somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

শের শায়রী
অমরত্বের লোভ কখনো আমাকে পায়না। মানব জীবনের নশ্বরতা নিয়েই আমার সুখ। লিখি নিজের জানার আনন্দে, তাতে কেউ যদি পড়ে সেটা অনেক বড় পাওয়া। কৃতজ্ঞতা জানানো ছাড়া আর কিছুই নেই।

১৯৬৫ যুদ্বঃ বীর বাঙ্গালী রক্ষা করেছিল পাকিস্তান

০৩ রা ফেব্রুয়ারি, ২০১৩ সকাল ৯:৩৩
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

১৯৬৫ সালে আগষ্টে পাকিস্তান শ্রীনগর সিমান্তে প্রবল বিক্রমে আক্রমন করে। হতচকিত ভারত কিছু বুজে ওঠার আগেই পাকিস্তানী সেনাবাহিনী যুদ্ববাজ উপজাতি গুলোর সহায়তায় শ্রীনগরের দ্বার প্রান্তে পৌছে যায়। মেজর জেনারেল আখতার হোসেন মালিকের অধিনায়কত্বে পাকিস্তান সেনাবাহিনী আখনুর ও জারিয়ান দখল করে নেয়। পরের লক্ষ্য স্থির করে জন্মু। তৎকালীন ম্যাগের পরামর্শে (MAAG) (Military Assistance advisory Group) আয়ুব খান লাহোর অরক্ষিত রেখে তার সমস্ত সেনা ইউনিটকে কাশ্মীর অভিমুখে প্রেরন করে।

এ পর্যায়ে ম্যাগের একটু পরিচয় দিয়ে রাখি। পাক-মার্কিন সামরিক চুক্তির অনুযায়ি ওই সময় পাকিস্তানের সমর নীতি পরিচালিত হত মার্কিন সমর নায়কদের দ্বারা। যে সংস্থার নামে পেন্টাগন পাকিস্তানের ওপর সমরনীতি খবরদারি করত তার নাম MAAG (Military Assistance Advisory Group). রাওয়ালাপিন্ডির সেনাসদরই ছিল ম্যাগের সদর দপ্তর এটা মূলত এক গাদা সি আই এ অপারেটিভ নিয়ে গঠিত।

৬ ই সেপ্টেম্বর খেমকারান সেক্টর দিয়ে ভারত করাচি আক্রমন করে বসে। আয়ুবের তখন ত্রাহি অবস্থা, আয়ুব কখন ও ভাবতে পারেনি ভারত শ্রীনগর যুদ্বকে আন্তর্জাতিক সীমান্তে টেনে নেবে। পাকিস্তানি সমস্ত ইউনিট তখন হয় শ্রীনগর নাহ্য় শ্রীনগর অভিমূখে। ওই রাতেই আয়ুব খান ম্যাগের কমান্ড নিজ হাতে তুলে নেন, শ্রীনগর অভিমূখী সেনা ইউনিট ঘুরিয়ে খেমকারান সেক্টরে এসে ভারতীয় আক্রমন প্রতিহত করার নির্দেশ দেন।

শ্রীনগর অভিমুখী সেনা ইউনিটের সর্বপশ্চাতে ছিল ইষ্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট। মুখ ঘোরাতে সর্ব পশ্চাত ইষ্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট সেনা ইউনিটের অগ্রবর্তী অংশ হয়ে যায় এবং সর্বাগ্রে ভারতীয় সেনাবাহিনীর মুখোমুখী হতে হয় এদেরই। যুদ্বের ইতিহাসে খেমকারান সেক্টরে-বাঙ্গালী তৈরী করে এক অমিত বিক্রম সাহসের দৃষ্টান্ত। তাদের প্রচন্ড প্রতিরোধে লাহোর উপকন্ঠে এসে থেমে যায় ভারতীয় বাহিনীর অগ্রযাত্রা। না হলে সেবার ই লাহোর দখল করে নিত ইন্ডিয়া।


১৯৬৫ সালে পাকিস্তানের ৮ টি ডিভিশনের মধ্যে EBR (East Bengal Regiment) মাত্র ৪ টি ব্যাটেলিয়নের মাধ্যমে সংগঠিত ছিল। এর অধিনায়ক ছিলেন লেঃ কঃ আতিক হক। মাত্র এই ৪ টি ব্যাটেলিয়ন নিয়ে তিনি যে যুদ্ব করেন পরে ১৯৬৫ সালে পাকিস্তান বাধ্য হয় তাদের সর্বোচ্চ সামরিক পদক প্রদান করতে। বাংগালীর এই সাফল্য গাথা কিন্তু পাকিস্তানী আর্মি তেমন কোথাও বিস্তারিত প্রকাশ করেনি। বিভিন্ন মিলিটারী ডকুমেন্টে ১৯৬৫ সালের যুদ্বে দু চার লাইন লিখে EBR এর কথা শেষ করেছে।

পাকিস্তানি ফাইটার পাইলট স্কোয়াড্রন লিডার এম এম আলম যিনি ছিলেন এক জন বাঙ্গালী (আসলে পশ্চিম বাংলা) একাই পাচটি ইন্ডিয়ান যুদ্ব বিমান ভূপাতিত করেন। এই অসম সাহসিকতার জন্য তিনি সিতারা ই জুরাত উপাধি লাভ করেন। ঢাকা মিঊনিসিপালটি করপোরেশন ৬৫ যুদ্বের পর তাকে ঢাকায় একটি বাড়ী উপহার দেয়।

এক জন পাকিস্তানী ডাক্তারের মুখে শুনুন, তার নাম ডাক্তার ফয়সাল হোসেন,

who saved lahore

Auther: Dr Faisal Hossain

During the 1965 Indo-Pak War, it was the East Bengal Regiment that saved Lahore from being over-run by Indian
troops
On September 5, 1965, The Indian Chief of Staff declares that he will have his next
morning tea in Lahore after the onslaught of the Indian troops started in parallel on
the Kasur and Lahore sectors. The 11 Infantry Division raised, on an ad hoc basis, a
few months earlier, had been assigned to defend this sector and to destroy any
Indian break
through either from Ferozpur, through Hussainiwala or via Bedian and Hem Karan, in
an effort to outflank Lahore.
The division having been raised during the emergency had not been brought up to
full strength and apart from other shortages had only seven infantry battalions. The
divisional commander, Major General Abdul Hamid, had decided to fight in front of
the BRB canal and to carry the battle into the enemy territory as soon as opportunity
arose.
The Pakistani position became weaker on 5 September when 21 Infantry Brigade,
commanded by Brig. Sahib Dad Khan, 13 Baluch and 5 FF, was moved out of the
area. This left only five infantry battalions, with the division to defend a front of
approximately 28 miles.
News came into Division Headquarters at about 345 hours on 6 September that
Indian movement had been observed in front of the ranger post at Bedian. By 0500
hours, it was clear that the Ranger posts all along the border were under enemy
attack. Soon the Indians decided to forego the element of surprise, which had
already been lost, and opened up with mortars and artillery. The enemy had planned
a two pronged attack, one aimed against Bedian Head Works and the other directly
leading to Kasur along the road Patti-Khem-Karan-Kasur.
The two main enemy attacks were directed against Bedian, by 5 Guards battalion,
and Kasur along Khem Karan axis by 9 J and K battalion. By 0900 hours both the
attacks had come to standstill. Both attacks had been of a battalion strength each
and supported by armour. Defending Bedian facing the enemy attack was a company
of 1 East Bengal Regiment.
They withstood the assault most admirably. The Indians received the proper
reception. The senior Tigers, as the battalion was called, held their fire as seasoned
troops are expected to do. They had a plucky young gunner Captain as F.O.O., who
had his O.P. on top of a tree. He gave them an excellent supporting fire even though
wounded during the early hours of the morning.
1 East Bengal Regiment faced another battalion attack at 1000 hours in front of
Bedian. This also was repulsed with heavy losses to the enemy........

কেউ কি নাই সেই সব বীরত্বগাথা আমাদের বিস্তারিত ভাবে শুনাবে? শুনুন সবাই আ্মরা শুধু ভেতো বাঙ্গালী না আমরা বাঘা বাঙ্গালী ও বটে। আমি প্রচুর চেষ্টা করলাম ১৯৬৫ পাক ভারত যুদ্বে বাঙ্গালীর বিস্তারিত জানতে, এর বেশী কিছু পেলাম না, দেখুননা আপনি কিছু পান কিনা। তবে যেটুকু পেয়েছি বাঙ্গালী হিসাবে আমি গর্বিত। বেঈমান পাকিস্তান এখনো সময় আছে বাঙ্গালীর প্রতি কৃতজ্ঞতা দেখান।

Source: Click This Link

সূত্রঃ The State of Martial Rule, Ayesha Jalal page 85
Battle for Pakistan: The Air War of 1965, John Fricker.
http://www.rediff.com/news/2005/oct/05war.htm
Click This Link
সর্বশেষ এডিট : ১৭ ই মার্চ, ২০১৩ সকাল ৭:৫০
৩৮টি মন্তব্য ৩৮টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

করোনার মাঝে ভয়ংকর প্রতিবাদে জ্বলছে আমেরিকার অনেক শহর

লিখেছেন চাঁদগাজী, ৩০ শে মে, ২০২০ সকাল ৯:৪১



*** হোয়াইট হাউজের ২০০ গজের মধ্যে পুলিশ ও প্রতিবাদকারীদের মাঝে ধাক্কাধাক্কি চলছে , মানুষ হোয়াইট হাউসে প্রবেশের চেষ্টা করছে, অনেকেই আহত হয়েছে; এখনো গ্রেফতার করা হচ্ছে না।... ...বাকিটুকু পড়ুন

যেভাবে হত্যা করা হয় প্রেসিডেন্ট জিয়াকে-

লিখেছেন গিয়াস উদ্দিন লিটন, ৩০ শে মে, ২০২০ বিকাল ৩:৫৪

১/



রাতের শেষ প্রহরে তিনটি সামরিক পিকআপ জিপ এসে দাঁড়ালো চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসের গেটের সামনের রাস্তায়। একটি পিকআপ থেকে একজন লেফটেন্যান্ট কর্নেলের কাঁধে র রকেট লঞ্চার থেকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

আজ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ২৯তম মৃত্যু বার্ষিকী

লিখেছেন রাজীব নুর, ৩০ শে মে, ২০২০ বিকাল ৫:৫৬



আমি জিয়াকে পছন্দ করি।
কারন উনি একজন সৎ লোক ছিলেন। ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে উনি কোনো দূর্নীতি করেন নি। কিন্তু অনেক ভুল কাজ করেছেন। রাজাকার গোলাম আযমকে দেশে ফিরিয়ে এনেছেন।... ...বাকিটুকু পড়ুন

অশিক্ষা, কুশিক্ষায় নিমজ্জিত, রাজনৈতিক জ্জানহীনরা সামরিক শাসনকে মিস করে।

লিখেছেন চাঁদগাজী, ৩০ শে মে, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪৮



১৯৭১ সালে মুক্তিযোদ্ধারা পরাজিত হলে, ২ কোটী বাংগালীর ঘরে জেনারেল ইয়াহিয়ার ছবি ঝুলতো সেদিন; কিছু বাংগালী আছে, মুরগীর মতো, চিলে বাচ্চা নিলে টের পায় না। নাকি আসলে মুসরগী টের... ...বাকিটুকু পড়ুন

পৃথিবী বিখ্যাত ব্যক্তিদের মা'য়েরা .............. এট্টুসখানি রম্য :D

লিখেছেন আহমেদ জী এস, ৩০ শে মে, ২০২০ রাত ৮:০৫



পৃথিবীর সব মা’য়েরাই একদম মা’য়ের মতো ।
সন্তান বিখ্যাত কি অবিখ্যাত, সে জিনিষ তার কাছে কোনও ব্যাপার নয়। তার কাছে সে কোলের শিশুটির মতোই এই টুকুন । যাকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

×