somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

বিটিআরসি'র কাজ কী : নিয়ন্ত্রণ নাকি উদ্বুদ্ধকরণ?

২৭ শে জানুয়ারি, ২০১২ বিকাল ৪:০৪
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

আমাদের গুরুত্বপূর্ণ একটি প্রতিষ্ঠানের নাম বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ রেগুলেটরি কমিশন। বাংলায় বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন। প্রতিষ্ঠানটির সংক্ষেপিত নাম বিটিআরসি। নামের মধ্যে কাজের যে ইঙ্গিত তাতে নিয়ন্ত্রণ শব্দটিই প্রধান। নিয়ন্ত্রণ বলতে কী বোঝায়? বাংলা একাডেমীর ব্যবহারিক বাংলা অভিধানে বলা হয়েছে_ নিয়ন্ত্রণ অর্থ শাসন, নিয়মন, সংযমন, নিবারণ, প্রশমন। বাংলাদেশের বাস্তবতায় যখন বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিভঙ্গি ও প্রযুক্তির প্রসার দরকার, তখন টেলিযোগাযোগ বিষয়ক একটি স্বায়ত্তশাসিত কমিশনের নামে কেন নিয়ন্ত্রণ শব্দটি জুড়ে দেওয়া হবে? প্রশ্নটি ওঠা উচিত। গত দেড় দশকে দেশের টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি খাতে বিপুল অগ্রগতি হয়েছে। এ অগ্রগতির জন্য বেসরকারি খাতের উদ্যোগগুলোই বাহবা পায়। কেন এসব ক্ষেত্রে সরকারি উদ্যোগগুলো পিছিয়ে থাকে? অনেক সমস্যার কথাই ওঠে। কিন্তু যেসব প্রতিষ্ঠানের কর্মকাণ্ডের মূল সুর নিয়ন্ত্রণ, নিবারণ, বাধা দান তারা অগ্রগতিতে অবদান রাখবে কীভাবে? প্রতিষ্ঠানটির নাম যদি হতো টেলিযোগাযোগ উদ্বুদ্ধকরণ কমিশন, তাহলে হয়তো উন্নয়নকামী একটি দেশের কমিশন হিসেবে তাদের অবদান অনেক ভালো হতো। বিটিআরসির সঙ্গে নিয়ন্ত্রণের সম্পর্ক বোধকরি ওতপ্রোতভাবে জড়িত। ২৫ জানুয়ারি বিডিনিউজ খবর দিয়েছে , বিটিআরসি সম্প্রতি বাংলাদেশ কম্পিউটার সিকিউরিটি ইনসিডেন্ট রেসপন্স টিম, সংক্ষেপে_ সিএসআইআরটি নামে একটি দল গঠন করেছে। টিমটি সাইবার অপরাধ শনাক্তকরণে কাজ করবে। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতে নিরাপত্তা নিয়ে রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলো উদ্যোগী হতে পারে। সাইবার জগতে ক্রমবর্ধমান পর্নোগ্রাফি, জালিয়াতি, ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের প্রাইভেসি লঙ্ঘন ঠেকাতে এ ধরনের টিমের অবদান থাকতে পারে। অগণতান্ত্রিক, স্বার্থান্বেষী শক্তিকে প্রতিহত করার জন্যও এ টিমের অবদান থাকতে পারে। কিন্তু এই টিমের মূল কাজ হিসেবে যা জানা যাচ্ছে তা কতটা সাইবার অপরাধের সঙ্গে জড়িত আর কতটা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। কেননা বিটিআরসি বলছে, সিএসআইআরটির মূল কাজ রাষ্ট্রীয়, সামাজিক, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় বিদ্বেষ ছড়ায় এমন ওয়েবসাইটগুলো শনাক্ত করা এবং টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইন অনুসারে ব্যবস্থা নেওয়া। প্রশ্ন হলো, সাইবার জগতে এত অপরাধ থাকতে কেন রাষ্ট্রীয়, সামাজিক, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় বিদ্বেষের দিকেই বিটিআরসির বিশেষ নজর পড়ল? বাংলাদেশ ধর্মীয় সহাবস্থানের অনন্য এক স্থান, সামাজিকভাবেও শান্তিপূর্ণ একটি দেশ। কিন্তু রাজনৈতিক বিদ্বেষ বলতে কী বোঝায়? বাংলাদেশের প্রধান রাজনৈতিক দলগুলো রাজনৈতিকভাবে পরস্পরের প্রতি বিদ্বিষ্ট। এসব দলের নেতারা অনেক সময় শালীনতার তোয়াক্কা না করে পরস্পরের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ছড়ান। এ বিদ্বেষ কমানোর দায়িত্ব কি বিটিআরসির? আর রাজনীতির মাঠের এই বিদ্বেষ বাদ দিয়ে হঠাৎ অনলাইন জগতেই কেন রাজনৈতিক বিদ্বেষ খোঁজা হবে? আর রাষ্ট্রীয় বিদ্বেষ বলতে কী বোঝায়? রাষ্ট্র মত-বর্ণ-ধর্ম-জাতি-পেশা নির্বিশেষে সকলের জন্য। এমন একটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ থাকবে কেন? অনলাইন জগতের অনেক নাগরিক মনে করছেন, বিটিআরসির এই উদ্যোগ আসলে ভিন্নমত, সমালোচনা ও গণতান্ত্রিক তর্ক-বিতর্কের পথ রুদ্ধ করার উদ্দেশ্য নিয়ে শুরু হয়েছে। নইলে, সাইবার জগতের এত অপরাধ বাদ দিয়ে হঠাৎ করে রাষ্ট্রীয় ও রাজনৈতিক বিদ্বেষ ছড়ানোর যুক্তি তাদের মাথায় আসত না। তর্কের খাতিরে যদি ধরে নিই, বিটিআরসি অনলাইন জগতে অগণতান্ত্রিক ও স্বার্থান্বেষী শক্তির তৎপরতা ঠেকাতেই এই টিম গঠন করেছে, তাহলেও রাজনৈতিক ভিন্নমতের বিরুদ্ধে তাদের কোনো পদক্ষেপ গ্রহণযোগ্য হবে না। অগণতান্ত্রিক শক্তিকে ঠেকাতে হলে গণতন্ত্রকেই মজবুত করতে হবে। আর গণতন্ত্রকে মজবুত করতে হলে মানুষকে কথা বলতে দিতে হবে। মানুষের কথা শুনতে হবে। সরকার ও বিরোধী দল ছাড়া গণতন্ত্র হয় না। তেমনি ভিন্নমত ছাড়াও গণতন্ত্র হয় না। ভিন্নমতকে বিদ্বেষ বলে আখ্যায়িত করার কোনো অবকাশ গণতান্ত্রিক সমাজে নেই। মানুষের মুক্তমতকে বাধাগ্রস্ত করে গণতন্ত্র রক্ষার উদ্যোগ কোনো গণতান্ত্রিক শক্তি নিতে পারে না। ফলে বিটিআরসির উদ্যোগ যাতে দেশের ব্লগ ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের মুক্তমতকে কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করতে না পারে সেদিকে দৃষ্টি রাখতে হবে। ইন্টারনেট মানুষের সামনে গণতন্ত্র, অধিকার ও মতপ্রকাশের এক নতুন দিগন্ত খুলে দিয়েছে। ইন্টারনেটকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে এমন উদ্যোগ কখনোই আসা উচিত নয়। গণতান্ত্রিক সরকারের তরফে এমন উদ্যোগ এলে তার চেয়ে দুঃখজনক আর কিছুই হতে পারে না।

লেখাটি ২৭ জানুয়ারি তারিখের সমকালে প্রকাশিত।
সর্বশেষ এডিট : ২৭ শে জানুয়ারি, ২০১২ বিকাল ৪:১৮
২টি মন্তব্য ২টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

হারিয়ে যাওয়া সভ্যতার খোজে

লিখেছেন শের শায়রী, ২২ শে জানুয়ারি, ২০২০ রাত ১:০৩



চলুন কিছু প্রাচীন সভ্যতার খোজ নিয়ে আসি। এগুলো সব হারিয়ে যাওয়া সভ্যতা। হারিয়ে যাওয়া সভ্যতা যখন পড়ি আমি তখন হারিয়ে যাই ইতিহাসের স্বর্নালী দিন গুলোতে ওই সব জাতির... ...বাকিটুকু পড়ুন

রাস্তায় পাওয়া ডায়েরী থেকে-১২৭

লিখেছেন রাজীব নুর, ২২ শে জানুয়ারি, ২০২০ সকাল ১০:০১



১। আমার মতে ধর্ম থাকবে ধর্মের মতো, বিজ্ঞান বিজ্ঞানের মতো। তেল-জলকে ঝাঁকিয়ে এক করার প্রয়োজন নেই।
যারা ঝাকায় বা ঝাকাতে চেষ্টা করে তারা দুষ্ট লোক।

২। ছোটবেলায় আইনস্টাইন... ...বাকিটুকু পড়ুন

নাবাতিয়ান লাল পাথর

লিখেছেন স্বপ্নবাজ সৌরভ, ২২ শে জানুয়ারি, ২০২০ দুপুর ১:২৬



আরব সাম্রাজ্যের গোড়াপত্তনের সময়কার কথা । সেই সময়টিতে ছিল নাবাতিয়ান নামক এক যাযাবর জাতির দৌরাত্ম্য। তবে ইতিহাসবিদদের কাছে নাবাতিয়ানদের সম্পর্কে খুব একটা তথ্য খুঁজে পাওয়া যায় না।... ...বাকিটুকু পড়ুন

নিজের কথা

লিখেছেন রাজীব নুর, ২২ শে জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৩:৪০



ছোটবেলা থেকেই আমি কিছু হতে চাই নি।
এই জন্য জীবনে কিছু হতে পারি নি। ছোটবেলা থেকেই বাচ্চারা কত কিছু হতে চায়- ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, পাইলট, শিক্ষক, পুলিশ ইত্যাদি কত কি। কিন্তু... ...বাকিটুকু পড়ুন

গবেষণা ও উন্নয়ন: আর কত নিচে নামলে তাকে নিচে নামা বলে???

লিখেছেন আখেনাটেন, ২২ শে জানুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৪:২৬


আমরা বেশির ভাগ বাংলাদেশীরা কঠোর প্রেমিক। তাই প্রেমের চেতনা কিংবা যাতনায় প্রেমিকার ‘কাপড় উথড়ানো’র জন্য আমাদের হাত নিশপিশ করে। কীভাবে বাংলাদেশ নামক প্রেমিকাকে ছিড়ে-ফুঁড়ে সর্বোচ্চ লুটে নিব এই ধান্ধায়... ...বাকিটুকু পড়ুন

×