somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

অপহরণের প্রতিবাদ: মানবিক, বাণিজ্যিক, না রাজনৈতিক?

০৩ রা এপ্রিল, ২০১৮ ভোর ৪:২৫
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



প্রকাশ্য দিবালোকে সশস্ত্র কিছু দুষ্কৃতিকারী দুইজন মানুষকে অপহরণ করলে, সবারই খারাপ লাগার কথা, ভয় পাওয়ার কথা; এমনকি অপহৃতদের ক্ষতির আশঙ্কায় উৎকণ্ঠিত হওয়ার কথা। এরপর শত ভয়ভীতি এবং উৎকণ্ঠা সত্ত্বেও, সমাজের কিছু বিবেকবান মানুষ এই ঘটনার প্রতিবাদ করবে; একই সাথে অপহরণকারীদের ধরতে এবং অপহৃতদের উদ্ধারে আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাবে আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী, অনেক ক্ষেত্রে সফলও হবে। অন্যদিকে, অনিষ্টের উৎকণ্ঠার পাশাপাশি, তাদের মঙ্গল কামনায় নীরবে প্রার্থনা এবং সরবে তাদের উদ্ধারের দাবী জানানো আমাদের সমাজে খুবই স্বাভাবিক।

এই স্বাভাবিক ব্যাপারগুলোই একের পর এক ঘটে চলেছে পার্বত্য অঞ্চলের আঞ্চলিক সংগঠনের দুই নারী নেত্রীর অপহরণকে কেন্দ্র করে। এরই ধারাবাহিকতায়, গত ২ তারিখে অপহৃত একজনের মায়ের করুণ ছবি সম্বলিত একটি নিউজ করেছে দেশেরই একটা শীর্ষস্থানীয় জাতীয় দৈনিক। এছাড়া অপহৃতদের উদ্ধারসহ ৫দফা দাবিতে ঢাকায় নারী-যুব-ছাত্র সংগঠনসমূহের প্রতিবাদী মশাল মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে একই দিন সন্ধ্যায়।

ঘটনা যাদেরকে নিয়ে, সেই মন্টি চাকমা ও দয়াসোনা চাকমাকে অপহরণের পর প্রায় ১৫ দিন পার হয়ে গেছে। বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে ঘটনার যে বর্ণনা পাওয়া গেছে, তা থেকে জানা যায়, অস্ত্রের মুখে কিছু সন্ত্রাসী গত ১৮ মার্চ রাঙামাটির সদরের কুতুকছড়ির উপর পাড়া গ্রাম থেকে ইউপিডিএফ সমর্থিত হিল উইমেন্স ফেডারেশনের এই দুই নেত্রীকে অপহরণ করে। ঐ সময় সন্ত্রাসীদের ছোঁড়া গুলিতে ধর্মসিং চাকমা নামে একজন ইউপিডিএফ নেতা গুলিবিদ্ধও হয়েছে। সন্ত্রাসীরা এসময় একটি ঘরে আগুনও ধরিয়ে দেয়। এ অপহরণ ঘটনায় ২১জনকে আসামি করে রাঙামাটির কোতয়ালী থানায় একটি মামলা হয়েছে। তন্মধ্যে, নানিয়াচর উপজেলা চেয়ারম্যান শক্তিমান চাকমাকে প্রধান আসামি এবং সদ্য গঠিত ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিক দলের সভাপতি তপন জ্যোতি চাকমা ওরফে বর্মাকে দ্বিতীয় আসামি করা হয়েছে।

এ ঘটনার প্রতিবাদে পার্বত্য অঞ্চলের পাশাপাশি ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে প্রতিবাদ সমাবেশ, মশাল মিছিল, প্রেস ব্রিফিং করে অপহৃতদের উদ্ধারের দাবী জানানো হয়েছে। বলাবাহুল্য যে, প্রসীত খীসার নেতৃত্বাধীন ইউপিডিএফ সমর্থিত তিন সংগঠন গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ ও হিল উইমেন্স ফেডারেশন যৌথভাবে ২১মার্চ খাগড়াছড়ি ও রাঙ্গামাটিতে অবরোধ কর্মসূচি পালন করে। এ কর্মসূচীতে তাদের সমর্থকেরা যথারীতি জ্বালাও – পোড়াও, গাড়ি ভাংচুর, মারধোরের ঘটনা, পুলিশের উপর হামলা ইত্যাদি ঘটনার জন্ম দিয়েছে।

অবরোধ চলাকালে সন্ত্রাসীদের গুলিতে এক অটোরিক্সার চালক আহত হয়, অপর একটি অটোরিক্সায় ছোঁড়া ইটের আঘাতে দেড় বছরের একটি শিশুও আহত হয়। ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে একাধিক গাড়িতে, মারধোর করা হয়েছে যাত্রী ও চালককে। পরিশেষে, অবরোধে হামলা ভাংচুরের দায়ে ইউপিডিএফ’র ৮০ নেতাকর্মীকে আসামি করে মামলাও দায়ের করা হয়েছে।

ঘটনার এখানেই শেষ নয়; শেষ হওয়ার কথাও নয়। কারণ অপহৃতদের অদ্যাবধি উদ্ধার করা যায়নি। প্রায় প্রতিদিনই আমরা খবরের কাগজে এই সংক্রান্ত সংবাদ পাচ্ছি। স্বাভাবিকভাবেই প্রতিদিনই তাদের উদ্ধারের দাবী জানিয়ে বিভিন্ন স্থানে, অনেকেই যার যার সাধ্যানুযায়ী কিছু না কিছু করার চেষ্টা করছেন। এই চেষ্টা্তে ফেসবকে পোস্ট ও কমেন্টের ঝড় বইছে।



এই ঘটনার প্রেক্ষিতে, ইতোমধ্যেই অনেক বিশিষ্ট ব্যক্তি এবং জন প্রতিনিধি অপহরণসহ গুম, খুন, ধর্ষণের বিচারহীনতা এবং সরকারের নির্লিপ্ততার তীব্র নিন্দা জানিয়ে এবং অবিলম্বে অপহৃত নেত্রীদ্বয়কে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করে অপহরণকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানের দাবি জানিয়ে বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেছেন বা ইমেইলে সংহতি জানিয়েছেন।

প্রশ্ন হচ্ছে, এই স্বাভাবিক ব্যাপার কিন্তু সবসময় আমাদের দেশের সবক্ষেত্রে ঘটে না। বিস্মিত হওয়ার বিষয়টি হলো এই যে, এমনকি এই পার্বত্য অঞ্চলেই অনেক অপহরণের পরেও ঢাকায় এমন আন্দোলন বা বিশিষ্ট ব্যক্তিগণ কর্তৃক বিবৃতি স্বাক্ষর বা সংহতি প্রকাশ বা জাতীয় দৈনিকে সংবাদ দেখা যায় না। সহজ ভাষায়, আমাদের সমাজেরই কিছু তথাকথিত মানব দরদী এবং বিশিষ্ট ব্যক্তি এই দুই নারীর ক্ষেত্রে যে প্রতিক্রিয়া বা কর্মসূচী করছেন তা সকল অপহৃত নর বা নারীর জন্যে করেন না। অর্থাৎ, উনাদের কর্মকাণ্ড বিশেষ বিশেষ ব্যক্তি বা দলের জন্যে এক রকম, আর অন্য সকল মানুষের জন্যে আরেক রকম।

আমি ইচ্ছে করেই শান্তি চুক্তির আগের সময়কার কথা বলছি না। ঢাকা ট্রিবিউন এর ২৭ জুলাই ২০১৩ সালের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে, পার্বত্য চট্টগ্রামে গত ১৩ বছরে (২০০১ – ২০১৩) কমপক্ষে ৬৪০ জনকে অপহরণ করা হয়, তন্মধ্যে গুটিকয়েক ভাগ্যবান মুক্তিপণের বিনিময়ে ফিরে আসতে পেরেছিলেন। ভেবে দেখতে পারেন, বিগত বছরগুলোতে কতবার বা কতজনের জন্যে এমন আয়োজন দেখেছেন, আজ যেমন দেখছেন এই দুই নেত্রীর জন্যে। এই দুই নেত্রীর জন্য যে প্রতিক্রিয়া দেখানো হচ্ছে আমি তার বিরোধীতা করছি না। বরং এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু এই স্বাভাবিক ঘটনাটি যখন অন্য অনেকের ক্ষেত্রে না ঘটে- তখন কিছু প্রশ্নের জন্ম দেয়! প্রতিক্রিয়াশীলদের প্রতিক্রিয়ার আসল উদ্দেশ্য বা অর্ন্তনিহিত তাৎপর্য নিয়ে প্রশ্ন দেখা দেয়। বর্তমান লেখার মূল উদ্দেশ্য সেটাই।

উদাহরণ স্বরূপ পার্বত্য চট্টগ্রামে সম্প্রতিকালে ঘটে যাওয়া কয়েকটি উল্লেখযোগ্য অপহরণের ঘটনার দিকে পাঠকদের মনোযোগ আকর্ষণ করা যেতে পারে।

১. চাঁদা না দেয়ায় ২৭ মার্চ, ২০১৮ তারিখে খাগড়াছড়ি সদর থেকে মোবাইল অপারেটর রবি কোম্পানীর চার প্রকৌশলীকে অপহরণ করেছে পাহাড়ী সন্ত্রাসীরা। বিষয়টি কঠোরভাবে গোপন রাখায় অপহরণের ঘটনাটি এতদিন প্রকাশ পায়নি। সংবাদে আরো জানা গেছে, অপহরণ করে কয়েক কোটি টাকা টাকা মুক্তিপণ দাবি করেছে অপহরণকারীরা। (পার্বত্যনিউজ, ৩ এপ্রিল ২০১৮)।

২. খাগড়াছড়ির মানিকছড়ি উপজেলার ছদুরখীল এলাকায় মোবাইল ফোন কোম্পানীর চার টেকনিশিয়ানকে অপহরণ করা হয় ৬ মার্চ, ২০১৮ তারিখে। ইতিপূর্বে, চাঁদা না দেওয়ায় চাঁদাবাজরা কয়েকবার টাওয়ারের লাইন বিচ্ছিন্ন করে দেয়। পরে, রবি টাওয়ারের মেরামতের কাজে আসলে এই টেকনিশিয়ানদের অপহরণ করে সন্ত্রাসীরা। (পার্বত্যনিউজ, ৬ মার্চ ২০১৮)

৩. নারী, শিশু ও বৃদ্ধসহ একত্রে ৬২ জনকে অপহরণ করেছিল একদল সশস্ত্র দুর্বৃত্ত, গত ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ তারিখে। ‘অপহরণের ১৬২ দিন পর মুক্তি পেলেন ৩৫ জন’ শিরোনামে দৈনিক প্রথম আলোর ৩০ জুলাই ২০১৩ তে প্রকাশিত সংবাদ হতে আরো জানা যায় যে, পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির ৪১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান শেষে ইঞ্জিনচালিত নৌকাযোগে রাঙামাটি থেকে বাড়ি ফেরার পথে এদেরকে অপহরণ করা হয়। পরে নয়জন নারী, শিশু ও বৃদ্ধকে মুক্তি দেয়। সংবাদ প্রকাশের দিনও আরো ১৫জন অপহরণকারীদের হাতে জিম্মি ছিল।

৪. ২০১৪ সালের নভেম্বরে লংগদু উপজেলার সদর ইউনিয়নের হারিহাবা নামক এলাকা থেকে অপহৃত হন বন বিভাগের তিনজন কর্মকর্তা। দৈনিক প্রথম আলোর ৮ নভেম্বর ২০১৪ তারিখের সংবাদ অনুসারে, তাদের মুক্তির বিনিময়ে অপহরণকারীরা ১৫লাখ টাকা দাবি করে। ৬ নভেম্বরে অপহৃত হওয়ার ১৯ দিন পরে যৌথ বাহিনীর অভিযানের মধ্যে দিয়ে তাদের মুক্তি ঘটে।

৫. ২০১৩ সালের ৮ জুলাই বাঘাইছড়ি উপজেলার মারিশ্যা থেকে বি টেকনোলজির প্রকৌশলীসহ পাঁচজনকে অপহরণ করে ৪০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়। পরবর্তীতে, দর কষাকষির এক পর্যায়ে, মুক্তিপণ ৪০ লাখ টাকা থেকে বাড়িয়ে তিন কোটি টাকা দাবি করায় বি টেকনোলজির প্রতিনিধির সঙ্গে অপহরণকারীদের বৈঠক ভেস্তে যায়। (দৈনিক প্রথম আলো, ২২ জুলাই ২০১৩)।

৬. এক ব্রিটিশ ইঞ্জিনিয়ারকে তার দুই ডেনিস সহকর্মীসহ রাঙ্গামাটির গুনিয়াপাড়া থেকে ২০০১ সালের ফেব্রুয়ারিতে আটজনের একদল সশস্ত্র পাহাড়ি মুক্তিপণের দাবিতে অপহরণ করে। একই গাড়িতে থাকা আরো একজন বিদেশি এবং গাড়ির ড্রাইভারকে তারা ছেড়ে দেয় মুক্তিপণের টাকা জোগাড় করার জন্যে। কত টাকা মুক্তিপণের বিনিময়ে মাসাধিককাল পরে তারা মুক্তি পেয়েছিলেন, তা অবশ্য জানা যায় নি। (দি টেলিগ্রাফ, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০০১)।

৭. ডেনিশ সাহায্যকারী সংস্থা ডানিডাতে কর্মরত দুইজন বাংলাদেশিকে থানচির নিকটবর্তী এক গ্রাম থেকে ২০০৭ সালের জুলাই মাসে অপহরণ করা হয়। (রয়টার্স, ১৩ জুলাই ২০০৭)।

৮. রাঙ্গামাটির বিলাইছড়ি থেকে একজন স্থানীয় গাইডসহ দুই বাঙ্গালী পর্যটককে অপহরণ করা হয় ২০১৫ এর ৩ অক্টোবর তারিখে। (ডেইলি সান, ১৩ অক্টোবর ২০১৫)।

৯. গুইমারা উপজেলার বাইল্যাছড়ি সাইনবোর্ড এলাকায় বাসের গতিরোধ করে, বাস থেকে স্বামীর পাশে বসে থাকা স্ত্রীকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছিলো ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে। পরে ২০১৮ সালের মার্চে ইউপিডিএফ সমর্থিত পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের কর্মী সজীব ত্রিপুরাকে আটক করে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। তার স্বীকারোক্তি হতে পুলিশ জানতে পারে যে, গৃহবধু ফাতেমা বেগমকে অপহরণ করে ইউপিডিএফের সদস্যরা মিলে পালাক্রমে ধর্ষণ করেছে। তার অপরাধ ছিলো সে বাঙালী ছেলেকে ভালবেসে বিয়ে করেছে ধর্মান্তরিত হয়ে (পার্বত্যনিউজ, ৪ মার্চ ২০১৮)।

১০. খাগড়াছড়ি জেলা শহরের এক হাসপাতাল থেকে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ এর দুই নেতাকে অস্ত্রের মূখে অপহরণ করা হয় ২০১৭ সালের অক্টোবরে। এই ঘটনায় আঞ্চলিক একটি রাজনৈতিক দলকে দায়ী করা হয়। (পার্বত্যনিউজ, অক্টোবর ২২, ২০১৭)।

১১. নভেম্বর ২০১৭ তে খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার কমলছড়িতে ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের (ইউপিডিএফ) দুই সদস্যকে মারধরের পর গুরুতর জখম অবস্থায় অপহরণ ও হরিনাথ পাড়া থেকে ইউপিডিএফ’র অপর এক সমর্থককে অপহরণের অভিযোগ পাওয়া যায় ইউপিডিএফ খাগড়াছড়ি ইউনিটের সংগঠক মাইকেল চাকমার এক বিবৃতিতে।(পার্বত্যনিউজ, নভেম্বর ১৮, ২০১৭)।

১২. ১১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর পোষ্টার লাগানোর সময় রাঙ্গামাটি থেকে ইউপিডিএফের সাতজন কর্মীকে ২০০৯ এর ডিসেম্বরে অপহরণ করা হয়। এই ঘটনার পিছনে, জে এস এস এর সন্ত্রাসীরা এই অপহরণের সাথে জড়িত বলে ইউপিডিএফের পক্ষ হতে অভিযোগ করা হয়। (ডেইলি স্টার, ২৬ ডিসেম্বর, ২০০৯)।

১৩. বিপক্ষ দলের হয়ে মিছিলে অংশ নেয়ায় নানিয়ারচরের ৫ জন ইউপি সদস্যসহ ২০ জনকে ২১ ডিসেম্বর ২০১৭ তে অপহরণের অভিযোগ করা হয়। (পার্বত্যনিউজ, ডিসেম্বর ২২, ২০১৭)।

১৪. অতি সম্প্রতি, নব গঠিত ইউপিডিএফ ডেমোক্র্যাটিক এর তরফ হতে প্রকাশিত এক বুকলেটে ১৮ জন ইউপিডিএফ কর্মীর নাম ও ঠিকানা দেয়া হয়েছে। বুকলেটের দাবী অনুযায়ী, দলের সিদ্ধান্তের সাথে দ্বিমত করায় এই ১৮ জনকে মেরেই ফেলা হয়েছে।

১৫. ২০১৭ সালের ২১ এপ্রিলে এক ত্রিপুরা নারী চা শ্রমিক বাঙ্গালী ছেলেকে ভালবেসে পালিয়ে বিয়ে করার জের ধরে পাহাড়ি সন্ত্রাসীদের হাতে অপহৃত ফটিকছড়ির নাছিয়া চা বাগানের ১৯টি পরিবারের নারী ও শিশুসহ ৭৮ জনকে অপহরণ করে পাহাড়ী সন্ত্রাসীরা।

১৬. ৫ জানুয়ারী ২০১৪ সালের নির্বাচনের আগে ৩ জানুয়ারিতে জেএসএস এমএনলারমা গ্রুপের সমর্থিত খাগড়াছড়ি আসনের স্বতন্ত্রপ্রার্থী মৃনাল কান্তি ত্রিপুরার স্ত্রীসহ ৬জন নারী কর্মীকে জেলা সদরের গিরিফুল দক্ষিণ হেডম্যান পাড়া এলাকা হতে অপহরণ করা হয়ে। প্রার্থী মৃনাল কান্তি ত্রিপুরা জানায়, পানছড়ি সড়কস্থ গিরিফুল এলাকায় তার স্ত্রী পারুমিতা চাকমা (পুতুলী), তার বউদি মেনকা ত্রিপুরা, তার শেলিকা অনুভা ত্রিপুরা এবং আরও ৩কর্মীসহ ভোট চাওয়ার জন্য গেলে ঘটনাস্থলে অপহরণের শিকার হয়। তিনি এ ঘটনায় ইউপিডিএফকে দায়ী করেন।

এরকম আরো অসংখ্য ঘটনার উদাহরণ দেয়া যায়, কিন্তু তা পাঠকদের ধৈর্যচ্যুতি ঘটাতে পারে বিধায় সে চেষ্টায় বিরত থাকা হলো।

শান্তি চুক্তির পরে গত ২০ বছরে, পাহাড়ি-বাঙ্গালী মিলিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে প্রায় হাজার দেড়েক মানুষ অপহরণের ঘটনার শিকার হয়েছে। এদের মধ্যে পাহাড়িদের সংখ্যাই বেশি। আঞ্চলিক দলগুলোর সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের হাতেই সবচেয়ে বেশি অপহরণ, হত্যা বা ধর্ষণের মতো অপরাধের শিকার হচ্ছে নিরীহ পাহাড়িরা। কিন্তু ভয়ে তারা মুখ খুলতে সাহস পায় না কখনই, তাই এই সব ঘটনার বেশির ভাগই রয়ে যায় সকলের অজ্ঞাতে। এসব অপহরণের কথা, অহরণের পর হত্যার কথা মিডিয়াতে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই খুব একটা আলোচিত হয় না।

অপহৃত দুই নেত্রী অপেক্ষাকৃত শক্তিশালী দলের হওয়ায় এবং অপহরণকারীদের দৌরাত্ম এখনো অতটা বাড়েনি বলেই হয়তবা এই ঘটনার কথা জানা গেছে। যদি এর ঊল্টোটা ঘটতো, অর্থাৎ চিরাচরিত প্রথার মতই প্রধান দুই আঞ্চলিক দলের সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা ছোট দুই দলের নেতাদের অপহরণ করত, তাহলে যে আর যাই হোক এত মিছিল, প্রতিবাদের লোক পাওয়া যেত না- সেটা বুঝতে এতক্ষণে নিশ্চয় কারো দেরি হওয়ার কথা নয়। উপরে যেসকল অপহরণের ঘটনার কথা আলোচিত হয়েছে, এরকম আরো অসংখ্য অপহরণের ঘটনায় এখন যাদের প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে তাদের টিকিটিও খুঁজে পাওয়া যায়নি, বিবৃতি, কর্মসূচীতো দুরে থাকুক।

ভেবে দেখুন, দিনে দুপুরে সবার সামনে থেকে স্বামীর পাশে বসা গৃহবধুকে অপহরণ করার পরেও কিন্তু আমরা এই সকল নারীবাদী, মানবাধিকার কর্মী এবং বিশিষ্ট ব্যক্তিদের কোন ধরনের বক্তৃতা বা বিবৃতি দেখিনি। কেউই তখন ফাতেমা বেগমকে উদ্ধার বা অপহরণকারীদের গ্রেফতারের দাবী জানিয়ে রাজপথে একটি বারের জন্যেও মশাল মিছিলের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেননি। মামলা আছে, গ্রেফতারকৃত আসামির স্বীকারোক্তি আছে, অথচ বাকি অপরাধীদের গ্রেফতার বা শাস্তির দাবিতে কোন আওয়াজ নেই।

আজ যারা অপহৃত এই দুই নেত্রীকে নিয়ে এত কিছু বলছেন, এদের অনেকেই হয়ত সৈকত ভদ্র অথবা রেটিনা চাকমার সহযোদ্ধা ছিলেন; অথচ কী এক অদ্ভুত কারণে রেটিনা চাকমার অপহরণ ও তাকে নিলামে তুলে ধর্ষণ নিয়ে কেউ কখনই কিছু বলেননি এবং বলছেন ও না। দিপা ত্রিপুরার অপহরণকারী এবং যৌন নির্যাতনকারীদের ব্যাপারেও কেউ কিছু কখনই বলে না।

চোখের সামনে ঘটে যাওয়া হাজারো জলজ্যান্ত অপহরণের ঘটনা থাকা সত্ত্বেও কী এক অদ্ভুত কারণে কিছু লোক প্রতি বছরই কল্পনা চাকমার বানোয়াট এক অপহরণের বিচার চায়! কারণটি অনুধাবনের ও খুঁজে বের করার ভার সচেতন পাঠকদের উপরই রইল!
সর্বশেষ এডিট : ০৩ রা এপ্রিল, ২০১৮ রাত ১১:১১
০টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

সরকার মতপ্রাকেশর পূর্ণ স্বাধীনতায় বিশ্বাসী

লিখেছেন আখ্যাত, ২৪ শে মে, ২০১৯ সকাল ১০:৩০

প্রিয় ভাইবোন, আপনাদের সাময়ীক কষ্টের জন্য আমরাও কষ্টিত। বিশেষভাবে ব্যথিত। আপনাদের Log in প্রবলেম সমাধান করার জন্য গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার নির্ঘুম ঘাম ঝরানো পরিশ্রম করে যাচ্ছে।

ভায়েরা আমার, আপনারা সব... ...বাকিটুকু পড়ুন

বান-আন বিভ্রাট !

লিখেছেন আর্কিওপটেরিক্স, ২৪ শে মে, ২০১৯ সকাল ১১:১৪


বানান নিয়ে বাঙ্গালীর বিদ্যুৎ বিভ্রাট বা লোডশেডিং এর মতোই অবস্থা। এখন ঠিক তো তখন বেঠিক ! যেন বিদ্যুতের অবারিত আসা-যাওয়া। আমরা আর আমড়া নিয়ে লাগে মাড়ামাড়ি থুক্কু মারামারি !... ...বাকিটুকু পড়ুন

তিনটি রাজনীতি ঘেইষা দাঁড়ানো কৌতুক ও ব্লগারদের জন্য একটি বেমক্কা ধাঁধা !!

লিখেছেন টারজান০০০০৭, ২৪ শে মে, ২০১৯ সকাল ১১:৪৩

১. যুবরাজ সালমান ঘোষণা করিলেন, এখন হইতে নারী স্বাধীনতার পথে অগ্রযাত্রা হিসেবে নারীদের গাড়ি চালাইতে দেওয়া হইবে !! ইহাতে ডগমগ হইয়া তাহার স্ত্রী শুধাইল , হ্যাগা , সত্যি !! আমি... ...বাকিটুকু পড়ুন

স্যাটেলাইট নিয়ে এত কান্নাকাটি কিসের?

লিখেছেন হাসান কালবৈশাখী, ২৪ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৩:০৩

স্যাটেলাইট নিয়ে এত এলার্জি কেন?

বাংলাদেশ ছিল ৫৭ তম স্যাটেলাইট অউনিং দেশ।
সম্প্রতি (গত মাসে) পাশের ছোট দেশ নেপালও স্যাটেলাইট পাঠিয়ে ৫৮ তম হয়েছে।
সেখানে সবাই সন্তুষ্ট। এই স্যাটেলাইট নিয়ে কোন কান্নাকাটি হয়নি,... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমাদের জীবনে একটা ভুল ধারনা/কুসংস্কার হল, লোকে কি বলবে? যদি আমি নিজের মতো কিছু করি।

লিখেছেন আব্দুল্লাহ্ আল মামুন, ২৪ শে মে, ২০১৯ রাত ১০:১১




আমাদের জীবনে একটা ভুল ধারনা/কুসংস্কার হল, লোকে কি বলবে? যদি আমি নিজের মতো কিছু করি।
_=============
আমরা জীবনের শুরুতেই একটা শিক্ষা পেয়ে থাকি, আমাদের মুরুব্বীরা দিয়ে থাকে, আমাদের... ...বাকিটুকু পড়ুন

×