somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

বাবনিক~২য় পর্ব (তৃতীয় খন্ড)

১৯ শে অক্টোবর, ২০২১ দুপুর ১:৩৯
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


আগের পর্বের জন্যঃ Click This Link
ভোরের শুরু থেকে রাতের দ্বি-প্রহর পুরোটা সময় আমার এলিনার কাছে পিঠে থাকতে হয়। অল্প বয়সীরা যা হোক আকার ইঙ্গিত আর অতি ভাঙ্গা ইংরেজি বুঝে নেয়, সমস্যা হয়েছে মুরুব্বীদের নিয়ে।
ওদিকে ববি আমার বন্ধুু সুমনকেও কব্জা করেছে। সারাদিন ওর টিকিটির দেখা নেই। সকালে নাস্তার টেবিলে ববিকে কাছে পেয়ে অনুযোগের স্বরে বললাম; দোস্ত তোমরা-তো হেব্বী মোস্ত মাস্তি করতেছ, আমারে এই গ্যাঁড়াকলে ফাঁসাইল ক্যান?
ও ফিচেল হাসি দিয়ে বলল, তোর ডার্লিং তুই সামলা।( কথোপকথন রুশ ভাষায় ছিল- কেউ কিচ্ছু বোঝেনি)। যদিও ঘর ভর্তি রমণী বিশেষ করে এলিনার আসে পাশে থাকতে আমারও ভাল লাগছিল কিন্তু বিষয়টা ও কিভাবে নিচ্ছে সেটা যাচাই করতে একটু খানি ভণিতা।
আজ সন্ধ্যায় এলিনার আর ববির গায়ে হলুদ। বর পক্ষের হোল সবাই আর কনে পক্ষের আমি সবে-ধন। এক্কেবারে একেলা পড়ে যাই তাই বন্ধু সুমনকে দলে ভেড়ালাম। যদিও সে বুঝে গেছে তাঁর কর্মকাণ্ড ছাগলের তিন নম্বর বাচ্চা মাফিক হবেও তবুও এলিনার আশে পাশে থাকতে পারবে ভেবে চরম খুশী।

লিনাকে সোনালী পাড়ের হলুদ শাড়ি আর গাঁদা ফুল দিয়ে সাজিয়ে মঞ্চে বসানোর পরে আমি মাথা ঘুরে পড়ে যাই আরকি! আশে পাশে চোখ ঘুরিয়ে দেখি কারো চোখের পলক পড়ছে না। একই মঞ্চে দুজনের হলুদ হবে। তবুও মেয়েরা এসে আমার হাত ধরে নিয়ে গিয়ে খানিকটা জোড় করে এলিনার পাশে নিয়ে বসাল। আমার খানিকটা ছোঁয়ায় ও যেন ভীষণভাবে কেঁপে উঠল।
বহুদিন বাদে ওর শরীরের উষ্ণতা আমাকে আবিষ্ট করল-আমার মস্তিষ্ক বিবশ হয়ে পড়ল ওর শরীরের মাতাল করা ঘ্রাণে।
গায়ে হলুদ ব্যাপারটা এলিনার পরিচিত সমাজে ভীষণ অন্যরকম একটা বিষয়। সে খানিকটা ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে গেছে। কি করতে হবে- কিসের পরে কি হবে সবকিছু তাঁর ধারনার বাইরে।
ও আমার দিকে ফিরে রক্তিম চেহারায় হেসে বলল, তোমার এই পোশাক মানিয়েছে ভাল।
আমি ধন্যবাদ দিয়ে বললাম; তোমাকে আজ অন্যরকম লাগছে।
এবার সে বোকার মত ফের হেসে বলল, আমিতো কিছুই জানিনা কি করতে হবে। যদিও ববি আমাকে অভয় দিয়েছে; বলেছে সবাইকে বাংলায় ‘ধন্যবাদ’ দিতে হবে আর যে খাবার মুখের কাছে এগিয়ে দিবে তা থেকে একটু একটু খেতে হবে। এ ধরনের খাবার-তো এ জন্মে আমি কোনদিন খাই নি!
-কোন সমস্যা নেই। সব মিষ্টি জাতীয় খাবার। ভালো না লাগলে মুখের মধ্যে রেখে কিছুক্ষণ পর পর টিস্যুর মধ্যে কায়দা করে ফেলে দিলে হবে।
আমার কথা শেষ হতে সে ফিক করে হেসে ফেলে বেশ লজ্জায় মাথা নিচু করল। তদ্দণ্ডে আমার মনে হোল এতো সত্যকারেই বাঙ্গালী বধূ।
সব মেয়েদের পরনে সোনালী পাড়ের হলুদ শাড়ি আর ছেলেদের কাঁচা হলুদ রঙের পাঞ্জাবি। চারিদিকে ভীষণ রকমের হলুদামেজ। এলিনার কাছে এই নতুনত্ব বিস্ময়কর! সে নার্ভাস ও অবাক দৃষ্টিতে চারিদিকের মানুষজনকে দেখার চেষ্টা করছে। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে সবাই তাকিয়ে আছে ওর দিকে- উপস্থিত অতিথিদের কাছেও ব্যাপারটা একেবারেই নতুন। অতি সুন্দরী এক রুশ রমণী গায়ে হলুদের সাজে মঞ্চে উপবিষ্ট বিষয়টা ভীষণরকম ব্যতিক্রম! অভ্যাগতদের সারাজীবন গল্প করার মত উপকরণ!

তিথি বেশী নয়- বাড়ির ছাদে মেরাপ বেঁধে ছোট খাট আয়োজন! সব মিলিয়ে জনা পঞ্চাশেক মানুষ হবে।
প্রথমে মুরুব্বিদের পালা! ববির মা আসলেন- এলিনার কপালে প্রথম হলুদ ছোঁয়ালেন। এলিনা যেন কিঞ্চিত কেঁপে উঠল। আমি খালাম্মার সাথে খানিকটা খুনসুটি করলাম।আমার মজার কথায় কেউ মাইন্ড করে না। তিনি উল্টো আমার মুখেও খানিকটা হলুদ ছোঁয়ালেন। এলিনা আমার দিকে চোখ ঘুরিয়ে হেসে ফেলল। আমি খানিকটা বিব্রত।
উপস্থিত অতিথিদের বেশীরভাগের সাথেই এই দুই দিনে আমার কুশল বিনিময় হয়ে গেছে। আমি সবাইকে পরিচিত করানোর চেষ্টা করছি। মাঝে মধ্যা ববির সাহায্য নিচ্ছি। ও শালা বেশ সিরিয়াস ভঙ্গীতে হলুদ নিচ্ছে। রাতে মাল টেনেছে- এখনো মুখ দিয়ে সামান্য গন্ধ বেরুচ্ছে! তাই কথা বলছে সাবধানে। তবে দূর থেকে বন্ধুরা ইশারায় মজা করছে- আর সে লাজুক হেসে নীরবে প্রতিউত্তর দিচ্ছে।

বাড়ির গুড়া গাড়া বাচ্চা কাচ্চা, সবাই এক এক করে হলুদ দিচ্ছে। এলিনা আমার থিউরি ফলো করছে। কারো কারো প্রশ্ন আমার ইন্টারপ্রেট করতে হচ্ছে- কোনটা এলিনা নিজেই ইয়েস নো তে উত্তর দিচ্ছে। ববির ছোট বোন আর ওর বান্ধবীরা পড়ল আমাকে নিয়ে। সারা মুখে হলুদ লেপ্টে একাকার। এলিনা এসব দেখে হাসতে হাসতে কাত হয়ে পড়ল। তবে সব কিছুতে ববির প্রচ্ছন্ন ইঙ্গিত ছিল। তবে ইয়ার্কি ফাজলামি করলেও আমি বেশ সংযত ছিলাম।

ব বন্ধুদের শেষে আসল আমার পালা। প্রথমে ববিকে দিলাম পুরো মুখ লেপ্টে – এরপর আস্ত একটা রসগোল্লা ওর অনেক নেতিবাচক আবদার স্বত্বেও মুখে ঠেসে ভরে দিলাম। চারিদিকে হাসির হুল্লোড়! আঙ্গুলের মাথায় খানিকটা হলুদ নিয়ে – হলুদ ছোঁয়ানোর ছলে ওর কপোলটা ছুঁয়ে দিলাম – সারা শরীরের রক্ত যেন পুঞ্জীভূত হয়ে সহস্র বীণার ঝংকারে এটম-এর গতিতে ছড়িয়ে পড়ল।
~এলিনা আমার দিকে তাকিয়ে আছে নির্লিপ্ত নয়নে। তবে সারা মুখাবয়ব জুড়ে তীব্র বিদ্রূপাত্মক তাচ্ছিল্যের হাসি!

~প্রথম খন্ড প্রথম পর্বের জন্যঃ Click This Link
পরের পর্বের জন্যঃ Click This Link
সর্বশেষ এডিট : ০৫ ই আগস্ট, ২০২২ সকাল ১১:২৭
৯টি মন্তব্য ৯টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

ব্লগেও একজন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাকে অসন্মান করা হয়!!!!

লিখেছেন ভুয়া মফিজ, ১৫ ই আগস্ট, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:৩২



প্রচন্ড ব্যস্ততা এবং আরো কিছু কারনে গত বেশ কয়েকদিন ব্লগে আসা হচ্ছে না। আরো বেশ কয়েকটা দিন আসার মতো অবস্থায়ও নাই আমি। তারপরেও একটা পোষ্ট আর তার কমেন্টগুলোতে চোখ আটকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

মর্মান্তিক

লিখেছেন শাহ আজিজ, ১৫ ই আগস্ট, ২০২২ সন্ধ্যা ৭:১৪



আজ উত্তরায় নির্মাণাধীন মেট্রো রেলের গার্ডার ক্রেন ফেইল করে চলাচলকারী একটি গাড়ির উপর পড়ে গাড়ির ৪ জন আরোহী নিহত হয়েছে , মর্মান্তিক । কাজ চলাকালিন সময়ে রাস্তা কেন বন্ধ... ...বাকিটুকু পড়ুন

লোভ, ক্রোধ, হিংসা, বিদ্বেষ থেকে দূরে থাকি.....

লিখেছেন জুল ভার্ন, ১৫ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ৮:০২

লোভ, ক্রোধ, হিংসা, বিদ্বেষ থেকে দূরে থাকি.....

নবারুণ ভট্টাচার্যের একটা কবিতার কয়েকটি লাইনঃ-

“আজ্ঞাবহ দাস, ওরে আজ্ঞাবহ দাস
সারা জীবন বাঁধলি আঁটি,
ছিঁড়লি বালের ঘাস,
আজ্ঞাবহ দাসমহাশয়, আজ্ঞাবহ দাস!
যতই তাকাস আড়ে আড়ে,
হঠাৎ এসে ঢুকবে গাঁড়ে,
বাম্বু... ...বাকিটুকু পড়ুন

ভূতের রানী !!

লিখেছেন নূর মোহাম্মদ নূরু, ১৫ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ৯:০৯


ভূতের রানী !!
(মজা লই, মজা দেই)
© নূর মোহাম্মদ নূরু

ভূতের রাজা অক্কা পাইছে বহু দিনের কথা,
বিধবা তাই ভূতের রানী মনে অনেক ব্যথা।
রাজ্য পাট রইছে পড়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমি গরীব আমার ১৩ টাকায় একটি ডিম ১৫ টাকায় একটি সাগর কলা কিনে খাওয়ার অবস্থা নেই।

লিখেছেন ভার্চুয়াল তাসনিম, ১৬ ই আগস্ট, ২০২২ দুপুর ২:১২

প্রিয় রাষ্ট্র,
গতকাল মাত্র শোক দিবস চলে গিয়েছে। আপনি কি দেখেছেন? এই শোক দিবসে দেশের আপামর জনসাধারণ শোক পালন না করে ডিম নিয়ে মেতে ছিল। বুঝেছি মেনেছি আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে অস্থিতিশীল... ...বাকিটুকু পড়ুন

×