somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

নতুন নকিব
আলহামদুলিল্লাহ। যা চাইনি তার চেয়ে বেশি দিয়েছেন প্রিয়তম রব। যা পাইনি তার জন্য আফসোস নেই। সিজদাবনত শুকরিয়া। প্রত্যাশার একটি ঘর এখনও ফাঁকা কি না জানা নেই, তাঁর কাছে নি:শর্ত ক্ষমা আশা করেছিলাম। তিনি দয়া করে যদি দিতেন, শুন্য সেই ঘরটিও পূর্নতা পেত!

'আঠারো হাজার মাখলুকাত' কথাটি হাদীস নয়।

২৫ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ বিকাল ৪:২২
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



বিশ্বজাহানে 'আঠারো হাজার মাখলূকাত' রয়েছে, কথাটি ছোটবেলা থেকে আমরা শুনে এসেছি। এমনকি কথাটি শুনতে শুনতে এবং বলতে বলতে এটি এতটাই প্রসিদ্ধি পেয়েছে যে, এটাকে নির্ভরযোগ্য (অথেনটিক) বলে ধরে নেয়ার মত হয়ে গেছে। কিন্তু মজার বিষয় হচ্ছে, এই কথাটির উৎপত্তিটা যে কোত্থেকে তা আজও অজ্ঞাত। আরও আশ্চর্যের ব্যাপার হচ্ছে, এই কথাটিকে ইসলাম ধর্মের সাথে সম্পৃক্ত করে বলা হলেও ইসলামের মূল উৎসধারায় এমন কথার অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায় না। না কুরআনুল কারিমের কোনো বর্ণনা দ্বারা প্রমানিত, না হাদিসের আলোকে যুক্তিসিদ্ধ 'আঠারো হাজার মাখলূকাত' ধারণাটি।

সুবিশাল বিশ্ব জগতে কত যে বিচিত্র প্রাণির বিচরণ! আমরা তার কতটুকুই আর জানতে পেরেছি! বিশ্বজাহানের সৃষ্টিবৈচিত্রের সামনে নিজেকে নিতান্ত ক্ষুদ্র বলে মনে হয়। নিত্য নতুন আবিষ্কারের মাধ্যমে আমরা প্রতিনিয়ত আমাদের জানার পরিধিকে বৃদ্ধি করে নিচ্ছি। কিন্তু আমাদের জ্ঞানের সীমাবদ্ধতা (The limitation of our knowledge) আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ'লা মানবজাতির সৃষ্টির পূর্বেই জানতেন। আর জানতেন বলেই তিনি তা বলেও দিয়েছেন পবিত্র কুরআনুল হাকিমে-

وَمَا أُوتِيتُم مِّن الْعِلْمِ إِلاَّ قَلِيلاً

'আর তোমাদেরকে সামান্য জ্ঞানই দান করা হয়েছে।' সূরাহ আল ইসরা, আয়াত-৮৫

of knowledge it is only a little that is communicated to you, (O men!)

আর বিশ্বজাহানের সকল সৃষ্টিকুলকে মূলত: আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ'লা মানুষের কল্যানে সৃষ্টি করেছেন। প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষ, কোনো না কোনোভাবে মানুষ এদের দ্বারা উপকার লাভ করে থাকে। সৃষ্টির বৈচিত্র রক্ষা বলুন আর প্রকৃতির ভারসাম্য বজায় রাখা- যা-ই বলি না কেন, প্রকৃতপক্ষে জানা-অজানা অগণিত সৃষ্টি মানবজাতির কল্যানই করে যাচ্ছে। জলে-স্থলে মানুষের তুলনায় আকার-আকৃতিতে অনেক অনেক গুন বড় এবং বিশাল বিরাটাকায় প্রাণিকুলকে নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা প্রদান করে মানুষকে শ্রেষ্ঠত্বের আসনে সমাসীন করেছেন মহান স্রষ্টা বারি তাআ'লা। হিংস্র প্রাণিজগতকেও অনুগত এবং বাধ্য করার কৌশল, প্রজ্ঞা এবং জ্ঞান মানুষকে তিনি দান করেছেন। এ জন্য বলা যুক্তিযুক্ত যে, জগতের বৈচিত্রময় মাখলূকাতরাজি নি:সন্দেহে মানবজাতির প্রতি আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআ'লা প্রদত্ত অনন্য নিআমত।

এই নিআমত গুণে শেষ করা সম্ভব নয়। একথাও তিনি পবিত্র কুরআনে হাকিমে ঘোষনা করেছেন-

وَإِن تَعُدُّواْ نِعْمَةَ اللّهِ لاَ تُحْصُوهَا إِنَّ اللّهَ لَغَفُورٌ رَّحِيمٌ

'যদি আল্লাহর নেয়ামত গণনা কর, শেষ করতে পারবে না। নিশ্চয় আল্লাহ ক্ষমাশীল, দয়ালু।' সূরাহ আননাহল, আয়াত-১৮

If ye would count up the favours of Allah, never would ye be able to number them: for Allah is Oft-Forgiving, Most Merciful.

মূলত: যখন আমি কারও কাছে এই বর্ণনা শুনতাম যে সারা পৃথিবী তে ১৮ হাজার মাখলুক (প্রানি) আছে, আমি খুবই অবাক হতাম! কারন, একথা সবারই জানা যে, বিজ্ঞানীরা এর বেশি প্রাণী ইতোমধ্যেই আবিস্কার করে ফেলেছেন!

আসলে পবিত্র কুরআনুল কারীমে নির্দিষ্ট কোন প্রাণির সংখ্যা বলা নেই।

এমনকি এটি কোন হাদিস নয়। জাল, বানানো কোন হাদিস হিসেবে যে শোনা যায় তাও না। সবাই এমনই বলে যে ইসলামে আছে, ইসলাম বলে। প্রকৃতপক্ষে এই বর্ণনাটা সম্পুর্ণ ভুল। ইসলামের কোথাও এমন বর্ণনা পাওয়া যায় না। কোন না কোনভাবে কেউ একজন এমন কথা প্রচলন করেছিল, সেখান থেকে যাচাই-বাছাই করা ব্যাতিত এভাবেই চলে আসছে।

'আঠারো হাজার মাখলুকাত' কথাটি হাদীস নয়:
উপরের কথাটি লোকমুখে এতই প্রসিদ্ধ যে, অনেকের কাছে তা কুরআন-হাদীসের বাণীর মতো স্বতঃসিদ্ধ। কিন্তু মাখলুকাতের এই নির্দিষ্ট সংখ্যা না কুরআনে আছে, না কোনো সহীহ হাদীসে। বাস্তবতা হল, আল্লাহ তাআলা অগণিত মাখলুক পয়দা করেছেন। জলে ও স্থলে ছড়িয়ে থাকা বিভিন্ন প্রজাতির মাখলুক আল্লাহর অসীম কুদরতের প্রমাণ। মানুষের জানার বাইরেও রয়েছে অসংখ্য মাখলুক। আল্লাহ তাআলা কত ধরনের মাখলুক সৃষ্টি করেছেন তার নির্দিষ্ট সংখ্যা সহীহ হাদীসে বলা হয়নি। একটি ‘মুনকার’ বর্ণনায় এর সংখ্যা ‘এক হাজার’ বলা হয়েছে। কিন্তু অনেক মুহাদ্দিস বর্ণনাটিকে মাওযূ বা জাল বলে আখ্যা দিয়েছেন। (আলমাওযূআত, ইবনুল জাওযী ২/২১৬; আলফাওয়াইদুল মাজমুআ পৃ. ৪৫৮-৪৫৯) এছাড়া এই সংখ্যা সম্পর্কে কিছু মনীষীর উক্তিও রয়েছে। যেমন মারওয়ান ইবনুল হাকামের কথামতে সতের হাজার জগত রয়েছে। আর আবুল আলিয়ার অনুমান অনুযায়ী চৌদ্দ হাজার কিংবা আঠারো হাজার মাখলুকাত আল্লাহ সৃষ্টি করেছেন। এই বিভিন্ন সংখ্যা কিছু মনীষীর উক্তিমাত্র, হাদীস নয়। দ্বিতীয়ত তাদের বক্তব্য থেকেও অনুমিত হয় যে, নির্দিষ্ট কোনো সংখ্যা বোঝাতে নয়; বরং আধিক্য বোঝাতেই তারা এ সব কথা বলেছেন। তাও আবার অনুমান করে। এই কারণে এর কোনোটিকেই প্রমাণিত সত্য মনে করার কোনো কারণ নেই; বরং এ বিষয়ে ইবনে কাসীর রাহ.-এর কথাটিই মূল কথা, যা তিনি আবুল আলিয়ার পূর্বোক্ত কথাটি পূর্ণভাবে উদ্ধৃত করার পর বলেছেন। আর তা হল, هذا كلام غريب يحتاج مثل هذا إلى دليل صحيح অর্থাৎ এটি এমন একটি আজব কথা, যার জন্য বিশুদ্ধ দলীলের প্রয়োজন রয়েছে। (তাফসীরে ইবনে কাসীর ১/২৬) অতএব আঠারো হাজার নয়; বরং বলা উচিত যে, আল্লাহ তাআলা অসংখ্য অগণিত মাখলুক পয়দা করেছেন, যা আমরা গুণে ও হিসাব করে শেষ করতে পারব না।

অতএব এভাবে যাচাই-বাছাই ছাড়া কোনো কিছু প্রচার করা অতি নিন্দনীয়, অমূলক এবং নিতান্ত গর্হিত কাজ।

ছবি: অন্তর্জাল।
সর্বশেষ এডিট : ২৬ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সকাল ১০:১৬
১২টি মন্তব্য ২টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

বাঁকা চাঁদ[শিশুতোষ ছড়া]

লিখেছেন ইসিয়াক, ২৭ শে মার্চ, ২০২০ বিকাল ৪:৪০


ও বাঁকা চাঁদ ও বাঁকা চাঁদ,
আয়না খোকার বাড়ি।
তুই না এলে খোকন সোনা,
নেবে ঠিক আড়ি।

তোকে দেখে খোকন হাসে,
আদরে ডাকে মামা।
তুই কেন পরিসনি বলতো
একটা কোন জামা।

ও... ...বাকিটুকু পড়ুন

বান্দার সীমাহীন পাপের শাস্তি আল্লাহর গজব (২য় পর্ব)

লিখেছেন নূর মোহাম্মদ নূরু, ২৭ শে মার্চ, ২০২০ রাত ৯:২৭


বান্দার সীমাহীন পাপের শাস্তি আল্লাহর গজব (১ম পর্ব))
RECAP "হে ইমানদারগণ! তোমরা ধৈর্য ও নামাজের মাধ্যমে আল্লাহর কাছে সাহায্য প্রার্থনা করো, নিশ্চয় আল্লাহ ধৈর্যশীলদের সাথে আছেন।" (সূরা বাকারা আয়াত নং... ...বাকিটুকু পড়ুন

মহামারীতে জুমার নামায এবং জামাতে নামায হাদীসে কি বলে?

লিখেছেন শের শায়রী, ২৭ শে মার্চ, ২০২০ রাত ১০:৪৪



বেশ ভালোভাবেই লক ডাউন শুরু হয়েছে, যে যার বাড়ীতে গিয়েছে। এগুলো পুরানো প্যাচাল। নতুন প্যাচাল হল, এই যে লক ডাউন চলছে, যে লক ডাউনের কারনে যেখানে নিম্নবিত্ত বা... ...বাকিটুকু পড়ুন

চাঁদগাজী সাহেবের কোয়ারেন্টাইন : নিজস্ব অভিমত

লিখেছেন সোনালী ঈগল২৭৪, ২৮ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ১২:৪৫


চাঁদগাজী সাহেব সামু ব্লগের একজন এটি পুরোনো ব্লগার , সম্ভবত বেশ অনেক বছর যাবৎ তিনি ব্লগিং করে যাচ্ছেন , ব্লগে তার লেখা এবং আনুসাঙ্গিক আরো বিষয় দেখে মনে... ...বাকিটুকু পড়ুন

ব্লগ অ্যাডমিন প্যানেল হয়ত আপনেরা কিছু করুন নয়ত আমরা লেখালেখি বাদ দিয়ে দেই

লিখেছেন :):):)(:(:(:হাসু মামা, ২৮ শে মার্চ, ২০২০ দুপুর ২:১১


তারা আসলে কোনো মানুষ না জীবিত পশু ? যারা বিশ্বের এমন ভয়ংকর পরস্থিতিতেও একজন লেখকের পোস্টে এসে
ভালো কছিু লেখার পরর্বিতে খারাপ ছবি পোস্ট করছে । না আমি এর জন্য... ...বাকিটুকু পড়ুন

×