somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

তারেক_মাহমুদ
আমি লেখক নই, মাঝে মাঝে নিজের মনের ভাবনাগুলো লিখতে ভাল লাগে। যা মনে আসে তাই লিখি,নিজের ভাললাগার জন্য লিখি। বর্তমানের এই ভাবনাগুলোর সাথে ভবিষ্যতের আমাকে মেলানোর জন্যই এই টুকটাক লেখালেখি।

অতিপ্রাকৃতিক গল্পঃ ভৌতিক নারী

১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৪:৩১
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

শোভন গাঙ্গুলীর সাথে আমার খুব অল্প সময়ের পরিচয়েই বন্ধুত্ব হয়ে যায়। সে  যশোর এম এম কলেজের সাবেক ছাত্র। আমার এক কাছের বন্ধুর মাধ্যমেই তার সাথে আমার পরিচয়। পহেলা বৈশাখের মেলা দেখতে এসেছিল আমাদের গ্রামে।ছেলেটির সাথে কথা বলে বুঝলাম সে গল্প করতে খুব পছন্দ করে। মেলা দেখা শেষে সন্ধ্যায় নবগঙ্গা নদীর ঘাটে বসে আমরা বন্ধুরা আড্ডা দিচ্ছিলাম। আড্ডার এক পর্যায়ে শোভন তার নিজের জীবনে ঘটে যাওয়া একটি ভৌতিক গল্প শুরু করে। প্রথমে আমার কাছে গাঁজাখোরী কাহিনী মনে হয়েছিল কিন্তু ধীরে ধীরে তার গল্পে মজে গেলাম।

যশোর এম এম কলেজে পড়ার সময় শোভন একটি হিন্দু মেসে থাকতো।একদিন রাত ১০টার দিকে ছাত্র পড়িয়ে মেসে ফিরছিল। ছাত্রের বাসা থেকে আম বাগানের মধ্য দিয়ে একটি শর্টকাট রাস্তা দিয়ে ফিরছিল। যে রাস্তা দিয়ে মাত্র দশ মিনিটেই তার মেসে পৌঁছানো যায়। কিন্তু সেদিন ঘড়ির দিকে তাকিতে দেখলো একঘণ্টারও বেশি সময় ধরে বাগানের মধ্যদিয়ে হাটেই চলছে কিন্তু পথই শেষ হচ্ছে না। ঘুটঘুটে অন্ধকারে হঠাৎ করেই দূরে সাদা শাড়ি পরা একটি ছায়ামূর্তি দেখে থমকে  গেল ,শোভনের মনে হচ্ছিল ওই নারী তার দিকে তাকিয়ে খিল খিল করে হাসছে। এরপর আর কিছু মনে নেই, পরের দিন সকালে নিজেকে একটি ক্লিনিকের বেডে  আবিষ্কার করলো।  পরে জানতে পারলো তার মেস থেকে প্রায় ৫ কিলোমিটার দূরে একটি আম বাগানে তাকে অজ্ঞান অবস্থায় পাওয়া গেছে। বাগানের মালিক হসপিটালে ভর্তি করে গেছেন।

এর একমাস পর শোভনের ইয়ার ফাইনাল পরিক্ষা সমাগত, তার আশা ছিল ফাস্টক্লাস পাবে। পরিক্ষার আগের দিন অনেক রাত পর্যন্ত পড়াশুনা করে ঘুমিয়ে পড়েছিল সে,স্বপ্ন দেখলো, সে রিকাশায় করে পরিক্ষা দিতে যাচ্ছে, হঠাৎ করেই আম বাগানের সেই নারী মুর্তি হাজির। রিকশা দাড় করিয়ে বলছে তুই যতই পড়াশুনা করিস ফাস্টক্লাশ মার্কস তুলতে পারবি না। এরপর রিকশাচালক ও সেই নারী দুজনই হো হো করে হাসছে। ঘুম ভেঙে গেল তার, ঘুম থেকে উঠে ফ্রেস হয়ে পরিক্ষা দেওয়া উদ্দেশ্যে রিকশায় করে কলেজের দিকে রওনা দিল। 

মেস থেকে কলেজে যেতে ২০ মিনিট মত সময় লাগে। রিকশায় বসে ভাবলো হাতে একঘণ্টা সময় আছে শর্টনোটগুলো একটু চোখ বুলিয়ে নেই। কিছুক্ষণ পর  খেয়াল করলো রিকশাওয়ালা তাকে কলেজের পথে নয় অন্য পথে নিয়ে যাচ্ছে। রিকশাচালকে ধমক দিল শোভন
-কোথায় যাচ্ছেন আপনি?
রিকশাওয়ালা তার দিকে ফিরে তাকাতেই পিলে চমকে গেল শোভনের। খেয়াল করলো কালরাতে স্বপ্ন দেখা সেই  রিকশাওয়ালাই এইলোক। কিছু বলার ভাষা হারিয়ে ফেললো সে। এরই মধ্যে অন্য আর একটি ঘটনা ঘটে গেল, ঠিক তার পাশেই একটি ট্রাকের সাথে একটি রিকশার সংঘর্ষ হল। একটি মেয়ে রিকশা থেকে ছিটকে পড়ে গেল, শোভন কোনকিছু না ভেবেই মেয়েটিকে বাঁচাতে এগিয়ে গেল। মেয়েটি তার আঙুল চেপে ধরলো এবং বলতে লাগলো ভাই আপনি আমাকে বাচান।

শোভন তখন নিজের পরীক্ষার কথাও ভুলে গেল, মেয়েটিকে দ্রুতগতিতে হাসপাতালে নিয়ে গেল। মেয়েটিকে হাসপাতালে ভর্তি করার পর তার মনে হল, আরে আমিতো পরীক্ষা দিতে যাচ্ছিলাম! ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখলো সাড়ে নয়টা বাজে, পরীক্ষাতো দশটায় হাতে আধাঘণ্টা সময় আছে। কোন সমস্যা নয় এখান থেকে দশ মিনিট লাগবে কলেজে যেতে। দ্রুত কলেজে পৌঁছাল শোভন, কলেজে গিয়ে দেখলো তার সহপাঠীরা কেউই বাইরে নেই। ঘড়ির দিকে তাকালো সে, না এখনো ১৫ মিনিট দেরী আছে পরীক্ষা শুরু হওয়ার।

পরীক্ষার হলে ঢুকে দেখলো সবাই আপন মনে পরীক্ষা দিচ্ছে, হল পরিদর্শক জিজ্ঞাসা  করলেন এত দেরী কেন? শোভন অবাক হয়ে ঘড়ির দিকে তাকালো, এখনো দশটা বাজতে পাচ মিনিট বাকী। কোন কথা না বলে খাতা নিয়ে পরীক্ষায় মন দিল। চার ঘন্টার পরীক্ষা। শোভনের ঘড়িতে যখন পৌনে বারোটা তখন হল পরিদর্শক বললেন আর মাত্র ১৫ মিনিট সময় আছে সবাই খাতা সেলাই করে নাও। শোভন অবাক হয়ে আবার নিজের ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখলো ২টা বাজতে ১৫ মিনিট বাকী এটা কি করে সম্ভব মাত্রইতো দেখলাম ১২ বাজতে ১৫ মিনিট বাকী! মাত্র ৫৫ মার্কের উওর দিয়েছে কিন্তু কিছুই করার নেই। তাড়াহুড়ো করে ১৫ মিনিটে আরো ১৫ মার্কের উওর দিতে দিতে সময় শেষ।  হল থেকে সে বেরিয়ে এল। হল থেকে বেরিয়ে গতকালের স্বপ্নের সেই নারীর কথা, রিকশাচালকের কথা, এবং এক্সিডেন্ট করা মেয়েটার কথাও মনে পড়ে গেল। শোভন ভাবলো যাই একটু হসপিটালে গিয়ে দেখে আসি। হসপিটালে গিয়ে শুনতে পেল মেয়েটি মারা গেছে। কি নিষ্পাপ চেহারার মেয়েটি! শোভনের মনটা কেঁদে ওঠলো।

শোভনের পরিক্ষা শেষ, বাবা মাকে দেখার জন্য শোভনের মন ছুটে যায় বাড়িতে। তাদের বাড়ি কোটচাঁদপুর, যশোর থেকে খুব বেশি দূরে নয়। রাত দশটার ট্রেনে চেপে বসে সে। ট্রেনে উঠে বুঝতে পারে কামরাতে সে ছাড়া আর দ্বিতীয় কোন মানুষ নেই। আর এটা এমন একটি কামরা যেটা থেকে চলন্ত অবস্থায় অন্য কামরায় যাওয়ার সুযোগ নেই। ট্রেন ইতিমধ্যে চলতে শুরু করেছে। এক কামরায় একা একা গা ছমছম করছিল তার। ট্রেনের আলো খুবই টিমটিমে তাই বই পড়াও সম্ভব নয়। তাই চুমচাপ একাএকা বসে বিভিন্ন ভাবনায় নিমজ্জিত হয়। হঠাৎ করেই খেয়াল করলো ট্রেন থেমে পড়েছে,সে ভাবলো ট্রেন কোটচাঁদপুর এসে পড়েছে। যখনি নামতে যাবে তখনি সে খেয়াল করলো ট্রেনের জানালার কাছে একটি সাদা কাপড়ে়র আচল নড়ছে।সে ভাবলো রেল লাইনের পাশে কেউ কাপড় শুকাতে দিয়েছিল নিতে ভুলে গিয়েছে। দরজার কাছে গিয়ে দেখলো এটা কোন ষ্টেশন নয়, পাশে বিরাট বন, জানালার কাছে তাকাতেই খেয়াল করলো সেই সাদা শাড়ি পরিহিতা নারী খিল খিল করে হাসছে যাকে সে আম বাগানের মধ্যে দেখেছিল। শোভন ভয়ে জ্ঞান হারালো। যখন জ্ঞান ফিরলো বাইরে তাকিয়ে দেখলো ট্রেন কোটচাঁদপুর ষ্টেশনে পৌঁছে গেছে।

সমস্ত সাহস সঞ্চয় সে রেলষ্টশনে নেমে পড়লো। রেলষ্টেশন থেকে দশ মিনিটে পথ তাদের বাড়ি, কিন্তু এই পথটুকু একা একা চলার শক্তি পেল না। রেলষ্টেশনের চায়ের দোকানদার করিম চাচা শোভনের পরিচিত। উনাকে পুরো ঘটনাটা খুলে বললো।  করিম চাচা তার ছেলেকে শোভনের সাথে দিলেন, অবশেষে সে বাড়ি পৌঁছাল।

বাড়িতে পৌঁছে দেখে তার মা দিদি সবাই মামাবাড়ি বেড়াতে গেছে। বাড়িতে শুধু বাবা একাই আছেন। একটু ভাত খেয়ে ঘুমিয়ে পড়ল, ঘুমের মধ্য অদ্ভুত সব স্বপ্ন দেখতে লাগলো। প্রথমে সেই মেয়েটিকে স্বপ্ন দেখলো যাকে সে হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছিল, সে বলছে দাদা তুমি আমাকে বাঁচাতে পারলে না। এরপরই সেই নারী হাজির, এবার সে শোভনের গলা চেপে ধরলো। শোভনের দম বন্দ হয়ে আসছে  সে ঠাকুর দেবতাদের নাম জপতে লাগলো। শোভন নড়াচড়ার শক্তি হারিয়ে ফেললো। শোভন মৃত্যু প্রায় দ্বারপপ্রান্তে পৌঁছানো মানুষের মত গোঙাড়ানির মত আওয়াজ করতে লাগলো।

শোভনের গোঙড়ানোর শব্দে পাশের রুম থেকে তার বাবা এসে তাকে জোরে জোরে ধাক্কা দিতে লাগলেন।কিছুক্ষণের মধ্যে শোভন শরীরে শক্তি ফিরে পেলো। তখনো তার নিশ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছিল। বাবাকে সব ঘটনা খুলে বললো। সেই রাতটা বাবাছেলে একই বিছানায় কাটিয়ে দিল।

শোভনরা হিন্দু হলেও এলাকাতে জিন ভুত নিয়ে কাজ করে এমন কোন পুরোহিত না থাকায় তারা একজন হুজুরের কাছে গেলো। হুজুর শোভনের পুরো গল্পটা শুনে তিনটি কাগজে আরবিতে কিছু লিখে শোভনের হাতে ধরিয়ে দিয়ে বললো একটি তাবিজটি সবসময় সাথে রাখতে বাকী দুটি তাবিজের একটি বালিশের নিচে ও একটি ঘরের দরজায় বেধে রাখতে হবে অন্তত ছয় মাস।এরপর থেকেই শোভন সেই তাবিজটি ধারণ করছে,বাকী দুটি তাবিজ একটি বালিশের নিচে ও একটি দরজার সাথে বেধে রাখে। আর কোনদিন সেই নারী তার স্বপ্নে আসেনি।


উৎসর্গঃ মোঃ মাইদুল সরকার ভাই তার একটি পোষ্টে আমার কাছ থেকে ভুতের গল্প শুনতে চেয়েছিলেন তাই মাইদুল ভাইকে গল্পটি উৎসর্গ করছি।
সর্বশেষ এডিট : ১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১২:৪৩
২৬টি মন্তব্য ২৭টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

কিভাবে আমি সামহোয়্যার ইন ব্লগে ব্লগিং এ এলাম[এই পোস্টটি আমার সামুতে ৫০০তম পোস্ট]

লিখেছেন ইসিয়াক, ০৫ ই আগস্ট, ২০২০ দুপুর ২:৫৬


আমার ছোটবেলার বন্ধুদের আমি জীবনের এক জটিল বাঁকে এসে হারিয়ে ফেলি।অনেকদিন তাদের সাথে কোন দেখা নেই,কথা তো দুরের ব্যপার। দীর্ঘ বিচ্ছেদ,কিন্তু ছোটবেলার বন্ধুদের কি ভোলা যায়? বয়স... ...বাকিটুকু পড়ুন

একজন সন্মানিত ব্লগারকে যৌন হয়রানির অভিযোগ আদালতে প্রমানিত হওয়ায় অবিলম্বে নোয়াখালী সাইন্স অ‍্যান্ড কমার্স কলেজের অধ‍্যক্ষ আফতাব উদ্দীনকে গ্রেপ্তার করার দাবী জানাচ্ছি।

লিখেছেন জেন রসি, ০৫ ই আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৪:১৯




নোয়খালী সাইন্স অ‍্যান্ড কমার্স কলেজের অধ‍্যক্ষ ড. আফতাব উদ্দীনের বিরুদ্ধে ২০১৯ সালের মার্চ মাসে যৌন হয়রানির কিছু সুনির্দিষ্ট অভিযোগ করা হয়। অভিযোগ করেন উম্মে সালমা। যিনি সামহোয়ারইন ব্লগে এরিস নিকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

নতুন দেশে শেখ কামালের ভুমিকা কি ছিলো?

লিখেছেন চাঁদগাজী, ০৫ ই আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:২৯



আওয়ামী লীগ 'সরকারী দল', এটা সঠিক; কিন্তু উহার বর্তমান কার্যকলাপে উহাকে একটি রাজনৈতক দল বলা কঠিন ব্যাপার; দেশ স্বাধীন হওয়ার পর আওয়ামী লীগ দেশ শাসন নিয়ে ব্যস্ত... ...বাকিটুকু পড়ুন

ভোরের পাখি

লিখেছেন ঠাকুরমাহমুদ, ০৫ ই আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪২



আমি কবি নই, লেখকও নই - আমি একজন ব্যবসায়ী মানুষ। সততার সাথে এক সময়ে চাকরি করেছি, সততার সাথে ব্যবসা করছি - জীবনে হাড্ডাহাড্ডি প্রচুর পরিশ্রম করেছি আজো প্রচুর পরিশ্রম... ...বাকিটুকু পড়ুন

সামুর বুকে ফিরে আসা কিছু ব্লগারের লিস্ট এবং ফিরতে চাওয়া/ফিরে আসা ব্লগারদের ৩ টি সমস্যার সমাধান!

লিখেছেন সামু পাগলা০০৭, ০৫ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ৮:৩২



সামুতে কিছু পুরোন ব্লগারেরা ফেরা শুরু করেছেন। এটা সামুর জন্যে অবশ্যই ভালো একটি সাইন। সামু যেসব কারণে অনেক গুণী ব্লগার হারিয়েছিল, সেসব সমস্যা আজ আর নেই বললেই চলে।... ...বাকিটুকু পড়ুন

×