somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

দ্যা পোস্ট ট্রুথ ওয়ার্ল্ড- আমাদের চারপাশে এত বিশেষজ্ঞ কেন?

০৩ রা অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১২:৩৭
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


পোস্ট-ট্রুথ ( Post Truth) বা সত্য- পরবর্তী শব্দটি অক্সফোর্ড অভিধানের' ২০১৬ সালের সেরা আন্তর্জাতিক শব্দ ছিলো - যে বছর যুক্তরাজ্য ই'ইউ ত্যাগের পক্ষে ভোট দেয় এবং ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন । এটি এমন একটি পরিস্থিতির বর্ণনা দেয় "যার মধ্যে বস্তুনিষ্ঠ তথ্যের বদলে আবেগ এবং ব্যক্তিগত বিশ্বাসের প্রভাব অনেকাংশেই বেশি এবং তাতে জনমতের কোন প্রতিফলন নেই।

ট্রাম্প প্রশাসনের "বিকল্প তথ্য বা Alternative Facts '-এর যুগে জলবায়ু পরিবর্তন প্রত্যাখ্যান এবং ভোট লিভ ক্যাম্পেনের নিন্দিত £350,000,000 মিলিয়ন পাউন্ড এনএইচএস-এর কাছে ফিরিয়ে আনার মিথ্যা বুলি দিয়ে বৃটেনের ই,ইউ থেকে বেরিয়ে আসার সফল ক্যাম্পেইন করা। পৃথিবীর সব দেশে এখন মিথ্যা প্রোপাগাণ্ডা, ভিত্তিহীন সংবাদ এসব মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। প্রায়ই বুঝা মুশকিল হয় কোনটি সত্যি আর কোনটি মিথ্যা। অনেক সময় দেখা যায় পুরাতন ছবি, বা কোন সিনেমার ছবি ব্যবহার করে মুসলিম বা ইহুদি বিদ্বেষি পোস্ট দেয়া হয়। এইসব ফেইক সংবাদগুলো প্রতিনিয়ত মিডিয়া ও ভার্চুয়াল জগতে থেকে শুরু করে প্রত্যহিক মানবজীবনের সবচেয়ে ভয়ংকর সমস্যা হিসাবে দেখা দিয়েছে। আর সত্যকে মিথ্যা দিয়ে চাপা দেয়া হয় মূলত কোন না কোনভাবে শক্তিশালী ও বিত্তশালীদের সুবিধার জন্য।

আমরা কীভাবে এসব বাড়াবাড়ি, স্পিন ও অসত্যের বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারি?

আমরা বর্তমানে সত্য- পরবর্তী বা পোস্ট-ট্রুথ জগতে বাস করছি, যেখানে বিকল্প তথ্য এবং ফেক নিউজ যুক্তরাজ্যের গ্লোবাল নিউজ এবং কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স সার্ভিস, বিবিসি-র মতো পিয়ার-রিভিউ গবেষণা এবং পূর্বতন-প্রামাণিক উৎসের সাথে সমান ভাবে প্রতিযোগিতা করছে। কোনটা সত্য আর কোনটি মিথ্যা তা মিলাতে গিয়ে হিমশিম খেতে হয়। অনেক সময় দেখা যায় সত্যকে খুঁজতে গিয়ে সাঁপে- নেউলে সম্পর্ক তৈরি হয় ফলে অনেক সময় ও শক্তি অপচয় করেও নিজের জীবনের উপর নেমে আসে মৃত্যু ঝুঁকি।



কেন এমনটা হচ্ছে?
অনেকেই ইন্টারনেট ও স্মার্টফোন বিপ্লবকে দোষারোপ করলেও সেটা পুরোপুরি সত্য ঘটনা নয় । এটা ঠিক প্রযুক্তি এই সমস্যাকে বহুলাংশে উত্তেজনাকর করে তুলেছে, নিশ্চিতভাবে হলেও এখানে অন্তর্নিহিত সামাজিক প্রবণতা প্রাক-কম্পিউটার যুগে ফিরে এসেছে । কিছু মানুষ প্রখ্যাত সত্যকে -চ্যালেঞ্জ করে এবং ব্যক্তিকে দোষারোপ করে, কিন্তু আমাদের কারণ এবং প্রভাবকে একসাথে মিশ্রিত করা উচিত নয়।
অনেক দীর্ঘ চক্র প্রবণতার কারণে পোস্ট-ট্রুথ যুগ আবির্ভূত হয়েছে, যা আমাদের চারপাশের বিশ্বকে কিভাবে বোধগম্য করে তুলছে । এই ঘটনাটিরও একটি নাম আছে — অজ্ঞতাবিদ্যা, সাংস্কৃতিকভাবে প্রবর্তিত অজ্ঞতা বা সন্দেহ । আর তা আসে স্বাদে-গন্ধে, অপেক্ষাকৃত সৌম্য (' স্পিন '-এর মাধ্যমে মানুষকে প্ররোচনায় ফেলার মাধ্যমে অথবা তথ্য-প্রমাণের মাধ্যমে) ইচ্ছাকৃতভাবে বিদ্বেষকে (বস্তুত ভুল তথ্যের উইলফুল পেটানোর) মাধ্যমে । অজ্ঞতাতত্ত্বের প্রভাব, ব্যবসার জন্য এবং রাজনীতির জন্য এক বিশাল প্রবণতা বিরাজমান। আর এ সুন্দর পৃথিবী সম্পর্কে আমাদের জানতে ও বোঝতে দুটি দীর্ঘ চক্রের বিশাল প্রবণতা দেখা যায় ।

প্রথমত, আমরা সবাই দিন দিন বোকা হয়ে পড়ছি, আত্মীয়ের ভিত্তিতে । গত কয়েক দশকে যখন ব্যক্তি জ্ঞান Individual Knowledge (IQ দ্বারা মাপা) (তথাকথিত ফ্লিন এফেক্ট) উপর ধীরে ও সুসংগঠিতভাবে বেড়েছে, আর মানুষের সম্মিলিত জ্ঞান (Collective Knowledge) বর্ধিষ্ণু হয়ে উঠেছে — মনে করুন বই লেখা, পিএইচডি সম্পন্ন,বিস্ফোরক বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে অথবা পেটেন্ট নিবন্ধিত করতে আমরা প্রত্যেকে যা জানি এবং পৃথিবী যা জানে তার মধ্যে ব্যবধান দ্রুত বাড়ছে ।

দ্বিতীয়, ব্যবসা ও রাজনীতির জগৎ আরও পরস্পর নির্ভরশীল হয়ে পড়ছে, এই অর্থে এক জায়গায় কিছু ঘটে গেলে অন্য জায়গায় অনিশ্চিত দ্বিতীয় বা তৃতীয় অর্ডারের পরিণতি হতে পারে । সাইবার-হামলা, সংক্রামক রোগের প্রাদুর্ভাব, সন্ত্রাসবাদী হুমকি, রাজনৈতিক আন্দোলন, সামাজিক কালচার — এ সবই ' বিশ্ব অর্থনীতির এক জটিল ব্যবস্থা বলে মনে করা হয় । দুর্ভাগ্যবশত, জটিল সিস্টেম সঠিকভাবে মডেল করা যাবে না । এটা আমাদের সময়ের এক অদ্ভুত কূট: আমরা যতই সংযুক্ত করি না কেন, ভবিষ্যদ্বাণী করা আমাদের জন্য আসলেই কঠিন ।
এই দুই বিন্দুকে একসাথে রাখুন: ব্যক্তি হিসেবে আমরা বর্তমান সম্পর্কে বোঝার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করছি এবং ভবিষ্যতের ভবিষ্যদ্বাণী করা কঠিন হয়ে পড়ছে । ফলে এক ধরনের কগনিটিভ ডিসসোসিয়েন্স হয় । চিন্তাশীল মানুষ হিসেবে আমরা নিয়ন্ত্রণে থাকতে পছন্দ করি, কিন্তু ক্রমশ আমরা তা পারি না । তাহলে কীভাবে আমরা এই ডিসসোসিয়েট্যান্স সমাধান করব? আমরা বিশ্বাস করে পিছিয়ে পড়ি — নিজেদের সংস্কার নিয়ে । নিউইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর জোনাথন হান্টি এই বিন্দুকে নিম্নরূপ ব্যাখ্যা করেছেন । আমরা মনে করতে চাই যে আমরা যুক্তি এবং বিশ্লেষণ ব্যবহার করি বিচারের কাছে পৌঁছানোর জন্য, উদাহরণস্বরূপ জেনেটিক্যালি মডিফায়েড ফসলের বিপদ সম্পর্কে প্রমাণ দেখে, এবং তারপর তাদের নিষিদ্ধ করা উচিত কিনা সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া । বাস্তবে আমরা ঠিক উল্টো কাজ করি: প্রথমদিকে আমরা একটি সংস্কার-ভিত্তিক বিচার করতে আসি (প্রায়ই তা হয়) এবং তারপর আমরা আমাদের দৃষ্টিভঙ্গির জন্য একটি কোজেন্ট যুক্তি নির্মাণ করতে পারি, সাধারণত সমর্থনপুষ্ট প্রমাণ লোপাট করে এবং প্রমাণ অগ্রাহ্য করে যা আমাদের বিভিন্ন দিকে নিয়ে যেতে পারে।
এটা একটা ভীতিকর বিষয়: এটা মানুষের স্বভাব যে সোজা একটি বিচারের উপর ঝাঁপিয়ে পড়া, প্রায়শই তথ্য এবং, প্যারাডিক্সিকভাবে, আরো জটিল এবং অনিশ্চিত বিষয় উপর ভিত্তি করে, আমরা আমাদের সংস্কার বিশ্বাস করতে ঝোঁক. যদি প্রশ্ন করা হয়, আপনি যেখানে বাস করেন সেখানে ব্যস্ত চৌহদ্দিতে ট্রাফিক লাইট লাগানো আপনি কি সমর্থন করেন, আপনি দ্রুত খুঁটিনাটি মাধ্যমে ভাবতে পারেন এবং রায় দিতে আসবেন । যদি জিজ্ঞাসা করা হয়, আপনি ইউরোপীয় ইউনিয়ন ছেড়ে আসতে সমর্থন করেন, আপনার মস্তিষ্কের যুক্তিভিত্তিক অংশ এড়িয়ে যায়, এবং স্বজ্ঞাত অংশ গ্রহণ করে। বিচারের এই প্রবণতা সবসময়ই বিদ্যমান থাকে, তখন এটি একটি বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে, যেমন ব্যক্তি (অপেক্ষাকৃত) অজ্ঞ এবং পরবর্তী কি আসছে তা দেখতে সক্ষম নয় । প্রযুক্তি তারপরের সমস্যা, আমাদের ফেসবুক এবং টুইটার প্রচার একটি ইকো চেম্বার তৈরি করে যে প্রায়ই সম্পূর্ণ তথ্য বর্জিত হয়. এবং স্মার্ট রাজনীতিবিদরা দ্রুত এই ধারাকে শোষণ করে, আমাদের সংস্কার এবং অবচেতন আবিশ্বাসে টোকা দেয়, বরং কঠিন প্রমাণ দিয়ে আমাদেরকে আয়ত্বের মধ্যে নিয়ে যায় আর তখন আবেগের বশে যুক্তিবোধের শিল্পকর্মে যুক্তি খেই হারিয়ে ফেলে। অবশেষে আবেগের জয় হয়।

তাহলে এইসবের অর্থ কী?
• একজন ব্যক্তি হিসেবে, নিজের গোঁড়ামির বোঝা হিসবে ভিত্তিহীন সংবাদকে একধাপ এগিয়ে রাখি । আমরা নিজের চিন্তার পরিধি ব্যাপক আকারে না করে সংকীর্ণ করে ফেলি যা সংকটসময় অবস্থার সৃষ্টি করে।
একটি নতুন ব্র্যান্ড স্লোগান ও নতুন নতুন বিশেষজ্ঞ আমাদেরকে কী বলে? কোন তথ্য যে বস্তুনিষ্ঠ সেটা প্রমাণের উৎস কী? কোন পূর্ব অভিজ্ঞতা আমাদেরকে বুঝতে সাহায্য করে যা আমাদের মন মানসিকতার পরিবর্তন করতে পারে, নিজেকে ভাল করে জানতে সাহায্য করে এইসব অভিজ্ঞতা পরবর্তী সময়ে ব্যবহার করতে পারলে আসল ও নকল যাচাইবাছাই করা সম্ভব। ।
• দৃষ্টিকোণ — অন্য কারও পয়েন্ট থেকে পৃথিবীকে দেখা — অন্য কৌশলকে সেরা ভাবা । আমরা কোন নিউজকে পর্যায়ক্রমে পরীক্ষা না করে তা সেরা মনে করে ইচ্ছাকৃতভাবে নিজেকে কমফোর্ট জোনের বাইরে রেখে দেই। অতিমাত্রায় পরনির্ভরশীলতার দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে হবে।
• সময়ের সাথে বদলে যাওয়ার প্রতিযোগিতা- মানুষের সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ নয় বরং সময়, যা আমাদের মনোযোগ কাড়ে না । তাই বাস্তব সময়ে বাস্তব চিন্তা সম্পর্কে সিলেক্টেড হওয়া গেলে সময়ের সাথে সহাবস্থান সম্ভব।
• ফেক নিউজের সারা দুনিয়ায় ছড়িয়ে থাকলেও তথ্য-প্রমাণের দিকে সঠিক দিকটাতে থাকার নৈতিক ও অনেকগুলো দায়িত্ব আমাদের। কোন ট্যাপকে ভয় না পেয়ে আমাদের যুক্তি এবং আবেগের সংমিশ্রণ প্রয়োজন। সমাজের সবক্ষেত্রে দায়িত্বশীলতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে পারলে ফেইক নিউজের ফাঁদ থেকে পরিত্রাণ পাওয়া সম্ভব।
• পরিশেষে, কঠিন বৈজ্ঞানিক প্রমাণের মধ্যেও কোন সংবাদ বস্তুনিষ্ঠতা ও উৎকৃষ্টমানের হয় যখন তা ভালোভাবে উপস্থাপন করা হয়। প্রশ্ন "সামাজিক দায়বদ্ধতা কার ? একটি শিল্পকে গণশ্রোতাদের জন্য সঠিকভাবে উপস্থাপন সমাজ ও ব্যক্তি জীবনে বিশাল ভূমিকা রাখতে পারে। মনে রাখা প্রয়োজন হৃদয় থেকে স্বতঃস্ফূর্ত ভাষণ প্রতিবারই লিখিত স্ক্রিপ্টকে হারিয়ে দেয়।

সূত্র --
১) দ্যা গার্ডিয়ান - ১২ জুলাই ২০১৬, We are living in a post truth era.
২) দ্যা ফরবস, প্রফেসর জুলিয়ান বারক'শ, তারিখ ২২.০৫.২০১৭..The post truth world -why have we had enough of expert.
সর্বশেষ এডিট : ০৩ রা অক্টোবর, ২০১৯ রাত ৮:৫৭
১৫টি মন্তব্য ১৫টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

ব্যাঙের বিয়ে [শিশুতোষ ছড়া]

লিখেছেন ইসিয়াক, ২২ শে অক্টোবর, ২০১৯ ভোর ৫:৫৬


কোলা ব্যাঙের বিয়ে হবে
চলছে আয়োজন ।
শত শত ব্যাঙ ব্যাঙাচি
পেলো নিমন্ত্রণ ।।

ব্যাঙ বাবাজী খুব তো রাজী ,
বসলো বিয়ের পিড়িতে
ব্যাঙের ভাইটি হোঁচট খেলো,
নামতে গিয়ে সিড়িতে ।... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্রিয় অগ্রসর তরুণ প্রজন্মকে 'খোলাচিঠি'

লিখেছেন , ২২ শে অক্টোবর, ২০১৯ সকাল ৮:৫৮


প্রিয় অগ্রসর তরুণ প্রজন্ম,

তোমরা যারা ডিজিটাল যুগের অগ্রসর সমাজের প্রতিনিধি তাদের উদ্দেশ্যে দু'লাইন লিখছি। যুগের সাথে খাপ খাইয়ে ওঠতে অনেক কিছু আস্তাকুঁড়ে ফেলতে হয়। সেটা কেবলই যুগের দাবি, চেতনার চালবাজি... ...বাকিটুকু পড়ুন

পত্রিকা পড়ে জেনেছি

লিখেছেন রাজীব নুর, ২২ শে অক্টোবর, ২০১৯ দুপুর ১:২৮



খবরের কাগজে দেখলাম, বড় বড় করে লেখা ‘অভিযান চলবে, দলের লোকও রেহাই পাবে না। ভালো কথা, এরকমই হওয়া উচিত। অবশ্য শুধু বললে হবে না। ধরুন। এদের ধরুন। ধরে... ...বাকিটুকু পড়ুন

শেখ হাসিনার ভারত ভ্রমণ নিয়ে অপ-প্রচারণার ঝড়

লিখেছেন চাঁদগাজী, ২২ শে অক্টোবর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:১০



বাংলাদেশের প্রতিবেশী হচ্ছে ২টি মাত্র দেশ; এই ২টি দেশকে বাংগালীরা ভালো চোখে দেখছেন না, এবং এর পেছনে হাজার কারণ আছে। এই প্রতিবেশী ২ দেশ বাংলাদেশকে কিভাবে দেখে? ভারতর... ...বাকিটুকু পড়ুন

কবিতা -মেলা

লিখেছেন পদাতিক চৌধুরি, ২২ শে অক্টোবর, ২০১৯ রাত ৯:০৭







উপরে মূল কবিতার স্ক্রিনশট:-

মেলায় এসেছে খুশি এনেছে নিজের সঙ্গে,
বেরোও সবাই ঘর থেকে বসে আছো কেন ঘরে?
মেলার দিনে সবাই থাকে আনন্দে... ...বাকিটুকু পড়ুন

×