somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

কান্ডারি অথর্ব
আমি আঁধারে তামাশায় ঘেরা জীবন দেখেছি, আমার বুকের ভেতর শূণ্যতা থেকে শূণ্যরা এসে বাসা বেঁধেছে, আমি খুঁজেছি তোমাকে সেই আঁধারে আমার মনের যত রঙ্গলীলা; আজ সাঙ্গ হতেছে এই ভবের বাজারে।

সডোম ও গোমরাহঃ লুত সম্প্রদায়ের উপর আজাব এবং সমকামীতা

১৯ শে মে, ২০১৩ রাত ১:১৪
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :





সকল নবী-রাসূলই এক সৃষ্টিকর্তার উপাসনা করার আহ্বান জানিয়েছেন। যারা নবী-রাসূলদের আহ্বানে সাড়া দিয়ে আল্লাহর প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করেছে তারাই নিজেকে পরিশুদ্ধ করতে সক্ষম হয়েছে। এ ধরণের ঈমানদার মানুষ সব সময় সমাজের কল্যাণের কাজেই নিজেকে নিয়োজিত রাখে। আল্লাহর এবাদত বলতে শুধু নামাজ, রোযা বা দোয়া দরুদই বুঝায় না মানুষের ব্যক্তিগত ও সামাজিক জীবনে আল্লাহর বিধান মেনে চলা, আল্লাহ প্রদত্ত আইন বাস্তবায়ন করা এবাদতের অন্তর্ভুক্ত।



লুত (আ)ছিলেন হযরত ইব্রাহীম(আ)এর ভ্রাতুষ্পুএ।আল্লাহ সুবহানাতাআলা তাকে নবুয়ত দান করে জর্ডান ও বায়তুল মোকাদ্দাসের মধ্যবর্তী সাদূমের অধিবাসীদের পথ প্রদর্শনের জন্য প্রেরণ করেন।এখানকার ভূমি ছিল উর্বর ও সর্বপ্রকার শস্য ও ফলের প্রচুর্য ছিল।তারা ধনৈশ্বর্যের নেশায় মত্ত হয়ে বিলাস-ব্যসন,কাম প্রবৃত্তি ও লোভ লালসার জালে এমনভবে আবদ্ব হয়ে পড়ে যে,ভাল মন্দ,লজ্জা শরমের পার্থক্যও ভূলে যায়।তারা ছিল সমকামীতে বিশ্বাসী।পবিএ কোরআনে যিনা তথা ব্যভিচার এর চাইতেও এহেন কাজকে কঠোর অপরাধ বলা হয়েছে। সুরা আরাফের ৮০ ও ৮১ নং আয়াতে বলা হয়েছে:এবং আমি লুতকে প্রেরণ করেছি।যখন সে স্বীয় সম্প্রদায়কে বলল তোমরা কি এমন অশ্লীল কাজ করছ,যা তোমাদের আগে সারা বিশ্বের কেউ করেনি?তোমরা তো কামবশত পুরুষদের কাছে গমণ কর নারীদের ছেড়ে।বরং তোমরা সীমা ছাড়িয়েছ। এর জবাবে তারা পরষ্পর বলাবলি করতে লাগল এরা বড় পবিএ ও পরিছন্ন বলে দাবী করে।এদের চিকিত্সা এই যে,এদের বস্তি থেকে বের করে দাও।পরিস্হিতি এমন দাড়িয়ে ছিল যে,লুত(আ)ও তার ২টি কন্যা ছাড়া কেউ মুসলমান ছিল না।শেষে আল্লাহর শাস্তি তাদের জন্য অবধারিত হলো এভাবে-ফেরেশতারা প্রথমে মানব আকৃতিতে লুত(আ)এর গৃহে যান ও তার কন্যাদের সালাম দেন ও বলেন আমরা বিদেশী মুসাফির ও আজ রাত এখানে থাকতে চাই।লুত(আ)ইবাদতে ব্যস্ত ছিলেন।ইবাদত শেষে তিনি দেখলেন,বার জন কম বয়সী দাড়িবিহীন সুদর্শন যুবক অপেক্ষমাণ।এবার তিনি শংকিত হলেন,আল্লাহ না করুন,এ সম্পরদায়ের লোকেরা যদি মেহমানদের সাথে অশোভন কোন আচরণ করে বসে!সুরা হুদে ৭৭-৭৮ নং আয়াতে আল্লাহ বলেন’’এবং আমার প্রেরিত ফেরেশতা লুতের নিকট পৌছিল,তাদের আগমনে তিনি শংকিত,বললেন,আজকের দিনটি বড়ই কঠিন ও লুতের কওম হন্তদন্ত হয়ে দৌড়ে তাদের কাছে এল,এরা পূর্ব থেকেই দুষ্কর্র্মশীল কওম।’’ লুত (আ)এর বধু ছিল কাফের। সে কওমের কাছে এই মেহমানদের সংবাদ জানিয়ে দিয়েছিল।যথারীতি ওরা হাজির হল ও মেহমানদেরকে তাদের হাতে তুলে দেওয়ার দাবী করল। লুত(আ)যখন দেখলেন,তাদেরকে প্রতিরোধ করা দুষ্কর তখন তিনি সর্দারদের নিকট স্বীয় কন্যাদের বিবাহের প্রস্তাব দেন ও আল্লাহকে ভয় করতে বলেন।কিন্ত তারা মেহমানদেরই দাবী করল।পাপিষ্ঠরা দেয়াল টপকে ভিতরে প্রবেশ ও কপাট ভাংতে যখন উদোগী হল তখন ফেরেশতারা তাদের আসল পরিচয় প্রকাশ করলেন লুত (আ)এর কাছে এবং দরজা খুলে দিতে বললেন। হযরত জীবরাঈল(আ)তার পাখার ঝাপতা দিলেন।ফলে ওরা অন্ধ হয়ে গেল ও ভাগতে লাগল। তখন ফেরেস্তাগণ আল্লাহর নির্দেশে লুত(আ)কে বললেন-আপনি কিছুটা রাত থাকতে লোকজনসহ এখান থেকে অন্যএ সরে যান ও সবাইকে সতর্ক করে দেন যে,তাদের কেউ যেন পিছনে না তাকায়,তবে আপনার নিজ বধু ব্যতীত।কারণ অন্যদের মত তাকেও আযাব গ্রাস করবে।সুরা হিজরের আয়াতে এ আযাবের বর্ণনার পুর্বে বল হয়েছে:সুর্যোদয়ের সময় বিকট নাদ তাদেরকে পাকরাও করল।সুরা হুদে ৮২-৮৩নং এ বলা হয়েছে:যখন আমার আযাব এসে গেল,তখন আমি বস্তিটিকে উল্টে দিলাম ও তাদের উপর স্তরে স্তরে প্রস্তর বর্ষণ করলাম যা আপনার প্রতিপালকের কাছে চিহ্নযুক্ত ছিল।সে বসতিটা এ কাফেরদের থেকে বেশীদুরে নয়।তফসিরকারীরা বলেন প্রত্যেক পাথরে ঐ ব্যক্তির নাম লিখিত ছিল,যাকে খতম করার জন্যে পাথরটি নিক্ষিপ্ত হয়েছিল। বর্ণিত আছে,জীবরাইল(আ)তার পাখা যমীনের তলদেশে প্রবিষ্ট করত এমনভাবে মহাশুন্যে উত্তোলন করলেন যে,সবকিছু নিজ নিজ স্হানে স্হির ছিল।এমনকি পানি ভর্তি পাএ হতে এক বিন্দু পানিও পড়ল না।তখন পশু ও মানুষের বিকট ধ্বনি ভেসে আসছিল।তারপর ঐসব জনপদকে উল্টিয়ে যথাস্হানে নিক্ষেপ করা হল।(পৃষ্টা নং৬৪০)সুরা আরাফে ৮৪ নং আয়াতে আল্লাহ বলেন:অতএব দেখ,গোনাগারদের পরিণতি কেমন হয়েছে।’’ আজও এ ভুখন্ডটি লুত সাগর বা ডেড সী বা মৃত সাগর নামে পরিচিত।এর ভুভাগ সমুদ্র পৃষ্ঠ থেকে অনেক নীচে অবস্হিত।এর একটি বিশেষ অংশে নদীর আকারে আশ্চর্য ধরণের পানি বিদ্যমান।এ পানিতে কোন মাছ,ব্যাঙ জীবিত থাকতে পারে না।এমনকি কোন মানুষ সেই পানিতে ডুবেও না, বরং ভাসতে থকে।



কোরআনের ৭৯ থেকে ৮৩ নম্বর আয়াত পর্যন্ত আলোচনা করবো। প্রথমেই ৭৯ ও ৮০ নম্বর আয়াত নিয়ে আলোচনা করা যাক। এ দুটি আয়াতে বলা হয়েছে, অর্থাৎ "(লুত সম্প্রদায়) বললো, তুমি নিশ্চয়ই জান, তোমার কন্যাদের প্রতি আমাদের কোন আগ্রহ নাই, আমরা কি চাই তা তুমি ভালোভাবেই জান। হযরত লুত (আঃ) বললেন, হায় তোমাদের উপর যদি আমার শক্তি থাকতো অথবা আমি কোন সুদৃঢ় আশ্রয় গ্রহণ করতে সক্ষম হতাম।"



এই আয়াতেও লুত (আঃ) এর সম্প্রদায়ের বিকৃত মানসিকতার বর্ণনা দেয়া হচ্ছে এবং তাদের পরিণতির কথাও পরে ব্যক্ত করা হবে। ঘটনাটি ছিল, কয়েকজন ফেরেশতা মানব আকৃতিতে হযরত লুত (আঃ)এর বাড়ীতে আসেন। হযরত লুত (আঃ) প্রথমে বুঝতে পারেন নি যে তারা ফেরেশতা। হযরত লুত (আঃ)এর বাড়ীতে কয়েকজন সুন্দর লাবণ্যময় চেহারার যুবক অবস্থান করছে এই খবর ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে, কওমে লুতের লোকেরা তাদের অবৈধ ও বিকৃত যৌন লিপ্সা চরিতার্থ করার জন্য পয়গম্বরের বাড়ীর চারদিকে ভীড় জমায়। আল্লাহর নবী হযরত লুত (আঃ) অনন্যোপায় হয়ে তাদেরকে বললেন, আমি আমার কন্যাদেরকে তোমাদের সাথে বিয়ে দিতে পারি। কিন্তু এই যুবকদেরকে তোমাদের কাছে কখনও সোপর্দ করবো না। হযরত লুত (আঃ)এর আহ্বান প্রত্যাখ্যান করে কওমে লুতের লোকেরা বলেছিল, তুমি তো ভালো করেই জানো যে, তোমার কন্যাদের প্রতি আমাদের কোন আগ্রহ নেই। আমরা চাই তোমার মেহমান যুবকদেরকে আমাদের কাছে হস্তান্তর করা হোক। এই অবস্থায় হযরত লুত (আঃ) আক্ষেপ করে বলেছিলেন, হায় আমার যদি শক্তি থাকতো বা মোমিন সহচর থাকতো তাহলে এই পাপাচারী জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে পারতাম।



এবারে সূরা হুদের ৮১ নম্বর আয়াত নিয়ে আলোচনা করবো। এ আয়াতে বলা হয়েছে, অর্থাৎ "ফেরেশতারা বললো, হে লুত ! আমরা তোমার প্রতিপালকের পক্ষ থেকে প্রেরিত ফেরেশতা। ওরা কখনই তোমার নিকট পৌঁছতে পারবে না। সুতরাং তুমি রাতের কোন এক সময়ে তোমার পরিবারবর্গসহ বেরিয়ে পড় এবং তোমাদের মধ্যে কেউ যেন পেছন দিকে না তাকায়। কিন্তু তোমার স্ত্রী যাবে না। তাদের যা ঘটবে তারও তাই হবে। প্রভাব তাদের জন্য নির্ধারিত কাল, প্রভাব কি নিকটবর্তী নয় ?"



হযরত লুত (আঃ) পাপাচারী জনগোষ্ঠীর চাপ ও হঠকারী আচরণে কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়েছিলেন। ফেরেশতারা তখন নিজেদের পরিচয় ও আগমনের উদ্দেশ্য খুলে বললেন ও পয়গম্বরকে উদ্বেগ থেকে রক্ষা করলেন। তারা হযরত লুত (আঃ) কে জানালেন খুব সকালেই আল্লাহর গজবে এই পাপাচারী সম্প্রদায় নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে, তাই তারা রাতের মধ্যেই পয়গম্বরকে তার পরিবারবর্গসহ শহর ত্যাগ করতে বললেন। তবে ফেরেশতারা এটাও জানালেন যে, হযরত লুত (আঃ)এর স্ত্রী আল্লাহর গজবের অন্তর্ভূক্ত হবে। কারণ তিনি পয়গম্বরকে সমর্থন না করে পাপিষ্ঠ জনগোষ্ঠীর পক্ষাবলম্বন করেছিলেন।

এই আয়াত থেকে এটা বোঝা যায় যে, পয়গম্বরের স্বজন বা পরিবারের সদস্য হওয়া মুক্তির মাপকাঠি নয়। ঈমান ও সৎকর্ম হচ্ছে মুক্তি লাভের একমাত্র উপায়। হযরত লুত (আঃ)এর স্ত্রী ঈমান না আনার কারণে পাপাচারী জনগোষ্ঠীর দলভুক্ত বিবেচিত হয়েছে।

এবারে এই সূরার ৮২ ও ৮৩ নম্বর আয়াত নিয়ে আলোচনা করবো। এই দুই আয়াতে বলা হয়েছে, অর্থাৎ "অত:পর যখন আমার আদেশ এল, তখন আমি নগরগুলোকে উল্টিয়ে দিলাম এবং তাদের উপর ক্রমাগত কংকর বর্ষণ করলাম। যা তোমার প্রতিপালকের নিকট চিহ্নিত ছিল। এই শাস্তি অন্যান্য সীমালঙ্ঘনকারীদের হতে দূরে নয়।"

এই দুই আয়াতে কওমে লুতের শেষ পরিণতির বর্ণনা দেয়া হয়েছে। প্রলয়ংকরী ভূমিকম্প এবং কংকর বর্ষণের ফলে লুত সম্প্রদায়ের গোটা জনপদ উলট-পালট হয়ে যায়। সব কিছুই ঐশী শাস্তিতে নিশ্চিহ্ন হয়ে পড়ে। পবিত্র কোরআনে এই ঘটনার বর্ণনার উদ্দেশ্য হলো মানবজাতিকে সতর্ক করে দেয়া। শুধু কওমে লুত নয়, যে কোন সম্প্রদায়, ব্যক্তি বা জাতি পাপের নির্দিষ্ট সীমানা অতিক্রম করবে, বিকৃতির তলানীতে গিয়ে ঠেকবে তাদেরও পরিণতি হবে কওমে লুতের অনুরুপ।

যখন আমার প্রেরিত ফেরেশতাগণ লুতের কাছে আগমন করল,
তখন তাদের কারণে তিনি বিষন্ন হয়ে পড়লেন এবং তার মন
তাদের (রক্ষার) ব্যাপারে সংকীর্ণ হয়ে গেল। তারা বলল, ভয়
করবেন না এবং দুঃখ করবেন না। আমরা আপনাকে এবং
আপনার পরিবার বর্গকে রক্ষা করবই। আপনার স্ত্রী ব্যাতীত, সে
ধ্বংসপ্রাপ্তদের অন্তর্ভুক্ত থাকবে। আমরা এই জনপদের
অধিবাসীদের ওপর আকাশ থেকে আজাব নাজিল করব তাদের
পাপাচারের কারণে। আমি (আল্লাহ) তাতে বুদ্ধিমান সম্প্রদায়ের
জন্যে একটি স্পষ্ট নিদর্শন রেখে দিয়েছি। (আনকাবুত, ২৯ :
৩৩-৩৫)

এই আয়াতসমূহে লুত আলাইহিস সালাম-এর সম্প্রদায়ের ওপর নাজিলকৃত
আযাবের উল্লেখ রয়েছে। তারা সমকামিতার মত জঘণ্য অপরাধে অভ্যস্ত
ছিল। ফলে আল্লাহু তাআলা তাদের জনপদকে সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস করে
দেন।

আয়াতগুলিতে স্পষ্ট নিদর্শন বলতে ‘সামুদ’ ও ‘গোমরাহ’ সম্প্রদায়ের
জনপদগুলির ধ্বংসাবশেষকে বুঝানো হয়েছে, যা সম্প্রতি মৃত সাগরের
কাছে আবিষ্কৃত হয়েছে। ভৌগলিকরা দেখতে পেয়েছেন, অঞ্চলটি প্রচুর
পরিমাণে গন্ধকে ভর্তি। ফলে সমগ্র অঞ্চলটিতে প্রাণী বা উদ্ভিদ কোনো
ধরনের জীবনের অস্তিত্ব নেই। পুরো এলাকা সর্বাঙ্গীন ধ্বংসের একটি
নিদর্শন হিসেবে দাঁড়িয়ে আছে। এভাবে এটি সকল যুগের মানুষের জন্য আল্লাহ্‌র
শাস্তির একটি উজ্জ্বল নিদর্শন হয়ে আছে। বলাবাহুল্য, নবী
সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কখনো অঞ্চলটি পরিদর্শন করেন নি।
জনপদগুলির ধ্বংসের তথ্য জানার মতো তার কোনো মাধ্যম ছিল।

আপনার প্রাণের কসম (হে নবী,) নিশ্চয় তারা (লুত সম্প্রদায়)
আপন নেশায় উদ্দেশ্যহীনভাবে ঘুরপাক খাচ্ছিল। অতঃপর
সূর্যোদয়ের প্রাক্কালে একটি বিকট আওয়াজ তাদেরকে পাকড়াও
করল। অতঃপর আমি (আল্লাহ) তাদের (সাদুম গোত্রের)
জনপদগুলিকে উল্টে দিলাম এবং তাদের ওপর বষর্ণ করলাম
পোড়ামাটির পাথর। নিশ্চয় এতে পর্যবেক্ষণকারীদের জন্য
নিদর্শনাবলি রয়েছে। আর নিশ্চয় তা (জনপদগুলি) রাজপথের
পাশেই বিদ্যমান। নিশ্চয় এতে ঈমানদের জন্য নিদর্শনাবলি
রয়েছে। (হিজর, ১৫ : ৭২-৭৭)

এই আয়াতগুলিতে কুরআন মাজিদ ধ্বংসপ্রাপ্ত জনপদগুলির অধিক সুনিশ্চিত
অবস্থানস্থলের নির্দেশনা প্রদান করে। এতে বর্ণিত হয়েছে সেগুলি
রাজপথের পাশে অবস্থিত।

ভৌগলিকরা সম্প্রতি আবিষ্কার করেছে, জনপদগুলি মৃত সাগরের দক্ষিণ
পূর্বে, মক্কা থেকে সিরিয়া পর্যন্ত একটি রাজপথের পাশে অবস্থিত। নবী
মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, যার ভূগোল সম্পর্কে তেমন
কোনো জ্ঞান ছিল না, তথাপি এই আয়াতগুলি এমন এক বাস্তবতার কথা
বলে যা কেবল সাম্প্রতিক ভূগোল বিশারদদের দ্বারাই আবিষ্কৃত হয়েছে।



“বাইবেল কেমন করে বলতে পারে যে হযরত লুত (আঃ) তার আপন মেয়েদের সঙ্গে সহবাস করলেন? সেটা অপমানজনক এবং লজ্জাজনক”

তিনি এবং তার দুই মেয়ে সহ সডোম এবং গোমরাহ ধ্বংসে বেঁচে থাকার একমাত্র ব্যক্তি ছিলেন। এই ধ্বংসের পর তারা যোর শহরের মধ্যে বসবাস শুরু করেন। যাইহোক কিছু কারণে তাদের অনেক অবিরত ভয় ছিল, তার কন্যাদের সঙ্গে একটি গুহার মধ্যে বাসস্থান গ্রহণ করেন। আমাদের পিতা পুরানো জমির একটি মানুষ এবং সমগ্র পৃথিবীর পথ অনুযায়ী আমাদের সঙ্গে সম্পর্ক আছে (Gen. 19:30) তারপর তার ছোট বোন বলেন আসুন আমাদের পিতার কাছ থেকে আমাদের ভবিষ্যত সন্তানসন্ততি সংরক্ষণ করতে এবং আমাদের তাঁর সঙ্গে শোয়া যাক এবং আমাদের পিতাকে ওয়াইন পান দিতে থাকি। (Gen.19:31, 32)



তারা তাদের পিতাকে মত্ত পেতে চাওয়া যে তারা তিনি একটি প্রশান্ত অবস্থায় তাদের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক করতে সম্মত হয়েছে হবে বুঝতে পেরেছি যে প্রস্তাব দেওয়া হয়। কিন্তু পরিস্থিতির অধীন, তারা এই অনেক পরিবার বিলুপ্ত হয়ে প্রতিরোধ করার একমাত্র উপায় ছিল অনুভূত। তারা জমির এলিয়েন্স ছিল এবং তারা বিবাহ প্রবেশ এবং এইভাবে পরিবার লাইন সংরক্ষণ পারে যাদের সাথে তাদের কিন্দ্রেদ কোন এক ছিল। তাদের নিজের হৃদয় ও মন জয় কর্মের তাদের অবশ্যই ন্যায্যতা জন্য এই উপাদানগুলির ভিউতে, এটা কঠিন করা হবে না।



King James Version Bible


2 Peter Chapter 1

2. Grace and peace be multiplied unto you through the knowledge of God, and of Jesus our Lord,


Genesis Chapter 19

23. The sun was risen upon the earth when LOT entered into Zoar.

24. Then the LORD RAINED upon Sodom and upon Gomorrah BRIMSTONE AND FIRE from the LORD out of heaven;

26. But HIS WIFE looked back from behind him, and she BECAME A PILLAR OF SALT.

27. And Abraham gat up early in the morning to the place where he stood before the LORD:

28. And HE LOOKED TOWARD SODOM AND GOMORRAH, and toward all the land of the plain, and beheld, and, lo, the smoke of the country went up as the smoke of a furnace.

29. And it came to pass, when God destroyed the cities of the plain, that God remembered Abraham, and sent Lot out of the midst of the overthrow, when he overthrew the cities in the which Lot dwelt.

30. And Lot went up out of Zoar, and dwelt in the mountain, and his two daughters with him; for he feared to dwell in Zoar: and he dwelt in a cave, he and his two daughters.

31. And the firstborn said unto the younger, Our father [is] old, and [THERE IS] NOT A MAN IN THE EARTH to come in unto us after the manner of all the earth:

32. Come, LET US MAKE OUR FATHER DRINK WINE, AND WE WILL LIE WITH HIM, that we may preserve seed of our father.


Isaiah Chapter 5

22. WOE UNTO [THEM THAT ARE] MIGHTY TO DRINK WINE, and men of strength to mingle strong drink:


Ephesians Chapter 5

18. And BE NOT DRUNK with wine, wherein is excess; but be filled with the Spirit;


James Chapter 1

13. LET NO MAN SAY when he is tempted, I AM TEMPTED OF GOD: for God cannot be tempted with evil, neither tempteth he any man:

14. But every man is tempted, when he is drawn away of his own lust, and enticed.


Genesis Chapter 19

33. And they made their father drink wine that night: and the firstborn went in, and lay with her father; and HE PERCEIVED NOT WHEN SHE LAY DOWN, nor when she arose.

34. And it came to pass on the morrow, that the firstborn said unto the younger, Behold, I lay yesternight with my father: let us make him drink wine this night also; and go thou in, [and] lie with him, that we may preserve seed of our father.

35. And they made their father drink wine that night also: and the younger arose, and lay with him; and HE PERCEIVED NOT WHEN SHE LAY DOWN, nor when she arose.

36. Thus were both the daughters of Lot with child by their father.


Jeremiah Chapter 17

7. Blessed [is] the man that trusteth in the LORD, and whose hope the LORD is.

9. The heart [is] deceitful above all [things], and desperately wicked: who can know it?


Mark Chapter 7

21. For from within, out of the heart of men, proceed evil thoughts, adulteries, fornications, murders,

22. Thefts, covetousness, wickedness, deceit, lasciviousness, an evil eye, blasphemy, pride, foolishness:

23. All these evil things come from within, and defile the man.


Jeremiah Chapter 17

10. I the LORD search the heart, [I] try the reins, even to give every man according to his ways, [and] according to the fruit of his doings.


James Chapter 1

5. If any of you lack wisdom, let him ask of God, that giveth to all [men] liberally, and upbraideth not; and it shall be given him.

6. But let him ask in faith, nothing wavering. For he that wavereth is like a wave of the sea driven with the wind and tossed.

7. For let not that man think that he shall receive any thing of the Lord.

8. A double minded man [is] unstable in all his ways.


1 Timothy Chapter 6

3. If any man teach otherwise, and consent not to wholesome words, [even] the words of our Lord Jesus Christ, and to the doctrine which is according to godliness;

4. He is proud, knowing nothing, but doting about questions and strifes of words, whereof cometh envy, strife, railings, evil surmisings,

5. Perverse disputings of men of corrupt minds, and destitute of the truth, supposing that gain is godliness: from such withdraw thyself.


1 Corinthians Chapter 4

14. I write not these things to shame you, but as my beloved sons I warn [you].


James Chapter 1

16. Do not err, my beloved brethren.



এটা অবশ্যই একটি জঘন্য অত্যন্ত খারাপ ঘটনার ইতিহাস। আমরা যখন এই অধ্যায় পড়ি আমাদের কাছে এগুলো অবিস্বাস্য এবং বিশ্রী লাগে, কিন্তু তাও আসল বিষয়টা ভালভাবে বুঝে নেয়া প্রয়োজন।

প্রথম প্রশ্ন হল, লুত কতটুকু দায়ী ছিল? প্রথমত, মাতাল হওয়া অবশ্য তার একটি গুনাহ্‌ ছিল, কিন্তু তখনও মদের বিরুদ্ধে কোন বিধান দেওয়া হয় নি। দ্বিতীয়ত, এই ব্যভিচার গুনাহের জন্য প্রধানত লুত দায়ী নন কারণ “কখন সে শুলো আর কখনই বা উঠে গেল লুত তা টেরও পেলেন না” (৩৩ আয়াত)। সজ্ঞান অবস্থায় লুত এমন জঘন্য কাজ কখনও করত না, এইজন্য তার মেয়েরা ষড়যন্ত্র করে তাকে অচেতন করার জন্য তাকে মদ খাওয়ালো। এতে বোঝা যায় যে এই জঘন্য ঘটনার জন্য লুত দায়ী ছিলেন না।

কিতাবুল মোকাদ্দসে ক্খনও বলা হয় নি যে লুত একজন ‘নবী’ ছিলেন বরং তিনি শুধু নবী ইবরাহিম (আঃ) এর ভাইপো ছিলেন।

অনেকের ভুল ধারণ থাকে যে সকল নবী নিষ্পাপ, কিন্তু আসলে কোরআন এবং কিতাবুল মোকাদ্দস উভয়ই সুস্পষ্টভাবে বিপরীত শিক্ষা দেয়। কোরআন এবং কিতাবুল মোকাদ্দস বলে যে হযরত দাউদ (আঃ), হযরত মূসা (আঃ) এবং হযরত সোলায়মান (আঃ) বড় পাপের দোষে পড়েছে। আসলে এতে আমাদের বিচলিত হওয়া উচিত না, কারণ পাপ করার পর যেভাবে এরা নম্রভাবে গুনাহ্‌ স্বীকার করে তওবা করেছিলেন সেটা আমাদের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ আদর্শ এবং শিক্ষা।



প্রগতিবাদীরা নারী মুক্তি আর নারী অধিকারের কথা বলে তাদের কে পোষাক থেকে মুক্তি দিয়েছে সেই কবেই। নারী ভোগে তাদের তৃপ্তি না মেটায় শুরু করেছে সমকামীতার সাওগাঁত। সে দিন আর দুরে নয় মানুষের সাথে জৈবিকতায় তাদের স্বাদ মিটবে না। পশুদের সাথে জৈবিকতা শুরু করবে আর সেখানে ও থাকবে উদারপন্থীদের সমর্থন যারা মুসলমান হয়ে মনে করে ” লেইসবিয়ান রা এমন ঘৃন্য কিছু না ….তারা তোমার আমার মতই মানুষ ।পুরুষদের কাছ থেকে যে কোন রকম ডিজহার্টেড হবার পরেই বেশীর ভাগ লেসবিয়ান নারীর জন্ম …তেমনি জন্ম গেয়ে সম্প্রদায়ের .. ” আর তাদের প্রশংসায় গদগদ হবে।

আমি মনে করি একজন মুসলমান হয়ে এমন যে কোন বিষয়ে মৌন, মৌখিক অথবা লিখিত মতামত দানের পূর্বে খোদা প্রদত্ত জ্ঞান দিয়ে ভেবে দেখা উচিত যে, আমার মতামত আল্লাহ্ তালার বিধানের লঙ্ঘন কিনা। যে শিক্ষা কোরআন কে জানে না, যে শিক্ষা ধর্মীয় মূল্যবোধকে জলাঞ্জলী দেয় সে শিক্ষা নিয়ে কি আত্মদম্ভ করা উচিত? জীবন এবং ধর্মকে অলাদা করে কোন মতবাদ উদারপন্থীরা প্রতিষ্ঠা করতে চায়? কোরআন কে কাপড় দিয়ে বেঁধে রেখে আর কতকাল ভক্তি করবো আমরা?



আজকে না হয়ে আমার জ্ঞানের স্বল্পতার কারনে উদারপন্থীদের যুক্তির কাছে আমি হেরে গেলাম, কিন্তু যখন একি বিষয়ে আল্লাহ্ উদারপন্থীদের জবাব দিবেন তখন তাদের এই যুক্তি কি শেষ রক্ষা করতে পারবে?



পবিত্র কোরআন কয়েক হাজার বছর আগের এই ঘটনার বিবরণ তুলে ধরেছে এবং লুত সম্প্রদায়ের পরিণতি সম্পর্কে মানব জাতিকে সতর্ক করে দিয়েছে। কিন্তু দু:খের বিষয় হচ্ছে, যে বিকৃত মানসিকতার জন্য কওমে লুত নিশ্চিহ্ন হয়ে গিয়েছিল, বর্তমান সভ্য যুগে বিশ্বের অনেক জায়গায় তা অবাধে চলতে দেখা যাচ্ছে। এমনকি সভ্যতার দাবীদার অনেক পশ্চিমা দেশ সমকামীতার মত নিকৃষ্ট পাপাচারকে বৈধতা দিয়েছে। পাপ মানুষকে অন্ধ করে ফেলে, অতিরিক্ত পাপের ফলে মানুষের বিবেক ও বোধশক্তি লোপ পায়। পরিণতিতে মানুষ ভালোকে খারাপ ও খারাপকে ভালো মনে করতে থাকে।
সর্বশেষ এডিট : ২৫ শে মে, ২০১৫ রাত ১২:০০
৪০টি মন্তব্য ৪০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

রঙ বদলের খেলা

লিখেছেন ইসিয়াক, ২৫ শে অক্টোবর, ২০২০ সকাল ৯:৪৮


কাশ ফুটেছে নরম রোদের আলোয়।
ঘাসের উপর ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র শিশিরকণা।

ঝরা শিউলির অবাক চাহনি,
মিষ্টি রোদে প্রজাপতির মেলা।

মেঘের ওপারে নীলের অসীম দেয়াল।
তার ওপারে কে জানে কে থাকে?

কি... ...বাকিটুকু পড়ুন

শ্রদ্ধেয় ব্লগার সাজি’পুর স্বামী শ্রদ্ধেয় মিঠু মোহাম্মদ আর নেই

লিখেছেন বিদ্রোহী ভৃগু, ২৫ শে অক্টোবর, ২০২০ সকাল ১০:৩৮

সকালে ফেসবুক খুলতেই মনটা খারাপ হয়ে গেল।
ব্লগার জুলভার্ন ভাইয়ের পেইজে মৃত্যু সংবাদটি দেখে -

একটি শোক সংবাদ!
সামহোয়্যারইন ব্লগে সুপরিচিত কানাডা প্রবাসী ব্লগার, আমাদের দীর্ঘ দিনের সহযোগী বিশিষ্ট কবি সুলতানা শিরিন সাজিi... ...বাকিটুকু পড়ুন

এখন আমি কি করব!

লিখেছেন মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন, ২৫ শে অক্টোবর, ২০২০ বিকাল ৩:১৯

মাত্র অল্প কিছুদিন হল আমি ফরাসি ভাষা শিক্ষা শুরু করেছিলাম।



এখন আমি ফরাসি ভাষা অল্প অল্প বুঝতে পারি। হয়তো আগামী দিনগুলিতে আরেকটু বেশি বুঝতে পারব।

ফ্রান্স একটি সুন্দর দেশ।... ...বাকিটুকু পড়ুন

=স্মৃতিগুলো ফিরে আসে বারবার=

লিখেছেন কাজী ফাতেমা ছবি, ২৫ শে অক্টোবর, ২০২০ বিকাল ৪:০৮



©কাজী ফাতেমা ছবি
=স্মৃতিগুলো ফিরে আসে বারবার=

উঠোনের কোণেই ছিল গন্ধরাজের গাছ আর তার পাশে রঙ্গন
তার আশেপাশে কত রকম জবা, ঝুমকো, গোলাপী আর লাল জবা,
আর এক টুকরা আলো এসে পড়তো প্রতিদিন চোখের... ...বাকিটুকু পড়ুন

ঢাকা শহর

লিখেছেন শাহ আজিজ, ২৫ শে অক্টোবর, ২০২০ রাত ৯:১৫










অনেকদিন ধরেই ভাবি বাংলাদেশ নিয়ে লেখা দরকার । লক্ষ ছবি তুলি কিন্তু তা পি সি তেই জমে থাকে ,... ...বাকিটুকু পড়ুন

×