somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

অবশেষে 'রুস্কাইয়া ব্লুদা' বই আকারে প্রকাশ পেল!!!

০৫ ই এপ্রিল, ২০২১ বিকাল ৫:৪৭
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


২৮শে জুলাই ২০২০
দীর্ঘ কয়েক বছর পর ফের লেখালেখি শুরু করার প্রক্কালে সামুর পাঠকদের জন্য 'ফের আলকাশ শুরুর আগে কিছু কথা' শিরোনামে একটা
লেখা দিয়েছিলাম।সেই লেখার এক অংশে লিখেছিলাম;
লেখালেখির ব্যাপারে আমি ভীষণ রকম স্পর্শ-কাতর। নিজেকে খুব সযতনে লুকিয়ে রাখার চেষ্টা করেছি। এমনকি আমার অতি ঘনিষ্ঠ অনেক আপনজন-ও জানেনা আমি লেখালেখি করি। আমার নিক বন্ধু আত্মীয়দের প্রায় সবার-ই অজানা! এর কারণ ভয় নয়, দ্বিধা ও সঙ্কোচ! কারণ আমার লেখার- মান ও ভাষা-গত দুর্বলতার! সেজন্য খুব কম ব্লগার-ই আমাকে ব্যক্তিগত ভাবে চেনে।
এর মাঝে এক ছোট ভাই নব্য প্রকাশক ফেসবুকে যোগাযোগ করে লেখা চাইল। আমি কিছুদিন টাল-বাহানা করে বললাম; সামুতে কয়েকটা সিরিজ আছে দেখেন ওখান থেকে কোনটা নিয়ে করা যায়? সে একটা পছন্দ করল। তার সাথে আমার চুক্তি ছিল; বইতে আমার কোন শর্ট বায়োগ্রাফি ও ছবি দেয়া যাবেনা। আর আমি বইয়ের প্রচারণায় জন্য কোন রকমের সহযোগিতা করব না। বেচারা নতুন প্রকাশন- আর আমি অখ্যাত লেখক! এত বড় রিস্ক নেয়া কি উচিত হবে এই নিয়ে দুই বছর ধরে চিন্তা করছে! আমি যদিও খোঁচাখুঁচি করি কম- কিন্তু সে আমাকে কথা দিয়ে বিপদে পড়ে গেছে।

অবশেষে তিনি তার কথা রেখেছেন, আমিও খুঁচিয়েছি আচ্ছামতন- সেই সাথে খানিকটা খোলস ছেড়ে বেড়িয়ে লেখক পরিচিতি আর সামুর পুরনো ছবিটা দিয়ে দিলাম।

বই পরিচিতি(ফ্লাপে লেখা অংশ)
সাল ১৯৯১।

সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে টুকরো টুকরো হওয়ার পরও দুনিয়ার বৃহত্তম দেশ হয়ে বিশ্ব মানচিত্রে অবস্থান নিয়েছে রাশিয়া।

দীর্ঘ কমিউনিস্ট শাসনকালে দশকের পর দশক রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত অর্থনীতিতে ব্যবসা করতে ভুলে যাওয়া সাধারণ রাশিয়ানরা চড়ে বসেছে পুঁজিবাদের ট্রেনে। এই ট্রেন তাদের কোথায় নিয়ে যাবে? এক অস্থির সময়, ততোধিক অস্থির মানুষের ভবিতব্য।

সময়ের এমন সন্ধিক্ষণে তারুণ্যের সকল রোমান্টিকতা, সকল দ্রোহ, অনুভূতির সকল প্রাবল্য নিয়ে এক বাঙালি তরুণ হাজির হলো খোদ রাশিয়ায়। সদ্য তারুণ্যের চোখ দিয়ে দেখা সেই অস্থির সময়ের রাশিয়া তার মনে দাগ কাটে। সেই দাগ এতটাই গভীর যে আরও ৩০ বছর পরেও স্মৃতিতে রয়ে গেছে।

পুঁজিবাদ বনাম সমাজতন্ত্রের মাঠের লড়াই আর ঠান্ডা লড়াই দুনিয়া দেখেছে দীর্ঘদিন। এই নিয়ে তত্ত্ব, পরিসংখ্যান, গবেষণার অভাব নেই। হাজার মাইল দূরে থেকেও আমরা টের পাই এই বিষয়ে তর্ক-বিতর্কের উত্তাপ। এই বই সেই বিতর্কের ধারে-কাছে দিয়েও যায়নি।

এখানে লেখক তার প্রথম তারুণ্যের সেই রাশিয়াকে উঠিয়ে এনেছেন স্মৃতি থেকে। এতদিন ধরে তাবৎ দুনিয়ার বিভিন্ন দেশের মানুষের বয়ান শুনে একটা ধারণা ইতোমধ্যে তৈরি হয়েছে আমাদের। সদ্য গঠিত সেই সময়ের জনতার রাশিয়া কেমন ছিল, কেমন ছিল সেখানকার সংস্কৃতি, দৈনন্দিন জীবন, জীবনাচরণ এসব কথা আমাদের বাংলাদেশের আলো-বাতাসে বড় হওয়া একজনের মাধ্যমে জানতে পারা পাঠকের কাছে বেশ সুস্বাদু হবে তা আশা করাই যায়।

স্বাগতম রুস্কাইয়া ব্লুদার জগতে।

রুস্কাইয়া ব্লুদা
RUSSIAN DISH

বইটি এপ্রিলের ২ তারিখ থেকে বইমেলার ৩১৯ নাম্বার স্টলে পাওয়া যাবে। সাথে পাওয়া যাবে সকল অনলাইন বুক শপ এবং স্বরে অ এর ফেসবুক পেজ মারফতও
পেইজ লিংক- স্বরে 'অ' - Swore 'O'
অর্ডার লিংক ;
https://www.rokomari.com/book/213216/ruskaia-bluda---russian-dish?fbclid=IwAR0qFLwJY_nodYQ7f3itqecfcenL6OdTqMmrWGEzgXMjfR_-w-YNuIC-9Jc

সর্বশেষ এডিট : ০৫ ই এপ্রিল, ২০২১ বিকাল ৫:৪৭
২৮টি মন্তব্য ২৯টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

করোনা পরবর্তী সময়ের ভয়াবহ পিরিস্থিতি মোকাবেলায় দলমত নির্বিশেষে সকলের এক সাথে কাজ করতে হবে

লিখেছেন নূর মোহাম্মদ নূরু, ১৫ ই এপ্রিল, ২০২১ দুপুর ১২:২১


মানব জাতির ইতিহাসে কখনো এমন সময় আসেনি যখন সকল ধর্মের সকল উপাসনালয়, ইবাদত খানা বন্ধ। প্রায় অর্ধেক দুনিয়ায় এখন মসজিদ, গির্জা, প্যাগোডা, চার্চ, মন্দির বন্ধ। হজ্জ অনেক বার বন্ধ... ...বাকিটুকু পড়ুন

কতিপয় শেয়াল পন্ডিতের কথায় ধর্ম নিয়ে বিভ্রান্তির অবকাশ নেই।

লিখেছেন মোঃ মাইদুল সরকার, ১৫ ই এপ্রিল, ২০২১ দুপুর ১:১৭



ধর্ম এসেছে মানব কল্যানে। পৃথিবীতে প্রথম মানুষ থেকে শুরু করে কেয়ামত অবধি ধর্ম থাকবে। পৃথিবীতে অনেক ধর্ম আছে, আছে উপ ধর্ম এবং তার শাখা প্রশাখা। প্রতিটি ধর্মই নিজেকে সেরা... ...বাকিটুকু পড়ুন

করোনায় ধনীরা বেঁচে গেলেও গরীবরা মারা যাবে

লিখেছেন রাজীব নুর, ১৫ ই এপ্রিল, ২০২১ দুপুর ১:২৭



কোভিড ১৯ রোগের চিকিৎসার ভয়ংকর খরচ সম্পর্কে বলিঃ এটা কিন্তু বেশ বড়লোকি রোগ। ধরুন আপনার করোনা হলো। আমি চাইনা হোক, মনে মনে একটু ধরে নিন আপাতত। প্রথমে ঘরে... ...বাকিটুকু পড়ুন

ইহুদীরা নাকি মনোনীত জাতি, তাদের ধর্ম মনোনীত ধর্ম

লিখেছেন চাঁদগাজী, ১৫ ই এপ্রিল, ২০২১ বিকাল ৫:৫৬



ধর্মীয় ইহুদীরা দাবী করে যে, আল্লাহ ইহুদীদের পুর্ব পুরুষদের যেরুসালেমর চারিদিকে (ইসরায়েল ) ভুমি দেয়ার কথা প্রমিজ করেছিলেন! আপনার বিশ্বাস হয়? আমার হয় না। তারা বলে, তারা আল্লাহের... ...বাকিটুকু পড়ুন

ঠ্যাঙের মুণ্ডু

লিখেছেন সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই, ১৫ ই এপ্রিল, ২০২১ রাত ৮:১৭



ছবিতে : ভাগিনা (এডিটেড)

তালগাছে এক ষাঁড় উঠেছে
চিকন একটা মই বেয়ে
পাগলা খাঁসি খাচ্ছে খাবি
বিন্নি ধানের খই খেয়ে

বেজির সাথে লড়াই করে
বাঘটা ভীষণ হাঁপাচ্ছে
কানের ভেতর ডেঙ্গু মশা
সিংহটা তাই লাফাচ্ছে

মাকড়সাকে খামচি দিয়ে
পালাচ্ছিল... ...বাকিটুকু পড়ুন

×