somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

রাবেয়া রাহীম
কস্তুরী খুঁজে ফিরে তার সুবাস..হায় মৃগ, যদি জানত গন্ধ কার! পাখিও খুঁজে ফিরে শিস--হায়, যদি সে জানত! সুর থাকে ভেতরে, অন্তরে.। চুপটি করে এই তো এখনো ডাকে, ব্যকুল হয়ে - ডাকে আর ডাকে ।।

সুফিবাদ বা সুফী দর্শন একটি ইসলামি আধ্যাত্মিক দর্শন (চতুর্থ পর্ব)

০৭ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১২:৫২
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



সুফিবাদের মর্মকথা:

"হৃদয়ে তোমার চলে যেন আলিফের (আল্লাহ) খেলা। পবিত্র দৃষ্টি দিয়ে যদি তুমি জীবনকে দেখতে শেখো, তুমি জানবে আল্লাহর নামই যথেষ্ট " -------আল্লাহ প্রেমময় ও সৌন্দর্যময়। তিনি অনন্ত, অবিনশ্বর ও সর্বত্র বিরাজমান। প্রেম ও ভক্তির পথে আধ্যাত্মিক সাধনার মাধ্যমেই তাঁকে পাওয়া যায়। আল্লাহতে অনুগত বা লীন হওয়া সুফি সাধকের চরম লক্ষ্য।

আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বলেন "তুমি যেখানে তিনিও (আল্লাহ) সেখানে আছেন (সুরায় হাদিদ ৪ নং আয়াত)"
যদি মনে আসে আল্লাহ আমার সঙ্গেই আছেন বা আমার সাথী হয়ে আমার সাথেই আছেন তবে কি খুব ভুল বলা হবে? না ভুল হবেনা উক্ত আয়াত মতে।

তবে অপর আরেকটি আয়াতে আল্লাহ বলেন ‘বরং মহান আল্লাহ তোমাদের নিকট ঈমানকে প্রিয় করে তুলেছেন এবং সেটাকে সৌন্দর্য মন্ডিত করেছেন তোমাদের হৃদয়ের গহীনে।” [সূরা আল-হুজুরাত ৪৯:৭]

স্রষ্টা সৃষ্টির মাঝে প্রবেশ করেন না এবং স্রষ্টাকে ধারণ করার মত এত বিশাল কোনো সৃষ্টিও নেই। বর্তমান পৃথিবীতে কোটি কোটি মানুষের কোটি কোটি কলব বা অন্তর রয়েছে। প্রতি কলবে আল্লাহ থাকলে আল্লাহর সংখ্যা কত হবে? যদি বলা হয় সত্যকামী সাধকের কলব আয়নার মত। তাহলে বলব, আয়নায় তো ব্যক্তি থাকে না, ব্যক্তির প্রতিচ্ছবি থাকে। সুতরাং সত্যকামী মানবের কলবে মহান আল্লাহর প্রতি গভীর ভালবাসা আর আনুগত্য থাকে। সেই ভালবসা থেকে বিচ্ছুরিত আলোক রশ্মির মাঝেই স্রস্টা বিরাজমান।

ক্বলব কি

ক্বলব হোল মানব দেহের মুল অংশ, যার মাধ্যমে রূহ দেহের সাথে সংযুক্ত হয়। কলবের সংজ্ঞা প্রসংগে রসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেন : নিশ্চয়ই মানুষের দেহে এক টুকরা গোশত আছে, যখন তা পবিত্র হয় তখন সমস্ত দেহই পবিত্র হয়ে যায়, আর যখন তা অপবিত্র হয়ে যায় তখন সমস্ত দেহই অপবিত্র হয়ে যায়, আর জেনে রাখ তা হল ক্বলব। (বুখারী ও মুসলিম)

ক্বলব মানব শরীরের খুব গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। হাদিস শরিফে ক্বলব কে "মুদগাহ" অর্থাৎ স্পর্শযোগ্য বস্তু বলা হয়েছে,

যদি জানতে চাই ‘ক্বলব’ শরীরের কোথায় অবস্থিত?

১) যদি বলি--- এটা হলো রুহ (আত্মা, প্রাণ বা জীবন), কিন্তু এটা সঠিক হতে পারে না। কারণ রুহের কোনো নির্ধারিত আকার নেই এবং শরীরের মধ্যে তার কোন সুনির্দিষ্ট স্থান বা অবস্থানও নেই। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘তারা যদি আপনাকে রুহ সম্পর্কে প্রশ্ন করে, আপনি বলুন, রুহ আমার রবের নির্দেশ হতে; আর তোমাদের সামান্য জ্ঞানই দেয়া হয়েছে।’ (সূরা বনি ইসরাঈল : ৮৫)।


২) আবার যদি বলি--- এটা হলো নাফছ (রিপুগুলো), কিন্তু আমার মতে এটাও সঠিক না। কেননা নাফছেরও কোনো নির্ধারিত আকার নেই এবং শরীরের মধ্যে তার কোনো সুনির্দিষ্ট স্থান বা অবস্থানও নেই।

পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেন, আর আমি আমার নাফছকে নির্দোষ বলি না, নিশ্চয় নাফছ (রিপুগুলো কাম, ক্রোধ, লোভ, মোহ, হিংসা ও ঘৃণা) অবশ্যই মন্দ কাজের প্রতি নির্দেশ করে, আমার রব যাকে রহমত করেন তাকে ছাড়া; নিশ্চয় আমার রব ক্ষমাশীল ও দয়ালু। (সূরা ইউছুফ : ৮৫)।

৩). আরও বলতে পারি--- এটা হলো আকল (জ্ঞান, বিবেক বা বুদ্ধি), । কিন্তু আমরা জানি জ্ঞান, বিবেক বা বুদ্ধি স্পর্শযোগ্য বস্তু নয়, আকলেরও কোনো নির্ধারিত আকার নেই, যদিও শরীরের মধ্যে তার নির্দিষ্ট স্থান বা অবস্থান রয়েছে।

সুতরাং মস্তিষ্ক বা মগজ যেখানে জ্ঞান, বিবেক বা বুদ্ধি থাকে তাকেই কলব বলা উচিত হবে। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘বধির, বোবা ও অন্ধ, সুতরাং তারা বিবেচনা করে না।’ (সূরা বাকারা : ১৮)। যেহেতু হাদিস শরিফে রাসূলুল্লাহ (সা.) ‘মুদগা’ ও ‘কলব’ শব্দ ব্যবহার করেছেন ।

পবিত্র কোরআনে এ বিষয়ে ১২৬টি আয়াত রয়েছে, যেসব আয়াতে কলবের কর্মকান্ড - সম্পর্কে সবিস্তারে বর্ণিত হয়েছে।

যেমন- ‘তাদের কলবগুলোতে রোগ আছে।’ (সূরা বাকারা : ১০)।

‘তাদের কলব আছে কিন্তু তারা তদ্বারা বুঝে না।’ (সূরা আরাফ : ১৭৯)।

‘তবে যদি তাদের কলব থাকত যা দ্বারা তারা বিবেচনা করবে।‘(সূরা হজ : ৪৬)।

হাদিস শরিফে এসেছে, জেনে রাখ! মানবদেহে এমন একটি ‘মুদগা’ রয়েছে, যা সুষ্ঠু হলে সমগ্র দেহ সুষ্ঠু হয়; আর তা ক্ষতিগ্রস্ত হলে সমগ্র দেহই ক্ষতিগ্রস্ত হয়; জেনে রাখ! তা হলো ‘কলব’। (সহিহ বোখারি)।

আপন চেতনার আলোতে নিজেই নিজের অন্তরের মানুষটি হয়ে ওঠার একটি পথ হয় সুফিজম এটা আমার নিজস্ব ধারনা থেকে বলছি।
যদি জানতে চান চেতনার আলোই বা কি? চেতনা মনের একটি ধর্ম বা বৈশিষ্ট্য যেমন,আত্বমাত্রিকতা,আত্বচেতনা,অনুভূতিশীলতা ।

'চেতনা' শব্দটির আভিধানিক অর্থ : চৈতন্য, সংজ্ঞা, হুঁশ; জ্ঞান, অনুভূতি; সজ্ঞান বা জাগ্রত অবস্থা; প্রাণ, জীবন। যদি বলি নিজের অনুভূতিশীলতাকে উত্তম জ্ঞান আর প্রজ্ঞার মাধ্যমে জাগিয়ে তোলার নামই চেতনার আলো। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই মানুষ ষড় রিপুর কাছে পরাজিত হয়ে আত্ম অহংকারের-কাছে বলি হয়ে নিজের চেতনার আলোতে পৌঁছতে পারেনা । নিজেই নিজের অন্তরের মানুষটি হয়ে ওঠতে পারেনা। ষড় রিপু দমনের মাধ্যমে ক্বলব বিশুদ্ধ করা যায়। বিশুদ্ধ ক্বলব নিজেকে শুদ্ধ আমিতে পৌঁছে দিতে পারে।


রুহ কি ---

রুহ হল আরবি শব্দ।এর বাংলা অর্থ হল আত্মা।এটা আল্লাহ প্রদত্ত এক বিশেষ কুদরত।সম্পুর্ন শূন্যতা বা অস্তিত্বহীন থেকে শক্তির মাধ্যমে তিনি যেভাবে সৃষ্টিকে অস্তিত্বে আনেন, তেমনি অতিরিক্ত আরেকটি শক্তির মাধ্যমে নিষ্প্রাণ পদার্থে তিনি প্রাণের উন্মেষ ঘটান।সে অতিরিক্ত শক্তিই হল রুহ বা আত্মা বা জীবনী শক্তি ।

রূহ ও নফসের মধ্যে প্রকৃত অর্থে কোন পার্থক্য নেই। যদিও পারিভাষিক অর্থে পার্থক্য আছে। যেমন প্রাণীকে ‘নফস’ বলা হয়। কিন্তু ‘রূহ’ বা আত্মা বলা হয় না। আল্লাহ বলেন, প্রত্যেক প্রাণী মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করবে(আলে ইমরান ১৮৫)। এতে বুঝা যায় যে, দেহ ও আত্মার মিলিত সত্ত্বাকে ‘নফস’ বলা হয়। আর শুধুমাত্র আত্মাকে ‘রূহ’ বলা হয়।

ঘুম যদি টেম্পোরারি ডেথ হয় তাহলে আবার রূহ কিভাবে জীবনী শক্তি হয়? আসলে এটা এমন কিছু যা সম্পর্কে আমাদের জ্ঞান অতি অল্প। মানুষ যখন সৃষ্টি হলো তখন ছিলো শুধুই মাটির একটি মূর্তি। সেখানে রুহ সেট করার সাথে সাথেই মানুষ সচল হলো। আবার মৃত্যুর পর মানুষ অচল।

পৃথিবীতে এত এত মানুষ সবার জন্য পৃথক রুহ। রুহ হলো প্রাণ শক্তি কিন্তু মানুষের মগজ হলো সেই সিস্টেম যা মানুষকে পাপ পূণ্যের পথে পরিচালনা করে থাকে। আল্লাহ রুহকে পবিত্র বলেছেন কারণ এই প্রাণ শক্তি যা আল্লাহর হুকুমে মানুষকে সচল রাখে। বাকি সব মানুষের ব্রেন নিয়ন্ত্রণ করে। আর এই ব্রেন সচল থাকে চালিকা শক্তি রুহের মাধ্যমে।


শুধু মাত্র হজরত আদম আঃ আর হযরত ঈসা আঃ এর সৃষ্টির কথা যখন এসেছে তখনই রূহ এর কথা এসেছে !!

বাকি আলোচনা আবারো কোন এক তুষার ঝড়ের দিন করবো ।


বিঃ দ্রঃ ---- (ফিল লাইক মাইনাস ২২ ডিগ্রী টেম্পাচারে ঘরে প্রায় বন্দী অবস্থায় থেকে হঠাত আত্মা সম্পর্কে জানার গভীর আগ্রহ থেকেই এই পর্বের সুচনা )

ছবি --আমার নিজের ক্যামেরায় তোলা

আগের পর্ব গুলি ---
সুফিবাদ বা সুফী দর্শন একটি ইসলামি আধ্যাত্মিক দর্শন ( ১ম পর্ব)
সুফিবাদ বা সুফী দর্শন একটি ইসলামি আধ্যাত্মিক দর্শন (দ্বিতীয় পর্ব)

সর্বশেষ এডিট : ১৯ শে মে, ২০১৮ সকাল ৮:১৫
২৪টি মন্তব্য ১৯টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

শনিবারের চিঠিঃ পর্ব পাঁচ (ধারাবাহিক সাপ্তাহিক কলাম)

লিখেছেন সাজিদ উল হক আবির, ০৪ ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ দুপুর ১:০৯



.
১।
.
"লেখালিখিতে কি কোন আনন্দ আছে? আমি জানি না। তবে একটা বিষয় নিশ্চিত যে, লেখালিখির জন্য কঠিন বাধ্যবাধকতা আছে, কিন্তু এই বাধ্যবাধকতা কোথা থেকে আসে, তাও আমার জানা নেই... ...বাকিটুকু পড়ুন

লাখ টাকার বাগান খায় এক টাকার ছাগলে

লিখেছেন অনিকেত বৈরাগী তূর্য্য , ০৪ ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ দুপুর ১:৩৭

স্বাধীনতার অব্যবহিত পর আওয়ামীলীগের একটা অংশ গিয়ে জাসদ করল। তৎকালীন সরকারকে হটাতে এমন কোনো কাজ নেই তারা করে নি। খুন, ডাকাতি, লুটতরাজ সব চলল। তৈরি করল ১৫ আগস্টের ক্ষেত্র। ঘটল... ...বাকিটুকু পড়ুন

মধু ও মধুমক্ষিকা; স্রষ্টার সৃষ্টিনৈপুন্যতার অনন্য নিদর্শন

লিখেছেন নতুন নকিব, ০৪ ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ দুপুর ২:৫৭

ছবি: অন্তর্জাল।

মধু ও মধুমক্ষিকা; স্রষ্টার সৃষ্টিনৈপুন্যতার অনন্য নিদর্শন

মধু। সুমিষ্ট পানীয়। শ্রেষ্ঠতম ঔষধি। বহু রোগের আরোগ্য। দেশ-কাল-জাত-পাতের উর্ধ্বে সকলের প্রিয় এক পানীয়। কিন্তু কে দেয় এই পানীয়? কী তার সৃষ্টিকৌশল?... ...বাকিটুকু পড়ুন

ধর্মীয় পোষ্টে কমেন্ট করলেই 'নোটীশ' এসে উপস্হিত হয়।

লিখেছেন চাঁদগাজী, ০৪ ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ বিকাল ৫:১৪



*** এক নোটীশেই জেনারেল হয়ে গেছি, অভিনন্দন জানাতে পারেন।

জলবায়ু সমস্যা, গ্লোবেল ওয়ার্মিং, আকাশের ওযোন-লেয়ার নষ্ট হওয়া সম্পর্কে আপনি কখন প্রথম শুনেছেন? ইহা কি শেখ সাহেবের মুখ... ...বাকিটুকু পড়ুন

কলাবতী ছবি ব্লগ

লিখেছেন মোঃ মাইদুল সরকার, ০৪ ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:১১


কলাবতী ফুল অনেকেরই ভালো লাগে ,নজর কাড়ে । আবার ভালোবাসে কেউ কেউ।
যতই রূপবতী গুণবতী হোক এই ফুল তবুও সে পড়ে থাকে অবহেলায় রাস্তার পাশে ,নর্দমার পাশে ,জঙ্গলে ,পরিত্যক্ত জায়গা।
দু চারজন... ...বাকিটুকু পড়ুন

×