somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

এক নিরুদ্দেশ পথিক
ফয়েজ আহমদ তৈয়্যব,ইইই প্রকৌশলী। মতিঝিল আইডিয়াল, ঢাকা কলেজ, বুয়েট এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র।টেলিকমিউনিকেশন এক্সপার্ট। Sustainable development activist, writer of technology and infrastructural aspects of socio economy.

"আওয়ামী লীগ বা বিএনপি যেই হোক, জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত ক্ষমতা ম্যাটার করে।"

০১ লা আগস্ট, ২০২৩ বিকাল ৪:০৮
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

বেগম খালেদা জিয়ার দুই পূর্ণ মেয়াদের সরকার সাতটি ব্যাংক এক শিল্প গ্রুপের হাতে তুলে দেয়নি, সাতটি দুরের কথা একটাও লুট করেনি। (ঋণ কেলেঙ্কারির কথা বলছি না, পুরা ব্যাংক হাতিয়ে নেয়া, যেমন মাত্র ১৭০-২০০ কোটি টাকার শেয়ার নিয়ে কৌশলে ৫ বিলিয়ন ডলারের ইসলামি ব্যাংকের মালিকানা হাতিয়ে নিয়েছে সরকারপন্থী এসআলম গ্রুপ। পাশাপাশি এর বাইরে আরও ছয়টি ব্যাংক হাতিয়ে নেয়া হয়েছে এজেন্সির সহায়তায়)। এমনকি বৈধভাবে ক্ষমতাসীন হওয়া আওয়ামীলীগও ১৯৯৬ কিংবা ২০০৯ সালের পূর্ণ মেয়াদকালেও কাজটি করেনি!

সুতরাং ২০১৪র ভোটহীন ক্ষমতায়নের পরে যাহা বিএনপি তাহা আওয়ামীলীগ নয়।

আসলে নির্বাচিত সরকারের দুর্নীতি খুল্লাম খুল্লা করা কিছুটা জবাবদিহির বিষয় , দিনশেষে তাদেরকে ভোটের জন্য মানুষের দরজায় যেতে হয়।

দেশের নির্বাচিত কোন সরকারই বাৎসরিক মোট রাজস্ব আয়ের সমপরিমাণ অর্থ সরকার ও প্রশাসন পরিচালনায় ব্যয় করে আমলাতন্ত্র তোষণ করেনি, যারা রাতের বেলায় ভোট দিয়ে সরকার গড়ে! বাজেটের সমূদয় উন্নয়ন কাজকে দেশি-বিদেশি ঋণ নির্ভর করে ফেলেনি। তাই নির্বাচিত ও অনির্বাচিত সরকার যে লাউ সে কদু বলার সুযোগ নেই।

দেশের কোন নির্বাচিত সরকার এক পরিবারের চার পরিচালককে বাণিজ্যিক ব্যাংকে নিয়োগ দিয়ে, তাদের মেয়াদ ৪ থেকে বাড়িয়ে ১২ বছর করে, তারপর দুই থেকে তিন লক্ষ কোটি টাকা ঋণ খেলাপি করেনি। এই অভিজ্ঞতা ২০১৪র পরে বাংলাদেশ অর্জন করেছে।
দেশের কোন নির্বাচিত সরকার কোন শিল্প গোষ্ঠীকে ইসলামি ব্যাংক বা সরকারি ব্যাংক থেকে ৩০ হাজার কোটি টাকা ঋণ করে সেটা বেহাত করে দেয়নি। এইসব অভিজ্ঞতা ২০১৪ সালের পরের বাস্তবতা।


দেশের কোন নির্বাচিত সরকার এক শিল্প গ্রুপের হাতে দেশের বাজেটের এক তৃতীয়াংশ টাকা বিদ্যুতের ক্যাপাসিটি চার্জের নামে তুলে দেয়নি।

তাই যা লীগ তাই বিম্পি এই আলাপ মিথ্যা। সরি আর্বান এলিট, সরি শহুরে মধ্যবিত্ত। আপনাদের 'আই হেইট পলিটিক্স' আপনাদের রাজনীতি বুঝাপড়ার সমস্যা, নতুবা দুর্নীতি জাত অবৈধ আয়ে কমতি পড়ার ভয় মাত্র। আপনি নতুন রাজনীতি চান, কিন্তু নতুনদের রাজনীতিতে পার্টিসিপেট করেন না, সবচেয়ে হিপোক্রেসি হচ্ছে এই দুই দলের বাইরে নতুন দলকে সমর্থনও দেন না, বরং তাদের প্রতি নাক ছিটকান। বস্তুত আপনি ভোগবাদী এবং নিজের স্বার্থে আঘাত না আসা পর্যন্ত চুপ থাকেন। নিজের সুবিধার বাইরে আপনার আর কোন চিন্তা নাই। আপনাদের অনেকেই চাঁদাবাজি, ঘুষ, তদবির, সরকারি বাজেট লুট, আমলাতন্ত্রের বেশুমার অবৈধ আয়, ব্যাংকের খেলাপি ঋণের প্রত্যক্ষ ভোগের সুফলে হওয়া বড়লোক! সরি!

দেশের কোন নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী এবং তার রাষ্ট্রপতি মাসে মাসে বিদেশ সফর করেনি, শতাধিক তোষামুদে নিয়ে বিদেশে যায়নি, রাষ্ট্রের অর্থের বেপারোয়া তছরুপ করেনি।

দেশের কোন নির্বাচিত সরকার কোন একটি উন্নয়ন প্রকল্পের ব্যয় এক হাজার কোটি কেন ৫ শত কোটিও বাড়ায়নি।

ফ্যাসিবাদ ও অবৈধ ক্ষমতার বিপক্ষে না দাঁড়িয়ে মিথ্যা নিরপেক্ষতার জন্য আপানাদের সাফার করতে হবে এবং এটা শুরু হয়েছে। অতু উচ্চ মূল্যস্ফীতিতে আপানাদের বৈধ অবৈধ অর্থের ক্ষয় হচ্ছে, ক্রয় ক্ষমতা হারাচ্ছে, আপানাদের ভিসার দুয়ারও বন্ধ হচ্ছে।


হ্যাঁ ২০১৪র আগে সব সরকারের সময় কম বেশি ঋণ কেলেঙ্কারি হয়েছে। মিডিয়ায় এসেছে এস আলমের ৩০ হাজার কোটি টাকা ঋণ খেলাপি, কিন্তু বাস্তবে ইন্টার্নাল রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে, ১ লক্ষ ২০ হাজার কোটি টাকার ঋণ নিয়েছে এক শিল্প গ্রুপের নামে-বেনামে। আহসান এইচ মনসুর নিজে ফোরাম ফর বাংলাদেশ স্ট্যাডিজের ওয়েবিনারে বলেছেন, তিনি নিজে এস আলমের ৮০ হাজার কোটি ঋণ সম্পর্কে গভর্ণরকে জিজ্ঞেস করলে উনি চুপ ছিলেন। এই সংখ্যা গুলো দেশের বাজেটের তিন বা চার ভাগের একভাগ। কেলেংকারি আমলে নিলে এপল টু এপল কম্পারিজন হয় ২০১৪র আগে, এর পরে হয় না কোন ভাবেই। পুকুর চুরির সাথে সাগর চুরি মিলান যায় না। ব্যাংকিং খাতের প্রায় ২০ শতাংশ ঋণ খেলাপি, আইএমেফ ব্যাখ্যা দিয়েছে কিভাবে খেলাপি ঋণ সরকারি হিসাবের ডাবল- মেগা ঋণ প্রকল্পে সরকারের ইচ্ছার বাইরে হয়নি। সিয়ারবি ডেটাবেজে ঋণ খেলাপি নিজে তথ্য হালনাগাদ করে।

ওয়েল, বিএনপি আমলে সাবেক ওরিয়েন্টাল ও বর্তমানে আইসিবি ইসলামিক ব্যাংকে ঋণ কেলেঙ্কারির ঘটনায় ব্যাংকটির তৎকালীন উদ্যোক্তারা অনিয়মের মাধ্যমে বড় অংকের ঋণ হাতিয়ে নেয়। এ কারণে ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদ ভেঙে দেওয়া হয়, এ কেলেঙ্কারির পর ব্যাংকটি পুনর্গঠন করা হয়। ২০১৪র পরে লক্ষ কোটির ঋণ কেলেংকারি হয়েছে, কারও কিছু হয়নি। বরং এক পরিবারে পরিচালক সংখ্যা ২ থেকে ৪ হয়েছে, মেয়াদ বেড়েছে ৪ থেকে ৬, ৬ থেকে ৯ এবং কয়েক মাস আগে ৯ থেকে ১২। আমি আগের ঋণ কেলেংকারি অস্বীকার করছি না, কিন্তু ২০১৪র পরের কোন রেকর্ডই আগের সাথে মিলানো যায় না। আমি ২০১৪র পরের ভয়াবহ ট্রেন্ড ব্রেক নিয়ে বলছি মাত্র।


আজকের আওয়ামী লীগ নির্বাচিত হলেও মেগা মেগা আর্থিক কেলেংকারি গুলা এভাবে করতো না। ব্যাংক হাতানো, পলিটিক্যালি মোটিভেটেড লুট ও পাচার গুলো করতো না, কারণ তখন আমলা ব্যবসায়ী দিয়ে দিনের ভোট রাতে করার জন্য দুর্বৃত্তদের ডিপেন্ডেন্সি থাকে না, এটা জবাবদিহি হীন ক্ষমতার সাক্ষাৎ আউটকাম।


দুই-
জনগনের ভোটে নির্বাচিত সরকার আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলেও বেশি দর-কষাকষির ক্ষমতা রাখে। প্রমাণ দিচ্ছি কিছু-
আওয়ামী লীগঃ

১। নির্বাচিত আওয়ামী লীগ আমলে গঙ্গা পানি চুক্তি হয়েছে, ১৮ হাজার কিউসেকের মত পানিও এসেছে। অনির্বাচিত আওয়ামী লীগ আমলে গঙ্গা পানি চুক্তি থাকা সত্ত্বেও ৫ হাজারের কম কিউসেক পানি আসে, কোন কোন বছর মাত্র সাড়ে ৩ হাজার কিউসেক পানিও আসে না।
২। নির্বাচিত আওয়ামী লীগ আমলে নিয়মিত যৌথ নদী কমিশনের বৈঠক হত, অনির্বাচিত সরকারের আমলে ২০১৪ সালের পর থেকে পানির অধিকার নিয়ে একটাও এজেন্ডা ভিত্তিক বৈঠিক হয়নি।
৩। নির্বাচিত আওয়ামী লীগ আমলে ট্রানজিট, ট্রান্সশিপমেন্ট, করিডোর দেয়া হয়নি ভারতকে। অনির্বাচিত আওয়ামী লীগ আমলে প্রত্যেকটা চুক্তি করে ট্রানজিট, ট্রান্সশিপমেন্ট, করিডোর দেয়া হয়েছে। অগ্রাধিকার মূলক চট্রাগ্রাম বন্দর ব্যবহারের অনুমতি দেয়া হয়েছে।
৪। নির্বাচিত আওয়ামী লীগ আমলে ভারতকে, বঙ্গোপসাগরে সামরিক জাহাজের উপস্থিতির তথ্য শেয়ারে সামরিক মেরিটাইম চুক্তিতে বাধ্য করা যায়নি। অনির্বাচিত আওয়ামী লীগ আমলে এই গোলামীর ফাঁদ তৈরি হয়েছে।
৫। নির্বাচিত আওয়ামী লীগ আমলে ব্যবসায়িক চুক্তি হয়েছে, কিন্তু মানা হয়নি এমন নজির নেই। অনির্বাচিত আওয়ামী লীগ আমলে চুক্তি করেও টিকা আসেনি।


বিএনপিঃ
১। নির্বাচিত বিএনপি সরকার ভারতকে গ্যাস বিক্রি করতে পারেনি।
২। নির্বাচিত বিএনপি সরকার টাটাকে বাজার মূল্যের অর্ধেক দামে গ্যাস দিয়ে টাটাকে বাংলাদেশে আননি।
৩। নির্বাচিত বেইনপি সরকার গঙ্গা পানি চুক্তির ইস্যু জাতিসংঘে নিয়েছে, অন্তত ২ বার।


আজকে আওয়ামীলীগ সরকারের দরকার ছিল, মার্কিন চাহিদার বিপরীতে মার্কিন বাজারে জিএসপি নিয়ে ডিল করা, ইউরোপে জিএসপি প্লাস নিয়ে ডিল করা। এল্ডিসি উত্তরণের পরে ঔষধের মেধাস্বত্ব ছাড়, কম্পিউটার সহ প্রযুক্তিগত মেধাস্বত্ব ছাড় নিয়ে দর কষাকষি করার। কিন্তু না, সে মার্কিনীদের হাতেপায়ে ধরছে নিষেধাজ্ঞা তুলতে, সে লবিস্টের পিছনে টাকা ঢালছে, অথচ দেশের ডলার সংকট, জ্বালানি ও কয়লা কিনতে পারে না দেশ। অর্থাৎ অবৈধ ক্ষমতা চালনোই তার কাছে মূখ্য, মানুষের স্বার্থের প্রশ্ন এখানে নেই। তার অবৈধ ক্ষমতার চর্চার বলি হয়েছে দেশের আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সুনাম ও স্বার্থ।

অনির্বাচিত অবৈধ বলেই আজকে সরকারের এমন নাজুক পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে ভারত চীন এতগুলা চুক্তি কন্ট্রাক্ট করে নিয়েছে। দেশে চীন বিনিয়োগ করেছে ৭ বিলিয়ন ডলার, বিপরীতে ঠিকাদারি কাজ বাগিয়ে নিয়েছে ২৩ বিলিয়নের, সাধে সাথে তারা স্বৈরাচারী সরকারকে প্রমোট করছে না!

আওয়ামী লীগ বা বিএনপি যেই হোক, নির্বাচিত ক্ষমতা ম্যাটার করে। সিগ্নিফিক্যান্টলি। যাহা আওয়ামীলীগ তাহা বিএনপি নয়। বরং নির্বাচিত আওয়ামীলীগের বিপরীতে অনির্বাচিত আওয়ামীলীগ এক সাক্ষাৎ দানব। এই দানবের অপসারণ চান।

সর্বশেষ এডিট : ০২ রা আগস্ট, ২০২৩ রাত ১২:৪৯
১টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

মেঘ ভাসে - বৃষ্টি নামে

লিখেছেন লাইলী আরজুমান খানম লায়লা, ২৩ শে এপ্রিল, ২০২৪ বিকাল ৪:৩১

সেই ছোট বেলার কথা। চৈত্রের দাবানলে আমাদের বিরাট পুকুর প্রায় শুকিয়ে যায় যায় অবস্থা। আশেপাশের জমিজমা শুকিয়ে ফেটে চৌচির। গরমে আমাদের শীতল কুয়া হঠাৎই অশীতল হয়ে উঠলো। আম, জাম, কাঁঠাল,... ...বাকিটুকু পড়ুন

= নিরস জীবনের প্রতিচ্ছবি=

লিখেছেন কাজী ফাতেমা ছবি, ২৩ শে এপ্রিল, ২০২৪ বিকাল ৪:৪১



এখন সময় নেই আর ভালোবাসার
ব্যস্ততার ঘাড়ে পা ঝুলিয়ে নিথর বসেছি,
চাইলেও ফেরত আসা যাবে না এখানে
সময় অল্প, গুছাতে হবে জমে যাওয়া কাজ।

বাতাসে সময় কুঁড়িয়েছি মুঠো ভরে
অবসরের বুকে শুয়ে বসে... ...বাকিটুকু পড়ুন

Instrumentation & Control (INC) সাবজেক্ট বাংলাদেশে নেই

লিখেছেন মায়াস্পর্শ, ২৩ শে এপ্রিল, ২০২৪ বিকাল ৪:৫৫




শিক্ষা ব্যবস্থার মান যে বাংলাদেশে এক্কেবারেই খারাপ তা বলার কোনো সুযোগ নেই। সারাদিন শিক্ষার মান নিয়ে চেঁচামেচি করলেও বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরাই বিশ্বের অনেক উন্নত দেশে সার্ভিস দিয়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

জীবনের গল্প

লিখেছেন ঢাকার লোক, ২৩ শে এপ্রিল, ২০২৪ রাত ৯:৩৫

মাত্র মাস দুই আগে আমার এক আত্মীয়ের সাথে দেখা আমার এক বোনের বাড়ি। তার স্ত্রী মারা গেছেন তার সপ্তাহ দুই আগে। মক্কায় উমরাহ করতে গিয়ে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

অভিমান

লিখেছেন জিনাত নাজিয়া, ২৩ শে এপ্রিল, ২০২৪ রাত ১০:১২

" অভিমান "

তোমার ঠোঁটে বোল শিখেছি
তুমি আমার মা, কেমন করে
ভুলছ আমায় বলতে
পারিনা। এমন করে চলে
গেলে, ফিরে ও এলেনা। হয়তো
তোমার সুখেই কাটছে দিন,
আমায় ভাবছ না।

আমি এখন সাগর... ...বাকিটুকু পড়ুন

×