somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

মাক্সকাহন-আমার শহর দর্শন

২৮ শে জানুয়ারি, ২০১৩ রাত ২:২৭
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

অকারণে কাউকে রাগিয়ে দেয়া ঠিক না। কিন্তু বেশীরভাগ সময়ই আমরা ঠিক কাজটা করি না। আমরা বলাটা ঠিক হল না।
বলা উচিত আমি।
আমি অনেকসময় অকারণে অনেককে রাগিয়ে দেই। আজকেও এমন করেছি। এর এক অন্যরকম আনন্দ আছে। কি রকম আনন্দ ঠিক বলে বুঝানো সম্ভব না।

ছোটবেলায় একসময় গ্রামে ছিলাম। গ্রাম মানে গ্রাম, একেবারে আদর্শ ভিলেজ যাকে বলে। পাকা ব্রীজ ছিল আমাদের বাড়ী থেকে প্রায় মাইলখানেক দূরে। ঐ ব্রীজ পর্যন্ত যেতে আরো দুইটা বাঁশের সাকো পাড়ি দিতে হত। যেনতেন বাঁশের সাকো না একেবারে সোলেমানী বাঁশ। পুরাতন বাংলা গল্প খুঁজলে এই ধরনের সাকোর সন্ধান মেলে।
আমার ধারণা, এই সাকো যারা বানায় তারা সরাসরি আর্মির কমান্ডো ট্রেনিয়ের মডেল ফলো করে। সাকোতে যারা পারাপার হয় তাদের ছোটখাট কমান্ডো ট্রেনিং হয়ে যাবার কথা। আগেকার দিনের লোকজন বোধকরি এই সাকো দেখেও পরকালের কথা ইয়াদ করত। যারা নিয়মিত এই সাকো ব্যবহার করেছে তারা চোখ বন্ধ করে আর্মিতে চান্স পেয়ে যাবে অন্তত এতটুকু নিশ্চিত।

এতক্ষন যে বাঁশের সাকোর কথা বলছি আমি গ্রামে থাকতে জানতামই না যে একে সাকো বলে। সবাই বলত "হাউক্কা"। একবার কোন এক ক্লাসের বাংলা বইতে পড়ে জেনেছিলাম ঐ সোলেমানী(!) বাঁশের পুলের নাম হাউক্কা না সাঁকো।
ততদিনে আমি গ্রাম্যবালক থেকে পুরোদস্তুর শহুরে।
প্রথম গ্রাম ছেড়ে চলে এসেছি ১৯৯৫ সালের ডিসেম্বরের সাত তারিখ। পুঙ্খানুপুঙ্খ তারিখ অবশ্য আমার মনে থাকে না। সামাজিক বিজ্ঞান পরীক্ষাতেও ইতিহাসের তারিখ সাল ভুল করতাম। কিন্তু কোন এক অদ্ভূত কারণে এই তারিখটা মনে আছে।
এর আগে আমার শহর দেখার দৌড় ছিল টিভি পর্যন্তই। তবে একবার অনেক ছোট থাকতেই ঢাকায় গিয়েছিলাম। তখনকার কোন স্মৃতিই আর অবশিষ্ট নাই। শুধু মনে আছে একটা হোটেলের মধ্যে বসে কোক খাচ্ছি। খুবই ঠান্ডা কোক। পুরাটা খেতে পারতেসিলাম না বলে আব্বু ছোটখাট একটা ধমক দিয়েছিল। ব্যস আর কিছু মনে নেই।
গ্রাম ছেড়ে আসার আগে কয়েকটা মজার ঘটনা ভাসাভাসা মনে আছে। কিছু নিজের মনে আছে আর কিছু আম্মুর কাছ থেকে শুনেছি।

একদিক এক চাচা আমাদের বাড়িতে আসল। এসেই বাচ্চাদেরকে যেই টাইপের প্রশ্ন করার নিয়ম সেরকম প্রশ্ন করতে শুরু করল।
দুপুরে কি খেয়েছ?
বিকালবেলা ঘুমাওনি কেন? এইসব।
কি উত্তর দিয়েছিলাম মনে নাই। তবে উনার চেহারা দেখে মনে হয়েছিল আমার উত্তর পাশ মার্ক পাওয়ারও যোগ্য না। এরকম আরো কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনার পরে সিদ্ধান্ত নেয়া হল গ্রামে থেকে ছেলেপেলে ঠিকমত মানুষ করা প্রায় অসম্ভব।
তাহলে কি উপায়?
যাও শহরে যাও।

ডিসিশান ফাইনাল হওয়ার পরে আমরা দুই ভাইবোন প্রতিদিন নিয়ম করে চোখে অন্ধকার দেখতে লাগলাম। বিভিন্ন ধরনের নিয়ম কানুন শেখানো হল। কিছু নিয়ম বলি
-যেখানে সেখানে থুতু ফেলা যাবে না। থুতু ফেলার একমাত্র জায়গা বেসিন অথবা টয়লেট।
-বিকালবেলা ঘুরাঘুরি, খেলাধুলা, ঘাস কাটতে যাওয়া, মাছ ধরতে যাওয়া নাস্তি। দুনিয়াতে বিকাল নামক জিনিসটা আসে কেবলমাত্র ঘুমের জন্য।
-চুলে তেল দেয়া ছাড়া ঘর থেকে বেরুনো যাবে না।
-আন্চলিক ভাষায় কথা বলা যাবে না, পৃথিবীর একমাত্র ভাষা প্রমিত বাংলায় কথা বলতে হবে।
আরো অনেক কিছুর ট্রেনিং সেশন শুরু হয়েছিল, সবগুলো ঠিকমত মনে নাই।
তবে সবচেয়ে ভয়ংকর ছিল, কোন কারণে মার খেলে শব্দ করে কান্নাকাটি করা যাবে না।
হায় হায় সবই মানলাম কিন্তু এই জিনিস হজম করব কেমনে?
আমার আবার মার খাওয়া ছিল দৈনিক রুটিনের একটা অলিখিত অংশ। বলা বাহুল্য একদিন শব্দছাড়া কান্নাকাটির প্রাকটিসও করতে হয়েছিল। আহারে কি দিন গেছেরে মমিন?

গ্রাম ছেড়ে চলে আসার দিনের কথা তেমন মনে নাই। তবে শহরের মাঝে বড় বড় পাতাওয়ালা একধরনের গাছ দেখে সেদিন খুব অবাক হয়েছিলাম। আর তারচেয়েও অবাক হয়েছিলাম আমরা যেই বাড়িটাতে উঠেছিলাম সেই বাড়ির ছাদে বিড়ালের বাচ্চা দেখে। সাদা রংয়ের তিনটা বিড়ালের বাচ্চা।

০৭ডিসেম্বর,২০১২
সর্বশেষ এডিট : ২৮ শে জানুয়ারি, ২০১৩ রাত ৯:১৮
৫৯টি মন্তব্য ৬০টি উত্তর পূর্বের ৫০টি মন্তব্য দেখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

ফ্রিদা কাহলো এক ব্যতিক্রমী মানুষ

লিখেছেন রোকসানা লেইস, ০৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১:১৪



নীল বাড়ির দূরন্ত মেয়েটি
"লা কাসা আসুল" যার অর্থ নীল ঘর। ১৯০৭ সালের ছয় জুলাই জার্মান বাবা আর স্প্যানিস মায়ের রক্তের সমন্বয়ে একটি মেয়ের জন্ম হয় ম্যাক্সিকো সিটির শহরতলীর একটি... ...বাকিটুকু পড়ুন

রেবতি

লিখেছেন রাজীব নুর, ০৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ২:৫৪



আগে আমার অবস্থানটা বর্ণনা করে নিই।
সকাল সাড়ে এগারোটা। ঝকঝকে সুন্দর পরিচ্ছন্ন একটি দিন। আমি দাঁড়িয়ে আছি- বসুন্ধরা মার্কেটের সামনে। আমার ডান হাতের একটা আঙ্গুল শক্ত করে ধরে আছে... ...বাকিটুকু পড়ুন

সমকামিতার স্বরূপ অন্বেষনঃ সমকামি এজেন্ডার গোপন ব্লু-প্রিন্ট - আলফ্রেড চার্লস কিনসে [পর্ব দুই]

লিখেছেন নীল আকাশ, ০৭ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ১১:৪৮

অনেকদিন পরে আবার এই সিরিজ লিখতে বসলাম। লেখার এই পর্ব সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এখানে থেকে এর ব্যাপক বিস্তার ঘটানো হয়েছে খুব সুপরিকল্পিতভাবে। সারা বিশ্বের মতো আমাদের দেশেও এই জঘন্য আচরণের... ...বাকিটুকু পড়ুন

কমলাকান্তের কৃষ্ণ কন্যা (শব্দের ব্যবহার ও বাক্য গঠন চর্চার উপর পোস্ট)

লিখেছেন সাড়ে চুয়াত্তর, ০৭ ই জুলাই, ২০২০ বিকাল ৪:৫৯


শুধুমাত্র নির্দিষ্ট কোনও অক্ষর দিয়ে শুরু শব্দাবলি ব্যবহার করেও ছোট কাহিনী তৈরি করা যায় তার একটা উদাহরণ নীচে দেয়া হোল। এটা একই সাথে শিক্ষণীয় এবং আনন্দদায়ক।

কাঠুরিয়া... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমার এই পোস্ট পড়ে কি মনে হয় আমি ইসলাম বিদ্বেষী?

লিখেছেন জাদিদ, ০৭ ই জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৩০

আমি গতকাল ফেসবুকে একটি পোস্ট দেই। সেখানে আমাদের কতিপয় হুজুরদের বেহুদা জোসের বিরুদ্ধে আমি লিখেছিলাম। আমার পোস্টটি এখানে হুবহু তুলে দিলাম -

পৃথিবীতে ইসলাম রক্ষার দায়ভার একমাত্র বাংলাদেশী মুসলমানদের... ...বাকিটুকু পড়ুন

×