somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

"জনতার সাথে জননেতা" পরীক্ষামূলক ষষ্ঠ ব্লগ ফিল্ম

১৪ ই মে, ২০১২ সন্ধ্যা ৭:২২
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

আমাদের দেশের রাজনীতিবিদরা অধিকাংশই সাধারন জনগনের সাথে সম্পৃক্ত না। তারা নিজেদের স্বার্থ হাসিল করতেই ব্যাস্ত থাকে। শুধুমাত্র ভোটের মৌশুমে তাদের চাঁদমুখ দেখা যায়। নির্বাচিত হলে তারা হয়ে যান আমাবষ্যার চাঁদ। তাদের নির্বাচনী এলাকাতেও বেশি পাওয়া যায় না। বর্তমান জাতীয় রাজনীতিতে অধিকাংশ নেতাই চল্লিশোর্ধ। তাদের চিন্তা চেতনাও প্রাচীন। তরুন শিক্ষিত দেশপ্রেমীক নেতৃত্ব সেভাবে উঠে আসছে না।
আজ আমি এমনই এক তরুন, উচ্চশিক্ষিত, দেশপ্রেমীক, জনসেবক, সচেতন ও সাহসী নেতার কথা বলবো। তিনি গাজী আব্দুল্লাহ আল মামুন।
জন্ম খুলনা শহরে। বেড়ে ওঠা ও পড়াশুনা খুলনা ও ঢাকায়। ঢাকা কলেজ থেকে অনার্স ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এম বি এ সম্পন্ন করেছেন। ধনাঢ্য ব্যবসায়ী পরিবারের একমাত্র ছেলে। ছাত্র জীবন থেকেই ছাত্র রাজনীতির সাথে যুক্ত। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারন করে একপর্যায়ে জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক হন। কিন্তু প্রচলিত খাইখাই রাজনীতির বিরুদ্ধে গিয়ে তিনি বিদ্রোহ করেন। ৫ বছরের কমিটি ৭ বছর পার হওয়ার পরও তা ভেঙ্গে নতুন কমিটি হতে দিচ্ছিল না কিছু ছাত্র নেতা। তাছাড়া বিভিন্ন স্থানে ছাত্রলীগের বিভিন্ন কার্যকলাপ তিনি মেনে নিতে পারেন নি। একপর্যায়ে উচ্চ পর্যায়ের নেতারা বাধ্য হয়েই কমিটি ভেঙ্গে দেন। মামুন গাজী বেড়াতে আসেন তার পৈত্রিক নিবাস পাইকগাছায়। শুরু হয় আরেক নতুন অধ্যায়।
খুলনা সদর থেকে প্রায় ৬০ কিমি দূরে পাইকগাছা।


কপোতাক্ষ, শিবসা, পশুর নদী ও অনেক বিল পরিবেষ্টিত এই জনপদ।



ঘেরে বাগদা চিংড়ি চাষই এলাকার জনগনের মূল জীবিকা।



মামুন গাজীরও ঘের আছে। অর্থৈনৈতিক সমস্যা তার নাই।


প্রতি কেজি বাগদা গড়ে ৫০০টাকা।



৫ দিনের জন্য বেড়াতে এসে যখন মামুন গাজী দেখলেন এলাকা বাসীর বিভিন্ন সমস্যা, রাজনৈতিক নেতাদের স্বেচ্ছাচারিতা, নানামূখি অনিয়ম- তিনি পাইকগাছায় রয়ে গেলেন। ধীরে ধীরে সাধারন জনগনের সাথে তৈরি করলেন অসাধারন এক সেতু বন্ধ।




সকাল তার ঘুম ভাঙ্গে কোন অসহায়ের আর্তি শুনে।


এলাকার তরুনদের একত্রিত করে তাদের সঠিক পথে চলার উতসাহ দেন। বেকার যুবকদের কর্মসংস্থানে সহায়তা করেন। তরুনদের রাজনীতি সচেতন করেন।



বাড়ির অদূরের ছোট্ট নদীটি পেরিয়ে চলে আসেন পৌর এলাকায়।



নানাজনের সাথে কুশল বিনিময় হয়। স্থানীয় নেতা কর্মীদের সাথে আলাপ হয়।



এলাকার বনিক সমিতির সদস্য হিসেবে মামুন গাজী ব্যবসায়িদের জন্যও গুরুত্বপুর্ণ।



কোন ছোট ভাই বা বন্ধুকে নিয়ে বেড়িয়ে পড়েন আশেপাশের গ্রামে। খোজ নেন লোকজনের সুবিধা অসুবিধার।





স্থানীয় কিছু নেতার অপকর্মের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলায় তার নিজ দলীয় অনেক নেতার কাছে তিনি অপছন্দের ব্যক্তি। যদিও বাহ্যত তাদের সাথে তার সুসম্পর্ক দেখা যায়।

সাংবাদিক মহলেও তার যথেষ্ট গ্রহনযোগ্যতা রয়েছে। সত্য ও নির্ভিক সংবাদ ছাপাতে তিনি সাংবাদিকদের সাহস দেন। তিনি নিজেও “সাপ্তাহিক সুন্দরবন বার্তা” র একজন প্রতিনিধী।
সাধারন মানুষকে আইনি সহায়তা দেয়ার জন্য তিনি নিয়মিত আইনজীবি সমিতিতে যোগাযোগ রাখেন এবং তারাও তাকে সাদরেই বরন করে নেন।



উল্লেখ্য বাংলাদেশে একমাত্র পাইকগাছায় উপজেলা আদালত রয়েছে।

বিভিন্ন জনের বিষয় নিয়ে ভুক্তভোগীর পক্ষে তিনি নিয়মিত ইউ পি চেয়ারম্যানের সাথে দরবার করেন।




প্রয়োজনে স্থানীয় সাংসদের কাছেও এলাকাবাসীর অভাব অভিযোগের কথা তুলে ধরেন।



মজার বিষয় হচ্ছে, পুলিশ প্রশাসনেও তিনি বাঞ্চিত ব্যক্তি। সঠিক ও ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠায় পুলিশকে তিনি নানা ভাবে সহায়তা করেন।



অবিচার দেখলেই তিনি জনগনকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। এভাবে তার খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে কিছুটা দূরবর্তি অঞ্চলেও।




ছুটে চলেন তিনি। অন্যায়ের সাথে আপোষহীন মামুন গাজী প্রলভনের কাছে হার মানে না। হুমকি ধামিকিকে পরোয়া করে না।



চলার পথেই মানুষজন তাকে তাদের কথা জানান, কেউ পরামর্শ দেন কেউ নিমন্ত্রন করেন।



কৃষকদের নানাভাবে সহায়তা করেন। তাদের খোঁজ খবর রাখেন।



ছুটে যান সুন্দরী কাঠ পাচারকারী অথবা মাদক ব্যবসায়িদের ধাওয়া দিতে।



কপোতাক্ষ নদ বাচানোর জন্য জনগনকে আন্দোলন শুরু করেছেন।





বি এন পির নেতা কর্মীদের সাথেও তার মোটামুটি সম্পর্ক আছে কিন্তু কামাত শিবিরের কারো সাথে এক দোকানে বসে চা খেতেও আপত্তি আছে তার। পাইকগাছায় জামাত শিবির মাথা তুলতে পারে না।

এটা শিবসা সেতু। ভি আই পি কাউকে দিয়ে উদ্বোধন করানোর জন্য নির্মান শেষ হলেও তা জনগনের জন্য খুলে দেয়া হচ্ছিল না। জনগনের ভোগান্তির শেষ ছিল না।


মামুন গাজী এলাকার লোকজনকে ঐক্যবদ্ধ করে উপজেলা চেয়ারম্যান ও সাংসদকে বাধ্যকরেছেন উদ্বোধন না করেই সেতুটি খুলে দিতে।


এভাবেই চলছে তার নিত্য দিন। চলছে তার অবিরাম ছুটে চলা।



তিনি সামহোয়ারইন ব্লগের একজন ব্লগারও। স্বাধীনতার চল্লিশ বছর পরও এদেশের মাটিতে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শেষ না হওয়ার তার নামের শেষে যুক্ত করেছেন "হতভাগা"। তিনি ব্লগার

মামুন হতভাগা




সাধারন জনগন তাদের প্রতিনিধি হিসেবে, তাদের নেতা হিসেবে, তাদের পক্ষে কথা বলার জন্য মামুন হতভাগাকে জাতীয় সংসদের সদস্য হিসেবে কামনা করে।








বিঃদ্রঃ আমাকে কষ্ট করে সেট করে শ্যুটিং করতে হয় নাই। তার সাথে ঘুরতে ঘুরতেই আমি আমার ছবিগুলো নিয়েছি।
সর্বশেষ এডিট : ০৬ ই জুন, ২০১২ সকাল ১১:২৩
১২১টি মন্তব্য ১২১টি উত্তর পূর্বের ৫০টি মন্তব্য দেখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

ফ্রিদা কাহলো এক ব্যতিক্রমী মানুষ

লিখেছেন রোকসানা লেইস, ০৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১:১৪



নীল বাড়ির দূরন্ত মেয়েটি
"লা কাসা আসুল" যার অর্থ নীল ঘর। ১৯০৭ সালের ছয় জুলাই জার্মান বাবা আর স্প্যানিস মায়ের রক্তের সমন্বয়ে একটি মেয়ের জন্ম হয় ম্যাক্সিকো সিটির শহরতলীর একটি... ...বাকিটুকু পড়ুন

রেবতি

লিখেছেন রাজীব নুর, ০৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ২:৫৪



আগে আমার অবস্থানটা বর্ণনা করে নিই।
সকাল সাড়ে এগারোটা। ঝকঝকে সুন্দর পরিচ্ছন্ন একটি দিন। আমি দাঁড়িয়ে আছি- বসুন্ধরা মার্কেটের সামনে। আমার ডান হাতের একটা আঙ্গুল শক্ত করে ধরে আছে... ...বাকিটুকু পড়ুন

সমকামিতার স্বরূপ অন্বেষনঃ সমকামি এজেন্ডার গোপন ব্লু-প্রিন্ট - আলফ্রেড চার্লস কিনসে [পর্ব দুই]

লিখেছেন নীল আকাশ, ০৭ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ১১:৪৮

অনেকদিন পরে আবার এই সিরিজ লিখতে বসলাম। লেখার এই পর্ব সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এখানে থেকে এর ব্যাপক বিস্তার ঘটানো হয়েছে খুব সুপরিকল্পিতভাবে। সারা বিশ্বের মতো আমাদের দেশেও এই জঘন্য আচরণের... ...বাকিটুকু পড়ুন

কমলাকান্তের কৃষ্ণ কন্যা (শব্দের ব্যবহার ও বাক্য গঠন চর্চার উপর পোস্ট)

লিখেছেন সাড়ে চুয়াত্তর, ০৭ ই জুলাই, ২০২০ বিকাল ৪:৫৯


শুধুমাত্র নির্দিষ্ট কোনও অক্ষর দিয়ে শুরু শব্দাবলি ব্যবহার করেও ছোট কাহিনী তৈরি করা যায় তার একটা উদাহরণ নীচে দেয়া হোল। এটা একই সাথে শিক্ষণীয় এবং আনন্দদায়ক।

কাঠুরিয়া... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমার এই পোস্ট পড়ে কি মনে হয় আমি ইসলাম বিদ্বেষী?

লিখেছেন জাদিদ, ০৭ ই জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৩০

আমি গতকাল ফেসবুকে একটি পোস্ট দেই। সেখানে আমাদের কতিপয় হুজুরদের বেহুদা জোসের বিরুদ্ধে আমি লিখেছিলাম। আমার পোস্টটি এখানে হুবহু তুলে দিলাম -

পৃথিবীতে ইসলাম রক্ষার দায়ভার একমাত্র বাংলাদেশী মুসলমানদের... ...বাকিটুকু পড়ুন

×