somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

সাইবার আত্মহত্যা!

২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১০ সন্ধ্যা ৬:৪২
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

[ সম্পাদনায়: এস, সুলতানা ]
ফেসবুক এখন সারা বিশ্বের মানুষের মতো বাংলাদেশিদেরকেও ব্যাপক ভাবে আকৃষ্ট করেছে। সকালে ঘুম থেকে জেগেই স্ট্যাটাস চেইঞ্জ করতে হবে। বুড়োধারি হলেও একটা বালক সুলভ স্টাটাস দেয়াটাই যেন রিতী। যেমন ধরুন, আজ আমি সারাদিন বৃষ্টিতে ভিজবো, খটখটা চৈত্র মাসেও এই স্টাটাস দিতে হবে। ফেসবুকে বাংলায় লেখার সুবিধা চালু হওয়াতে কিছুটা সুবিধা হয়েছে। ক'দিন আগেও এরা ইংরেজি হরফে লিখত, আজ আমা সারা ডিন বৃষ্টিটে ভিজ বা। অথবা, আনাকদিন পারা নাইস আকটা উইকেন্ড কাটালাম বন্ধুদের সাথা! সেই সাথে আছে নানা ছবিতে অকারন কমেন্ট করা। ফেইসবুকেরও বলিহারি, কমেন্ট করতে পয়সা লাগে না। বেশীর ভাগ কমেন্টই, আপনি খুব সুন্দর। আপনি আমার বন্ধু হবেন? সেই সাথে ফোন নাম্বার। কেউ আবার এক কাঠি সরেস, নিজে পোস্ট করে বন্ধুর নাম্বার দিয়ে দেয়।

আছে নব্য ভাষার ব্যবহার, ভাইজান, ছবিটা সেই রকম। কিসের সাথে তুলনা করছে, বোঝা গেল না। কেউ স্টাটাসেই কথোপকথন চালাচ্ছে, আরও কত কি? আছে ফেইসবুক অ্যাপ্লিকেশন, শত রকম। ফটো অফ দ্যা ডে, ফ্রেন্ড অফ দ্যা ডে, হাউ ডিপ ইস ইওর লাভ? লাভ ক্যালকুলেটর, অসংখ্য। এমন কি ব্লাড গ্রুপ দিয়ে পার্সনালিটির সনদও এই সকল অ্যাপ্লিকেশন দিচ্ছে। পোস্ট হচ্ছে ওয়ালে, ওয়াল থেকে ওয়ালে। ইদানিং শুরু হয়েছে খবরের কাগজের লিংক শেয়ার করা। তাতেও চলছে, কমেন্ট, আসছে ইমেইল, খুলছি ফেইসবুক, আবার কমেন্ট, এ এক চক্র। যখন এই চক্র একঘেয়ে হয়ে যায়, আর কেউ নিজের ছবিতে কমেন্ট করে না, স্ট্যাটাস গুলোতেও বন্ধুরা কমেন্ট করে না, আসেনা নোটিফিকেশন। এই পর্যায়ে শুরু হয় স্ট্যাটাসে বিতর্কিত বিষয় নিয়ে লেখা, মানুষকে সুরসুরি দেয়া, তাতেও কাজ না হলে, শুরু হয় ফ্রাস্ট্রেশন। এর থেকে মূক্তি কী! এই পর্যায়ে শুরু হয় গেম খেলা, মাফিয়া ওয়ার, ফার্ম ভিলে, আরও কত কী! আবার শুরু হয়, ইমেইলে নোটিফিকেশন আসা, কিছুক্ষন ব্যাস্ত থাকা।

আমরা আঁতেলরা যারা দীর্ঘ ব্লগ লিখে, বিদ্যুৎ তড়ঙ্গে ছড়িয়ে দিতাম প্রেম, কিংবা পরিবর্তন তাদের কেউ শুরু করে ফেসবুকে ব্লগের লিংক পোষ্ট করা (এই লেখাটাও তার ব্যতিক্রম নয়), ফেসবুক তাদের জন্য এনেছে, ফেসবুক নোট। ব্লগার না হয়েও নোট লিখে যাও মনের মাধুরী মিশিয়ে! সেখানেও আছে লাইক বাটন। কোথাও নেই আনলাইক বাটন। (বাংলাদেশ অনলাইন রেডিও (www.BangladeshOnlineRadio.com ) এর রয়েছে সোশ্যাল নেটওয়ার্ক, সেখোনে লাইক বাটনের পাশাপাশি রয়েছে ডিসলাইক বাটন!)

সব কিছুতেই আসছে নোটিফিকশন।এত দিকে নজর দিতে গিয়ে কারও জীবন ঝালাপলা। কারও জীবন ঝালাপলা কারন কেউ তাদের স্টাটাস ফলো করছে না। কারও ক্ষোভ, বান্ধবী বা বন্ধু ছবিতে ভাল মন্তব্য লিখেনি। অথবা কোন মেয়ে বা ছেলের "পরীদের আজ মন খারাপ" স্টাটাসে ছেলে বা মেয়ে বন্ধুটি লিখেছে, "নদু পানা করো না" তারা একটা ছুতো ধরে ফেসবুক থেকে তখন সরে পরতে চায়। তারা ভাবতে শুরু করে, কেউ তার মনের কথা বুঝে না, কেউ না। এদের কেউ কেউ ভিশন ভাবে জটিলতায় ভোগে, ভীষন। কেউ কেউ তখন বিশেষ কিছু বন্ধুকে ডিলিট করে দেয়; তারা যদি বাস্তবেও বন্ধু হয় (অনেকেরই ফেসবুক বন্ধুদের অর্ধেকেরও বেশীকে সে নেজেই চেনে না!), সেই সম্পর্কেও ছেদ পড়ে। অনেক ক্ষেত্রে এই ক্ষোভের সমাপ্তি ঘটে আত্মহত্যার মধ্যদিয়ে। সাইবার আত্মহত্যা। ফেসবুক থেকে নিজেকে সরিয়ে নেয়া। এদের মধ্যে অনেকেই আইডেনটিটি ক্রাইসিসে ভোগে, তারা আবার আসে, আবার যায়। আবারও আসে!

বাঙালীর অনেক কাজের মতই এই ফেসবুকে আসা যাওয়াতা খুব তড়িৎ! গত সপ্তাহে প্রাইভেসি নিয়ে কন্ঠ দিয়ে রক্ত ঝরিয়ে ফেসবুক থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়ে, আজই জয়েন করে স্টাটাসে লিখবে, "অনেক দিন ডুব দিয়ে ছিলাম, বন্ধুরা ভাল আছোতো?" অমনি কিছু লাইক পড়বে। কিছু কমেন্ট পড়বে, আবার কিছুদিন চলবে এই ভাবে। কিন্তু একসময় আবারও বিরক্তি আসে। আবারও ডুব, কিন্তু দেখতে ইচ্ছা করে বন্ধুরা কে কি করছে। মনের মধ্যে প্রশ্ন জাগে কেউ কি মিস করছে তাকে। আর এই সমস্যার সমাধান করছে সেপুকু(http://www.seppukoo.com/ ) নামের একটি ওয়েবসাইট । সেপুকু হচ্ছে জাপানী কায়দায় আত্মহত্যা করার একটি রিচুয়াল বা আনুষ্ঠানিক রিতী। কেউ ফেসবুক থেকে সত্যি সত্যিই সম্মানজনক ভাবে আত্মহত্যা করতে চাইলে, এই ওয়েবসাইটে একাউন্ট খুলে এর মাধ্যমে ফেসবুক একাউন্টটি বন্ধ করলে, সেপুকু ফেসবুকের বন্ধুকে জানিয়ে দিবে সাইবার মৃত্যু সংবাদ, আর এর হোমপেজে তৈরি করবে একটি কবর। তখন ফেসবুকের বন্ধুরা এসে সেখানে আবার মন্তব্য বা শোক বার্তা লিখেতে পারবে। এ এক চুক্তিবদ্ধ আত্মহত্যা। এদের দাবি, এতে কেউ ফেসবুক থেকে দূরে সরে গেলেও বুঝতে পারবে কোন বন্ধু তাকে স্মরন করলো কি না, অথবা কোন বন্ধু সত্যিই তাকে মিস করে। এর মূল উদ্দেশ্য হল, কত বন্ধু আসলে আপনার কাছে এল, আপনার দারা প্রভাবিত হল। তাই ভীষন ভাবে নানা রকম কম্প্লেক্সে ভোগাদের জন্য এটা হয়ত হতে পারে, সম্মানজনক সাইবার আত্মহত্যার সরলীকৃত পথ। কিন্তু এটা কি আসলে আবারও সাইবার জগতেই ফিরে আসা নয়?
সর্বশেষ এডিট : ২১ শে সেপ্টেম্বর, ২০১০ সন্ধ্যা ৬:৪৬
৬টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

আমাদের দেশের নানান বাহারি নৌকার হারিয়ে গেছে অধিকাংশই। আসুন, জেনে নিই, কয়েকটির পরিচয়!

লিখেছেন নতুন নকিব, ২৩ শে মার্চ, ২০১৯ সকাল ১১:১২



আমাদের দেশের নানান বাহারি নৌকার হারিয়ে গেছে অধিকাংশই। আসুন, জেনে নিই, কয়েকটির পরিচয়!

গঠনশৈলী ও পরিবহনের ওপর নির্ভর করে বাংলাদেশে বিভিন্ন ধরনের নৌকার প্রচলন রয়েছে। এসব নৌকার রয়েছে মজার... ...বাকিটুকু পড়ুন

অপরূপা চন্দ্রঘোনায় কাটানো কিছু দিন

লিখেছেন জুন, ২৩ শে মার্চ, ২০১৯ সকাল ১১:১৩

আমার ছোট বেলায় এক অপার আনন্দ নিয়ে এসেছিল তিন মাস চন্দ্রঘোনায় অবস্হান। চিটাগাং থেকে চন্দ্রঘোনায় আব্বা বদলী হয়ে গেলেন তার কিছুদিন পরে আমাদেরকেও নিয়ে গেলেন সেই অপূর্ব জায়গাটি তে যার... ...বাকিটুকু পড়ুন

'সোনালী কাবিন' যতবারই পড়ি ততবার রোমাঞ্চকর অনুভূতি হয়

লিখেছেন এম. বোরহান উদ্দিন রতন, ২৩ শে মার্চ, ২০১৯ দুপুর ২:০৫

'সোনালী কাবিন' যতবারই পড়ি ততবার রোমাঞ্চকর অনুভূতি হয়, একজন কবি কি অসাধারণ সনেটই রচনা করেছেন, এমন একজন গুণী কবিকে আমরা তাঁর প্রাপ্য সম্মান দিতে কৃপণতা দেখেছি প্রতিহিংসাপরায়ন হয়ে।

সোনালী কাবিন
কবি আল... ...বাকিটুকু পড়ুন

যে মেয়েটির সাথে জ্বীন ছিলো

লিখেছেন চাঁদগাজী, ২৩ শে মার্চ, ২০১৯ বিকাল ৫:১২



*** কেহ ১ জন আমার পোষ্টটিকে রিফ্রেশ করছেন; নিজকে সন্মান করুন, অপ্রয়োজনীয় কাজ করবেন না ***

তখন আমি ১০ম শ্রেণীতে; এক সকালে যখন স্কুলের দিকে পা... ...বাকিটুকু পড়ুন

আগে কি সুন্দর দিন কাটাইতাম আমরা :(

লিখেছেন কথার ফুলঝুরি!, ২৩ শে মার্চ, ২০১৯ বিকাল ৫:৪২



আগে বলতে সময়টা খুব বেশীদিন আগেরও নয় যেখানে সামুতে আমার নিজেরই বয়স মাত্র ১০ মাস ৩ সপ্তাহ সেখানে আর কতদিন আগেইবা হবে ।
এইতো কিছুদিন... ...বাকিটুকু পড়ুন

×