somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

প্রতিবাদের আর এক নাম প্রমীলা............

০৪ ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ দুপুর ১২:১৭
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

শোকস্তব্ধ লঙ্কার অন্তঃপুর।
মন্দদোরী, চিত্রাঙ্গদা সহ রাবণের বাকি সমস্ত পত্নীরাই আজ পুত্রহারা। দশানন তাঁর পত্নী ভগিনী আদি লঙ্কার সমস্ত মহিলাদের কখনোই বন্দিনী অথবা অন্তঃপুর বাসিনী করে রাখেননি। প্রাসাদের মে কোনো স্থানে তো বটেই , প্রাসাদের বাইরে প্রমোদ ভ্রমণেও তাঁদের পূর্ণ অধিকার আছে। অনার্যপুরী হলেও এ ব্যাপারে লঙ্কা আর্যদের থেকেও বেশ কয়েক ধাপ এগিয়ে আছে।
এমনকি অচেনা পুরুষদের সাথে বাক্যালাপেও এখানকার মেয়েদের সম্মানহানি হয় না কখনও। তাই তো সুর্পনখা অনায়াসেই নির্দ্বিধায় রাম লক্ষ্মণের সাথে বাক্যালাপ করতে পারেন। দিতে পারেন বিয়ের প্রস্তাব। দশরথ নন্দনদ্বয়ের কাছে যা ক্ষমার অযোগ্য নির্লজ্জতা বলে মনে হয়েছিল। লঙ্কায় সেটাই প্রচলিত নিয়ম। তাই নিয়ম ভঙ্গের খুব বেশি দায় বোধহয় সুর্পনখায় বর্তায় না। আর এক স্ত্রী থাকতেও অন্য রমণীর পাণীগ্রহণ সে তো তখন আর্য অনার্য উভয় সমাজেই বৈধ। তবে অবশ্যই তা স্ত্রী পুরুষ উভয়ের সম্মতিক্রমে। সে ক্ষেত্রে সুর্পনখার দাবী অবশ্যই অন্যায্য। আর রাম লক্ষ্মণের কাছে অতি ঘ্যানঘ্যানে অথবা মামার বাড়ির আবদার মনে হতেই পারে। যদিও সুর্পনখাই যত কান্ডের মূল। সুপর্নখা আদতে এত বছর বয়স পর্যন্ত কেন ই বা অবিবাহিতা ছিলেন, অথবা তাঁর স্বামী থাকলেও তিনি কে ? তা আমার জানা নেই। জানার আগ্রহ ও নেই কারণ, এখানে আমার মূল উপজীব্য প্রমীলা, যিনি দশানন ও তাঁর প্রধানা মহীষী মন্দোদরী পুত্র মেঘনাদের (ইন্দ্রজিৎ) স্ত্রী।

প্রমীলা বিদূষী, বুদ্ধিমতী, সুশিক্ষিতা এবং সুন্দরী। মধুসূদনের মেঘনাদ বধ কাব্যে আছে, তাঁর সৌন্দর্যে স্বয়ং শ্রীরামচন্দ্র ও কিছুক্ষণের জন্য মোহাবিষ্ট হয়েছিলেন। হনুমানকে বলতে শোনা যায়, প্রমীলার এই অদ্ভুত সৌন্দর্যের কাছে সীতাও যেন ম্লান হয়ে যান। আসলে প্রমীলার যে সৌন্দর্য তা তো কেবলমাত্র দেহের নয়, তার সাথে মিলে মিশে ছিল প্রবল বুদ্ধিমত্তা আর জেদ। স্বামীর অকাল মৃত্যু, তিনি সহজে মোটেই মানতে পারেননি। স্বয়ং লঙ্কেশ্বর তাঁর প্রতিটি প্রশ্নের জবাব দিতে বাধ্য হয়েছেন। প্রমীলার প্রবল ব্যক্তিত্বের এমনি জোর। সমস্ত তূণ খালি করে তিনি রাবণকে তীরবিদ্ধ করেছেন। দশানন বাকরহিত, জর্জরিত হতভম্ব হয়ে গিয়েছেন। রামের সঙ্গে লড়ে হেরেছেন। কিন্তু প্রমীলার কাছে যেন হেরেই বসে আছেন। লড়াই করবার সময়টুকু পর্যন্ত পান নি।

রাবণের অন্যতমা স্ত্রী চিত্রাঙ্গদা। পুত্র বীরবাহুর মা। যুদ্ধে বীরবাহু নিহত। তারপর একে একে সবাই এবং শেষে ইন্দ্রজিৎ রাবণের সর্বাপেক্ষা প্রিয় পুত্র।
চিত্রাঙ্গদা পুত্রশোকে পাগলিনী। রাবণের কাছে এসে বিলাপ করেছেন। কাঁদতে কাঁদতে তাঁর চোখের জল শুকিয়ে গেছে।
ফেরৎ চাইলেন পুত্রকে। রাবণ অপারগ। মৃত সন্তানকে জীবিত করে কিভাবে ফেরাবেন মায়ের কোলে?

যুদ্ধে পুত্রের বীরবাহুর মৃত্যুর পর তার শোকাকুলা মাতা চিত্রাঙ্গদা রাবণকে দায়ী করে গেলেন পুত্রের মৃত্যুর জন্য। রাবণ বোঝাতে চাইলেন এ অনার্য জাতির অস্তিত্ব রক্ষার লড়াই। সীতাহরণ তো উপলক্ষ্য মাত্র। বীরবাহু বীরের মত লড়াই করে শহীদ হয়েছেন। মাতা হিসেবে এতো তাঁর গর্ব। তিনি মিথ্যাই অশ্রুবর্ষণ করে, মৃত পুত্রের অসম্মান করছেন। এতো তাঁর মত রত্নগর্ভার সাজে না কখনও। মাতার এই আকুল অবস্থা দেখে তাঁর পুত্রও যে বড়ই অশান্তি তে আছে। মা হয়ে এটুকু তাঁর বোঝা উচিৎ।

কিন্তু পুত্রহারা মায়ের উচিৎ অনুচিৎ বোধ থাকে কি? রাবণকে একথা কে বোঝাবে?

বীরবাহু নিহত হবার পর রাবণ নিজেই যুদ্ধে যাবেন ঠিক করলেন। প্রমীলা কে নিয়ে প্রমোদ কাননে ভ্রমণ রত ইন্দ্রজিতের কানে সে কথা পৌঁছে গেল। পত্নীপ্রেমের চেয়ে অনেক বড় তাঁর কাছে পিতা ও দেশের প্রতি কর্তব্য অনার্যদের লঙ্কাভূমি আজ আর্যদের দখলে যেতে বসেছে। তা তো মেঘনাদ কিছুতেই হতে দিতে পারেন না। তিনি যে পিতার শেষ ভরসা। কিছুক্ষণের জন্যই প্রমীলা স্বামীকে কাছে পেয়েছিলেন। তাও বিধাতার সহ্য হলো না। এক্ষুণি তাঁকে ছুটতে হবে রণভূমিতে তার আগে অবশ্যই একবার পিতার সাথে দেখা করে নিতে হবে। এদিকে বিরহ আশঙ্কায় কাতরা প্রমীলা। অঝোরে অশ্রু বর্ষণ করেছেন।
প্রস্থানোদ্যত ইন্দ্রজিৎ প্রিয় পত্নীকে প্রশ্ন করছেন, "সৃজিলা কি বিধি সাধ্বী, ওকমল আঁখি কাঁদিতে?"(মেঘনাদ বধ কাব্য)

রাবণ মেঘনাদকে পরামর্শ দিলেন, পরদিন সূর্যদেব ওঠার আগেই নিকুম্ভিলা যজ্ঞাগারে গিয়ে যজ্ঞ করে, অমরত্বের শক্তি সঞ্চয় করে তবেই যুদ্ধে যাক্ তাঁর প্রিয় ইন্দ্রজিৎ।

কিন্তু রাবণতো তখন ও জানতেন না, দেব দেবীরা একজোট হয়ে তাঁর বিরুদ্ধে এক ভীষণ ষড়যন্ত্র চালাচ্ছেন। অমোঘ নিয়তি আর প্রবল দুর্ভাগ্য তাঁকে কিছুতেই জিততে দেবে না। শুধু মাত্র একটি চারিত্রিক স্খলন তাঁর সমস্ত দুর্ভাগ্যের জন্য দায়ী। আর তার হলো সীতাহরণ। না হলে কিই বা প্রয়োজন ছিল শুধু মাত্র তীর ধনুক অবলম্বন কারী বনবাসী রাম লক্ষ্মণের সাথে যুদ্ধ করবার। যেখানে তাঁর পক্ষে মহাশক্তিশালী বীর সেনানী। তাবড় তাবড় সেনাপতি সেখানে ওদের পক্ষে কতগুলো লেজ ওয়ালা বাঁদর। একে ভাগ্যবিড়ম্বনা ছাড়া আর কিই বা বলবেন তিনি? এভাবেই কি বিধাতা তাঁর শেষ লিখে রেখেছেন?

নিকুম্ভিলা যজ্ঞাগারে প্রমীলাও যেতে চান স্বামীর সাথে। বীরসাজে নিজের হাতে স্বামীকে সাজিয়ে দেবেন তিনি। প্রমীলা মেঘনাদের সুযোগ্যা পত্নী। ইন্দ্রজয়ী মেঘনাদকে নারীর সর্বজয়ী প্রেমের বলে জয় করেছেন তিনি।

কালনেমি কন্যা প্রমীলা, কেবলই প্রেমময়ী নন। মহাশক্তির অংশসম্ভূতা। প্রমীলার জন্ম দুর্গার বংশে। তাই প্রমীলা কাছে থাকলে মেঘনাদকে পরাজিত করা কোনোভাবেই সম্ভব না। মা দুর্গা স্বয়ং সিদ্ধান্ত নিলেন যে, যুদ্ধের পূর্বে তিনি প্রমীলার সমস্ত শক্তি হরণ করবেন। আজ দেবী দেবতাদের চরম প্রতারণার শিকার রাবণ ও তার সমগ্র পরিবার।

বীরাঙ্গনা প্রমীলা স্বামীর সাথে যুদ্ধে যেতেও রাজি। প্রাণ দিয়ে প্রাণপ্রিয়কে রক্ষা করবেন তিনি। কিন্তু তিনি কি করে জানবেন যে, দেবতাদের প্রাণান্ত গ্রাস সর্বত্র। প্রমীলা একাধারে সনাতন ভারতীয় নারী, অন্যদিকে অস্ত্র চালনায় পারদর্শিনী বীরাঙ্গনা। রাবণের রত্নসম্ভারে মেঘনাদ যদি হন সূর্যকান্ত মণি, তবে প্রমীলা তারই রবিচ্ছায়া।

তবুও শেষরক্ষা করতে পারলেন না।
নিকুম্ভিলা যজ্ঞাগারে, নিরস্ত্র অবস্থায় বিভীষণের সাহায্যে মায়াদেবীর প্রচ্ছন্ন প্রশয়ে লক্ষ্মণ অন্যায়ভাবে হত্যা করলেন ইন্দ্রজিৎকে। যুদ্ধ তো হয় রণক্ষেত্রে। যজ্ঞাগার অথবা মন্দিরে? নৈব নৈব চ। তবু ও দেবতা যেখানে মাথা গলান, সেখানে সব অন্যায় কত সহজে ন্যায় হয়ে যায়, রামায়ণ মহাভারতে তার অজস্র দৃষ্টান্ত আছে।
মেঘের আড়ালে থেকে বাণ নিক্ষেপ সে তো রণকৌশল। অন্যায় তো নয়। মেঘনাদ কঠিন তপস্যায় সে বিদ্যা আয়ত্ত করেছিলেন। ইন্দ্রজিতের শক্তিশেলের আঘাতেই জ্ঞান হারিয়ে ছিলেন লক্ষ্মণ তাই কি এভাবে অনুচিৎ প্রত্যাঘাতে প্রতিশোধ চরিতার্থ করা?

আর প্রমীলা??
বীরাঙ্গনার বেশে তার লঙ্কাপুরী অভিযান। লোকলজ্জা, প্রাণভয়, নারী সুলভ কোমল স্বভাববৃত্তি কোনো কিছুই তাঁকে আটকাতে পারেনি। রাম ও তাঁর সেনাবাহিনী সেই সময়ে ঘিরে রেখেছে লঙ্কাপুরী। তবু ও প্রমীলা অদম্য। তাই শ্রীরামচন্দ্র ও বাধ্য হলেন তাঁকে পথ ছেড়ে দিতে।

মেঘনাদের মৃত্যুর পর রাবণের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে প্রমীলার প্রশ্ন,
"সীতাহরণের কি সত্যিই কোনো প্রয়োজন ছিল?
সীতাকে তো কখনো রাবণ ছুঁয়েও দেখেন নি। তবে সীতাহরণের কি কারণ ছিল?"

"তবে কি এ অনার্য নারীকে অপমানের প্রতিশোধ?
কিন্তু সে প্রতিশোধ কি চরিতার্থ হলো?"
মাঝখান থেকে সোনার লঙ্কাই যে পুড়ে ছাই হয়ে গেল। শ্মশান হয়ে গেল সবটাই। বীরশূন্য বীরভূমি আজ।
অনার্য দের মধ্যে প্রচলিত ছিল না সতীদাহ। তবু ও প্রমীলা সহমরণে গেলেন। কারো কথা শুনলেন না। কারো বারণ ও মানলেন না। স্বেচ্ছায় স্বামীর চিতায় উঠে, হাসিমুখে পুড়ে ছাই হয়ে গেলেন। সতী হয়ে স্বর্গে গেলেন কিনা জানিনা তবে প্রতিবাদ করে গেলেন অনেক কিছুরই।

রাবণের ভুল পদক্ষেপ, দেবতা দের প্রতারণা, নিয়তির ছলনা বিভীষণের শত্রুতা আর রাম লক্ষ্মণের অনৈতিক জয়লাভের।।



(মাইকেল মধুসূদনে দত্তর মেঘনাদ বধের ছায়া অবলম্বনে নিজের বোধ থেকে লেখা ।)





সর্বশেষ এডিট : ০৪ ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ দুপুর ২:৪০
৭টি মন্তব্য ৭টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

০১টি ভাপাপিঠাময় ছবিব্লগ

লিখেছেন মোঃ মাইদুল সরকার, ২৩ শে জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ১০:১৫

ঐতিহ্যগতভাবে এটি একটি গ্রামীণ নাশতা হলেও বিংশ শতকের শেষভাগে প্রধানত শহরে আসা গ্রামীণ মানুষদের খাদ্য হিসাবে এটি শহরে বহুল প্রচলিত হয়েছে। রাস্তাঘাটে এমনকী রেস্তোরাঁতে আজকাল ভাপা পিঠা পাওয়া যায়। এই... ...বাকিটুকু পড়ুন

পবিত্র বাইতুল্লাহ এবং মসজিদে নববী আধুনিকিকরণের পেছনের অজানা কিছু কথা -সংশোধিত পুন:প্রকাশ

লিখেছেন নতুন নকিব, ২৩ শে জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ১১:০৪

বাইতুল্লাহিল হারাম, মক্কাতুল মুকাররমাহ, ছবি: অন্তর্জাল।

পবিত্র বাইতুল্লাহ এবং মসজিদে নববী আধুনিকিকরণের পেছনের অজানা কিছু কথা

প্রাককথন:

হারামাইন শরিফাইন অর্থাৎ, মক্কাতুল মুকাররমা এবং মদীনাতুল মুনাওওয়ারায় অবস্থিত পবিত্র দুই মসজিদ বাইতুল্লাহ এবং... ...বাকিটুকু পড়ুন

রাতের গোলাপ

লিখেছেন মরুভূমির জলদস্যু, ২৩ শে জানুয়ারি, ২০২২ দুপুর ১২:১৮

গোলাপকে ফুলের রাণী বলা হয়। গোলাপ পাঁপড়ির গড়ন ও বিন্যাসের নান্দনিকতা মানুষকে আকৃষ্ট করে। সুগন্ধী গোলাপের ঘ্রাণও মানুষের ভালোবাসার কারণ। ফুলের সৌন্দর্য ও সুবাসের জন্য গোলাপ বিশ্বজুড়ে বিখ্যাত।



পৃথিবীতে... ...বাকিটুকু পড়ুন

" নারী " - তুমি আসলে কি ? স্রষ্টার শ্রেষ্ঠ সৃষ্টি ,বংশগতির ধারক-বাহক , পুজারীর দেবী , নাকি শুধু পুরুষের ভোগেরই সামগ্রী? (মানব জীবন - ২৩)।

লিখেছেন মোহামমদ কামরুজজামান, ২৩ শে জানুয়ারি, ২০২২ দুপুর ২:২৭


ছবি - unsplash.com

"সৃষ্টি থেকে শেষ অবধীর কেন্দ্রে রয়েছে নারী
হাজার রূপ একটি নারীর, যেন রহস্যের ভান্ডারী,
কখনো মা, বোন, নানী বা প্রিয়তমা স্ত্রী
তাদের জন্যই সুন্দর ধরনী, স্রষ্টার করিগরী"।

নারী স্রষ্টার... ...বাকিটুকু পড়ুন

=তোদের আর আমাদের কাল=

লিখেছেন কাজী ফাতেমা ছবি, ২৩ শে জানুয়ারি, ২০২২ বিকাল ৫:৪৩



©কাজী ফাতেমা ছবি
#একাল_সেকাল
তোরা থাকিস ঘরের কোণে, সময় কাটাস গেইম খেলে
আমরা ছিলাম ঘরের বাইরে, ওড়ছি স্বাধীন ডানা মেলে,
রুমাল চুরি বউচি মারবেল, দাঁড়িয়াবান্ধা ডাংগুলি,
দাবা ক্যারাম আর গোল্লাছুট, খেললে পথে উড়তো... ...বাকিটুকু পড়ুন

×