somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

গ্রিক মিথ - প্রমীথিউসের আগুন চুরি ও প্রথম রমনী প্যানডোরার আগমন।

০৫ ই নভেম্বর, ২০১২ সন্ধ্যা ৭:৫৪
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



যেখানে দেবতা সেখানেই দানব, যেখানে নর যেখানেই নারী। দেবতাদের কথা বললে তাই দানবরাও এসে যায়। তো প্রমীথিউস ছিলো এক দানব পুত্র, তবে সে ছিলো খুবই বুদ্ধিমান ও চালাক। দেবতা জিউস দুই ভাই প্রমীথিউস ও ইপিমীথিউসকে পৃথিবী ভরিয়ে তোলতে বিভিন্ন প্রাণী বানানোর নির্দেশ দিলো। ইপিমীথিউস বিভিন্ন ধরণের প্রাণী বানালো আর তাতে জিউসের বরাদ্দকৃত উপহারগুলো জুড়ে দিলো; যেমন - নরম লোম, নখরযুক্ত পা, পাখা, ডানা, শিং প্রভৃতি। এই উপহারগুলো বন্টনের দায়িত্ব ছিলো প্রমীথিউসের কাঁধে। কিন্তু ধূর্ত, ফাঁকিবাজ, দেবতার আদেশ অমান্যকারী প্রমীথিউস সে সময় নিজ কাজ ছেড়ে ব্যস্ত ছিলো অন্য কিছু বানাতে। প্রমীথিউস মাটি ও পানি দিয়ে আপন মনে অন্য এক প্রাণী বানালো। দেবতার আদলে সে বানালো নর, জীবন দিলো তাতে।



ভাইয়ের কাজগুলোও করে দিতে ইতোমধ্যে সমস্ত উপহার শেষ করে ফেলেছে ইপিমীথিউস, তাই মানবকে দেয়ার মতো জিউসের উপহারগুলোর কিছুই পেলো না প্রমীথিউস। কিছু সময় পর মানব স্রষ্টা মানবদেরকে নির্বোধ ও বিরক্তিকর মনে করতে শুরু করলো। সে মানুষকে আরো আকর্ষনীয় ও হৃদয়গ্রাহী করতে তাদের আগুন উপহার দিতে চাইলো। কিন্তু প্রমীথিউস দেবতা জিউসকে জিজ্ঞেস করলে জিউস মানুষকে আগুন না দিতে কড়া হুশিয়ারি দিলো। প্রমীথিউস চেয়েছিলো আগুনের মাধ্যমে মানুষকে আলো, সাহস, যন্ত্রপাতি, উন্নত খাদ্য, আরাম ও সমৃদ্ধি দিতে। পক্ষান্তরে জিউস বললো যে মানুষ আগুন পেলে যুদ্ধে লিপ্ত হয়ে ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি করতে পারে, এমনকি দেবতাদের পূজাও ছেড়ে দিতে পারে।



মানবের প্রতি প্রমীথিউসের ছিলো পরম ভালোবাসা; সে শীতে কম্পনরত, অন্ধকার রাত্রিতে ভীত ও কাঁচা খাদ্য গ্রহীতা মানবের জন্য দুঃখী হয়ে উঠলো। গমন করলো অলিম্পাস পাহাড়ে, দেবতা জিউসের প্রাসাদ থেকে কাঠকয়লার এক মশালে করে আগুন চুরি করলো।



তারপর সে আগুন নিয়ে গেলো মানবদের কাছে, দেখিয়ে দিলো আগুন ধরানোর কৌশল। প্রমীথিউসের সে বিশেষ উপহার মানুষের কষ্ট লাঘব করলো, উন্নত করলো জীবনযাপন।



জিউসের রাগ প্রশমিত করতে প্রমীথিউস মানবকে প্রাণী পুড়ানোর প্রস্তাব করলো। এ উপলক্ষে সে একটি বৃহৎ ষাড় পুড়ালো। যখন জিউস রান্নার ঘ্রাণ পেলো আর অন্ধকারে আলো দেখলো, তখন সে বুঝতে পারলো এ কাজ প্রমীথিউসের। পশু বিসর্জন ও মানবের পূজা পেয়ে সাময়িকভাবে রাগ দমন করলো জিউস। কিন্তু মানব জাতিকে শায়েস্তা করতে ক্ষিপ্ত জিউস, দেবতা হিফেসটাসকে কাদা-জলে একজন মানবীর ছাঁচ তৈরী করতে বললেন। সে সিদ্ধান্ত নিলো ঐ নারীকে দিয়েই প্রমীথিউসের সৃষ্ট নরদের শাস্তি দিবে।



হিফেসটাস ছিলো জিউস ও হেরার সন্তান। দেবতাদের ভেতর একমাত্র হিফেসটাসই ভীষণ কুৎসিত ছিলো, তাই তাকে দেবী হেরা অলিম্পাস পাহাড় থেকে সমুদ্রে নিক্ষেপ করে। এতে পা খোঁড়া হয়ে যায় হিফেসটাসের। সে ছিলো আগুন ও কামারশালার দেবতা; কামারশালার জন্য সে ব্যবহার করতো জ্বলন্ত আগ্নেয়গিরি, নিয়ন্ত্রণ করতো উত্তপ্ত লাভা। দেবী আফ্রোদিতিকে স্ত্রী হিসেবে পেয়েছিলো হিফেসটাস; মতান্তরে দেবী আগলাইয়া।





কারিগর দেবতা হিফেসটাস পানি ও মাটি দিতে তৈরী করলো এক মানবী। বিভিন্ন দেবতা সে নারীকে ভিন্ন ভিন্ন প্রতিভা দান করলো। যেমন আফ্রোদিতি তাকে রূপ দিলো, আপোলো দিলো সঙ্গীত, হার্মেস দিলো বোধ বা প্রত্যয়, দেবী এথেনা দিলো মেয়েলী চাতুরী এবং অন্য দেব-দেবীরাও দিলো অনেক কিছু। এভাবে উপহারের সমষ্টি পৃথিবীর প্রথম মানবী হয়ে উঠলো প্যানডোরা।





দেবতা জিউস প্রমীথিউসকে বললো প্যানডোরাকে বিয়ে করতে। এটা জিউসের কোন কূট চাল মনে করে বিয়েতে অস্বীকৃতি জানালো প্রমীথিউস। অতঃপর জিউস প্রচন্ড ক্ষিপ্ত হয়ে বজ্র কন্ঠে বললো - 'প্রমীথিউস, তোমার কত বড় সাহস যে আমার নির্দেশ অমান্য করো? আমি অবশ্যই তোমাকে এর শাস্তি দেবো'। তারপর জিউস বিশাল এক পাহাড়ে প্রমীথিউসকে পাথরের সাথে শেকলে বেঁধে রাখলো। প্রতিদিন ইথোন নামের একটি ঈগল পাখি সেখানে আসতো, পাখিটি প্রমীথিউসের যকৃত বা কলিজা ছিঁড়ে খেতো। আর প্রতি রাতে প্রমীথিউসের যকৃত নতুন করে জন্ম নিতো। আবার সকালে আলো ফোঁটলে কলিজা খেতে চলে আসতো পাখিটি। জীবন-মৃত্যুর এক শোচনীয় অবস্থার ভেতর তার দিন কাটতে থাকলো।







এরপর জিউস নতুন এক বুদ্ধি আঁটলো, দেবতা হার্মেসকে দিয়ে মানবী প্যানডোরাকে উপহার হিসেবে পাঠালো প্রমীথিউসের ভাই ইপিমীথিউসের কাছে।



হার্মেস হলো দেব-দেবীদের বার্তা ও বস্তু বাহক দেবতা; উড়ে চলতো প্রচন্ড বেগে দেব-দেবীদের কথা মতো অলিম্পাস-আকাশ-পাতাল-সমুদ্রতল - সমগ্র জগৎ।





আর এ কাজে দেবতা হার্মেস সাহায্য পেতো রংধনুর সুন্দরী দেবী আইরিসের।



আইরিসও বাতাসের বেগে মেঘে মেঘে আকাশ, পাতাল, সাগরতল চষে বেড়াতো।







যদিও প্রমীথিউস তার ভাইকে সতর্ক করেছিলো দেব-দেবীর কাছ থেকে কোন উপহার না নিতে, কিন্তু প্রচন্ড আবেদনময়ী প্যানডোরাকে সে গ্রহণ করে মুগ্ধ হয়ে বিয়ে করে ফেললো।



নতুন দম্পতিকে দেবতা জিউস একটি রহস্যাবৃত বাক্স উপহার দিলো, যার ভেতর লোকানো আছে মানব জাতির জন্য সমস্ত কল্যাণ। কিন্তু শর্ত থাকলো - কিছুতেই কোন অবস্থাতেই খোলা যাবে না সে বাক্স।



ইপিমীথিউস সে বাক্স রক্ষার ভার প্যানডোরাকে দিয়ে কখনো বাক্স না খোলার আদেশ দিলো।





তারপর একদিন বাক্স হাতে নিয়ে প্যানডোরা প্ররোচিত হলো তার স্বাভাবিক ঔৎসুক প্রবণতায়। দেখতে চাইলো কি আছে বাক্সের ভেতর, খোলে ফেললো সে বাক্স। পরিণামে বাক্স থেকে বেরিয়ে আসতে থাকলো শয়তানেরা, সেগুলো সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করলো। প্যানডোরা তার ভুল ও নির্বুদ্ধিতা বুঝতে পারলো আর দ্রুত বন্ধ করতে চেষ্টা করলো সে বাক্স। কিন্তু ততক্ষণে বাক্সের ভেতরের সকল কিছু পাখা মেলে পালিয়ে গেলো। শুধু এক কোনায় পড়ে থাকলো সবচেয়ে কম পাপিষ্ট একটি বস্তু - আসন্ন বিপদের অনুভূতি বা পূর্বানুভব। প্যানডোরা শুধু পূর্বানুভবকেই আটকাতে সক্ষম হলো।





পূর্বানুভবকে আটকানো না গেলে প্রতিদিন প্রতিটি মানুষ বলতে পারতো সেদিন কি কি ঘটবে। এতে করে মানুষের সমস্ত আশা বা প্রত্যাশা শেষ হয়ে যেতো। এভাবে পূর্বানুভবের বাক্সে থেকে যাওয়ায় মানুষের জন্য আশা বেঁচে থাকলো, আর সকল পাপ মানুষের চারপাশ গ্রাস করলো। মানুষও প্রতিটি সূর্যদয়ের সাথে নতুন নতুন আশায় আগের মতোই দিনের কাজ শুরু করলো। বেঁচে থাকলো মানুষ আশায় আশায়।











এদিকে প্রমীথিউসের জন্য বরাদ্দ ত্রিশ হাজার বছরের শাস্তির মধ্যে ৩০ বছর কেটে গেলো। হেরাক্লীস বা হারকিউলিস একদিন সে পথ দিয়ে যাচ্ছিলো, প্রমীথিউসের বুক থেকে কলিজা খাওয়া দেখে তীর ছুড়ে হত্যা করলো সে ঈগল পাখিটিকে। মুক্তিপ্রাপ্ত প্রমীথিউস ক্রীতদাস হয়ে থাকলো হেরাক্লীসের। মুক্তির এ ঘটনায় জিউস কিছু মনে করলো না, কারণ বিষয়টি হেরাক্লীসকে গৌরব এনে দিয়েছিলো। আর জিউসের অনেক আদরের পু্ত্র ছিলো হেরাক্লীস। প্রমীথিউসকে পুনরায় অলিম্পাসে জায়গা দেয়া হলো, যদিও তাকে বহন করতে হতো সে পাথরটি যাতে তাকে বেঁধে রাখা হয়েছিলো। আগুনের উপস্থাপক ও প্রথম পশু বিসর্জনের প্রচলনকারী হিসেবে প্রমীথিউসকে দেখা হয় মানব সভ্যতার পৃষ্ঠপোষক হিসেবে।






প্রমীথিউসকে নিয়ে Lord Byron (George Gordon) এর লেখা একটি বিখ্যাত কবিতা -

Prometheus (1816) - Lord Byron
Titan! to whose immortal eyes
The sufferings of mortality,
Seen in their sad reality,
Were not as things that gods despise;
What was thy pity's recompense?
A silent suffering, and intense;
The rock, the vulture, and the chain,
All that the proud can feel of pain,
The agony they do not show,
The suffocating sense of woe,
Which speaks but in its loneliness,
And then is jealous lest the sky
Should have a listener, nor will sigh
Until its voice is echoless.

Titan! to thee the strife was given
Between the suffering and the will,
Which torture where they cannot kill;
And the inexorable Heaven,
And the deaf tyranny of Fate,
The ruling principle of Hate,
Which for its pleasure doth create
The things it may annihilate,
Refus'd thee even the boon to die:
The wretched gift Eternity
Was thine—and thou hast borne it well.
All that the Thunderer wrung from thee
Was but the menace which flung back
On him the torments of thy rack;
The fate thou didst so well foresee,
But would not to appease him tell;
And in thy Silence was his Sentence,
And in his Soul a vain repentance,
And evil dread so ill dissembled,
That in his hand the lightnings trembled.

Thy Godlike crime was to be kind,
To render with thy precepts less
The sum of human wretchedness,
And strengthen Man with his own mind;
But baffled as thou wert from high,
Still in thy patient energy,
In the endurance, and repulse
Of thine impenetrable Spirit,
Which Earth and Heaven could not convulse,
A mighty lesson we inherit:
Thou art a symbol and a sign
To Mortals of their fate and force;
Like thee, Man is in part divine,
A troubled stream from a pure source;
And Man in portions can foresee
His own funereal destiny;
His wretchedness, and his resistance,
And his sad unallied existence:
To which his Spirit may oppose
Itself—and equal to all woes,
And a firm will, and a deep sense,
Which even in torture can descry
Its own concenter'd recompense,
Triumphant where it dares defy,
And making Death a Victory.




উৎসর্গ: রহস্য প্রিয় ও বিজ্ঞ *কুনোব্যাঙ* ভাইকে।


গ্রিক মিথ নিয়ে আগের তৃতীয় পোস্টের লিঙ্ক:অপহরণের গ্রীক মিথ - পাতাল দেবতা হেডেজ ও দেবী পার্সেফোন। ১৮+
৬৭টি মন্তব্য ৬৫টি উত্তর পূর্বের ৫০টি মন্তব্য দেখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

ব্লগে কপিপেস্টে জড়িত ব্লগারদের তালিকা

লিখেছেন অপু তানভীর, ১৮ ই মে, ২০২২ দুপুর ১২:৩৬

ব্লগে সাম্প্রতিক সময়ে কপিপেস্ট নিয়ে যত আলোচনা হয়েছে, সম্ভবত অন্য কোন সময়ে এটা নিয়ে এতো আলোচনা হয় নি । এটার পেছনে মূল কারণ হচ্ছে আগে কখনই কপিপেস্টের পক্ষে এতো বিপুল... ...বাকিটুকু পড়ুন

সেই মুখ....

লিখেছেন খায়রুল আহসান, ১৮ ই মে, ২০২২ দুপুর ১:১৩

মনে পড়ে...
লম্বা কুউউ ডাকের সেই হুইসেল,
বাষ্প শকট চালিত একটি ট্রেনের
ঘরঘর করে চলে যাওয়া, দূরে কোথাও!
বিলের ওপার দিয়ে গভীর নিশীথে,
বুকটা বিদীর্ণ করে চলে যেত প্রতি রাতে।... ...বাকিটুকু পড়ুন

আশ্রম বিলাস

লিখেছেন মরুভূমির জলদস্যু, ১৮ ই মে, ২০২২ বিকাল ৪:১০

আপনারা মোটামুটি অনেকেই জানেন কালীগঞ্জের নাগরির কাছাকাছি আমারা একটুকরো জমি কিনে সেখানে গ্রামীণ প্ররিবেশে কিছুটা সময় কাটানোর জন্য আশ্রম নির্মাণ করেছি। আমাদের পরিবার, আত্মীয় স্বজন, বন্ধুবান্ধব সকলের জন্যই আশ্রম উন্মুক্ত।



আশ্রমের... ...বাকিটুকু পড়ুন

পদ্মা সেতুর টোল, তবে কি ফেরিই ভালো হবে?

লিখেছেন আহসানের ব্লগ, ১৮ ই মে, ২০২২ সন্ধ্যা ৭:৫৭

পদ্মা সেতুর টোল বেশী তাই সমালোচনা চলছে৷
এবার আসি ফেরির কষ্টের কথায়,
ফেরিতে খরচ কম হলেও মান্ধাতা আমলের ফেরি দিয়ে চলতো পারাপার৷ ছিলনা ওয়াশ রুমের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা৷
নারীদের... ...বাকিটুকু পড়ুন

ব্লগে শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তা খুবই কম

লিখেছেন সোনাগাজী, ১৯ শে মে, ২০২২ রাত ১২:২৩



সাধারণ মানুষের ভেতর শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তা কেমন? প্রধানমন্ত্রীর জনপ্রিয়তা জানার জন্য কোন সংস্হা থেকে কি জরীপ চালানো হয়? আমেরিকার প্রেসিডেন্টের জনপ্রিয়তা প্রায় প্রতি সপ্তাহেই জানা যায়,... ...বাকিটুকু পড়ুন

×