সারা। আমার ধারণা নেটফ্লিক্স বাংলাদেশের বাজার যাচাই করার জন্য মুভিটা নামিয়েছে। যাইহোক নেটফ্লিক্সকে শুভকামনা। মুভি খারাপ হোক অন্তত বাংলাদেশকে নিয়ে হলিউডে কিছু তো হচ্ছে। আশা করি ভবিষ্যতেও হবে।

নট রিকমেন্ডেড



১২ । Raatchasan বা Ratsasan (2018)

মুভি প্লট – রাতসাসান অর্থ পিশাচ । গল্পের নায়ক চলচ্চিত্র নির্মাতা হওয়ার স্বপ্নে বিভোর এক যুবক । সিরিয়াল কিলারদের নিয়ে মুভি বানাবে দেখে গবেষণার জন্য বিভিন্ন খুনের সংবাদের পেপার কাটিং রাখে এবং যার প্রেক্ষিতে একটি স্ক্রিপ্ট রেডি করে । কিন্তু কোন প্রযোজক তার স্ক্রিপ্টে মুভি তৈরি করতে নারাজ । শেষমেষ সে তার দুলাভাইয়ের সাহায্যে পুলিশে যোগ দেয় । এমন সময় শহরে পাওয়া যেতে থাকে একের পর এক স্কুলপড়ুয়া কিশোরীদের লাশ । নিষ্ঠুরভাবে তাদের হত্যা করা হয়েছে । এই সিরিয়াল কিলারকে থামাতে মাঠে নামে সে।

মতামত – মুভিটি বেশ ভালো সত্য । টানটান উত্তেজনা আছে সত্য । অভিনয়ের সাথে সাথে টুইস্টও চমৎকার । তবুও এর আইএমডিবি রেডিং কোনমতে ৮.৭/১০ হওয়ার যোগ্য নয় । এটা ওভাররেটেড মুভি । গড্ডালিকার স্রোতে ভেসে যাওয়া সাউথ মুভির ডাইহার্ট ফ্যানদের ১০/১০ দেওয়ারেটিং । ভিলেনের কস্টিউম মেকাপ যেন তেন । ভিলেনের সাথে নায়কের মূল শত্রুতার জায়গা অস্পষ্ট । একদম এন্ডিং সিন তো যথাসম্ভব দ্রুত ও দায়সারাভাবে শেষ করে দেওয়া হয়েছে ।

২০১৮ সালের অন্যতম সেরা মুভি তাই রিকমান্ডেড । তবে অন্ধ ভক্ত হওয়ার দরকার নেই ।



১৩। Geetha Govindam (2018)

মুভি প্লট – একজন সৎ সুদর্শন লেকচারার ভুলেক্রমে বাসে এক মেয়েটির সাথে এমন আচরণ করে ফেলে যা শালীনতা বহির্ভূত । মেয়েটি তার ভাইকে দিয়ে নায়ক মার খাওয়ানোর আগেই নায়ক কোনমতে পালিয়ে বাঁচে। পরবর্তীতে দেখা যায় মেয়েটি তার হবু দুলাভাইয়ের বোন । নায়কের বোনের বিয়ে যেন ভেঙ্গে না যায় সে জন্য নায়িকা চুপ থাকলেও পরবর্তীতে নায়ককে পদে পদে এই নিয়ে মানসিক টর্চার করতে থাকে । আর নায়কও কপালে ফেরে এমন অবস্থায় পড়ে যাতে নায়িকা তাকে আরো বেশি করে ভুল বুঝে । একদিন নায়িকার ভুল ভাঙ্গে ততদিনে অনেক দেরী হয়ে গিয়েছে ।

মতামত – কাহিনী চমৎকার ছিলো । প্রেসার নেওয়া ছাড়া রোমান্টিক কমেডি তেলেগু মুভি । Yenti Yenti গানটা শুনেই মূলত মুভিটি দেখা । সবচেয়ে বড় কথা রাশমিকাকে দেখেই ফিদা হয়ে গেছি । একটা মেয়ে এত সুন্দর হয় কেমন । বিশেষ করে পুরস্কার বিতরণীতে রাশমিকার অপরূপ এক্সপ্রেশন দেখে মাথা আউট হয়েছে । ফলে নিরপেক্ষভাবে মুভিটি বিচার করা আমার দ্বারা সম্ভব হয়নি ।

আমার মুগ্ধতার কারণ জানতে চাইলে রিকমেন্ডেড



১৪ । Dear Comrade (2019)

মুভি প্লট – অন্যায়ের সাথে আপোষহীন অত্যন্ত গরম মাথার একজন ভার্সিটি লিডার ববি । নায়িকা লিলি স্টেট লেভেলের একজন ক্রিকেটার । এদের বাড়ি পাশাপাশি । অচিরেই একে অন্যের প্রেমের পড়ে । কিন্তু বরি অত্যন্ত জেদী সম্পর্কের জন্য সম্পর্ক ভেঙ্গে যায় । দীর্ঘদিন পর ববি একদিন জানতে পারে লিলি এক্সিডেন্ট করে হসপিটালে । তার ক্রিকেট খেলার স্বপ্ন ভেঙ্গে যাওয়ায় সে মানসিকভাবে বিধ্বস্ত হয়ে পড়ে সুইসাইডের চেষ্টাও করেছে । এই অবস্থা থেকে তাকে ফেরানোর দায়িত্ব নেয় ববি ।

মতামত – কাহিনীর গভীরতা বেশ । মূলত রাশমিকার দেখার জন্য মুভিটি দেখা । কিঞ্চিৎ মাথায় প্রেসার পড়া রোমান্টিক কমেডি তেলেগু মুভি । নায়ক চরিত্রে বিজয় দেভেরাকান্দ (Vijay Deverakonda) এর অভিনয় দেখার মত । এখানে রাশমিকা ও বিজয়ের রোমান্টিক মোমেন্টগুলো দেখার মত । পরিচালক ভারত কর্মা এইক্ষেত্রে তার সেরাটা দেখিয়েছেন । বহুদিন এত ভাল রোমান্টিক কিছু দেখিনি ।

আমার মুগ্ধতার কারণ জানতে চাইলে রিকমেন্ডেড


১৫। Bheeshma (2020)

মুভি প্লট – মুভিটি ৩টি বিশ্মাকে আবর্তিত । নায়ক বিশ্মা, বিশ্মা কোম্পানি, বিশ্মা কোম্পানির সিইও মিঃ বিশ্মা । নায়ক বিশ্মা কলেজ ফেল । তাকে শুধানোর দায়িত্ব নিয়েছে স্থানীয় পুলিশ কমিশনার । বিশ্ম প্রেমে পড়ে তার মেয়ের উপর । নায়িকা চাকুরী করে বিশ্মা কোম্পানিতে । ঘটনাক্রমে বিশ্মা কোম্পানির সিইও মিঃ বিশ্মা কলেজ ফেল বিশ্মাকে ১ (এক) মাসের জন্য সিইও দায়িত্ব দিয়ে ফেলেন । নায়িকার মন জিততে মরিয়া বিশ্মা ১ মাসে এমন কিছু ঘটিয়ে ফেলে যা কল্পনাতীত । (অনেকগুলো বিশ্মা)

মতামত – অনেকদিন পর মন খুলে হেসেছি । এই রোমান্টিক কমেডি মুভিটি দেখা হয়েছে রাশমিকার জন্য । সাউথ মুভিতে নায়িকাদের এমনতেই কম গুরুত্ব দেওয়া হয় । সে তুলনায় রাশমিকা একটু বেশি স্ক্রিন টাইম পেয়েছে । হাসতে হলে, মাইন্ড ফ্রেস করতে মুভিটি দেখা যায় । তবে বেশি লজিক খুঁজতে গেলে সমস্যা । বিশেষ করে গাঁজাখুরি একশনে ।

টাইম পাসের জন্য রিকমেন্ডেড



শান্তনু চৌধুরী শান্তু
সর্বশেষ এডিট : ১৭ ই মে, ২০২০ রাত ৮:০০
৪টি মন্তব্য ৪টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

আমাদের শাহেদ জামাল- (চৌত্রিশ)

লিখেছেন রাজীব নুর, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১:০১


ছবিঃ আমার তোলা।

গতকাল রাতের কথা-
সুরভি আর ফারাজা গভীর ঘুমে। রাতের শেষ সিগারেট খাওয়ার জন্য চুপি চুপি ব্যলকনিতে গিয়েছি। দিয়াশলাই খুঁজে পাচ্ছি না। খুবই রাগ লাগছে।... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্রিয় জীবন.....

লিখেছেন জুল ভার্ন, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ভোর ৫:৫৮

প্রিয় জীবন......

জীবন তোমা‌কে কষ্ট দিতে চাইলে তু‌মিও জীবনকে দেখিয়ে দাও- তু‌মি কতটা কষ্ট সহ্য করার ক্ষমতা রাখ। তু‌মি হয়তো এখন জীবনের অনেক খারাপ একটা সময় পার করছ অথবা অনেক আনন্দের... ...বাকিটুকু পড়ুন

ভারতীয় নাগরিক সওজের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী! ক্ষমতাশীনদের বিশেষ সম্প্রদায় তোষণের একটি উদাহরণ!

লিখেছেন দেশ প্রেমিক বাঙালী, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১১:২৬

যিনি বাংলাদেশে অবস্থান করে ভারতীয় পাসপোর্ট ব্যবহার করবেন তিনি নিঃশ্চয় বাংলাদেশী না তিনি ভারতীয় একথা সকলেই একবাক্যে মেনে নিবেন। কিন্তু কি করে একজন ভারতীয় নাগরিক বাংলাদেশী হিসেবে বহাল তবিয়তে... ...বাকিটুকু পড়ুন

সময় নির্দেশের ক্ষেত্রে AM ও PM ব্যবহার করার রহস্য

লিখেছেন নতুন নকিব, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ দুপুর ১২:৪২

ছবি, Click This Link হতে সংগৃহীত।

সময় নির্দেশের ক্ষেত্রে AM ও PM ব্যবহার করার রহস্য

সময় নির্দেশের ক্ষেত্রে AM ও PM কেন ব্যবহার করা হয়, এর কারণটা জেনে রাখা ভালো। আমমরা অনেকেই বিষয়টি... ...বাকিটুকু পড়ুন

গাছ-গাছালি; লতা-পাতা - ০৭

লিখেছেন মরুভূমির জলদস্যু, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৫০

প্রকৃতির প্রতি আলাদা একটা টান রয়েছে আমার। ভিন্ন সময় বিভিন্ন যায়গায় বেড়াতে গিয়ে নানান হাবিজাবি ছবি আমি তুলি। তাদের মধ্যে থেকে ৫টি গাছ-গাছালি লতা-পাতার ছবি রইলো এখানে।


পানের বরজ


অন্যান্য ও আঞ্চলিক... ...বাকিটুকু পড়ুন

×