somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

উত্তরণের পূর্বশর্তঃ সংকটের কথা "স্বীকার" করা!

২২ শে এপ্রিল, ২০২০ সকাল ৭:১১
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

কায়িক পরিশ্রমের উপর নির্ভরশীল আমাদের দেশের বৃহৎ জনগোষ্ঠী; যাদের কিছু কাজ করে নির্মাণখাতে, কিছু উৎপাদন খাতে, কিছু পরিবহন খাতে, কিছু কৃষি খাতে, বাকি কিছু সেবা খাতে।

করোনা চলে যাওয়ার পরেও, ব্যক্তিগত বা সরকারি/বেসরকারি উন্নয়নকাজ/নির্মাণকাজ অনেকদিন বন্ধ থাকবে পুঁজির অভাবে, এবং প্রয়োজনীয় না হওয়ার কারণে। ফলে ঐ শ্রমজীবিরা কাজ পাবে না।

উৎপাদনখাতের মধ্যে দুই শ্রেণীর পণ্য- এক শ্রেণীতে কম মানবসম্পদ লাগে (বেশির ভাগই স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতি), আরেক শ্রেণীতে বেশি মানবসম্পদ লাগে (যেমন তৈরি পোশাক খাত)। করোনার কারণে দেশে বা বিদেশে মানুষের বিলাসিতার সুযোগ একেবারেই থাকবে না। পোশাকের চাহিদা না থাকার কারণে বায়ার কিনবে না, এবং কারখানাও বন্ধ থাকবে। ফলে ঐ শ্রমিকেরাও কাজ পাবে না।

পরিবহন খাত হয়তো বা ধীরে ধীরে সচল হবে। তবে এই ক্ষেত্রেও এই বছরের একেবারে শেষ পর্যন্ত অস্থিরতা থাকবে। ভুলে গেলে চলবে না, করোনার সবচেয়ে মারাত্মক অবস্থায় বাংলাদেশ এখনো পৌঁছায়নি।

একমাত্র কৃষি পেশাজীবি ও শ্রমিকরাই করোনা চলাকালীন ও করোনা পরবর্তী সময়ে সমানভাবে সচল থাকবে; যদি না করোনা আক্রান্ত ও মৃত্যুর কারণে সংখ্যায় পরিবর্তন না আসে। সেক্ষেত্রে কৃষিকাজে অন্যদের নিয়োগ করা হবে (ইতিমধ্যে হয়েছে)। খাদ্যের চাহিদা মানুষের মূল মৌলিক চাহিদা। যুদ্ধ, মহামারি যাই হোক না কেন, মানুষের মৃত্যুর আগ পর্যন্ত, এবং পৃথিবী ধ্বংসের আগ পর্যন্ত খাবারের চাহিদা থাকবে। অতঃপর, খাবার উৎপাদনের সাথে জড়িতদের আয়ে কখনো ভাটা পরবে না।

দুর্ভাগ্যবশতভাবে, বাংলাদেশ রাষ্ট্রীয়ভাবে এবং সামাজিকভাবে কৃষিকে জীবিকা হিসেবে সমর্থন করে না, পৃষ্ঠপোষকতা করে না। সেবাখাতকে (উদাহরণঃ রেস্টুরেন্ট, হোটেল, ইত্যাদি) বরং প্রয়োজনের চেয়ে বেশি প্রাধান্য দিয়ে আসা হয়েছে। হোয়াইট কলার জবের চাহিদা মেটাতে হোক, ফার্মের মুরগীর মত গ্র্যাজুয়েট উৎপাদনকারী ভার্সিটিব্যবসায়ীদের প্রোডাক্টের চাহিদা মেটাতে হোক, কিংবা শিল্পপতি/পুঁজিপতিদের সম্পদকে আরো বাড়াতে হোক, দেশে ব্যাংকের পর ব্যাংক গড়ে উঠেছে ব্যাঙ এর ছাতার মত। দেশের শিক্ষিত জনগোষ্ঠীর এই বিশাল অংশকে উৎপাদনমুখী কোন খাতে ব্যবহার না করার কারণে মহামারি ও মন্দার মত দুঃসময়ে দেশের অর্থনীতিতে এরা বা এদের চাকরিদাতা ব্যাংকগুলি কোন ভূমিকাই রাখতে পারবে না।

শিক্ষা ও চিকিৎসা আর মৌলিক চাহিদা থাকেনি। বাসস্থান আর অন্ন-বস্ত্রের মত তারাও ব্যবসার বস্তুতে পরিণত হয়েছে অনেক অনেক আগে। এই ৫টার সবকয়টা নিয়ন্ত্রণ করে যাচ্ছে একাধিক সিন্ডিকেট, যাদের সাথে কোন পেশা বা দলের কোন সম্পর্ক নেই, তারা সবকিছুর উর্ধ্বে। রাজনীতিবিদেরা সবসময় নিজেদের স্বার্থে- কখনো এদেরকে ব্যবহার করেছে, কখনো এদের দ্বারা ব্যবহৃত হয়েছে।

আর, সরকারের মুখপাত্র হয়ে আসা পেশাজীবিরা (অবসরপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় ব্যাংক গভর্ণর, কিংবা পেশায় ডাক্তার কিন্তু ক্ষমতাবলে মেম্বার অব পার্লামেন্ট) সবসময় জোরপূর্বক আশার বাণী শুনিয়েছেন, প্রশংসাকে গ্রহণ আর নিন্দা বা সমালোচনাকে বর্জন করেছেন, অতীতের সরকারদের দোষারোপ করে গিয়েছেন, অতীতের ঘটনাকে দায় দিয়ে গিয়েছেন।

সবচেয়ে অবাক করার মত ঘটনা, যে বা যারা এই করোনার আগেও দেশকে বা দেশের বিভিন্ন স্থানকে সিঙ্গাপুর, কানাডা, আমেরিকার মত দেশগুলির সাথে বিভিন্নভাবে তুলনা করতেন, তারাই করোনা পরবর্তী আলোচনায় নির্লজ্জ-বেহায়ার মত বলে উঠেন- "দেশ তো আর একদিনে আমেরিকা-ইতালির মত হতে পারবে না!"

অর্থনীতি হোক, সামাজিক হোক, রাজনৈতিক হোক, কিংবা লাশের সংখ্যা গণনাতে হোক, বাংলাদেশের সবার এখন জানা উচিত- Brace yourself for the worst now. সামনে আসছে ভয়াবহ দুর্দিন। এই ভয়, এই সচেতনতা, এই তাগিদ যদি আরো আগে আসতো, তাহলে বাংলাদেশ আজকের এই দুরবস্থায় থাকতো না। এতদিন যদি "উন্নয়নের জোয়ারের দিবাস্বপ্ন" গুলে খাওয়ানো না হতো, সবকিছুতে মিথ্যা আশ্বাস দেওয়া না হতো, জোরপূর্বক সব অসঙ্গতি লুকিয়ে রাখা না হতো, তাহলে দেশটা আজকে অন্যরকম ভালো অবস্থানে থাকতো।
সর্বশেষ এডিট : ২২ শে এপ্রিল, ২০২০ সকাল ৯:০৬
৬টি মন্তব্য ১টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

রাত পাঁচ (নাকি সকাল!) ঘটিকায় ব্লগে আমি ও অনলাইনে আছেন!!!

লিখেছেন অজ্ঞ বালক, ০৭ ই মার্চ, ২০২১ ভোর ৬:০২

কি করা যায়? সাধারণত এরকম সময়ে নির্বাচিত ব্লগই পড়া হয়! কিন্তু আজ নির্বাচিত ব্লগ পড়তে ইচ্ছা করছে না, আসলে তার উপায়ও নেই। নির্বাচিততে শেষ আপডেট হয়েছিলো গ্যাস্ত্রিকোর ব্লগটা, ফেব্রুয়ারির বাছাই... ...বাকিটুকু পড়ুন

'যদি' কথন

লিখেছেন স্থিতধী, ০৭ ই মার্চ, ২০২১ সকাল ৭:৩৩



শর্ত, অনিশ্চয়তা, আকাঙ্খা , সম্ভাবনা, বিকল্প ভাবনা; এমন অনেক কিছুর প্রকাশবাহী একটা ছোট শব্দ “ যদি”। এই “যদি” এর শর্তে আমরা অনুপ্রাণিত হই আবার থমকেও যাই।... ...বাকিটুকু পড়ুন

বিনম্র শ্রদ্ধা জানাই তোমায়, তোমারি জন্ম শতবর্ষে ।

লিখেছেন সেলিম আনোয়ার, ০৭ ই মার্চ, ২০২১ সকাল ১১:৪৮



ভেবে ভেবে অবাক হতে হয়
কীর্তি তোমার স্বাধীন বাংলাদেশ—সারা বিশ্বের বিষ্ময়!
এমন তরো স্বপ্নের বাস্তবায়ন
কেহ আগে কী পেরেছে অথবা পারবে? পারবে না নিশ্চয়
তোমার কারণেই স্বাধীন বাংলার লাল—সবুজ পতাকা... ...বাকিটুকু পড়ুন

গল্পঃ বেলা অবেলা

লিখেছেন ইসিয়াক, ০৭ ই মার্চ, ২০২১ দুপুর ১২:৫৯

[১]
অনেকক্ষণ ধরে ডোরবেল একটানা বেজে চলেছে। বাথরুম থেকে তো জুলেখা ঠিকই শুনতে পাচ্ছেন আর কেউ শুনতে পারছে না নাকি!
তুতুল কি করছে কে জানে? এই দুপুর বেলা পড়ে পড়ে ঘুমুচ্ছে হয়তো।
আর... ...বাকিটুকু পড়ুন

ইসলামী বয়ানে ৭ মার্চের ভাষণ

লিখেছেন সাইফুল ইসলাম৭১, ০৭ ই মার্চ, ২০২১ দুপুর ২:৫৮


ইসলাম শুধু একটা ধর্ম নয় বরং ঈমানদারদের জন্য একটি সর্বাঙ্গীন জীবন বিধান। তাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষণে ইসলামের কার্যকরী প্রভাব রয়েছে। আজ আমরা সেই অদেখা ভুবন... ...বাকিটুকু পড়ুন

×