somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পুরুষদের পর্দার কথা কে বলবে?

০৮ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১০ রাত ১১:৩৯
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


আমার চাচাত ভাই বিবাহিত। সে শুক্রবারে মসজিদে নামাজ পড়তে যায়, এক সপ্তাহে ৩৫ ওয়াক্তের মধ্যে ১ ওয়াক্ত নামাজ পড়ে (রমজানে ব্যতিত)। ভাবী আবার নামাজ রেগুলার পড়ে। ভাবীকে আপাদমস্তক তালিবানি স্টাইলে শুধু চোখ দেখা যায় মত বোরখা পড়তে হয়, না হয় ভাইয়া (চাচাত ভাই) বকাঝকা করবে। ভাবী যাতে দ্বীন ঠিকমত পালন করে সেটা ভাইয়া সবসময় খেয়াল রাখে! একটু এদিক ওদিক হলেই বকা চলে। কিন্তু ভাইয়ার দ্বীনের কোন খবর নাই, সে ক্লীন-শেভড, খুব আধুনিক।

আমি এটা অনেকের কাছ থেকেই শুনেছি যে যে মেয়েগুলা এসিডদগ্ধ হয়েছে সেটা নাকি মেয়েদের দোষ। তারা পর্দা করেনা, তাহলে এসিদদগ্ধ হয়ে তাদেরকে শাস্তি পেতে হবে। যে মেয়েগুলাকে রাস্তায় বখাটে ছেলেরা বিভিন্নরকমভাবে বিরক্ত করে, টিস করে, সেটাও সেই মেয়েগুলারই দোষ। তারা বোরখা পড়েনা কেন? বোরখা পড়া কোন মেয়েকে কি কেউ টিস করে? আশেপাশে যারা থাকে তারাও মাথা নাড়ে, ঠিকই তো। "বেগানা মাইয়ামানুষ রাস্তা দিয়া হাইট্টা যাইব কেন?" এতে ছেলেপুলেদের ঈমানের ঠিক থাকবে? উত্তেজিত হয়ে তো তারা টিস করতেই পারে!

এরকম ধ্যান-ধারণা কিন্তু আমরা যতটুকু পর্যবেক্ষণ করি তার থেকে অনেক বেশি প্রচলিত। মুসলমানরা ইসলামের সবটুকুই মেয়েদের দিয়ে পালন করাতে চায়। ভাই নিজে গিয়ে সিনেমা হলে সিনেমা দেখে আসে, নেটে উল্টাপাল্টা সাইটে নিয়মিত যায়, কিন্তু বোন এদিক ওদিক করলেই তার ঈমান জেগে উঠে। বোন বাসায় বসে সিনেমা দেখলে তার ঈমানের হালত খারাপ হয়ে যাই। গত ১০০০ বছরে লক্ষ লক্ষ বই মুসলিম মেয়েদের পর্দা নিয়ে ছাপা হয়েছে। এখন আধুনিক যুগে মনে হয় প্রতিদিনই ১টা করে বই প্রকাশিত হচ্ছে মহিলাদের পর্দা করার উপদেশ দিয়ে। এসবই লিখে পুরুষরা! মহিলাদেরকে পর্দার ভিতর ঢুকানোর জন্য তাদের কি চেষ্টা! তাদের সভ্যতার কলাপসের জন্যও তারা অনেকেই মহিলাদের পর্দাহীনতাকে দায়ী করে!

অথচ পুরুষদের পর্দা ইসলামের আরো বেশি গুরুত্বপূর্ণ। উল্লেখ্য পর্দা মানে এখানে বোরখা পড়া না। শালীনতা বজায় রাখা, অনৈতিক কিছু দেখা থেকে বিরত থাকা, অনৈতিক চিন্তা-ভাবনা থেকে নিজেকে বিরত রাখা, দৃষ্টি নিচের দিকে নিবদ্ধ করা এসবই পর্দার মধ্যে পড়ে। আজ পর্যন্ত আপনাদের কারো চোখে কি পুরুষদের পর্দার ব্যাপারে কোন বই চোখে পড়েছে? কোন ইসলামিক বুকস্টোরে পুরুষদের পর্দা নিয়ে কোন বই আছে কিনা সেটা কেউ জিজ্ঞেস করতে দেখেছেন? কোন লেকচার সিরিজে পুরুষদের পর্দা কত গুরুত্বপূর্ণ সেটা আলোচিত হতে দেখেছেন? কোন হুজুর সুরেলা কন্ঠে পুরুষদের পর্দা না করলে কত লক্ষ বছর জাহান্নামে জলতে হবে সেটা নিয়ে ওয়াজ করতে শুনেছেন? আমি শুনিনি, কোন বই এই বিষয়ে আমি কোথাও পাইনি। যেসব ছোটখাট দু-পাতার লেখা আমি অনলাইনে দেখেছি সেসব লেখার মধ্যেও কেমন জানি "এটা খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ না" এরকম একটা ভাব আছে। পুরুষদের পর্দার উপর কোন সম্পূর্ণ বই প্রকাশিত হতে আমি দেখিনি।

অথচ কোরানে পুরুষদের পর্দার কথা মেয়েদের পর্দার আগে বলা হয়েছে। পুরুষদের পর্দা মেয়েদের পর্দা থেকে সেজন্যই বেশি গুরুত্বপূর্ণ। প্রকৃতপক্ষে পুরুষরা পর্দা করা শুরু করলে মেয়েরা আপনাআপনিই পর্দা করা শুরু করবে।
"24:30 (Asad) Tell the believing men to lower their gaze and to be mindful of their chastity: this will be most con­ducive to their purity – [and,] verily, God is aware of all that they do. -
# 24:31 (Asad) And tell the believing women to lower their gaze and to be mindful of their chastity, and not to display their charms [in public] beyond what may [decently] be apparent thereof; ....."

সুরা নুরের এই আয়াতগুলো দেখলেই বুঝা যায় যে ছেলেদের পর্দা অন্ততপক্ষে মেয়েদের পর্দার সমান গুরুত্বপূর্ণ, যদি বেশি না হয়। অথচ মেয়েদেরকে পর্দার মধ্যে রাখার জন্য পুরুষদের এত চেষ্টা থাকলেও নিজেদের ব্যাপারে কোন রাখঢাকই নেই।

Hadith - Sahih Bukhari 8.248, Narrated Abu Said Al Khudri Similar narration in Sahih Muslim]

The Prophet peace and blessings of Allah be upon him said, "Beware! Avoid sitting on the roads." They (the people) said, "O Allah's Apostle! We can't help sitting (on the roads) as these are (our places) where we have talks." The Prophet peace and blessings of Allah be upon him said, "If you refuse but to sit, then pay the road its right." They said, "What is the right of the road, O Allah's Apostle?" He said, "Lowering your gaze, refraining from harming others, returning greeting, and enjoining what is good, and forbidding what is evil."

উপরের হাদিসটা যেসব লোক বখাটেদের মেয়ে দেখলে উৎপাত করাকে "মেয়েরা পর্দা কেন করেনা" বলে যুক্তি দেখায় তাদের জন্য উপযুক্ত জবাব। এম্নিতে রাস্তায় দাড়িয়ে আড্ডা দিতেই নিষেধ করা হয়েছে, আর যে রাস্তা দিয়ে মেয়েরা যাতায়াত করে সেখানে দাড়িয়ে শিষ দেওয়াটা কত জগন্য অপরাধ হতে পারে সেটা তো কল্পনাই করা যায়না। যদি খুব দরকারে দাড়াতেও হয়, দৃষ্টি নীচের দিকে রাখতে বলা হয়েছে, যেটা করলে মেয়ে বেপর্দা না বেগানা নাকি অন্যকিছু সেটা তো দেখতে পাওয়ারও প্রশ্নই আসেনা।

আবার অনেককে দেখেছি কোন মেয়ে যদি একটু খোলামেলা কাপড় পড়ে তার নামে যা-তা বলে বেড়ায় ধর্মের দোহাই দিয়ে। সেসব শুনে তথাকথিত ধর্ম-রক্ষাকারী পুরুষেরা হাত-তালি দেয়। নিচের আয়াত দেখেন, তাদের জন্য কি শাস্তি বরাদ্দ রয়েছে।

"# 24:23 (Asad) [But,] verily, those who [falsely, and without repentance,] accuse chaste women who may have been unthinkingly careless but have remained true to their faith, shall be rejected [from God’s grace] in this world as well as in the life to come: and awesome suffering awaits them "


সমাজে নারীরা বেপর্দা হওয়া বা লাক্স-চ্যানেল আইয়ে নিজেদেরকে পণ্য হিসেবে উপস্থাপন করাটাও সম্পূর্ণভাবে পুরুষের দোষ। কোরানেই বলা আছে সেটা।
# 24:26 (Asad) [In the nature of things,] corrupt women are for corrupt men, and corrupt men, for corrupt women - just as good women are for good men, and good men, for good women. [Since God is aware that] these are innocent of all that evil tongues may impute to them, forgiveness of sins shall be theirs, and a most excellent sustenance!


মেয়েদেরকে ধর্মের ষোলআনা পালন করানোর জন্য বাধ্য করব আর নিজের বেলায় ধর্মের কোন খোঁজখবর নেই, এটা সম্পূর্ণভাবে মুনাফেকীর লক্ষণ। একজন মুসলমান নিজের জন্য যা পছন্দ করবে অন্যের জন্যও তাই পছন্দ করবে, নাহয় সে প্রকৃত মুসলমানই না। দেখেন পারেন কিনা, ঢাকার রাস্তায় ১ মাইল হেটে দেখেন আর যত মেয়ে আসে তাদের দিকে না তাকিয়ে দৃষ্টি নিচের দিকে করে রাখবেন, সুন্দরী হোক অসুন্দরি হোক, তাদের দিকে তাকাবেননা। যদি নিজের দৃষ্টিকে সংযত করতে না পারেন তাহলে আপনার বোন, আপনার স্ত্রী, আপনার পাড়াপ্রতিবেশী কাউকেই পর্দা করানোর জন্য জোর করার কোন অধিকার আপনার নেই।
সর্বশেষ এডিট : ০৮ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১০ রাত ১১:৪৩
৭৭টি মন্তব্য ৫৩টি উত্তর পূর্বের ৫০টি মন্তব্য দেখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

জাপান কেন বাঙালির চিরকালের নিঃস্বার্থ বন্ধু?

লিখেছেন রায়হানুল এফ রাজ, ২২ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ৮:৫০



জাপানী সম্রাট হিরোহিতো বাঙ্গলাদেশের প্রতি কৃতজ্ঞতা স্বীকার করে বলেছিলেন, ‘যতদিন জাপান থাকবে, বাঙালি খাদ্যাভাবে, অর্থকষ্টে মরবেনা। জাপান হবে বাঙালির চিরকালের নিঃস্বার্থ বন্ধু’! এটি শুধু কথার কথা ছিলো না, তার... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমার লেখা প্রথম বই

লিখেছেন ফারহানা শারমিন, ২২ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ৯:১৩



ছোটবেলা থেকেই প্রচন্ড রকম কল্পনাপ্রবণ আমি। একটুতেই কল্পনাই হারিয়ে যাই। গল্প লেখার সময় অন্য লেখকদের মত আমিও কল্পনায় গল্প আঁকি।আমার বহু আকাংখিত বই হাতে পেয়ে প্রথমে খুবই আশাহত হয়েছি। আমার... ...বাকিটুকু পড়ুন

স্মৃতির আয়নায়

লিখেছেন নিভৃতা , ২২ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১১:০৪





কিছুদিন আগে নস্টালজিতে আক্রান্ত হই আমার বাসার বুয়ার জীবনের একটি গল্প শুনে। স্মৃতিকাতর হয়ে সেই বিটিভি যুগে ফিরে গিয়েছিলাম।

এই বুয়া... ...বাকিটুকু পড়ুন

নতুন জীবন- নয়

লিখেছেন করুণাধারা, ২৩ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ দুপুর ১২:০২



আগের পর্ব: নতুন জীবন- আট

অবশেষে আনুষ্ঠানিক ভাবে আমার বোন পেট্রার জন্মকে স্বীকৃতি দেয়া হল। আমাকে জানানো হল আমার একটা বোন হয়েছে। আমি বোন দেখতে গেলাম, দেখি মায়ের পাশে ছোট একটা... ...বাকিটুকু পড়ুন

সর্বশ্রেষ্ঠ নবী এবং রাসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর ওফাতকালীন ঘটনাসমূহ (প্রথম পর্ব)

লিখেছেন নীল আকাশ, ২৩ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৪:৩৬



[সকল প্রশংসা আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের জন্য, যিনি আমাদেরকে সর্বোত্তম দীনের অনুসারী ও সর্বশ্রেষ্ঠ রাসূল মহানবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর উম্মত হওয়ার তৌফিক দান করেছেন। সালাত ও সালাম বর্ষিত হোক... ...বাকিটুকু পড়ুন

×