somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

সুখ দুখের অনুভূতি :: হৃদরোগ ইনস্টিটিউট

১৯ শে মার্চ, ২০০৯ দুপুর ১:৫৪
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


প্রত্যুৎপন্নমতিত্বে'র Click This Link এই পোষ্টটা পড়ে মনে পড়ল বেশ ক'বছর আগের হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের একটা ঘটনার।

আমার হসপিটাল ভীতি আছে অতিমাত্রায়, সেখানে যাওয়া যতটা পারি এড়িয়ে যাই আর থাকাতো দূরের কথা। কিন্তু সেবার যখন রাতদুপুরে হার্টএ্যাটাকের জন্য মাকে হৃদরোগ ইনস্টিটিউট নেয়া হলো, দিনের বেশির ভাগ সময় কাটতে লাগল ওখানে। প্রথমরাত আর দিন কিভাবে গেলো বুঝেই উঠিনি আতংকে। পরে এন্জিওগ্রাম করানো হবে বলে অবজার্ভেশনে রাখা হলো সি.সি.ইউ'তে। কি কি সব ইন্জেকশন চলছে একের পর এক, নানান ঔষধের ঘোরে বেশির ভাগ সময় মা থাকেন আধোঘুমের ঘোরে। এসময় পালা করে একজন দিনে অন্যজন্য রাতে এভাবে থাকতে লাগলাম আমরা দু'বোন, যদিও রাতে সি.সি.ইউ'তে এ্যটেন্ডেন্ট এ্যালাও না।

সি. সি. ইউ রোগী আটজনের বেড, টানা বারান্দা, সাথের ওয়াশরুমে - বাথরুম, চার টয়লেট, ওযুর স্হান, সরকারী হসপিটাল হিসেবে ভালোই ব্যবস্হা। মা'র পাশে বসে থেকে আস্তে আস্তে খেয়াল করতে লাগলাম রোগী আর তাদের কাছে আসা লোকজন আর আশপাশের কর্মকান্ড। নানা জনের নানান সুখ-দু:খের আলাপন শুনি। ভিড়ভাট্টা লেগেই থাকে সারাক্ষন. যদিও এটা সি.সি.ইউ! তবে দুপুরবেলাটা নিস্তব্ধ থাকে তুলানামূলক ভাবে। রোগীরা ঘুমায়, আত্নীয়স্বজনরা থাকে না তেমন।



এমনি একদুপুরবেলার ঘটনা, নার্সদের আনাগোনা নেই বললেই চলে, ওয়ার্ডে রোগীর এ্যটেন্ডেন্ট বলতে আমি আর অন্যএকজন।মা'র কাছে বসে গল্পের বই পড়ছি। হুট করে একটা মেশিন ঠেলতে ঠেলতে ঢুকলো একলোক। ওয়ার্ডের সামনের দিকের রোগীর কাছে গিয়ে কি যেন করছে, মেশিনের তার টার টানাটানি। তার কাজ সে করুক, মাথা নামিয়ে আমার বইয়ে মনোযোগ দেই। কিছু পরে কানে এলো, "সরেন এখান থেকে ইসিজি করা হবে"। তাকাতেই দেখি ঘুমের ঘোরে থাকা দুই বয়স্ক মহিলার কাছ থেকে ঘুরে এসে আমাদের তিনবেড পরের ২৩/২৪ বছরের মেয়েটার শ্বাশুড়িকে বলছে লোকটা। মেয়েটার হার্টের ভাল্ব লাগানো হয়েছিলো বেশ আগে, সেটা এখন কাজ করছে না, আবার অপরেশন করা হবে। ছেলের বৌয়ের জন্য দিনমান একঠায় অনেক কষ্ট করছিলেন ওই শ্বাশুড়ি। অপগন্ড আমি জানতামও না ইসিজি মেশিন কেমন দেখতে কিবা কেমন করে ইসিজি করা হয়, তাই আগ্রহ নিয়ে দেখতে লাগলাম । কিছু বুঝে উঠার আগেই এক জঘন্য ব্যাপার দেখলাম। মেয়েটার গায়ে ইসিজি মেশিনের যন্ত্রপাতির চেয়ে ওই লোকটার হাত চলতে লাগল কি নিপুনতায়!

কিংকর্তব্যবিমুঢ় আমি কি করছি বুঝে উঠার আগেই দৌড়ে ওয়ার্ডের বাইরে বেরিয়ে চিৎকার দিতে লাগলাম - "সিস্টার, সিস্টার এটা কি হচ্ছে? হচ্ছেটা কি এখানে?" আমার মাথায় তখন ছিলো. এই লোক আর ক'টা বেড ঘুরেই আসবে আমার মা'র কাছে। এরপর ঘুরে লোকটার দিকে তাকিয়ে চিৎকার শুরু করলাম আবার। এবার ২/৪ জন নার্সের দেখা মিলল, তাদের জিজ্ঞেস করতেই তারা আমতা আমতা করে ওই লোককে বলতে লাগল "কি মিয়া, তোমারে তো শুধু মেশিনই আনতে বলছিলাম, কাজ শুরু করতে কে বলছে? বের হও জলদি।" এরপর আমার কাছে এসে বলে, "কই থেকে যে এই সব উটকো বদলোক আসে, বাদ দেন, ঝামেলা করলেই ঝামেলা আরো বাড়বে"। যেন প্রচ্ছন্ন শাসানি। ভাই ভাবী আসার পর বিকেলেই শুরু করলাম আম্মাকে কেবিনে নেবার তোড়জোর, তাও কতো তদবিরের একদিন পর পেয়েছিলাম তা।



এই ছয়দিন সি.সি.ইউ তে থাকাকালীন ওই জানোয়ারের জঘন্য আচরন যেমন দেখেছি তেমনি অভিজ্ঞতা হয়েছে মায়ের সেবায় রত আন্তরিকতা দেখার। আমাদের সামনাসামনি বেডে থাকত ওই মা-ছেলে। ঢাকায় আত্নীয়স্বজন নেই, বাবা আসতে পারেন নি, কোন বোন নেই, তাই ফাষ্ট ইয়ারে পড়া ছেলেটিই মায়ের দেখভাল করছে। ঢাকায় ওর থাকার জায়গা যেমন নাই তেমনি নাই হোটেল ভাড়া করার সঙ্গতিও। রাতে মহিলা ওয়ার্ডে ছেলেরা এ্যালাউড না, তবুও জনে জনের কাছে বলে তাদের আপত্তি নাই এটা নার্সদের জানিয়ে রাতে ওর মায়ের বেডের পাশের ফুট দু'য়েক জায়গায় ঘুমানোর ব্যবস্হা করে নিয়েছে। যদিও ডাক্তার আসলে সে লাপাত্তা হয়ে থাকে। এমনিতেই অস্বস্হিকর পরিবেশ তার উপর হসপিটাল, আধো অন্ধকারে মায়ের পাশে শুয়ে জেগে অপেক্ষায় থাকতাম কখন ভোর হবে আপু এলে বাড়ি যাবো। তো সেই ছেলে দেখতাম ভোরে আযানের আগে উঠে বাথরুম, ওযুর জায়গা ধুয়ে (সারাদিন ওয়ার্ডের লোকজন ছাড়াও কতজন যে আসতো, এমন কি মহিলা টয়লেট জেনেও ছেলেরাও ঢুকে পড়ত!!!), মায়ের কাপড় কেচেঁ বারান্দায় মেলে সব বেডের বালতি ভরে এনে রাখত(নির্দিষ্ট সময় ছাড়া পানি থাকত না বাথরুমে, যদিও ওটা সি.সি.ইউ!!)। সারাদিনের মায়ের ঔষধ আনা, নানান কাজের পরও মা-ছেলের টুকটুক কথা চলতো হাসি মুখে।
সর্বশেষ এডিট : ১৯ শে মার্চ, ২০০৯ দুপুর ২:২৫
২৫টি মন্তব্য ২৩টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

নতুন কোন কোন সমস্যাকে মেগা-প্রজেক্ট হিসেবে প্রাইওরিটি দেয়ার দরকার?

লিখেছেন সোনাগাজী, ০৩ রা জুলাই, ২০২২ রাত ৮:৩৮



পদ্মায় সেতুর প্রয়োজন ছিলো বলেই ইহা মেগা প্রজেক্টে পরিণত হয়েছিলো; যখন সরকারগুলো সেতু তৈরির জন্য মনস্হির করেনি, তখন তারা উনার বিকল্প ব্যবস্হা চালু রেখেছিলো (ফেরী ও লন্চ... ...বাকিটুকু পড়ুন

টোলে অবস্থা টালমাটাল (!!!) (সাময়িক)

লিখেছেন মরুভূমির জলদস্যু, ০৩ রা জুলাই, ২০২২ রাত ১০:১৯


গুগল ম্যাপ বলছে আমার বাড়ি ঢাকার উত্তর বাড্ডা থেকে মাওয়ার পদ্মা সেতু হয়ে কুয়াকাটার সমূদ্র সৈকত পর্যন্ত যেতে পারি দিতে হবে ২৯৯ কিলোমিটার পথ। সময় লাগবে ৬ ঘন্টা ৪০... ...বাকিটুকু পড়ুন

বিশেষ মহল কেন মটরসাইকেল রাইডাদের পেছনে লেগেছে !!!

লিখেছেন অপলক , ০৩ রা জুলাই, ২০২২ রাত ১১:২২

আসুন জেনে নেই, ঈদ আসলেই কিছু বিশেষ মহল কেন বাইক রাইডারদের উপর চড়াও হয় ?

আসলে যারা ক্ষমতায় থাকে তারা মুখোশধারী। নির্বাচন সামনে, প্রচুর কাঁচা টাকা দরকার হবে। ভোট কেনা বেচা... ...বাকিটুকু পড়ুন

আপনি একটি অশিক্ষিত পরিবার থেকে উঠে এসেছেন তা সবাইকে জানাতে হবে? ১৮+

লিখেছেন মোহাম্মদ গোফরান, ০৪ ঠা জুলাই, ২০২২ রাত ১:৩৩

- ছবিতে- মারিয়া নূর । ফটোশ্যুট - আমার এড ফার্ম।

৩ দিন আগে ফেসবুকে সবাই দেখসে বাংলাদেশ এবি পার্টি ওরফে জামাত-শিবির পার্ট... ...বাকিটুকু পড়ুন

কিছু উত্তর আশা করছি,ব্লগারদের কাছে।

লিখেছেন শূন্য সারমর্ম, ০৪ ঠা জুলাই, ২০২২ সকাল ১১:৪৩




/ অশ্বথ গাছের নিচে বসার ঘন্টাখানেক আগে গৌতম কি ভেবেছিল?
/ হেরাগুহায় অহী পাওয়ার আনন্দ কে লিখে গেছে?
/ সক্রেটিসকে হেমলকের পরিবর্তে ক্রুসে ঝুলানো হলে কি হতো?
/ নোয়াহ হারারী ধ্যান করে... ...বাকিটুকু পড়ুন

×