somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

সূতির খালের হাওয়া ১১ঃ বাংলা সাহিত্যের ভাষা

২৪ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ রাত ১০:১৯
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

১।
ভাষাভিত্তিক জেনোফোবিয়া, এপার বাংলা - ওপার বাংলার ভাষাভিত্তিক বিভক্তিকরণ, প্রমিত বাংলার ইস্যু -- ইত্যাদি বিষয়ে আমার প্রথম সচেতন করে তোলে আহমদ ছফার লেখা একটি প্রবন্ধ। 'খোয়াবনামা উপন্যাস' - নামে, আখতারুজ্জামান ইলিয়াস ও তার খোয়াবনামা উপন্যাসের উপর লিখিত একটি প্রবন্ধে ছফা কোলকাতায় ঘটে যাওয়া একটা ঘটনা উল্লেখ করেন। আনন্দবাজার গ্রুপের আয়োজিত দুইবাংলার এক লেখক কনফারেন্সের একটি নির্দিষ্ট সেশনের বিষয় ছিল 'বাংলা সাহিত্যের ভাষা কেমন হবে' - এই জাতীয় কিছু। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় ছিলেন সেশন চেয়ার। আলোচকদের একজন ছিলেন আমাদের আখতারুজ্জামান ইলিয়াস। ছফার ভাষ্যমতে, কোলকাতার লেখকরা প্রচলিত প্রমিত বাংলারে বাংলা সাহিত্যের জমি কর্ষণের লাঙ্গল হিসেবে উল্লেখ করলেও, ইলিয়াস কাটাকাটা ভাষায় বলেন - যে অঞ্চলের মানুষের মুখের ভাষা যেমন, সে অঞ্চলের সাহিত্যের ভাষাও হবে তেমনই। অর্থাৎ, প্রমিত বাংলার খবরদারি তিনি প্রমিত বাংলার প্রচারকদের মুখের উপর উড়ায়ে দেন। সেই কনফারেন্সের ফাইনাল ডিনারে অন্য সকল লেখকরে আমন্ত্রণ জানানো হইলেও, একমাত্র বাদ দেয়া হয় ইলিয়াস সাবরে। ইলিয়াসের এই অপমান ছফার গায়ে লাগে। ছফার সূত্রে আমার গায়েও।
.
২।
কবেকার ঘটনা এইটা? ২০১৫ - ১৬ সাল হইব এই প্রবন্ধ পড়ছি। মূল ঘটনা ৮০ / ৯০ এর দশকের। এই বিগত পাঁচ বছরে, আমি সচেতনভাবে পশ্চিমবঙ্গে চর্চিত বাংলা সাহিত্য থেকে নিজেরে দূরে সরায়ে আনসি। খুঁজে খুঁজে বাংলাদেশী বাংলা ভাষাভাষী সাহিত্যিকদের লেখা পড়ছি, যত পারা যায়। সৈয়দ ওয়ালিউল্লাহ, শহিদুল জহির, আখতারুজ্জামান ইলিয়াস এবং আহমদ ছফা - এই চারব্যক্তির যত ফিকশনাল রাইটিং, তথা সৃজনশীল কথাসাহিত্য আছে, আমি তার আদ্যোপান্ত পড়সি। একটা বই, একটা গল্প, একটা উপন্যাসও বাদ দিই নাই। আরও পড়সি হাসান আজিজুল হক, শওকত ওসমান। হালের শাহাদুজ্জামান, শাহীন আখতার আপা। হুমায়ূন আহমেদও। এবং, আনন্দবাজার গ্রুপের পাপের ফসল হিসেবে, বাদ দিসি পশ্চিমবঙ্গের সাহিত্যিকদের কাজের প্রচার প্রসার। আমার মত আদনা ব্যক্তি সুনীল - শীর্ষেন্দু - সমরেশরে নিয়া কথা বলা বন্ধ করলে তাদের কি ক্ষতি - প্রশ্ন আসতে পারে। আমার রাজনৈতিক সক্ষমতা অতটুকুই, যতটুকু আমি করসি।
.
৩।
কিন্তু এই যে প্রমিত বাংলা নিয়া এত কচলাকচলি, মনকষাকষি, একটা প্রশ্ন আজ সন্ধ্যায় মাথায় আসলো - প্রমিত বাংলার খবরদারীমূলক তাত্ত্বিক বয়ান তৈরিতে, পশ্চিমবঙ্গের সৃজনশীল লেখক - কবিদের ভূমিকা কতটুকু?
.
শীর্ষেন্দুর লেখা প্রবন্ধ পড়ছি বলে মনে পড়ে না। উনি কমবেশী উপন্যাসৈ লিখে গেছেন বেশীরভাগ সময়। সুনীলের নন ফিকশন লেখাগুলির মধ্যে আত্মজৈবনিক লেখাগুলিই বেশী সুন্দর। আধেক জীবন, বা ছবির দেশে কবিতার দেশে। সমরেশের লেখা আমার ভালো লাগে না, পড়ি নাই। জয় গোস্বামী আমার কোলকাতার সবচে পছন্দের কবি। হয়তো সমগ্র বাংলাভাষায়ও। আমার প্রকাশিত একমাত্র কবিতার বইটা ওনারে উৎসর্গ করা।
.
সত্যি বলতে, ভাষা কি বা কেমন হওয়া উচিৎ, এইটা নিয়া আজান দিয়া পশ্চিম বঙ্গের কোন লেখকরে মতামত দিতে আমি দেখি নাই তাদের সাহিত্যকর্মে। ফিকশনে, বা নন ফিকশনে। সাহিত্যিক মাত্রই জানেন, ভাষা একটা স্পন্টানিয়াস ব্যাপার, যদি না আপনি স্পেসিফিক্যালি একটা বিশেষ এলাকার উপর গল্প বা উপন্যাস লিখেন। হাসান আজিজুল হক সাহেব যেমন লিখেন রাঢ়বঙ্গের ভাষায়।
.
আর যদি দেনও, ক্ষতি কি? সবারই অধিকার আছে নিজের মতামত রাখার।
.
৪।
এইখানে ভাষাভিত্তিক রাজনীতির বিষয়টা আইসা পড়ে। কেউ বলতে পারেন, এইসব কইরাই পশ্চিমবঙ্গের কথা সাহিত্যিকরা শান্তিপুরি প্রমিত ভাষা আমাদের উপর 'চাপায়ে' দেয়ার চেষ্টা করছেন। প্রাসঙ্গিকভাবে এই প্রশ্নও এসে যায়, এই চাপায়ে দেয়ার উপায়টা কি? গায়ের জোর তো অবশ্যই না। তাইলে আর কি বাকি থাকে? মানসম্মত সাহিত্যচর্চা? কারো সাহিত্যের মান যদি ভালো হয়, সাথে গদ্যটা হয় স্বাদু - আপনি তো রাজনীতি ফাজনিতি বুঝায়া তার পাঠকরে থামাইতে পারবেন না।
.
৫।
তাইলে ভাষার আলাপ থেকে আমরা এসে পড়লাম কন্টেন্টের আলাপে। হুমায়ূন আহমেদ এই জায়গায় প্রাসঙ্গিক। ওনার সংলাপভিত্তিক লেখা, এবং জাদুকরী চরিত্র চিত্রণের সক্ষমতা তারে জীবিতাবস্থায় দুইবাংলার কথা সাহিত্যের জগতে বাদশাহী করসেন। উনি কি ইলিয়াস - ছফার ভাষাভিত্তিক ডিবেটের অংশী ছিলেন? অন্তত চর্চিত কথাসাহিত্যে? আমার মত হইল, ছিলেন না।
.
শহিদুল জহিরের লেখার বিষয়বস্তু, গল্প বলার ধরন বাংলা সাহিত্যের জগতে একদমই ইউনিক। যেমন ইউনিক ইলিয়াস নিজে। হাসান আজিজ সাহেবও।
.
কিন্তু তাদের ভাষাভিত্তিক রাজনীতিটা স্বাদু গদ্যের বিপরীতে হওয়ায় তারা তা পাঠকের মনে প্রোথিত করতে পারেন নাই। সাধারণ মানুষের এতো সময় কই সাহিত্য পড়ার? এক্সপিরিমেন্টাল / আঞ্চলিক ভাষার কথাসাহিত্য পড়ার? সাহিত্য নিয়া কচলা কচলি করবার? এইখানে এসে ইলিয়াস - ছফার প্রমিত বাংলা বিরোধী রাজনীতি মাইর খাইসে।
.
৬।
কথা সাহিত্যের ভাষা কি হবে - এ নিয়া রাজনীতি কি তবে অপ্রয়োজনীয়? তা না। নইলে আমাদের দেশে একবার রাজনৈতিকভাবে রবীন্দ্রনাথরে বাদ দেয়া, এবং আর একবার, দেশ স্বাধীন হওয়ার পর রাজনৈতিকভাবে রবীন্দ্রনাথরে প্রতিষ্ঠা করবার প্রয়োজন পড়তো না।
.
কিন্তু এই রাজনীতির ঝাণ্ডা কার হাতে থাকবে, সেটা চিন্তার বিষয়। রাজনীতিটা কীভাবে করা হবে, সেটাও। বর্তমানে আমাদের দেশে প্রাবন্ধিক গবেষকদের প্রমিত বাংলা সমাচার নিয়া মাথাব্যাথা বেশী। অথচ সাহিত্যের ভাষা কেমন হবে - তা ঠিক কইরা দেয়ার কোন শক্তি আদতে তাদের হাতে নাই। কীভাবে করা হবে - তার উত্তর হইল, সেইভাবে, যেমনভাবে করসেন পশ্চিমবঙ্গের লেখকরা। তারা তো সেমিনার কইরা তাদের ভাষার ষ্ট্যাণ্ডার্ড ঠিক কইরা পাঠকদের বাধ্য করেন নাই তাদের লেখা পড়তে। তারা অসাধারণ লিখসেন। অনেকে মুরুব্বীগিরি দেখাইতে গিয়া বলবেন সুনীল - শীর্ষেন্দু বাল। তা বলতে পারেন। আমি ব্যক্তিগতভাবে শীর্ষেন্দুর বিশাল ভক্ত। সুনীলের সাত কাণ্ড রামায়ন সাইজের উপন্যাস ফাঁদতে ইতিহাসের আশ্রয় নেয়া লাগে। শীর্ষেন্দু সেটা করেন সাধারণ মানুষের জীবন নিয়ে। হুমায়ূন আহমেদও তাদের পছন্দ করতেন।
.
৭।
আমার পুরা আলোচনার সারাংশ তিনটা -
.
ক) গল্প উপন্যাস লেখার ক্ষেত্রে ভাষাভিত্তিক বিতর্ক একটা পার্শ্বিক ব্যাপার। ভাষার চয়েজে সাহিত্যিকরে সৎ হইতে হয়। চাইলেও একজন চাষার মুখে আপনি পশ্চিম বঙ্গের স্বাদু গদ্য বসায়ে দিতে পারবেন না। তা ন্যাচারাল লাগবে না। আবার, শহরের একটা সিন বর্ণনায় আপনি চাইলেই 'প্রমিত' বাংলায় সংলাপ তৈরি করতে পারেন, পাঠকের সুবিধা বিবেচনায় রেখে।
.
খ) সাহিত্যের ভাষা কেমন হবে - এই ডিবেটটা আসলে একাডেমিক ডিবেট না। মানে, চাইলে করা যায়। কিন্তু এই আলাপে ফয়দা নাই। এটা সাহিত্যিকদের ইচ্ছার ও সক্ষমতার ব্যাপার।
.
গ) ভাষার রাজনীতি করতে হইলে আপনার মানসম্মত সাহিত্য চর্চার দ্বারাই করতে হবে। ফার্স্টে কিছু প্রবন্ধ লিখলেন প্রমিত বাংলা আপনার কি সর্বনাশ করতেছে সেইটা নিয়া, তারপর প্রাণপাত কইরা বহুকষ্টে আঞ্চলিক বাংলায় দুই - তিনটা উপন্যাস - গল্পের কিতাব বাইর কইরা ক্ষান্ত দিলেন, এভাবে হবে না। ইলিয়াসের খোয়াবনামা বাইচা থাকবে, যেমন বাইচা থাকবে হাসান আজিজের আগুনপাখি, কিন্তু তাদের ভাষার ব্যবহাররে একটা ফ্যাশন হিসেবে চর্চা করা যাবে না - তাদের লেখার সংখ্যার স্বল্পতার জন্যে। হুমায়ূন - সুনীল - শীর্ষেন্দু তাদের জীবদ্দশাতেই ফেনোমেনা ছিলেন। ইলিয়াস - জহির বা হাসান আজিজ মরার পরেও অধিকাংশ বাংলাদেশী বাঙ্গালীর কাছে অজানা।
.
৮।
ছফারে দিয়া শুরু করসিলাম, ছফারে দিয়াই শেষ করি। ছফার গুরু আব্দুর রাজ্জাক স্যার ছফারে দেখলেই বলতেন তলস্তয়ের ওয়ার অ্যান্ড পিসের মতো হাজার পাতার উপন্যাস লিখতে হবে। ছফার আটটা উপন্যাস মিলায়ে সাকুল্যে পৃষ্ঠা সংখ্যা ৬৭১। এদিকে সুনীল - শীর্ষেন্দুর উল্লেখযোগ্য উপন্যাসগুলিই হাজার পাতার মতন।
.
আমাদের বাংলাদেশের শিল্প সাহিত্যের অঙ্গনের মানুষদের কোলকাতা জুজু কাটাইতে হবে। লেখার মান, লেখার পরিমাণ, লেখার প্রতি অনুরাগ বাড়াইতে হবে। এটাই বাংলা সাহিত্যের একজন সক্রিয় কথা সাহিত্যিক হিসেবে আমার মত।
.
বারবার 'কলকাত্তার ঔপনিবেশিক প্রভাব আমাদের কাটায়া উঠতে হবে' - এই বুলি আওড়ানোও তো হীনমন্যতার লক্ষণ, তাই না?
সর্বশেষ এডিট : ২৪ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ রাত ১০:৫৭
২টি মন্তব্য ২টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

আমার 'কাকতাড়ুয়ার ভাস্কর্য'; বইমেলার বেস্ট সেলার বই এবং অন্যান্য প্রসঙ্গ

লিখেছেন কাওসার চৌধুরী, ১৭ ই এপ্রিল, ২০২১ রাত ১২:৩৭


'অমর একুশে বইমেলা' প্রতি বছর ফেব্রুয়ারির প্রথম তারিখ থেকে শুরু হলেও এবার করোনা মহামারির জন্য তা মার্চের মাঝামাঝি থেকে শুরু হয়েছে। বাংলা একাডেমি আয়োজনটা যাতে সফল হয় সে চেষ্টার কোন... ...বাকিটুকু পড়ুন

লুকানো জব মার্কেট: করোনা কালে চাকরী খোঁজার একটি ক্ষেত্র

লিখেছেন শাইয়্যানের টিউশন (Shaiyan\'s Tuition), ১৭ ই এপ্রিল, ২০২১ সকাল ১০:১৭



আপনি যদি ইন্টারনেট ঘাটেন, তাহলে দেখতে পারবেন, সেখানে লুকানো কাজের বাজার সম্পর্কে হাজার হাজার আর্টিকেল আছে। এই আর্টিকেলগুলো থেকে বুঝা যায়- এই কাজের বাজারে থেকেই ৭০-৮০% চাকুরী প্রার্থী... ...বাকিটুকু পড়ুন

কর্তৃপক্ষ কোনও রেকর্ড খুঁজে পায়নি - একটি অশরীরী অভিজ্ঞতা

লিখেছেন ডাব্বা, ১৭ ই এপ্রিল, ২০২১ দুপুর ১:০২



ম্যানিটোবা বিশ্ববিদ্যালয়ে সিনিয়র কারিকুলাম ডিভালাপারদের তিনদিনের সম্মেলনে যোগ দেয়ার ইনভিটেয়শ্যন(invitation) যখন পাই তখন হাতে দু সপ্তাহ সময় আছে। প্ল্যান করার জন্য সময়টা একটু টাইট। তবে চিঠিতে বলে দিয়েছে যাওয়া... ...বাকিটুকু পড়ুন

করোনায় শেখ হাসিনার ঘনিষ্ঠ কিছু মানুষের মৃত্যু হয়েছে

লিখেছেন চাঁদগাজী, ১৭ ই এপ্রিল, ২০২১ বিকাল ৩:৫১



করোনায় শেখ হাসিনার বেশ কিছু ঘনিষ্ঠ মানুষের মৃত্যু হয়েছে; আমার ধারণা, এই মানুষগুলো শেখ হাসিনার সাথে ঘনিষ্ঠতার কারণে অনেক প্রিভিলীজ ভোগ করেছেন; ফলে, এদের পক্ষে করোনা থেকে দুরে... ...বাকিটুকু পড়ুন

অ্যাপয়েন্টমেন্ট আপু আর গারবেজ কাকু

লিখেছেন মা.হাসান, ১৭ ই এপ্রিল, ২০২১ রাত ৮:০৭




অফিস থেকে বাসায় ফিরছি, ১৮ নম্বর বাড়ির সামনে একটা জটলা, কিছু হইচই, দেখে থমকে দাঁড়ালাম। তেতলার ব্যালকনিতে অ্যাপোয়েন্টমেন্ট আপুর অগ্নিমূর্তি, দোতলায় মাখন ভাবির ঝাড়ু... ...বাকিটুকু পড়ুন

×