somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

মুসলমানের দিন-রাত

২৩ শে জানুয়ারি, ২০১৪ সকাল ৯:৫৩
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

মুসলমানের দিন-রাত


মূল- হাকীমুল উম্মত আশরাফ আলী থানবী রহঃ

১- প্রয়োজন মোতাবিক ধর্মীয় জ্ঞান অর্জন করবে। কিতাবাদী অধ্যয়ন করে অথবা উলামায়ে কেরামের নিকট জিজ্ঞাসা করে। [হক্কানী উলামায়ে কেরাম রচিত ধর্মীয় পুস্তক পাঠ করে এবং উলামা ও হক্কানী পীর মাশায়েখের সাথে সম্পর্ক রেখে]
২- সকল ধরণের গোনাহ থেকে বিরত থাকবে।
৩- কোন গোনাহ হয়ে গেলে সাথে সাথে তাওবা করে নিবে।
৪- অন্যের হক নষ্ট করবে না। কাউকে হাতে বা কথায় কষ্ট দিবে না। কারো দোষ চর্চা করবে না।
৫- ধন সম্পদের মোহাব্বত এবং জাগতিক মোহ থেকে মুক্ত থাকবে। ভোজন বিলাস ও পোশাক পরিচ্ছেদে আভিজাত্যের ফিকিরে থাকবে না।
৬- কেউ যদি দোষ শুধরিয়ে দেয় তাহলে নিঃসংকোচে তা মেনে নিবে এবং তাওবা করবে।
৭- একান্ত প্রয়োজন ছাড়া সফরে যাবে না। সফরে অপ্রয়োজনীয় অনেক কথা হয়ে যায়। অনেক নেক কাজ ছুটে যায়। জিকির-আযকার ও অজিফা বাদ পড়ে যায়। সময়মত কাজ হয় না।
৮- বেশি হাসবে না। বেশি কথা বলবে না। বিশেষ করে গায়রে মাহরামের সাথে অপ্রয়োজনীয় কথা বলবে না।
৯- কারো সাথে ঝগড়া ফাসাদ করবে না।
১০- সর্ববস্থায় শরীয়তের পাবন্দ হবে।
১১- ইবাদতে অবহেলা করবে না।
১২- একাকী থাকার চেষ্টা করবে।
১৩- কারো সাথে দেখা সাক্ষাতের প্রয়োজন হলে ন¤্রতার আচরণ করবে এবং নিজের বড়ত্ব প্রকাশ করবে না।
১৪- আমীর, সরকার ও ক্ষমতাধর লোকদের সাথে চলা-ফেরা কম করবে।
১৫- বদদ্বীন লোকদের সাথে চলাফেলা অনেক কম করবে।
১৬- অন্যের দোষ তালাশ করবে না। অন্য সম্পর্কে খারাপ ধারণা করবে না। নিজের দোষ তালাশ করে তা সংশোধনের যতœবান ও আন্তরিক থাকবে।
১৭- সময়মত গুরুত্বসহ সুন্দরভাবে নামায আদায় করার চেষ্টা করবে।
১৮- অন্তরে অথবা মুখে সর্বদা আল্লাহর স্মরণ করবে। একটি মুহুর্তও গাফলতির মধ্যে কাটাবে না।
১৯- আল্লাহর যিকির করতে যদি ভাল লাগে, অন্তর খুশি হয় তাহলে শুকরিয়া আদায় করবে।
২০- নরম ভাষায় কথা বলবে।
২১- সর্ব কাজের জন্য সময় নির্ধারণ করবে এবং সে সময়ই সে কাজ পুরণ করবে।
২২- কখনো দুঃখ কষ্ট পেরেশানী আসলে মনে করবে তা আল্লাহর পক্ষ থেকে এসেছে। অস্থির হবে না। ধারণা করবে করবে যে এর বিনিময়ে কোন কল্যাণ রয়েছে।
২৩- দুনিয়ার হিসাব নিকাশে সারাক্ষণ লেগে থাকবে না। বরং আল্লাহর কথা খেয়ালে রাখা চেষ্টা করবে।
২৪- যথা সম্ভব অন্যের উপকার করবে। দুনিয়ার ক্ষেত্রে হোক বা আখেরাতের ক্ষেত্রে হোক।
২৫- এত কম পরিমাণে খাবে না যে, শরীর দুর্বল হয়ে যায়। বা অসুস্থ হয়ে যায়। আবার এত বেশি পরিমাণেও খাবে না যে, ইবাদতে অলসতা চলে আসে।
২৬- আল্লাহ তাআলা ব্যতিত কারো থেকে কিছু পাওয়ার আশা করবে না। অমুক জায়গা থেকে আমার এই ফায়দা অর্জিত হবে এমন খেয়াল করবে না।
২৭- আল্লাহকে পাওয়ার জন্য অস্থির হয়ে যাও।
২৮- নেয়ামত কম হোক বা বেশি এতে আল্লাহর শুকর আদায় করবে। অস্বচ্ছলতা ও দারিদ্রতার দ্বারা সংকীর্ণ হবে না।
২৯- নিজ অধীনস্ত লোকদের দোষ অন্যায়কে ক্ষমা করে দেওয়ার মানসিকতা পোষণ করবে।
৩০- কারো দোষ জেনে ফেললে তা গোপন করবে। তবে কেউ যদি অন্য কাউকে ক্ষতি করতে চায় আর তুমি তা জানতে পারো তাহলে তাকে বলে দিবে।
৩১- মেহমান, মুসাফির, গরীব দুঃখী, উলামায়ে কেরাম এবং দরবেশদের খেদমত করবে।
৩২- সৎ লোকের সংস্পর্শে যাবে।
৩৩- সর্বদা আল্লাহকে ভয় করবে।
৩৪- মৃত্যুর কথা স্মরণে রাখবে।
৩৫- যে কোন সময় বসে নিজের দৈনিক কৃতকর্মের চিন্তা করবে। ভাল কিছু হয়ে থাকলে তার জন্য শুকর আ মন্দের জন্য তওবা করবে।
৩৬- কখনো মিথ্যা কথা বলবে না।
৩৭- শরীয়ত বিরোধী মজলিসে যাবে না।
৩৮- লজ্জা-শরম এবং ভদ্রতা বজায় চলবে।
৩৯- নিজের ভাল কাজের উপর গর্ব করবে না।
৪০- আল্লাহ তাআলা নিকট দুআ করবে যেন, তিনি সঠিক পথে অবিচল রাখেন। {বেহেস্তি জেওর-৭ম খন্ড}
উল্লেখিত বিষয়গুলো দৈনিক একবার ভাল করে পড়লে আশা করি আমলের প্রতি জযবা তৈরী হবে।

অনুবাদ
মুফতী হাফীজুদ্দীন
প্রচারে- মাকতাবায়ে ফিদায়ে মিল্লাত
১টি মন্তব্য ২টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

আমার কালের কথা

লিখেছেন রাজীব নুর, ২১ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:২৫



ছোটবেলার কথা আমার খুব মনে পড়ে।
মা আমাকে মাঝে মাঝে এক শ' টাকা দিতেন দেশী মূরগী আনার জন্য। তখন অবশ্য ফার্মের মূরগী পাওয়া যেত না। ৭৫ বা ৮০... ...বাকিটুকু পড়ুন

শ্রাউড অভ তুরিন অথবা যীশুর কাফন (প্রথম পর্ব)

লিখেছেন শের শায়রী, ২১ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:৫৩



সন্ধ্যা তখন ঘনিয়ে এসেছে, সেদিন ছিল প্রস্ততির দিন অর্থ্যাৎ সাব্বাথের দিনের আগের দিন। সে জন্য আরিম্যাথিয়া নিবাসী জোসেফ সেখানে এলেন। ইনি ছিলেন ধর্ম সভার একজন সন্মানিত সদস্য। তিনি ঐশী... ...বাকিটুকু পড়ুন

ব্লগ ডে- ২০১৯

লিখেছেন শায়মা, ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:০৮


"ব্লগ ডে" এ দু'টি শব্দ মনে পড়লে আমার চোখে ভাসে কৌশিকভাইয়ার অসাধারণ কন্ঠে উপস্থাপনার ছবিটি। চোখে ভাসে জানা আপুর ছিপছিপে শাড়ি পরা চেহারাটা। চোখে ভাসে প্রায় তুষার কন্যা টাইপ ধপধপে... ...বাকিটুকু পড়ুন

আত্মজৈবনিক উপন্যাসঃ স্বপ্ন বাসর (শেষ পর্ব)

লিখেছেন আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম, ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ ভোর ৬:০২



আত্মজৈবনিক উপন্যাসঃ স্বপ্ন বাসর (পর্ব-১৮)

বুঝেছি আমার নিশার স্বপন হয়েছে ভোর।
মালা ছিল তার ফুলগুলি গেছে, রয়েছে ডোর।
নেই আর সেই চুপি চুপি চাওয়া,
ধীরে কাছে এসে ফিরে ফিরে যাওয়া-... ...বাকিটুকু পড়ুন

শতাব্দী রায় ভালো আছেন, সুখে আছেন

লিখেছেন চাঁদগাজী, ২২ শে নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ৭:৫৯


যাঁরা সম্প্রতি আমার পোষ্ট মোষ্ট পড়েছেন, তাঁরা নিশ্চয় শতাব্দী রায় সম্পর্কে কিছুটা জানেন: শুধু ব্লগার নুরু সাহেব অনেকবার পড়ার পরও শতাব্দী রায়কে মনে রাখতে পারেননি; নুরু সাহেব মানুষের জন্মদিনের... ...বাকিটুকু পড়ুন

×