somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

যে নয়ন জোড়া আজও অসহায়ত্বের প্রতীক (ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদের সেই বালিকাটিকে খুঁজে পাওয়ার গল্প)

০৪ ঠা অক্টোবর, ২০০৯ রাত ১১:০৩
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

আপনি কি কখনো সেই দৃষ্টি দেখেছেন যে দৃষ্টিতে একই সাথে রয়েছে অসহায়ত্ব, ঘৃণা, দুঃখ, হতাশা, অভিমান, ক্ষুধার জ্বালা, ভয়? সেই দৃষ্টি দিয়েই ১২ বছরের এই আফগান পশতু বালিকাটি সারা পৃথিবীর মানুষের দিকে তাকিয়ে ছিল। এই দৃষ্টিকে উপেক্ষা করার সাহস কি কারো আছে? আমার নেই, হয়ত আরো অনেকেরই নেই।

মেয়েটির নাম শরবত গুলা। সোভিয়েত-আফগান যুদ্ধ যার জীবনটা পাল্টে দিয়েছিল অন্য এক জীবনে। যুদ্ধে মারা গেলেন বাবা মা। তারপর দাদী আর ভাইবোনদের সাথে সেও বাধ্য হল নিজের ঘর বাড়ি দেশ ত্যাগ করে পাকিস্তানের নাসিরবাগ শরনার্থী শিবিরে আশ্রয় নিতে। সেখানেই ১৯৮০ সালে আনুমানিক ৮-১০ বছর বয়সে তার বিয়ে হয় রহমত গুল এর সাথে।

১৯৮৪ সালের কোন এক দিন। সেই শরনার্থী শিবিরেরই মাদ্রাসার একজন সাধারন ছাত্রী ছিল শরবত। একদিন এক সাদা চামড়ার লোক এলেন শরনার্থী শিবিরে। হাতে ঢাউস সাইজের একটা ক্যামেরা। সে সময় আফগান সাধারন মেয়েদের মুখাবয়ব দেখতে পাওয়া রীতিমত ভাগ্যের ব্যাপার। হঠাৎ স্টিভ ম্যাককারীর চোখ আটকে গেল মেয়েটির দিকে। ধুলোয় ধূসরিত চুল মুখ কিন্তু তার মাঝে অপার্থীব এক জোড়া চোখ। মাথায় লাল ওড়না দিয়ে ঘোমটা দেয়া। জ্বলজ্বলে সবুজ চোখগুলো তার দিকে তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে। তিনি এই সুযোগ হারাননি। সাথে সাথেই ক্লিক করে উঠলো তার ক্যামেরা।

১৯৮৫ সালের জুন সংখ্যায় সেই মেয়েটি উঠে এল ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদে। মেয়েটি যেন তার সমূদ্র-সবুজ চোখের দৃষ্টিতে সারা পৃথিবীর চুপ করে বসে থাকা মানুষকে ধিক্কার জানাচ্ছে। অজানা মেয়েটির নাম জানার কোন উপায় ছিলনা তাই ম্যাগাজিনে প্রকাশিত ছবির নাম হয়ে গেল "আফগান গার্ল"।
কিছুদিন ফটোগ্রাফি জগতে এই ছবি নিয়ে ভীষন তোলপাড় হল। তারপর সব নিশ্চুপ।

খুঁজে পাওয়ার গল্প:
শরবত গুলা, ১৭ বছর ধরে যে ছিল শুধুই একজন প্রচ্ছদ বালিকা যার নামটা পর্যন্ত স্টিভ ম্যাককারি জানতে পারেননি। যুদ্ধ শেষে তিনি কয়েকবার আফগানিস্তান গিয়েছেন মেয়েটিকে আরেকবার আবিষ্কার করার জন্য। কিন্তু হতাশা নিয়ে ফিরে এসেছেন বারবার।
২০০২ সালের জানুয়ারী মাসে ন্যাশনাল গিওগ্রাফিক টিম একটা বিশেষ উদ্যোগ নিল। তাদের উদ্দেশ্য ছিল ম্যাগাজিনে প্রকাশিত বিখ্যাত ছবিগুলোর উৎস, স্থান ও পাত্র খুঁজে বের করা। সেটা ছিল অনেক কষ্টসাধ্য, ব্যায়বহুল এবং প্রচন্ড ধৈর্যের কাজ। সেই দলেই ছিলেন ম্যাককারি। তারা গেলেন সেই নাসিরবাগ ক্যাম্পে। সেখানেই একজন লোক জানাল সে শরবত গুলার ভাইকে চিনে। ভাইয়ের সূত্র ধরেই তারা এক দুর্গম গ্রামে যায়। সেখানে শরবতকে সনাক্ত করাই ছিল সবচেয়ে কঠিনতম কাজ। ছবি দেখে অনেক মহিলা দাবী করল এটা তার ছবি। অনেক পুরুষ দাবী করল এটি তাদের স্ত্রীর ছবি। সেই স্ত্রীদের চেহারার সাথে ছবির মেয়েটিকে মিলিয়ে টিমের লোকজন অনেক পরীক্ষা নীরিক্ষা করে শেষ পর্যন্ত শরবত গুলাকে চিহ্নিত করল। কিন্তু তবুও যেন সন্দেহ যেতে চায়না। বিশেষ টিম "বায়োমেট্রিক টেকনোলজি" ব্যাবহার করে ছবির মেয়েটির চোখের আইরিস প্যাটার্ন আর চিহ্নিত মহিলার চোখের আইরিস প্যাটার্ন মিলিয়ে তবেই নিশ্চিত হল এই মহিলাই সেই মেয়ে। বয়স ৩০ এর কাছাকাছি। একাধিক সন্তানের মাতা। চোখের চাহনিতে সেই জ্বলজ্বলে ভাবটিও যেন কেমন মলিন হয়ে গেছে। দারিদ্রতা, অভাব দেখতে দেখতে যেন চোখও নিষ্প্রান হয়ে গেছে। মধ্যবয়সী শরবত গুলাকে আবার ফ্রেমবন্দী করলেন স্টিভ ম্যাককারি।
শরবতগুলা কখনো জানতনা সে ছোটবেলায় দেখতে কেমন ছিল। স্টিভ ম্যাককারির ক্যামেরায় তোলা ছবিটিই ছিল তার জীবনের প্রথম ও একমাত্র ছবি। তার হাতে যখন সেই ম্যাগাজিনটি ধরিয়ে দেয়া হল তখন সে একরাশ বিস্ময় নিয়ে তাকিয়ে ছিল। ছবির সেই শক্তিশালী চাহনির কোন অর্থই সে ধরতে পারলনা। যে ছবিটি আজও "Refugee Situation"এর প্রতীক সে ছবিটি যেন তার কাছে সেই মুহূর্তে কোন অর্থই বহন করেনা।


ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক টিম একটা চমৎকার অভিজ্ঞতা নিয়ে ফিরে এল। আর স্টিভ ম্যাককারি তার ১৭ বছরের এক অজানা ভ্রমনের সুখ সমাপ্তি পেলেন।

খুঁজে পাওয়া শরবত গুলা আবারো প্রচ্ছদে উঠে আসে ম্যাগাজিনের এপ্রিল ২০০২ সংখ্যায়।
শরবত গুলাকে নিয়ে ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক চ্যানেল "সার্চ ফর দ্যা আফগান গার্ল" নামে একটি ডকুমেন্টারি তৈরি করে যা ২০০২ সালের মার্চ মাসে চ্যানেলে দেখানো হয়।

১৯৮৫ সালের নাম না জানা পশতু বালিকাটি।

১৯৮৫ সালের ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক ম্যাগাজিনের জুন সংখ্যা।


একই ভঙ্গিমায় সেই শরবত গুলা আর এই শরবত গুলা।

রেফারেন্স:
Click This Link
Click This Link
সর্বশেষ এডিট : ০৫ ই অক্টোবর, ২০০৯ দুপুর ১:১৭
১৯টি মন্তব্য ১৭টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

স্মৃতি গুলো মনে পড়ে যায় ছোট বেলার হাসি ভরা দিনে, মনে পড়ে যায় মন হারায়, হারানো দিন স্মৃতির পটে

লিখেছেন সাড়ে চুয়াত্তর, ২৪ শে জুন, ২০২২ দুপুর ২:১৪


ছোটবেলায় রাজু ভাইয়ের কাছে কাগজ দিয়ে খেলনা বানানো শিখেছিলাম। ১৯৭৯ সালে রাজু ভাই পড়েন তখন চতুর্থ শ্রেণীতে আর আমি পড়ি প্রথম শ্রেণীতে। ওনাদের পরিবার আমাদের প্রতিবেশী ছিলেন। উনি নিজেও... ...বাকিটুকু পড়ুন

লীগের জন্মদিনে শেষ হাসিনা তারেককে নিয়ে এত কথা কেন বললেন?

লিখেছেন সোনাগাজী, ২৪ শে জুন, ২০২২ বিকাল ৪:০১



আওয়ামী লীগের ৭৩'তম জন্মবার্ষিকীর সভায় দলীয় নেতাদের সামনে, শেখ হাসিনা তাঁর বক্তব্যে জিয়াদের নিয়ে অনেক কথা বলেছেন! ব্যাপার কি, তিনি কি তারেক জিয়ার ভয়ে আছেন? তিনি কি ভাবছেন... ...বাকিটুকু পড়ুন

বর্ষপূর্তিতে তুমি আমার ব্লগে এসো !:#P

লিখেছেন মোহাম্মদ গোফরান, ২৪ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:০৪


ভেতরে যা যা আছে:
১) সামুর বর্তমান একটিভ ব্লগার দের কাদের আমার ভালো লাগে।
২) প্রিয় ব্লগারদের সম্পর্কে কটা কথা,
৩) কিছু ছবি
৪) নিজের ব্লগ জীবন ও... ...বাকিটুকু পড়ুন

পদ্মাসেতু যাদের ভিটেমাটিতে, তাদের টোলের লভ্যাংশ দেয়া উচিত?

লিখেছেন শূন্য সারমর্ম, ২৪ শে জুন, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:৩৪





টোলের ভাগ উহারা চায়, উহারা জেনেছে টোল আদায়ের পর সরকারের লাভ হবে ; সরকার লাভ করার পরেই তাদের কিছু অংশ যেন দেয়া হয়।তবেতিন জেলা(মুন্সীগন্জ,মাদারীপুর,শরীয়তপুর) ২২ হাজার ৫০০ পরিবার সবাই... ...বাকিটুকু পড়ুন

ড: ইউনুস সাহেব পদ্মার উদ্বোধনে যোগদান করবেন তো?

লিখেছেন সোনাগাজী, ২৪ শে জুন, ২০২২ রাত ১০:৪৭



পদ্মার উদ্বোধনে ড: ইউনুস সাহেবকে নিমন্ত্রণ করা হয়েছে; আশাকরি, উনি যোগদান করবেন; যদি উনি কোন কারণে যোগদান না করেন, ইহা হবে মারাত্মক ভুল।... ...বাকিটুকু পড়ুন

×