somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

আমার পরিচয়

জানিনা কি লিখতে চাই,কি বা বলতে চাই,কত শত অব্যক্ত কথনগুমরে মরে হৃদয়ের কারাগারে .....

আমার পরিসংখ্যান

শেহজাদী১৯
quote icon
আমি যে আঁধারের বন্দিনী আমারে আলোতে নিয়ে যাও
আমার সকল পোস্ট (ক্রমানুসারে)

ঈদ মুবারাক

লিখেছেন শেহজাদী১৯, ১৪ ই মে, ২০২১ রাত ১:২৬



সবাইকে জানাই ঈদের শুভেচ্ছা। রমজানের স্মৃতির মত চেয়েছিলাম ঈদ স্মৃতি নিয়েও কিছু লিখবো। কিন্তু হয়নি লেখাটা। তবুও এই চাঁদ রাতে মনে পড়ে মেহেদীর লাল টকটকে হাতে সেই অপরুপ গন্ধ নিয়ে ঘুমিয়ে পড়া। সকালে উঠে সবার আগে চেক করা মেহেদীর রং গাঢ় হলো তো???

মা যথারীতি রান্নাঘরে। সেমাই আর... বাকিটুকু পড়ুন

২৫ টি মন্তব্য      ২০১ বার পঠিত     like!

ওল্ড হোম- পর্ব ১

লিখেছেন শেহজাদী১৯, ০৭ ই মে, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:৫৩



সমাজে বৃদ্ধ বৃদ্ধারা বড় অসহায়। এক কালের সংসারের জোয়াল কাঁধে নিয়ে দৌড়ে বেড়ানো মানুষটি বুঝি বয়সের ভারে হয়ে পড়ে সংসারের অপাংতেয়। পুরুষেরা তবুও নানাবিধ সমাজ সেবা বা নিজের মত করে সময় বের করে নিয়ে নানা কাজে অবসর কাটিয়ে থাকেন। কিন্তু মহিলাদের জন্য ব্যপারটি খুব একটা সহজ নয়। তারা... বাকিটুকু পড়ুন

১২ টি মন্তব্য      ১৩৮ বার পঠিত     like!

অকথ্য অশ্রাব্য ভাষন ও নর্দমার কীট

লিখেছেন শেহজাদী১৯, ০৪ ঠা মে, ২০২১ রাত ১০:৫০

আমি মুনিয়ার আত্মহননের ঘটনা নিউজে দেখেছি। ফেসবুক ইউটিউব এবং পত্রিকার পাতাতেও পড়েছি। মুনিয়ার ইনোসেন্ট লুক শুভ্র চেহারা কিন্তু বিষাদে ভরা চোখ দুটির দিকে চেয়ে ভেবেছি কোথায় ভুল ছিলো? কোন ভুলে এমন মৃত্যুফাঁদে পা দিলো মেয়েটি? অনেকেই অনেক কথাই বলছেন, মেয়েটার গাইডেন্সে ভুল ছিলো, মেয়েটার পরিবার তাকে সাপোর্ট... বাকিটুকু পড়ুন

১৪ টি মন্তব্য      ১৯৪ বার পঠিত     like!

রমজানের স্মৃতিময় শৈশব কৈশোর এবং বর্তমান

লিখেছেন শেহজাদী১৯, ০৩ রা মে, ২০২১ দুপুর ১:৫১


দূয়ারে উঁকি দিচ্ছে ঈদ। এই ঈদ এবং রমজান নিয়ে প্রতি বছরেই মনে পড়ে আমার সোনালী শৈশব। সাথে কৈশোরের ঈদ এবং ইফতার সন্ধ্যাগুলিও। শৈশবে রোজা মানেই ছিলো বাড়তি এক গাদা সান্ধ্যকালীন নাস্তা টাইপ খাবারের আনন্দ যা শিশু হৃদয়ে দোলা জাগাতো। এখনকার বাচ্চাদের মত তো বার্গার কে এফসি দেখিনি আমরা... বাকিটুকু পড়ুন

৫০ টি মন্তব্য      ৩৫৩ বার পঠিত     like!

জগিং পোস্ট -একটি প্রশ্ন

লিখেছেন শেহজাদী১৯, ০২ রা মে, ২০২১ রাত ৯:৫৭


সমাজ ও সংসারে বৃদ্ধ মানুষেরা যেন বড়ই অপাংতেয়। একদিন যে মানুষটি দিবারা্ত্র অষ্টপ্রহর সংসারের জোয়াল কাঁধে বয়ে নিজের সুখ দুঃখ আনন্দ বেদনা বিসর্জনে সংসারের সকলের জন্য খেঁটে চলে, শেষ বয়সে এসে তাকেই হয়ে যেতে হয় সমাজ সংসার বা পরিবারের বোঝা।সকলেই ভবিষ্যৎ নিয়ে হবে। ছোটকালে জানতে চাওয়া হয় এইম ইন... বাকিটুকু পড়ুন

৪০ টি মন্তব্য      ৩৭৯ বার পঠিত     like!

ওল্ড হোম - ৮

লিখেছেন শেহজাদী১৯, ০১ লা মে, ২০২১ বিকাল ৩:০৬


আয়েশা বেগমের ঘরের সাথে লাগোয়া বারান্দাটা যেন ইদানিং তার বড় প্রিয় সঙ্গী হয়ে পড়েছে। সকাল সন্ধ্যা এখানে বসে স্মৃতি রোমন্থনে বেশ সময় কাটে তার। এই স্মৃতিতে কখনও থাকে আনন্দ কখনও থাকে বিষাদ। ক্রমে ক্রমে বেলা গড়িয়ে সায়হ্নে এসে ঠেকেছে। পরের মাসে ৮১ হবেন তিনি। তবে বয়সের... বাকিটুকু পড়ুন

৩০ টি মন্তব্য      ২২৮ বার পঠিত     like!

ওল্ড হোম ৭

লিখেছেন শেহজাদী১৯, ২৭ শে এপ্রিল, ২০২১ রাত ১১:৪৪


আয়েশা বেগমের আজকাল বড় বেশী মনে পড়ে ফেলে আসা দিনগুলোর কথা। ছেলে মেয়ে নিয়ে তার ভর ভরন্ত সংসার, আত্মীয় স্বজন, বন্ধু বান্ধব, পাড়া প্রতিবেশী নিয়ে এক মুহূর্ত নিশ্বাস ফেলবার সময় ছিলো না তার। এক হাতে সব সামলেছেন তিনি। রান্না বান্না, অতিথি আপ্যায়ন, বিয়ে শাদী, লেডিজ ক্লাবের অনুষ্ঠান। এক... বাকিটুকু পড়ুন

০ টি মন্তব্য      ২৪ বার পঠিত     like!

ওল্ড হোম ৬

লিখেছেন শেহজাদী১৯, ২৬ শে এপ্রিল, ২০২১ রাত ৮:৩৫


শেষ পর্যন্ত নানা অনুযোগ অভিযোগের পরে ভাই আসবেন বলে কথা দিলেন। মানে এ ক'টা দিন মেয়ের বাসায় কাটিয়ে কাল ফিরে যাবেন তাই আজ দেখা করতে আসছেন। আয়েশা বেগম সকাল থেকেই তাই আজ বড়ই ব্যাতিব্যাস্ত। ছুটির দিন বলে বৌমা সকাল ন'টা পেরিয়ে ১০টা বাঁজতে চললো তবুও ঘুম থেকে ওঠার নাম... বাকিটুকু পড়ুন

২ টি মন্তব্য      ৩১ বার পঠিত     like!

ওল্ড হোম- ৫

লিখেছেন শেহজাদী১৯, ২৬ শে এপ্রিল, ২০২১ দুপুর ১:০৮


সাত সকালে রান্না ঘরে ঢুকে ভূত দেখার মত আৎকে উঠলেন আয়েশা বেগম। কিচেনে মোটা তাজা হলুদ তেলে ভরা দুটি হৃষ্টপুষ্ট হাঁস পড়ে রয়েছে। কে আনলো? কোথা থেকে আনলো? কার জন্য আনলো? কি করতে আনলো? নানা প্রশ্ন খেলতে শুরু করলো তার মাথায়। তাড়াতাড়ি সার্ভেন্টস রুমে গিয়ে দেখেন নাসিমা-আসমা দুই বান্ধবী... বাকিটুকু পড়ুন

০ টি মন্তব্য      ২২ বার পঠিত     like!

ওল্ড হোম ৪

লিখেছেন শেহজাদী১৯, ১৭ ই অক্টোবর, ২০১৯ রাত ১০:৩৯


আয়েশা বেগম করিমুলকে দিয়ে হাঁস আনিয়েছেন। আনিয়েছেন কবুতরও। করিমুল বর্তমানে এই বাড়ির একমাত্র ড্রাইভার। আগে অবশ্য দুই জন ছিলো। এক বউ এর জন্য আরেক উনার জন্য। আর ছেলে তো নিজের গাড়ি নিজেই ড্রাইভ করে। কাউকেই হাত দিতে দেয় না সে তার গাড়িতে। বউ এর ইদানিং শখ হয়েছে, নিজেই ড্রাইভ করছেন... বাকিটুকু পড়ুন

১২ টি মন্তব্য      ১০২ বার পঠিত     like!

ওল্ড হোম-৩

লিখেছেন শেহজাদী১৯, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:৪৫


মেয়ে আসবেন ডিসেম্বরে। অথচ এখন থেকেই আয়েশা বেগমের চোখে ঘুম নেই। এখন সেপ্টেম্বর। এখন থেকেই শুরু করেছেন যোগাড় যন্তর। বসে বসে তালিকা করেন তিনি, হাঁস, মুরগী, গরু, ছাগল এসব তো আছেই সাথে নানা রকম অর্গানগুলো যেমন খাসীর কলিজা, খাসীর ভুড়ি, গরুর মগজ, জিহ্বা এবং লেজের স্টু। কি যে... বাকিটুকু পড়ুন

৬ টি মন্তব্য      ৬১ বার পঠিত     like!

ওল্ড হোম - ২

লিখেছেন শেহজাদী১৯, ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:৩১


আয়েশা বেগম বসে বসে ভাবেন তার পুরোনো দিনের কথা। সেসব দিনের তার স্বায়ত্ব শাসন চালিত সংসার আর স্বামীর কথা ভেবে দু'ফোটা চোখের জলও ফেলেন তিনি। কম করেছেন তিনি? এই যে তার ছোট বোন যেবার বাড়ি থেকে পালিয়ে গেলো। বাবা কিছুতেই তর পালিয়ে বিয়ে করাটা মেনে নিচ্ছিলেন না। সে সময়... বাকিটুকু পড়ুন

৪ টি মন্তব্য      ৬২ বার পঠিত     like!

ওল্ড হোম

লিখেছেন শেহজাদী১৯, ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:০৩


আয়েশা বেগম ঘোষনা দিয়েছেন তিনি ওল্ড হোমে চলে যাবেন। এ সংসারে ঢের হয়েছে। এখানে আর নয়। হাজার অনুরোধেও তাকে আর ফেরানো যাবেনা। কিছুতেই মাথা কুটে কেউ মরলেও এখানে আর থাকবেন না তিনি। এত অশান্তি, এত অত্যাচার, তার উপর প্রতিনিয়ত চলা এত সব অপমান সয়ে থাকবার বান্দা তিনি নন। ছেলের... বাকিটুকু পড়ুন

১৪ টি মন্তব্য      ৮৭ বার পঠিত     like!

অবাক মানচিত্র ও আমার পিতামহী

লিখেছেন শেহজাদী১৯, ২৫ শে মে, ২০১৯ সকাল ১০:৩৪



প্রায়ই আমি আমার দাদীর মুখোমুখি গিয়ে বসি। এই বসে থাকার কারণটা আসলে একটু অন্যরকম। সংসারের কাজে সদাব্যস্ত আমার মা তার সকল ডিউটি পালন করে চলে পরম নিষ্ঠায়। সকালে উঠে তার প্রথম কাজ থাকে দাদীর জন্য সাগু তৈরী করা। এরপর তাকে ধুইয়ে মুছিয়ে খাইয়ে দিয়ে চলে তার অন্যন্য সকল কর্মগুলি। স্কুল... বাকিটুকু পড়ুন

৪ টি মন্তব্য      ৫৭ বার পঠিত     like!

শতবর্ষী বৃক্ষ ও আমার পিতামহী

লিখেছেন শেহজাদী১৯, ২১ শে মে, ২০১৯ রাত ৮:৪৭



আমার দাদীকে দেখলেই আমার শতবর্ষী বৃক্ষের কথা মনে পড়ে। তার কুঞ্চিত ঝুলে পড়া চামড়ার ভাঁজে ভাঁজে কালশিটে দাগ আর হাতের গাঁট ও পায়ের পাতার রুক্ষ কঠিন কড়াগুলো দেখে তাকে আমার বহু বছর অযত্নে অবহেলায় ঝড়ঝাপ্টা সামলে অবিচল দাঁড়িয়ে থাকা কোনো মহীরূহের মতনই মনে হয়। মহীরূহ যেমন অনঢ় অটল স্থির... বাকিটুকু পড়ুন

২০ টি মন্তব্য      ১৪৫ বার পঠিত     like!
আরো পোস্ট লোড করুন
ব্লগটি ২২৬৯ বার দেখা হয়েছে

আমার পোস্টে সাম্প্রতিক মন্তব্য

আমার করা সাম্প্রতিক মন্তব্য

আমার প্রিয় পোস্ট

আমার পোস্ট আর্কাইভ