somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

দিক

৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৬ রাত ১০:৪৬
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

পরিবর্তন কি মানুষের মতোই কোনো জিনিস যাকে অবয়বে দেখা যায়, ধরা যায়? নাকি এমনকিছু, যাকে শুধু অনুভবে রাঙানো যায়, ফোটানো যায়? এমনকিছু, যার নিজের কোনো আকার তো নেই (অথবা কেবল গতি, অথবা একটা অস্পষ্ট রূপ), কিন্তু শুধুমাত্র মানুষের ধারণের মধ্য দিয়েই আস্তে আস্তে স্পষ্ট রূপে নিজের আকার এঁকে নেয়?

জীবনপ্রাপ্তি বা ভূমিকাপ্রাপ্তি থেকেই কোনোকিছুর যাত্রা শুরু হয় পরিবর্তনে অথবা পরিবর্তনের দিকে। কোথায় কার পরিবর্তনের শেষ তা কেউ জানে না। হয়তো শেষ না হয়েও পরিবর্তনের মাঝেই ত্যাগ দিতে হয় সে-সবকিছু, যা-কিছু প্রাপ্ত হয়েছিলো। কিন্তু কিছুই ব্যর্থ নয়। অপ্রয়োজনীয় নয়, আধা নয়। সবই কিছু মাত্রা পর্যন্ত সফল, এবং অপেক্ষায়...মূল উদ্দেশ্য সাধনের।
অতীতে যা সত্য ছিলো, যা ছিলো অনুভবতায়, তা সত্য, চির। আবার আজ যা সত্য না, যা নেই অনুভবতায়, নেই চৈতন্যে, তাও সত্য, চির। সময় সবার জন্যই জায়গা তৈরি করে দেয় (অথবা বরাদ্দ)। বলা যায় সময় উদার। সময়কে সায় দেওয়াটা মূল নয়, বরং যে সায় দিচ্ছে প্রকৃত সে-ই মূল, ফোকাসে।

যেন বিশ্বাস করতে ইচ্ছা হচ্ছে, যে গান যে সুর হৃদয়ের দরদকে না স্পষ্ট করে, আবার না জাগায়, কেবলই শোনায় তার কৃতিত্ব কোথায়?
যে কবিতা পড়তে পড়তে অর্থ অনর্থ হয়ে যায়, বোঝা যায় না তার কোনো উদ্দেশ্য বা জীবনরূপ ভূমিকা, তার আত্ম অথবা আত্মিক শুশ্রূষা- যা অনুভবতাকে শীতল করে, গভীর করে, কেবলই লেখ্য রূপে কয়েকটা সংবর্ধনায় তার কৃতিত্ব কোথায়? সব কর্মের বিপরীতেই জড়ো হয়ে থাকে তার উদাসীন ব্যর্থতা- সেই ব্যর্থতা পেতে কোনোরকম প্রতিজ্ঞা নিতে হয় না।

এই পৃথিবীতে ভালো কিছুর প্রকৃতই কোনো নির্দিষ্ট দেশ, জাতি বা কাল নেই- যা আমরা বলেছি, শুনি, শুধু বিশ্বাসটাই করিনি। বিশ্বাস মানেই তো চর্চা! নয় কি? আর যার কোনো কিছু নির্দিষ্ট নয়, সে কখনো অপ্রকাশ্যও থাকে না। সমস্ত পৃথিবীই তার- তার আয়োজনে, প্রয়োজনে, ইচ্ছায়। কেউ না কেউ খুঁজে নেবে বারবার, বুঝে নেবে, মনে রাখবে, অনুসরণ করে যাবে।


**A Scholar says, when you get that feeling, ''this is time to change''...that is THE CALLING and you should turn to change. The action of change itself will split the seconds from your old You to your new You.
সর্বশেষ এডিট : ৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৬ রাত ১০:৫০
০টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

ভার্টিগো আর এ যুগের জেন্টস কাদম্বিনী

লিখেছেন জুন, ১০ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ৯:১৩



গুরুত্বপুর্ন একটি নথিতে আমাদের দুজনারই নাম ধাম সব ভুল। তাদের কাছে আমাদের জাতীয় পরিচয় পত্র ,পাসপোর্ট এর ফটোকপি, দলিল দস্তাবেজ থাকার পরও এই মারাত্মক ভুল কি... ...বাকিটুকু পড়ুন

পরিমনি মা হয়েছে

লিখেছেন শাহ আজিজ, ১০ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ১০:২৩



আজ পরিমনি একটা ফুটফুটে পুত্র সন্তান জন্ম দিয়েছে । বি ডি ২৪ এই খবর ছাপিয়েছে ।
করোনার সময়ে একটি ক্লাবে পরিমনি বনাম ক্লাব মেম্বারদের ঝগড়া ঝাটির সময়ে আমি পরিমনিকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

কৈফিয়ত

লিখেছেন জটিল ভাই, ১১ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ১:০০


(ছবি নেট হতে)

আউযুবিল্লাহিমিনাশশাইত্বোয়ানিররাজিম।
বিসমিল্লাহিররাহমানিররাহিম।
আসসালামুআলাইকুম।

উপরের মত করে সূচনা যাদের নিকটে বিরক্তিকর মনে হয়, তাদের নিকট ক্ষমা প্রার্থণা করে বলছি,

এভাবে শুরু করার ফলে আমার বিভিন্ন সুবিধা হয়ে থাকে। যেমন ঐ অংশটা লিখার... ...বাকিটুকু পড়ুন

যাপিত জীবনঃ কি যাতনা বিষে বুঝিবে সে কিসে কভু আশীবিষে দংশেনি যারে।

লিখেছেন জাদিদ, ১১ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ১:১৪

১।
মেয়েকে রুমে একা রেখে বাথরুমে গিয়েছিলাম। দুই মিনিট পরে বের হতে গিয়ে দেখি দরজা বাইরে থেকে লক। পিলে চমকে উঠে খেয়াল করলাম পকেটে তো মোবাইলও নাই। আমি গেট নক... ...বাকিটুকু পড়ুন

কোটিপতি এবং বাংলাদেশীদের সুইস ব্যাংকের হিসাব।

লিখেছেন সৈয়দ মশিউর রহমান, ১১ ই আগস্ট, ২০২২ বিকাল ৩:১৮



স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে দেশে কোটিপতি আমানতকারী ছিল ৫ জন। ১৯৭৫ সালে তা ৪৭ জনে উন্নীত হয়। ১৯৮০ সালে কোটিপতি হিসাবধারীর সংখ্যা ছিল ৯৮টি। এরপর ১৯৯০ সালে ৯৪৩টি, ১৯৯৬... ...বাকিটুকু পড়ুন

×