somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

৭১ এর ঘাতকদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশীদের সংগ্রামের ইতিহাস

১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১২ সকাল ১১:১৮
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

যারা বলেন যে একাত্তরের ঘাতকদের বিচার একটি রাজনৈতিক ফায়দা লোটার মাধ্যম বা চেষ্টা তাদের উদ্দেশ্যে ও তাদের মনে করিয়ে দেবার জন্যই আজ কিছু তথ্য দিচ্ছি বুলেট পয়েন্টে। দেখুন যুগে যুগে কিভাবে বীর বাংলাদেশীরা এই অপরাধীদের বিচারের পক্ষে সংগ্রাম করে গিয়েছে। শুধু কোনো নির্দিষ্ট দল ক্ষমতাতে আসলেই নয়, বরং স্বতস্ফূর্ত আন্দোলনের মাধ্যমেই বাংলাদেশীরা প্রতিটি দশকেই এই ঘাতকদের বিচারের জন্য জান-প্রাণ বাজী রেখে আন্দোলন করে গিয়েছেন। দয়া করে এই লেখাটির তথ্য ছড়িয়ে দিন।

• ১৯৭১ সালের ২৯ শে ডিসেম্বর জহির রায়হান কর্তৃক প্রথম "বুদ্ধিজীবি হত্যা তদন্ত কমিশন" গঠন।

• ১৯৭২ সালের ২৪ শে জানুয়ারী থেকে ১৯৭৫ সালের ২০ শে এপ্রিল বঙ্গবন্ধুর শাষনামলে দালালদের বিচার দালাল আইনে চলতে থাকে।

• ১৯৭৩ সালের ১৫ই জুলাই আন্তর্জাতিক অপরাধ (ট্রাইবুনালস) আইন প্রণয়ন

• দালাল আইনে সারা দেশে ট্রাইবুনাল গঠিত হয় ৭৩ টি। বিচার হয় ২৮৪৮ জনের এবং শাস্তি পায় ৭৫২ জন। জিয়াউর রহমানের প্রভাবে আটক থাকা সকল রাজাকারদের মুক্তি দিয়ে দেয় দালাল আইন বাতিল করনের মাধ্যমে ৩১ শে ডিসেম্বর ১৯৭৫ সালে।

• ১৯৮১ সালে ২১ শে মার্চ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের চেয়ারম্যান কাজী নুরুজ্জামান রাজাকার-আলবদরদের বিচারের জন্য ৭ দফা দাবী পেশ, এবং আন্দোলনের কর্মসূচী ঘোষনা।

• জিয়াউর রহমান অবস্থা বেগতিক দেখে তৎকালীন সংস্থাপন মন্ত্রী মাজেদুল হককে এই ব্যাপারটি দেখার জন্য বলে।

• জিয়ার মৃত্যুর পর দেশের রাজনৈতিক অস্থিরতা শুরু হয়। তথাপিও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কর্তৃক ১৯৮৪, ৮৬, ৮৯, সালে এই রাজাকার আলবদরদের বিচারের জন্য এরশাদ সরকারকে চাপ প্রয়োগ করা হয়।

• ১৯৯২ সালে জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে রাজাকার আলবদরদের বিচারের দাবিতে "ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি" গঠন। ২১ শে জানুয়ারী প্রগতিশীল সকল সাধারণ মানুষের সমন্বয়ে মিশিল, সমাবেশ

• ২২ শে জানুয়ারী নিজামী এই আন্দোলনকারীদের সংবিধানের শত্রু হিসেবে আখ্যা দেয়। ২৭ শে জানুয়ারী শহীদ জননী জাহানারা ইমাম এর কড়া জবাব দেন। ২৭ শে জানুয়ারী আওয়ামীলীগ, ৫ দলীয় জোট, গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট সহ দেশের অন্যান্য অনেক রাজনৈতিক দল এই আন্দোলনে শরীক হয়।

• ১ লা ফেব্রুয়ারী ১৯৯২ সালে গণ আদালতের পক্ষে সাক্ষর গ্রহন শুরু

• ২ ই ফেব্রুয়ারী ১৯৯২ সালে এই গণ আদালতের পরিকল্পনাকে তৎকালীন তথ্য মন্ত্রী নাজমুল হুদা ব্যাপক ভাবে সমালোচনা করে। তিনি গণ আদালতের চিন্তাকে বেআইনি বলে এই আদালতের সাথে জড়িত সকল বাঘা বাঘা আইনজীবিকে ক্রমাগত হাইকোর্ট চেনাতে থাকেন।

• দেশের আলেম সমাজ এই আন্দোলনকে আকুন্ঠ সমর্থ জানায় এই সময়ের মধ্যে। ৩রা ফেব্রুয়ারী ছাত্র ঐক্য এবং ছাত্রলীগ (আওয়ামীলীগ সমর্থিত) এই আন্দোলনে একাত্নতা ঘোষনা করে।

• ১১ ই ফেব্রুয়ারীতে ১৯৯২ সালে ৬৯ টি সংগঠনের সমন্বয়ে "মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, বাস্তবায়ন ও একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল জাতীয় সমন্বয় কমিটি” গঠিত হয়।

• ১৫-১৬ ই ফেব্রুয়ারী ১৯৯২ সালে জামাতের সাথী সম্মেলন হয় যেখানে এই গণআদালতকে যে কোনো মূল্যে প্রতিহত করবার ঘোষনা দেয়া হয়। এই ঘোষনার প্রতিবাদে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের প্রধান কাজী নুরুজ্জামান জামায়াত ও স্বাধীনতা বিরোধীদের হুঁশিয়ার করে দিয়ে একটি ঘোষনা দেন ২০ শে ফেব্রুয়ারী ১৯৯২ সালে।

• ২৫ শে ফেব্রুয়ারী ১৯৯২ সালে নির্মূল কমিটির ঢাকা মহানগরী শাখা গঠিত হয়, ১লা মার্চ এই কমিটি ঢাকায় গণ আদালতের পক্ষে সমাবেশের আয়োজন করে।

• ৩রা মার্চ ১৯৯২ সালে সমন্বয় কমিটির সমাবেশ হওয় বায়তুল মোকাররমের সামনে।

• আওয়ামীলীগ ৪ ই মার্চ (১৯৯২) তাদের কার্যনির্বাহী সভাতে এই আন্দোলনের পক্ষে এই বিচারকে স্বাগত জানানো হয়।

• ৭ই মার্চ (১৯৯২) ১০০ জন সংসদ সদস্য এই আদালত ও আন্দোলনের পক্ষে সমর্থন দান করে বিবৃতি দেন।

• ১৩ ই মার্চ ১৯৯২ সালে সমন্বয় কমিটির চারজন প্রতিনিধির সাথে সরকারের বৈঠক হয়। রাজাকার বলে কথিত আব্দুল মতিন এই বৈঠকে এই আদালতকে আইন পরিপন্থী বলে অভিহিত করলে আলোচনা ভেস্তে যায়। রাজাকার মতিনের এই কথার জবাব পরবর্তীতে দেন ব্যারিস্টার ইশতিয়াক আহমেদ।

• ১৬ ই মার্চ ১৯৯২ সালে গোলামকে ডাকযোগে সমন পাঠানো হয়।

• ১৮ ই মার্চ (১৯৯২) জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে ১২ জনের একটি দলের সাথে আরেকটি বৈঠক হয় সরকারের সাথে এবং সরকারের সাথে চার দফা চুক্তি হয়। কিন্তু পরবর্তীতে এই চুক্তি বাস্তবায়িত হয়নি।

• ১৯ শে মার্চ (১৯৯২) সরকারের সাথে জামায়াতের বৈঠক এবং এই বৈঠকে বি এন পি সরকার কেন কঠোর পদক্ষেপ নিচ্ছেনা এই বলে ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়।

• আন্দোলন উদ্যোক্তাদের সুরক্ষার জন্য মৃত্যুঞ্জয় স্কোয়াড গঠিত হয় ২০ ই মার্চ ১৯৯২ সালে।

• ২২ মার্চ বি এন পি’র মন্ত্রী পরিষদ একটি জরুরী বৈঠক করে আন্দোলন নিয়ে

• ২৩ শে মার্চ গণআদালত বেআইনি ও ২৬ শে মার্চের (১৯৯২) বিচার যাতে বন্ধ রাখা হয় সে জন্য এডভোকেট সোহরাব হোসেন নামে এক লোক দেওয়ানী মামলা দায়ের করে যার শুনানীর দিন ধার্য করা হয় ৩০ শে মার্চ। ২৫শে মার্চ সরকার গনআদালতের ব্যাপক সমালোচনা করে একে রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকান্ড বলে এবং একে আইন নিজের হাতে তুলে নেয়া হিসেবে অভিহিত করে।

• ২৫ শে মার্চ (১৯৯২) পুলিশ ইঞ্জিনিয়ারিং ইন্সটিটিউশনের সামনে গণ আদালতের মঞ্চ তৈরী করতে বাঁধা দেয় এবং অতঃপর সোরোয়ার্দী উদ্যানে শিশুপার্ক সংলগ্ন স্থানে চারটি ট্রাকের উপর গনআদালত বসে।

• গণ আদালত পন্ড করবার জন্য হাজার হাজার পুলিশ সোহরোয়ার্দী উদ্যান ঘিরে ফেলে, কিন্তু জনতার ভয়াবক আক্রোশ টের পেয়ে পুলিশ পিছু ক্রমাগত হটতে থাকে।

• মুক্তিযুদ্ধের সময় নির্যাতিত কুষ্টিয়ার তিনজন নারী সাক্ষী দিতে গণআদালতে উপস্থিত হন।

• ১২ সদস্য বিশিষ্ট গণ আদালতে গোলামের বিরুদ্ধে ১২ টি সুনির্দিষ্ট অভিযোগ উত্থাপন করা হয়।

• অভিযোগের পক্ষে সাক্ষ্য দেন ১৫ জন।

• গোলাম আজমের উকিল ছিলো বিশিষ্ট ছাগুর বাচ্চা আসিফ নজরুল

• ২৮ শে মার্চ (১৯৯২) খালেদা নাসির উদ্দিন ইউসুব বাচ্চুকে ও শাহরিয়ার কবিরকে বলেন “আপ্নারা এই গণ আদালত করে আওয়ামীলীগের হাতে খেলছেন”

• ২৮ শে মার্চ ১৯৯২ সালে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা দেয় শহীদ জননী জাহানারা ইমামসহ ২৪ জনের বিরুদ্ধে। আওয়ামীলীগ আমলে (১৯৯৬) এই মামলা প্রত্যাহার করা হয়।

• ১২ ই এপ্রিল ১৯৯২ সালে সংসদে এই গন আদালত নিয়ে প্রায় ১০ ঘন্টার একটি বিতর্ক হয়। শেখ হাসিনা গোলাম আজমের সকল অপরাধের বিস্তারিত তুলে ধরে সংসদে ভাষন দেন ১৬ই এপ্রিল। গোলামকে এই ভাষনের বিরুদ্ধে কখনো কিছু বলতে শোনা যায় নি।

• গণ আদালতের রায় বাস্তবায়নের জন্য সরকারকে ২৬ শে এপ্রিল ১৯৯২ পর্যন্ত প্রথমে এবং পরে ১৮ মে পর্যন্ত আরেক দফা সময় দেয়া হয়।

• বি এন পি সরকার প্রবল চাপে পড়ে অত্যাচার নির্যাতনের পথ বেছে নেয়। চাকুরীচ্যুত করে শাহরিয়ার কবিরকে।

• জামাতের মুখপত্র দৈনিক সংগ্রাম, দৈনিক ইনকিলাব, দৈনিক দিনকাল ও বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের দল কর্তৃক পরিচালিত দৈনিক মিল্লাত এই গন আদালতের বিপক্ষে প্রবল ভাবে লেখা প্রকাশ করতে থাকে। যুব কমান্ডের আনোয়ার জাহিদ সহ, শিবির, শর্বশক্তি দিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে এই আদালতের বিরুদ্ধে। দৈনিক মিল্লাত “৪০ জন ভারতীয় দালাল” নামে একটি লেখায় এই আদালতের সাথে সম্পৃক্ত নেতাদের একটি তালিকা প্রকাশ করে ১২ ই এপ্রিল ১৯৯২ সালে।

• গণ আদালতের প্রথম বর্ষপূর্তিতে ২৬ শে মার্চ ১৯৯৩ সালে একাত্তরের শীর্শ ঘাতকদের কুকীর্তি উদঘাটনের লক্ষ্যে একটি ১২ সদস্যের গণতদন্ত কমিটি গঠন করা হয় কবি সুফিয়া কামালের নেতৃত্বে।

• ১৯৯৪ সালের ২৬ শে মার্চ এই তদন্ত কমিশন ৮ জনের বিরুদ্ধে অপরাধের বিভিন্ন প্রমাণ হাজির করেন।

• ২৬শে জুন ১৯৯৪ সালে শহীদ জননী জাহানারা ইমাম বি এন পি সরকারের দেয়া রাষ্ট্রদ্রোহিতার অপবাদ মাথায় নিয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

• ১৯৯৫ সালের ২৬ শে মার্চ আরো ৮জনের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করে গণতদন্ত কমিশন।

• ২০০১-২০০৬ সাল বাংলাদেশের ইতিহাসে এক কলংকিত অধ্যায়। বি এন পি’র ঘাড়ে চড়ে একাত্তরের ঘৃণ্য ঘাতক নিজামী ও মুজাহিদ বাংলাদেশের দুইটি মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী হয় এবং বাংলাদেশের ফ্ল্যাগ নিয়ে গাড়িতে চড়ে বেড়ায় সমগ্র বাংলাদেশকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে।

• ২৭ শে মার্চ ২০০৭ সালে তত্বাবধায়ক সরকারের আমলে জেনারেল মইন ইউ আহমেদের সাথে সকল পত্রিকার সম্পাদকদের এক মত বিনিময় সভাতে এই ঘাতকদের প্রসঙ্গ টেনে বলা হয় যে, এদের বিচার কি হবে, নাকি হবে না। মঈন ইউ আহমেদ এই ব্যাপারে সরকারের সাথে কথা বলবেন বলে জানান। প্রধান নির্বাচন কমিশনার শামসুল হুদাও এদের নির্বাচন করতে দেয়ার বিপক্ষেই তার মতামত ব্যাক্ত করেন।

• এরপর সেক্টর কমান্ডার ফোরাম সহ অন্যান্য অনেক রাজনৈতিক দল নির্বাচনে জামাতকে যাতে নির্বাচন করতে সুযোগ না দেয়া হয়, সেটি নিয়ে সরকারকে অনুরোধ করে এবং ধীরে ধীরে আন্দোলন গড়ে তোলে।

• নতুন প্রজন্ম ফেসবুক, টুইটার, ইউটিউবে এই ঘাতকদের বিরুদ্ধে ক্রমাগত সোচ্চার হতে থাকে।

• ২৫শে অক্টোবর ২০০৭ সালে ঘাতক মুজাহিদ “দেশে কোনো স্বাধীনতা বিরোধী নেই” এবং ঘাতক কাদের মোল্লা ৩অ শে অক্টোবর মিডিয়ার সামনে “মুক্তিযোদ্ধারা যুদ্ধে গিয়েছে নারীর লোভে, সম্পত্তির লোভে ও ভারতের চর হিসেবে” এমন মন্তব্য করে। ক্রোধে ফেটে পড়ে সারা দেশ।

• ৩০ শে অক্টোবর ২০০৭ সালে প্রধান উপদেষ্টা ফখরুদ্দিন এই ঘাতকদের বিচার করা উচিৎ বলে মত দেন। কিন্তু আইন উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন এই বিচার এই সরকারের আমলে করে বোকামী করতে চান না বলে মতামত দেন।

• ২০০৭ সালের ৮ ও ১১ ই নভেম্বর মাদারী পুরের চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে দুটি মামলা দায়ের করা হয় কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে।

• সারা বাংলাদেশের তরুন সোমাজ সোচ্চার হয়ে উঠে এই ঘাতকদের বিচারের দাবীতে। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ তাদের নির্বাচনী মেনিফেস্টোতে এই ঘাতকদের বিচার করবার কথা স্পষ্ট করে ব্যাক্ত করে। সারা দেশের মানুষ আনন্দে ফেটে পড়ে।


• ২০১০ সালের ২৫ শে মার্চ আনুষ্ঠানিক ভাবে বিচার শুরু হয় একাত্তরের ঘাতকদের বিরুদ্ধে। একে একে প্রথম দফায় গ্রেফতার হয় আট ঘাতক। এরা হোলো সাঈদী, নিজামী, মুজাহিদ, কাদের মোল্লা, কামারুজ্জামান, গোলাম, সাকা, আব্দুল আলীম। পরবর্তীতে গ্রেফতার হয় মীর কাশেম ও এটি এম আজহারুল। পলাতক থাকে বাচ্চু রাজাকার।

• ২০১২ সালের আজকের দিন পর্যন্ত বিচার পুরোদমে চলছে এই বাংলাদেশকে গ্লানিমুক্ত করবার জন্য।

[তথ্য কৃতজ্ঞতাঃ বেশীর ভাগ তথ্যই মিল্লাত হোসাইন এর “গণ আদালত ১৯৯২, ফিরে দেখা ও মূল্যায়ন” প্রবন্ধ থেকে অনুলিখিত]



সর্বশেষ এডিট : ০৪ ঠা জানুয়ারি, ২০১৫ দুপুর ১২:০৪
১৫টি মন্তব্য ৬টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

সাইয়েমা হাসানের ‘ফ্রেন্ডলি ফায়ার’

লিখেছেন নান্দনিক নন্দিনী, ৩০ শে মার্চ, ২০২০ রাত ৮:২৯



এদেশের সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্যব্যবস্থা নিরাপদ রাখতে সরকার সরকারি-বেসরকারি অফিসগুলোতে দশদিনের সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছেন। যেহেতু কোভিড-১৯ বা করোনা ভাইরাস জনিত রোগ তাই দশদিনের সাধারণ ছুটির মূল উদ্দেশ্য জনসাধারণ ঘরে... ...বাকিটুকু পড়ুন

বিশ্বের রাজধানি এখন করোনার রাজধানি।( আমেরিকা আক্রান্তের সংখ্যায় সবাইকে ছাড়িয়ে প্রথম অবস্থানে চলে এসেছে)

লিখেছেন রাফা, ৩০ শে মার্চ, ২০২০ রাত ১০:৪৫



যে শহর ২৪ ঘন্টা যন্ত্রের মত সচল থাকে।করোনায় থমকে গেছে সে শহরের গতিময়তা।নিস্তব্দ হয়ে গেছে পুরো শহরটি।সর্ব বিষয়ে প্রায় প্রথম অবস্থানে থেকেও হিমশিম খাচ্ছে সাস্থ্য... ...বাকিটুকু পড়ুন

কারো লেখায় মন্তব্যে করার নৈতিক মানদন্ড। একটু কষ্ট হলেও লেখাটি পড়ুন।

লিখেছেন সৈয়দ এমদাদ মাহমুদ, ৩০ শে মার্চ, ২০২০ রাত ১১:০২

সম্মানিত ব্লগারদের দৃষ্টি আকর্শন করে বলছি ব্লগারদের লেখা পড়ে মন্তব্য করবেন শিষ্টাচারের সঙ্গে। মন্তব্য যেন কখনো অন্যকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য না হয়। মন্তব্য হবে সংশোধনের লক্ষ্যে। কারো কোন... ...বাকিটুকু পড়ুন

করোনাময় পৃথিবিতে কেমন আছেন সবাই?

লিখেছেন রাফা, ৩০ শে মার্চ, ২০২০ রাত ১১:২৪



পোষ্ট লিখলাম একটা ক্ষুদ্র কিন্তু প্রথম পাতায় এলোনা ।সেটা জানতে এটা পরিক্ষামূলক পোষ্ট।সব সেটাপ'তো ঠিকই আছে তাহলে সমস্যা কোথায় ? আমি কি সামুতে নিষিদ্ধ নাকি?

ধন্যবাদ। ...বাকিটুকু পড়ুন

পোষ্ট কম লিখবো, ভয়ের কোন কারণ নাই

লিখেছেন চাঁদগাজী, ৩১ শে মার্চ, ২০২০ সকাল ৮:০১



আপনারা জানেন, নিউইয়র্কের খবর ভালো নয়; এই শহরে প্রায় ৫ লাখ বাংগালী বাস করেন; আমিও এখানে আটকা পড়ে গেছি; এই সময়ে আমার দেশে থাকার কথা... ...বাকিটুকু পড়ুন

×