somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

ইনসিকিউর

১৮ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৩ বিকাল ৪:৪৩
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

রাত সাড়ে এগারোটা বাজে। শীতের এই সময়ে ঘর থেকে শুধুমাত্র দুই শ্রেণীর লোকজন বের হবার কথা। একঃ যাদের অনেক কাজ আছে এবং দুইঃ যারা বেকার।
আমি বেকার শ্রেনীর অন্তর্গত। বেকারকে একটা শ্রেনীর অন্তর্গত অবশ্য সরকারের পক্ষ থেকেও করা হয়েছে।
সরকারের করা শ্রেণীবিভাগটা অবশ্য একটু অপমাণজনক। তারা বেকার শব্দটার পরে তিন অক্ষরের একটা শব্দ যোগ করেছে। এবং জোর প্রচারণা চালাচ্ছে "বেকারসমস্যা" শব্দটা নিয়ে। আমি অথবা আমরা যারা নিজেকে বেকারদলের অধিপতি বলে দাবী করি তারা বিষয়টা নিয়ে মোটেও চিন্তিত না। বরং কালে ভদ্রে খুশি হই এই ভেবে যে অন্তত সরকার আমাদের নিয়ে ভাবছে। দেশে কতশত সমস্যা।

পরিবেশ দূষণ, জনসংখ্যা বিস্ফোরণ, গালাগালির উচ্চারণ, যুদ্ধাপরাধী বিচার প্রহসন!

তারমধ্যে যে আমাদের উপর একটা চোখ আছে তাতেই আমি খুশী। আর খুশী হলে একটাই কাজ করা হয়। তা হল ঘুমানো। শীতের রাতের একঘন্টা ঘুম সমান গরমের রাতের দশ রাতের ঘুম। এত সুন্দর একটা রাত, এখন না ঘুমিয়ে আমি বেকার পদবী মুছে ফেলতে বের হয়েছি। একটা ইন্টারভিউ আছে।
একরকম নিরুপায় হয়েই বের হয়েছি।

এক প্যাকেট সিগারেট আর একটা লাইটার কিনে পকেটে রাখলাম। বেকার যুবকদের পকেটে টাকা পয়সা না থাকলেও সিগারেট, লাইটার অথবা ম্যাচ রাখার নিয়ম আছে। কঠিন নিয়ম। এই নিয়মের অন্যথা হলে বেকার লিস্ট থেকে নাম বাদ পড়ারও আশংকা আছে।

সব প্রস্তুতি শেষ। এইবার যে জায়গাটাতে যাব সেটার একটু খোজ খবর নেয়া যেতে পারে। সবই মোটামুটি জানি তবুও সময় কাটানোর জন্য কথা বলা। আশেপাশের কয়েকজন লোককে জিজ্ঞেস করলাম। কিভাবে যাবো? জানতে চাইলাম এক দোকানীর কাছে।

চা দোকানদারঃ উহু! খুবই খারাপ জায়গা। আর রাতের এই সময়তো মামা বুঝেনই। ভালা কতা কই রুমে গিয়া ঘুমান।

হারামজাদা আমি ঘুমামু না বাল ছিড়মু তোরে জিগাইসি। গায়ে পৈড়া উপদেশ দেছ।
এইরকম একটা লাইন মাথার ভিতর থেকে বের হয়ে আসার চেষ্টা করলেও সেটা সম্ভব না। উপদেশ হজম করা এখন একটা নিয়মিত অভ্যাসে দাড়িয়ে গেছে।

টুলে বসে একটা সিগারেট ধরালাম। পাশেই এক সাদা দাড়িওয়ালা মুরুব্বী।
হঠাত করেই যুব সমাজ ধ্বংসের কারণ এবং তার সাথে মদ গাজা ও সিগারেটের মত ভয়ংকর নিরপরাধ বস্তুসমূহের লেখচিত্র এঁকে দেখাতে লাগলেন। এবং তার একমাত্র উপদেশ আমার প্রতি যেন সিগারেট না খাই।

বিরস বদনে উঠে গিয়ে গন্তব্যস্থলের দিকে রওয়ানা দিলাম। কয়েকটা সিএনজিতে উঠার অনেক চেষ্টা তদবীর করেও হলো না। এখানেও আরেকজন ভদ্রলোক এসে উপদেশ দিয়ে গেলেন।
অন্য একটা সহজ রাস্তা থেকে কিভাবে ট্রান্সপোর্ট পাওয়া যাবে। এবং তাতে করে দেশ ও দশের কিরুপ উন্নতি সাধিত হতে পারে তাও ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ করে বুঝাতে লাগলেন। আমি কিছু বিরক্ত হয়ে যতটা সম্ভব চোখ গরম করে তাকালাম। রিয়েকশন হল উল্টো। তিনি আরো উত্‍সাহ নিয়ে বলতে লাগলেন।


[উপরে এতক্ষণ ধরে ছোট্ট একটা ভুমিকা ছিল।]




ইনসিকিউর
__________________________
কিছু মানুষের চেহারা দেখলেই মনে হয় এরা সবসময় উপদেশ শুনে অভ্যস্ত। তাদের একটা নাম দেওয়া উচিত। নাম দেওয়া হলো ভ্যানব (ভ্যাবাচ্যাকা খাওয়া মানব। ঠিক এই মুহূর্তে আর কোন কিছু মাথায় আসছে না)।

এই ধরনের ব্যক্তিবর্গের সাক্ষাত পাওয়া মাত্রই সকল ধরনের হিত এবং অহিত উপদেশের প্রাসায়নিক বিক্রিয়ার উপজাতসমূহ তাদের নিকট সমার্পণ করার দায়িত্ববোধ মাথাচাড়া দিয়ে উঠে। সূক্ষ রসবোধ এবং অতিদার্শনিকতার আপাতদৃষ্টিতে উচ্চমূল্যের বায়বীয় জ্ঞানসমূহের সফল প্রায়োগ ব্যবস্থা নিশ্চিত করার গুরু দায়িত্ব অজান্তেই টের পাই। শিক্ষক এবং ছাত্রের বাস্তবিক অবস্থা এবং পদমর্যাদার হিসাব এখানে উহ্য নয় বরং অনুপস্থিত।

এইসমস্ত জ্ঞানসমূহ যেকোন ভাবেই হোক আমার ফাঁকা ব্যাগে পুরিয়ে নেই। দূর্মূল্যের বাজারে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে একটিমাত্র বস্তু পাওয়া যাচ্ছে। তাহলে নিতে আপত্তি কোথায়?
বাঙালী ফ্রি পেলে আলকাতরাও মাথায় মাখে। সম্পূর্ণ ভুল কথা।
আলকাতরা মাথায় মাখার কোন বস্তু না। জমে যাওয়া আলকাতরা থেকে ছোট ছোট কালো বল বানানোর আনন্দ বুঝতে হলে একই সাথে আপনাকে অবুঝ এবং ভ্যানব হতে হবে। বলগুলোকে সংরক্ষণ করা এবং কিছুক্ষণ পরপর নাড়াচাড়া করতে হবে যাতে কোন আকর্ষিত তলে আটকে যেতে না পারে। একবার আটকে গেলে বিরাট বিপদ। কারণ বলগুলো অন্য আরেকজন ভ্যানবের কাছে পৌছানোর দায়িত্বও আপনার উপর অর্পিত হয়েছে। দায়িত্বে অবহেলার সর্বনিম্ন শাস্তি আবারও এইরকম বল পাওয়া। এবং তলে আটকে না থাকা নিশ্চিত করা। আমি অবশ্য ব্যাগে রেখে দেই। আর কাউকে দেই না। মাঝে মাঝে ব্যাগ হাতড়ে বের করি, গণণা করি এবং আবারও ব্যাগেই রেখে দেই। ফলস্বরুপ প্রায়ই নিত্য নতুন বল জমা হচ্ছে এবং ব্যাগটা ভারী হয়ে উঠছে। বহন করার জন্য অতিরিক্ত লোক নিয়োগ দেবার প্রয়োজনীয়তাও মন থেকে উড়িয়ে দিতে পারছি না।

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির অণুলিপিঃ

চব্বিশঘন্টা জেগে থাকতে পারদর্শী, মস্তকবিহীন জীবিন্মৃত একজন অকাট বেকার হোমো সেপিয়েন্স নিয়োগ দেওয়া হইবে।

অতিরিক্ত যোগ্যতাঃ চোখ বন্ধ রাখায় পারদর্শী হইতে হবে।

বেতনঃ ধমকসাপেক্ষে।

যোগাযোগঃ লবিং সহকারে।

এখন নিশ্চিন্ত। অসংখ্য হোমো সেপিয়েন্স ভীড় জমাবে। তাদের প্রত্যেকেই মাথা নামক একটা অঙ্গ নিয়ে মহাবিরক্ত। মস্তক ফেলে দিয়ে সবাই একে একে আসতে শুরু করবে। মস্তকসমেত কাউকে দেখলেই গেটের বাইরে থেকে বিদায় করে দেয়ার দায়িত্ব দারোয়ানের। গেটে বসে আছে দাড়োয়ান।

মস্তকবিহিন দারোয়ান!


উত্‍সর্গঃ এই অংশটা আমার কাছে অনেক বড় একটা প্রহসন। অলেখকদের জন্য তো মহাপ্রহসন। সেই হিসাবে আমার জন্যও মহাপ্রহসন। একদিন প্রহসনটা করার ইচ্ছা আছে অবশ্য একটা সুন্দর লিখা লিখতে পারলে। কিন্তু আজকে আর করা গেল না।
সর্বশেষ এডিট : ২২ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৩ রাত ১:৫৩
৫৩টি মন্তব্য ৫৩টি উত্তর পূর্বের ৫০টি মন্তব্য দেখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

বাংলাদেশে নিয়ানডার্থাল জিন: করোনার প্রাদুর্ভাব

লিখেছেন কলাবাগান১, ০৫ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ১১:১১


ঘন্টা খানিক আগে একটা সাইন্টিফিক পেপার প্রকাশ হয়েছে.....পড়ে মাথা বন বন করে ঘুরছে....এত দেশ থাকতে কেন শুধু বাংলাদেশে????? এশিয়াতে তো করোনার প্রাদুর্ভাব কম এবং সেটা ব্যাখা করে ও... ...বাকিটুকু পড়ুন

নারী পুরুষ সম্পর্ক

লিখেছেন রাজীব নুর, ০৫ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ১১:৫৭




একজন পুরুষের জীবনে অনেক নারী আসে।
কমপক্ষে পাঁচ জন নারী। এরকম নারী জীবনের যে কোনো সময় আসতে পারে। বিয়ের আগে বা পরে। কিন্তু তারা জীবনে আসে। জীবন থেকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

মাটির চুলা

লিখেছেন সোহানাজোহা, ০৫ ই জুলাই, ২০২০ বিকাল ৩:৩১


ছবি কথা বলে: আজ হাটবার আপনে দেড়ি না করে বাজারে যান গা, নাতি নাতনি ছেলে বউ শহরের বাসায় নদীর মাছ খায় কিনা আল্লাহ মাবুদ জানে! (মাটিরে চুলাতে দাদীজান পিঠা ভাজছেন,... ...বাকিটুকু পড়ুন

উত্তর মেরুতে নিশি রাতে সূর্য দর্শন - পর্ব ৪

লিখেছেন জোবাইর, ০৫ ই জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০১

বিভিন্ন ঋতুতে ল্যাপল্যান্ড: শীত, বসন্ত, গ্রীষ্ম ও শরৎ

রেন্ট-এ-কার' কোম্পানীর সেই মেয়েটি কুশলাদি জিজ্ঞাসা করে আগে থেকেই পূরন করা একটা ফরমে আমার দস্তখত নিয়ে কিরুনা স্টেশনের পাশের পার্কিং এরিয়াতে নিয়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

নন্দের নন্দদুলাল : স্বপ্ন রথে

লিখেছেন বিদ্রোহী ভৃগু, ০৫ ই জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০৬

স্বপ্নের অশ্বারোহী
দূরন্ত ইচ্ছেতে ঘুরে বেড়াই, নন্দ কাননে
তাম্রলিপি থেকে অহিছত্র
পুন্ড্রবর্ধন থেকে উজ্জয়িনী, স্বপ্ন সময়ের নন্দদুলাল।

আমাদের শেকড়
বাংলার আদি সাম্রাজ্যে যেন
পতপত ওড়ে পতাকা সবুজ-লাল,
মিলেনিয়াম নন্দ ডাইনাস্টির স্বপ্ন সারথীর স্বপ্নরথে

মানচিত্র: নন্দ... ...বাকিটুকু পড়ুন

×