somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

“ইকনোমিক হিট ম্যান” – লোকচক্ষুর আড়ালে থাকা সাম্রাজ্যবাদী কিং মেকার!

১০ ই নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৮:৪৯
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

সম্প্রতি জন আব্রাহাম অভিনীত “মাদ্রাজ ক্যাফে” সিনেমা দেখতে গিয়ে নতুন (আমার কাছে) একটি শব্দ আমাকে বেশ আগ্রহী করে তোলে, তা হলো “ইকনোমিক হিট ম্যান”। সিনেমার ঘটনা প্রবাহের যে প্রেক্ষিতে এই শব্দটির ব্যবহার হয়, তাতে ধারণা করেছিলাম এর ব্যাপ্তি এবং প্রভাব উন্নয়নশীল দেশগুলোর অর্থনীতির অন্যতম প্রধান পরিমাপক। পরবর্তিতে “ইকনোমিক হিট ম্যান” নিয়ে বিস্তারিত পড়ার প্রয়াসে যখন ঘাঁটাঘাঁটি শুরু করি, তখন এই বিষয়ের উপর একটি আত্নজীবনিমূলক বইয়ের সন্ধান পাই। বইটি পড়া শুরুর আগের প্রস্তুতি হিসেবে “ইকনোমিক হিট ম্যান” নিয়ে আমার স্বল্প পরিসরে জানতে পারা কিছু বিষয় নিয়ে নিজের চিন্তাগুলো গোছানোর চেষ্টা। জন পার্কিন্সের লেখা "কনফেশনস অফ এ ইকোনমিক হিট ম্যান" একটি ইন্টারন্যাশনাল বেস্ট সেলার, যার আরো দুইটি পর্ব ইতিমধ্যে প্রকাশিত হয়েছে।

"কনফেশনস অফ এ ইকোনমিক হিট ম্যান" বইটিতে জন পার্কিন্স গ্লোবাল সাউথের দেশগুলির বিরুদ্ধে গ্লোবাল উত্তর এবং তাদের স্বার্থের প্রতিনিধিত্বকারী সংস্থা দ্বারা মোতায়েন করা ক্ষতিকারক এবং ধ্বংসাত্মক অর্থনৈতিক কৌশল সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেন। “ইকনোমিক হিট ম্যান” শব্দটি পার্কিন্সের মতো ব্যক্তির ভূমিকা বর্ণনা করতে ব্যবহৃত হয়, যার কাজ হলো উন্নয়নশীল দেশগুলোতে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য প্রয়োজনীয় আর্থিক অনুমান এবং উৎপাদনকারীদের ধ্বংসাত্মক প্রকল্প পরিকল্পনা বৈধ করার মাধ্যম খোঁজে বের করা। তারা বিশ্বব্যাংক, যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক সংস্থা উন্নয়ন সংস্থা এবং অন্যান্য বিদেশী সহায়তা সংস্থাগুলির কাছ থেকে বিশাল অর্থ বিভিন্ন বড় বড় কর্পোরেশনের মাধ্যমে প্রাকৃতিক সম্পদ বা রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট নিয়ন্ত্রণকারী কয়েকটি ধনী পরিবারের কাছে পৌছে দেয়া। বিনিময়ে অর্থ প্রদানকারী দেশগুলোর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ্যে সরকারী বড় ক্রয় অর্ডার, সশস্ত্র সংগঠনগুলোর কাছে অস্ত্র বিক্রির অবাধ বানিজ্য পথ নিশ্চিত করা। এইসব অনৈতিক সন্ধি আড়ালে রাখতে ভুক্তভোগী দেশগুলোতে প্রয়োগকৃত প্রধান কৌশলগুলোর মধ্যে আছে জালিয়াতিপূর্ণ আর্থিক প্রতিবেদন, কারচুপির নির্বাচন, চাঁদাবাজি, সেক্স এবং হত্যার অপরাধ।

গ্লোবাল উত্তরের নির্ধারিত দেশগুলোর এই ধ্বংসাত্মক অর্থনৈতিক কৌশলের পিছনে উদ্দেশ্য হলো গ্লোবাল দক্ষিনের দেশগুলিকে গভীর দেনায় নিমজ্জিত করা, নির্ভরতা এবং অভিজাতদের দুর্নীতির দিকে ডেকে আনা। পরবর্তিতে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও আইনী সংস্থাগুলির মাধ্যমে গ্লোবাল দক্ষিণের সব প্রাকৃতিক সম্পদ নিজেদের দাবী করা এবং গ্লোবাল উত্তরে সম্পদ পাচারের উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা। এই ধ্বংসাত্মক ফলাফল অর্জনের লক্ষ্যে কর্পোরেশন, ব্যাংক, বৈদেশিক নীতি সংগঠন এবং আন্তর্জাতিক সরকারী ও বেসরকারী সংস্থাগুলির সমন্বয়ে একটি সুশৃঙ্খল ও শক্তিশালী অবকাঠামো তৈরি করা হয়। মূল কথা হলো, বিশ্বব্যাপী উত্তরের অব্যাহত ধ্বংসাত্মক লাইভ স্টাইলকে সমর্থন করার জন্য বিশ্ব প্রাকৃতিক সম্পদের আবাসস্থল গ্লোবাল সাউথ থেকে লুটপাটের মাধ্যমে সম্পদ অর্জন।

ষোড়শ শতক থেকে একবিংশ শতাব্দী পর্যন্ত গ্লোবাল উত্তরের শক্তিগুলো বিভিন্ন সময়ে গ্লোবাল দক্ষিণের দেশগুলতে আক্রমণ করেছে, উপনিবেশ তৈরির মাধ্যমে হস্তক্ষেপ করেছে, প্রতারণা করেছে, ধ্বংস করেছে, কাট-অফ থেকে শুরু করে স্থানীয় জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে একাধিক গণহত্যা করেছে। "আবিষ্কারের যুগে" এবং "উপনিবেশিকরণের" সময় সম্পদ চুরি ও ছিনতাই কেবলমাত্র বৈষম্যীয় শ্রেষ্ঠত্ব এবং গ্লোবাল সাউথের বিপরীতে ইউরোপীয় কতৃত্ব প্রতিষ্টার জন্য ছিলো না। আধুনিক উপনিবেশিক শৃঙ্খলা তৈরি করতে বিদ্যমান অর্থনীতি, বাজার এবং বাণিজ্য সম্পর্ককে নষ্ট করা হয়নি। ১৯তম এবং বিংশ শতকের প্রথম দিকে গ্লোবাল উত্তরের উন্নয়ন এবং অগ্রগতি গ্লোবাল দক্ষিণে ধ্বংস, মৃত্যু এবং গণহত্যায় রুপ নিয়েছিলো। আফ্রিকা মহাদেশের ধ্বংসের জন্য ফ্রেমিং ছিল "আফ্রিকার জন্য স্ক্যাম্বল", যা আফ্রিকার বাণিজ্য ও উপনিবেশকরণের মধ্যে নিয়ন্ত্রণের জন্য ইউরোপীয় শক্তিগুলি ১৮৮৪ সালের বার্লিন সম্মেলনে নিশ্চিত করে। প্রকৃতপক্ষে, ১৮৮১ থেকে ১৯১৪ সালের মধ্যে ইউরোপীয় শক্তি তথাকথিত "আফ্রিকার জন্য স্ক্যামাবল" এর মাধ্যমে এই মহাদেশের 90 শতাংশ অঞ্চল নিজেদের দাবী করতে পেরেছিল।

এই উপনিবেশিক ব্যবস্থা সময়ের পরিক্রমায় আজকের আধুনিক রুপ নিয়েছে, যেখানে উপনিবেশ প্রতিষ্টায় শক্তির চেয়ে কৌশলের প্রয়োগ অনেক বেশী। আর এই কৌশল প্রয়োগের যে কৌশলী প্রধান কুশলীর ভূমিকায় আসেন তিনি হচ্ছে “ইকনোমিক হিট ম্যান”! আধুনিক "স্বাধীন রাষ্ট্রগুলি" তাদেরে বাজারে নিরবচ্ছিন্ন প্রবেশাধিকার, গ্লোবাল উত্তরে কাঁচামালের সংস্থান বজায় রাখতে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত এবং সজ্জিত সামরিক বাহিনীকে ব্যবহার করার ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন অভ্যন্তরীণ বাধাগুলির ক্ষেত্রে, সামরিক বাহিনীর পদক্ষেপ নেয়া এবং "আধুনিক" রাষ্ট্রীয় প্রকল্পটি নিরিবিচ্ছিন্ন রেখে গ্লোবাল নর্থের বিনিয়োগকে নিরাপদ রাখারই একটি কৌশলমাত্র। উপনিবেশিক দিনগুলিতে সেনাবাহিনী এবং প্রশাসকরা বিষয়টি তাদের নিজের হাতে নিয়েছিল, যেহেতু বর্তমান প্রেক্ষিত কিছুটা আলাদা, তাই প্রায়শই বিদেশী শক্তি দ্বারা প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত সামরিক বাহিনী জাতিকে নিজের থেকে উদ্ধার করতে অভ্যুত্থান চালানোর জন্য ব্যবহৃত হয়।
বিশ্বব্যাংক, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) এর মতো বিশ্বব্যাপী আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলি শুল্ক ও বাণিজ্য সম্পর্কিত একটি সাধারণ চুক্তির (জিএটিটি) এবং ওয়ার্ল্ড ট্রেড অর্গানাইজেশন (ডব্লিউটিও) পরিমণ্ডলের অর্থনীতিগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য কার্যকর করা হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে, গ্লোবাল দক্ষিণে বিদ্যমান উপনিবেশিক কাঠামোর দৃশ্যমান লক্ষণগুলি স্থানীয় অভিজাতদের উপস্থিতির মধ্য দিয়ে উজ্জ্বল হয়ে ওঠে।

এই “ইকনোমিক হিট ম্যান” প্রকৃতপক্ষ্যে বহুজাতিক সংস্থা, বিশ্বব্যাংক এবং আইএমএফ-এ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে যারা গ্লোবাল দক্ষিণের ব্যয়ে গ্লোবাল উত্তর অর্থনীতির স্বার্থ রক্ষার জন্য কাজ করে যাচ্ছে। ফলস্বরূপ, স্থানীয় দক্ষিন অর্থনীতিগুলি কখনই স্থানীয় উৎপাদন ব্যায়ের মাধ্যমে প্রাকৃতিক সম্পদের প্রবাহ বজায় রাখতে এবং ইউরোপীয় ও মার্কিন অর্থনীতির উপর নির্ভরশীল এবং অধীনস্থতা থেকে বের হয়ে আসতে সক্ষম হয়নি। দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার অংশ হিসেবে “ইকনোমিক হিট ম্যান” রা গ্লোবাল সাউথকে গ্লোবাল উত্তরে একটি সেবা, কাঁচামাল এবং সস্তা শ্রম সরবরাহকারী হিসাবে প্রতিষ্টার পাশাপাশি এই দেশগুলির দেনা বাড়ানো এবং তাদের রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা গ্রহণের জন্য একটি উৎস হিসাবে ব্যবহার করা। বস্তুত, গ্লোবাল উত্তরের অংশগ্রহণ বা জড়িত হয়ে গ্লোবাল সাউথের উন্নয়ন বা প্রকল্প ধারণাটি অক্সিমোরোনিক এবং অর্থনৈতিক পরিকল্পনার সব দিকেই একটি বৈপরীত্য গঠন করে।

“ইকনোমিক হিট ম্যান” এর প্রভাব থেকে বের হয়ে আসতে হলে গ্লোবাল সাউথের অর্থনীতিগুলোকে অবশ্যই তাদের উদীয়মান ক্ষতিকারক আর্থিক সরঞ্জাম এবং সরঞ্জামগুলি থেকে উদ্ভূত পরিস্থিতি থেকে নিজেদের সম্পদ সুরক্ষিত করার উপায়গুলি খুঁজতে হবে। সত্যিকারের এবং টেকসই স্বাধীনতার রাস্তাটি এমন অর্থনৈতিক মডেলগুলির পক্ষে প্রচুর পরিমাণে নির্ভরশীল যা গ্লোবাল উত্তর অর্থনীতির অধীন নয় বা আন্তর্জাতিক দেনা অর্থায়নে জড়িত নয়।

সর্বশেষ এডিট : ১০ ই নভেম্বর, ২০১৯ রাত ৮:৫০
১টি মন্তব্য ১টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

একটি বাড়ি এবং শেষ ঠিকানা

লিখেছেন নাহল তরকারি, ২৭ শে অক্টোবর, ২০২১ দুপুর ১২:৩১



মানুষ সামাজি জীব। সমাজ ছাড়া মানুষ বাচতে পারে না। আগে মানুষ গুহার মধ্যে বসবাস করিতেন। গুহাতে যখন তাদের স্থান সংকোলন না হওয়তে তারা সমতলে এসে বাড়ি বানানো শিখলো।

কালের... ...বাকিটুকু পড়ুন

তুমি !

লিখেছেন স্প্যানকড, ২৭ শে অক্টোবর, ২০২১ বিকাল ৩:১৬

ছবি নেট ।


তুমি,
জুলাই মাসের জমিন ফাটা রোদ্দুর
গরম চা জুড়ানো ফু
ছুঁলেই ফোসকা পড়ে
ভেতর বাহির থরথর কাঁপে
গোটা শরীর ঘামে।

তুমি তো
আর কাছে এলে না
আসি আসি বলে
ঝুলিয়েই... ...বাকিটুকু পড়ুন

=আবোল তাবোল=

লিখেছেন কাজী ফাতেমা ছবি, ২৭ শে অক্টোবর, ২০২১ বিকাল ৪:১০



©কাজী ফাতেমা ছবি

১/
খুললে তালা মনকুঠুরীর, তবু বাঁধা শত!
মনবাড়িতে জরাজীর্ণ, পোকায় খাওয়া ক্ষত,
নিজের স্বার্থ রাখলে বজায়, মুখে রেখে হাসি
কেমনে বলো এমন তোমায়, অথৈ ভালোবাসি।
তার চেয়ে ঢের থাকুক তালা, লাল মরিচায়... ...বাকিটুকু পড়ুন

পরিমণির কুরুচি নৃত্য আমার ভালো লাগছে

লিখেছেন ব্রাত্য রাইসু, ২৭ শে অক্টোবর, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:৩৭



জন্মদিনে লুঙ্গি কাছা দিয়া নাইচা পরিমণি রুচিহীনতা প্রদর্শন করছেন। আমার তা ভালো লাগছে।

রুচিহীনতা বা কুরুচি প্রদর্শন করার অধিকার তার আছে। তেমনি রুচিহীনতারে রুচিহীনতা বলার অধিকারও ভদ্র সমাজের আছে তো!

অনেকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

আল কোরআনের আসমান নিয়ে ভ্রা্ন্ত ধারণা রোধ করুন। নাস্তিক ব্যাটার শাস্তি চাই।

লিখেছেন রাশিদুল ইসলাম লাবলু, ২৭ শে অক্টোবর, ২০২১ রাত ১১:২৪

সু প্রিয় পাঠক আজকে আমি ইউটিউবের আরেক নাস্তিক আলেকজেন্ডার সোলালিন নামের (ছদ্মনামধারী কেউ) এর আরেকটি উপহাসের জবাব দিতে প্রস্তুত হয়েছি। এই ব্যাটা নাস্তিক বলছে আল কোরআনের একটি আয়াতেই নাকি প্রমান... ...বাকিটুকু পড়ুন

×