somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

হেঁটে-টেটে গেছি

২৬ শে জানুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৩:৪২
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


আমরাও হেঁটে-টেটে গেছি
জীবনানন্দের মত মিছেমিছি
সহস্র বছর না-হোক
সত্যিসত্যি হ্রস্বদূর
বাতাবিলেবুর ফুল
হয়ে ফোটে আমাদের হাঁটন-দুপুর
সুগন্ধদুপুর-ঘাস খেয়ে ফুলো
চারপেয়ে রোদ-শাবকেরা।

মনে পড়ে হাঁটাপথে
আমাদের মোরগ বিষয়
মাথার খোয়াড় খুলে দিলে
পালিয়ে গিয়েছে যারা
বহুদূর পড়িমরি করে
সহকারে পিতাবাদ এক আনকমন
বিষয়ের দীর্ঘ পুরোধাতে
সমস্ত মোরগ-পাশে
কখনো দেখিনি ঘোরে ছা’রা
আমাদের ‘হুশ’ শুনে
এসেছিলো তেড়ে মুরগিই
মোরগের কোনো কিছু যেয়ে আসেনাই !

আমরা হেঁটে গেছি ব্লিচিংপাউডারগন্ধী জোৎস্নায়
মায়ের নামাজের কাপড়-জোৎস্না
আদিগন্ত দড়িতে কেউ শুকোতে দিয়েছে
আমরা তার ভেতরে
বারবার খেয়ে গেছি পাক
শিশুমত সারারাত, রে কল্প দি টাইম মেশিন !

স্পষ্ট মায়ের শোক দানাদার মটরের থোকা
দিয়ে গেছি অচেনাকে,
দিন এনে তারা দিন খায় !

পারমাণবিক-হেঁটে
আমরা আরো গেছি অনবদ্য বনে
বন্দুকের দুধ খেয়ে
দুর্দান্ত বাড়ে সেথা বাঘছানাগুলো
বুড়িগঙ্গা ধরে যায় সেই দুধ, চুরি করে খেয়ে
ঘুমিয়েছি আমরাও,
ফাটিয়েছি শিমুলফল-মাথা
কি’যে ঘোর আনন্দ আছে তুলা ওড়ানোতে !

ওরকম ঘোর-শোরে হেঁটে গেছি আরো আরো দূরে
চায়ের দোকান মেখে খেয়ে ফেলে স্লাইস স্লাইস রাত
খাবার মধ্যখানে রমণীয় দু’টো-একটি চুল-
মুখে আটকালে তুলে বোনপ্লেটে করেছি বেহাত

বাদুড়ের সাদা-ঘুমও আমরা শুয়েছি আড়াআড়ি-
তারপর- উর্বর বীজতলা দেখি গেছি হয়ে
আমাদের বুক চিরে গজিয়েছে আ্যমোনিয়াফুল
ফুলের বর্ণবাদে আলোচনা নেই তবু আমাদের লয়ে

আলোচনা হলেও যে আমাদের ছেঁড়া যেত কিছু
উঁহু, তাও নয়। তবে কেন চাওয়া এতো ?
ক্রুদ্ধ চোখের নিচে কতগুলো ঈমানদার ক্ষেত-
রুটিগন্ধা ট্রেন হয়ে রওনায়, জানা হয়ে যেত !

হেঁটে গেছি আমরাও
জীবনানন্দের মত
কথার কথা সহস্র বছর না-হোক
মোদ্দাকথাদূর তো নিশ্চয়ই
বৃষ্টির স্তন ফোলা
আমাদের পদক্ষেপ জমে
যে-দিকে হাঁ-করে আছো
ঘোড়ামত স্তন্যপায়ী কাঠ
আমারও গর্ব হয়
ঘোর কাঠপিস দেখা নিয়ে !

আমরাও হেঁটে-টেটে গেছি
যেতে যেতে দু’চোখে মেখেছি
মানুষেরা ব্যর্থ লেবু-চা বালিমাটিতে এসেছে শুকিয়ে
পাখিরা ছদ্মনামে করে ওড়াউড়ি
প্রেম মাঝেমাঝে আসে সেইন নদী দিয়ে-
ভেসে ভেসে প্লাস্টিক বোতলের মত !

হেঁটে গেছি আমরাও
একদিন আমরা গিয়ে পৌঁছালাম
এক দ্বিধান্বিত সকালে—

সেখানে মাই-গড ঈশ্বর
উদিত সূর্যের মিঠে-লাল
তামাদি পূর্বের ব্যাবিলন
নাকি-বা এক্সট্রাটেরেস্ট্রিয়াল

কারা যে প্রধানত কুম্ভীর
ভাষাতে স্বর্গীয় পাতা-সুর
হাসিতে আমোদের তুকতাক-
ভিজিয়ে খেতে দেন কর্পূর

সমাধা নীল-মাছি উড়ছে
আলতো ঠোঁটে নিয়ে রোববার
আবার কুলি করে বলছে
ও-হ্যালো, মোবারক জুম্মার

এভাবে খুলে বেড়ে যাচ্ছেই
দেখিকি শত হোলি-পৃষ্ঠা
হরফ-ব্ল্যাকহোলে ঘুরছে
এক আপেল-সকালের নিষ্ঠা

আপেলে আমি বড় আবেগী
মাছিও প্রেমী সেই চোস্তের
যদিও মাছিদের মহাড়ৎ-
নকশী-কাটা স্থানে গোস্তের !

হেঁটে গেছি আমরাও
আমরা মূলত এসব ভেবে যাইনি যে—
আমাদের করতে হবে
ভিটেমাটির খোঁজ
কোথাও আমফুলের বুক থেকে
দরজা খুলে বেরিয়ে আসবেন আম্মা
রাঁধবেন শুকতারা-চালের ভাত
নাগরিক দেয়াললিখন থেকে
অমরত্ব-ফেরজন্মমাছ
আমাদের উপর লাফিয়ে পড়লে
আমরা দাঁড়িয়ে হেসে নিয়েছি ঠা-ঠা করে
আমাদের সামনে
বেহালাবাদকের ঘ্রাণের ওপর বসেছিলো
একটি চুপচাপ প্রজাপতি
আমরা যাকে উড়িয়ে দিয়েছি তার রঙমিস্ত্রি দোষে
আমরা সুখী ছিলাম ?
ছিলাম দুখী ?
বাজে কথা, আমরা ছিলাম না কিছুই
বা নেই !

হেঁটে গেছি আমরাও
আমরা মানে— আমি আর পথ
নির্বাণের কাক এক
আমাদের সামনে ওইতো
আধভেজা ব্রেসিয়ার শোঁকে ।

২৬-১-১৯
সর্বশেষ এডিট : ২৬ শে জানুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৩:৪২
১টি মন্তব্য ১টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

রাত পাঁচ (নাকি সকাল!) ঘটিকায় ব্লগে আমি ও অনলাইনে আছেন!!!

লিখেছেন অজ্ঞ বালক, ০৭ ই মার্চ, ২০২১ ভোর ৬:০২

কি করা যায়? সাধারণত এরকম সময়ে নির্বাচিত ব্লগই পড়া হয়! কিন্তু আজ নির্বাচিত ব্লগ পড়তে ইচ্ছা করছে না, আসলে তার উপায়ও নেই। নির্বাচিততে শেষ আপডেট হয়েছিলো গ্যাস্ত্রিকোর ব্লগটা, ফেব্রুয়ারির বাছাই... ...বাকিটুকু পড়ুন

'যদি' কথন

লিখেছেন স্থিতধী, ০৭ ই মার্চ, ২০২১ সকাল ৭:৩৩



শর্ত, অনিশ্চয়তা, আকাঙ্খা , সম্ভাবনা, বিকল্প ভাবনা; এমন অনেক কিছুর প্রকাশবাহী একটা ছোট শব্দ “ যদি”। এই “যদি” এর শর্তে আমরা অনুপ্রাণিত হই আবার থমকেও যাই।... ...বাকিটুকু পড়ুন

বিনম্র শ্রদ্ধা জানাই তোমায়, তোমারি জন্ম শতবর্ষে ।

লিখেছেন সেলিম আনোয়ার, ০৭ ই মার্চ, ২০২১ সকাল ১১:৪৮



ভেবে ভেবে অবাক হতে হয়
কীর্তি তোমার স্বাধীন বাংলাদেশ—সারা বিশ্বের বিষ্ময়!
এমন তরো স্বপ্নের বাস্তবায়ন
কেহ আগে কী পেরেছে অথবা পারবে? পারবে না নিশ্চয়
তোমার কারণেই স্বাধীন বাংলার লাল—সবুজ পতাকা... ...বাকিটুকু পড়ুন

গল্পঃ বেলা অবেলা

লিখেছেন ইসিয়াক, ০৭ ই মার্চ, ২০২১ দুপুর ১২:৫৯

[১]
অনেকক্ষণ ধরে ডোরবেল একটানা বেজে চলেছে। বাথরুম থেকে তো জুলেখা ঠিকই শুনতে পাচ্ছেন আর কেউ শুনতে পারছে না নাকি!
তুতুল কি করছে কে জানে? এই দুপুর বেলা পড়ে পড়ে ঘুমুচ্ছে হয়তো।
আর... ...বাকিটুকু পড়ুন

ইসলামী বয়ানে ৭ মার্চের ভাষণ

লিখেছেন সাইফুল ইসলাম৭১, ০৭ ই মার্চ, ২০২১ দুপুর ২:৫৮


ইসলাম শুধু একটা ধর্ম নয় বরং ঈমানদারদের জন্য একটি সর্বাঙ্গীন জীবন বিধান। তাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষণে ইসলামের কার্যকরী প্রভাব রয়েছে। আজ আমরা সেই অদেখা ভুবন... ...বাকিটুকু পড়ুন

×