somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

যাযাবর চিল
তোমরা মানুষ, আমরা মানুষ, তফাৎ শুধু শিরদাঁড়ায়

The Quest for meaning of Ramadan

২২ শে জুন, ২০১৫ রাত ৮:৫৮
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

আমাদের দেশের ধর্মীয় শিক্ষকদের চমৎকার কিছু গুনাবলি আমি রয়েছে যেমন সততা, অমায়িক ব্যবহার, সাধারন জীবন যাপন। আমাদের দেখা সবচেয়ে ভাল মানুষদের একটি তালিকা করলে আমি যতজন ইমাম এবং মুয়াজ্জিনকে জানি তাদের ৯৫% সেই তালিকায় থাকবে। তবে তাদের মধ্যে একটা বড় সমস্যা লক্ষ্য অনুভব করতে পারছি ইদানিং। সেটি হল থিয়োলজিকাল বোধ না থাকা ( Theology শব্দটির বাংলা নেই বা এখনও করা হয়নি। অনেকে এর বাংলা প্রতিশব্দ ধর্মতত্ব বলেন। তবে সেটি ভুল। থিয়োলজি বলতে বোঝায় এমন বিদ্যা যা ধর্মীয় জ্ঞানকে কিভাবে এবং কেন ব্যবহারিক জীবনে প্রয়োগ করতে হবে)। সেটা একদম গ্রামদের মসজিদ এর ইমাম থেকে শুরু করে টিভিতে অনুষ্ঠানকারী বিশেষজ্ঞ সবাই। মদজিদে ইমামগন এবং বিভিন্ন টিভিতে বিশেষজ্ঞগনের কথা শুনলাম, তারা রোজার উপকারিতা এবং এর জন্য কত পুরস্কার রয়েছে নিয়ে অনেক চমৎকার আলোচনা করছেন। কিন্তু রোজার মূল থিয়োলজিকাল ব্যাপারটির কাছেও যাচ্ছেন না কেউ। রোজার মূল ব্যাপার হল এটি একটি পথ বা উপায় খাবার এবং সেক্স থেকে দূরে থেকে নিজের শরীরকে নিয়ন্ত্রণ করে নিজের মনকে আত্নদম্ভ, আবেগ, সেচ্ছাচারিতা, খারাপ চিন্তা থেকে মুক্ত করে নিজেকে সম্পূর্ণরুপে আল্লাহর ইচ্ছার কাছে সমর্পণ করা। আল্লহ পবিত্র কুরআনে রোজা সম্পর্কে এটাই বলেছেন প্রথমে। তিনি বলেন,
“হে বিশ্বাসীগন! তোমাদের ওপর রোযা ফরয করে দেয়া হয়েছে যেমন তোমাদের পূর্ববর্তী নবীদের অনুসারীদের ওপর ফরয করা হয়েছিল। আশা করা যায় এর মাধ্যমে, তোমাদের মধ্যে তাকওয়ার সৃষ্টি হয়ে যাবে। (আল বাকারাহঃ ১৮৩)
এই ব্যাপারে আমাদের ধর্মীয় শিক্ষক এবং বিশেষজ্ঞগন তেমন আলোচনা করেন না। আমরা নিজেরাও পড়ি না। এবং আমরা জানিও না। ফলে (আমার দেখা) প্রায় সব মুসলিমই রোজা পালন করে, যখন রোজা থাকে নামাজও আদায় করে। তারপরও রোজার উদ্দেশ্য সফল হয় না। কারন তারা রোজার মূল ব্যাপারটি আমরা বুঝতে পারেনি। এবং এজন্যই রোজা থেকে সবাই অতিরিক্ত পরিমাণে ইফতার করে(দুই বেলা না খাওয়া পুশিয়ে নেই) যেটি ইসলাম অনুৎসাহিত করে। আমাদের মা-বোনেরা একটা বড় সময় ইবাদত না করে অতি বাহারি ইফতার এবং সাহরি তৈরিতে ব্যাস্ত থাকে। ঈদের বাজার এত্ত বেশি জমজমাট হয় এবং রমজান মাস শেষ হতেই সব শেষ হয়ে যায়।
সর্বশেষ এডিট : ২২ শে জুন, ২০১৫ রাত ৯:০০
৩টি মন্তব্য ২টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

শনিবারের চিঠিঃ পর্ব পাঁচ (ধারাবাহিক সাপ্তাহিক কলাম)

লিখেছেন সাজিদ উল হক আবির, ০৪ ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ দুপুর ১:০৯



.
১।
.
"লেখালিখিতে কি কোন আনন্দ আছে? আমি জানি না। তবে একটা বিষয় নিশ্চিত যে, লেখালিখির জন্য কঠিন বাধ্যবাধকতা আছে, কিন্তু এই বাধ্যবাধকতা কোথা থেকে আসে, তাও আমার জানা নেই... ...বাকিটুকু পড়ুন

লাখ টাকার বাগান খায় এক টাকার ছাগলে

লিখেছেন অনিকেত বৈরাগী তূর্য্য , ০৪ ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ দুপুর ১:৩৭

স্বাধীনতার অব্যবহিত পর আওয়ামীলীগের একটা অংশ গিয়ে জাসদ করল। তৎকালীন সরকারকে হটাতে এমন কোনো কাজ নেই তারা করে নি। খুন, ডাকাতি, লুটতরাজ সব চলল। তৈরি করল ১৫ আগস্টের ক্ষেত্র। ঘটল... ...বাকিটুকু পড়ুন

মধু ও মধুমক্ষিকা; স্রষ্টার সৃষ্টিনৈপুন্যতার অনন্য নিদর্শন

লিখেছেন নতুন নকিব, ০৪ ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ দুপুর ২:৫৭

ছবি: অন্তর্জাল।

মধু ও মধুমক্ষিকা; স্রষ্টার সৃষ্টিনৈপুন্যতার অনন্য নিদর্শন

মধু। সুমিষ্ট পানীয়। শ্রেষ্ঠতম ঔষধি। বহু রোগের আরোগ্য। দেশ-কাল-জাত-পাতের উর্ধ্বে সকলের প্রিয় এক পানীয়। কিন্তু কে দেয় এই পানীয়? কী তার সৃষ্টিকৌশল?... ...বাকিটুকু পড়ুন

ধর্মীয় পোষ্টে কমেন্ট করলেই 'নোটীশ' এসে উপস্হিত হয়।

লিখেছেন চাঁদগাজী, ০৪ ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ বিকাল ৫:১৪



*** এক নোটীশেই জেনারেল হয়ে গেছি, অভিনন্দন জানাতে পারেন।

জলবায়ু সমস্যা, গ্লোবেল ওয়ার্মিং, আকাশের ওযোন-লেয়ার নষ্ট হওয়া সম্পর্কে আপনি কখন প্রথম শুনেছেন? ইহা কি শেখ সাহেবের মুখ... ...বাকিটুকু পড়ুন

কলাবতী ছবি ব্লগ

লিখেছেন মোঃ মাইদুল সরকার, ০৪ ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:১১


কলাবতী ফুল অনেকেরই ভালো লাগে ,নজর কাড়ে । আবার ভালোবাসে কেউ কেউ।
যতই রূপবতী গুণবতী হোক এই ফুল তবুও সে পড়ে থাকে অবহেলায় রাস্তার পাশে ,নর্দমার পাশে ,জঙ্গলে ,পরিত্যক্ত জায়গা।
দু চারজন... ...বাকিটুকু পড়ুন

×