somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

দিল্লি হনুজ দূর অস্ত......

১৪ ই নভেম্বর, ২০২১ সকাল ১১:১৬
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

'দিল্লি হনুজ দূর অস্ত'......

সম্রাট আলাউদ্দিন খিলজি দিল্লির একপ্রান্তে একটা মসজিদ তৈরি করলেন। রাজা বাদশাহদের এরকম অনেকরকম খেয়াল থাকে। মনে হল তাই একটা মসজিদ বানিয়ে ফেললেন। মসজিদ তো হল, কিন্তু সেখানে মুসুল্লি সেরকম খুব একটা যাওয়া আসা করল না। আলাউদ্দিন খিলজি মারা যাওয়ার পর বেশ কিছুদিন সে মসজিদ ফাঁকাই পড়ে রইল।
কিছুকাল পরে একদিন কোথা থেকে এক ফকির এসে আস্তানা গেড়েছেন সেই মসজিদে। তখন দিল্লির তখতে খিলজি বংশ চলে গিয়ে এসেছে তুঘলক বংশ যার প্রতিষ্টাতা সুলতান গিয়াসুদ্দিন তুঘলক।

সুলতানের মেজাজ প্রচন্ড রকম কড়া। এক চুল অনুশাসনের শিথিলতা তিনি বরদাস্ত করেন না।
তো যাই হোক, সেই ফকিরের কথায় আসা যাক। ফকির আস্তানা বাধার পর কিছু কিছু মানুষ তার কাছে আসতে শুরু করল তার সরলতা দেখে। কিছু কিছু মানুষ আস্তে আস্তে তার গুণমুগ্ধ হতে শুরু করল তার সততা দেখে। এ ফকির তো সত্যি সত্যিই এক ফকির। কোনো দাবী দাওয়া নেই, কোনো আকাঙ্ক্ষা নেই, যে আসছে তার জন্যই আল্লাহর কাছে দোয়া প্রার্থনা করছেন! ধীরে ধীরে মানুষের মনে শ্রদ্ধার জায়গা তৈরি হল ফকির সম্পর্কে।

একবার দিল্লিতে প্রচন্ড খড়ায় খাবার পানির অভাব দেখা দিল। লোকজন ফকিরকে গিয়ে ধরল তাদের অসুবিধার কথা জানিয়ে। ফকির বলল, বেশ তো, তাহলে একটা দীঘি খনন করানো যাক। সবাই মিলে স্বেছায় শ্রম দিয়ে দীঘি খনন করবে...
এদিকে তখন সুলতান শত্রু আক্রমণ রোধ করার জন্য পত্তন করতে চাইছেন এক নতুন নগরী যার নাম হবে তুঘলকাবাদ। সেই নগরীর মাঝখানে থাকবে বিশাল এক পুকুর যাতে পাহাড় বরফগলা পানি এসে জমা হবে আর নগরী বেষ্টন করে তৈরি হবে প্রাচীর। এর জন্য প্রচুর শ্রমিক দরকার।

এতদিন সুলতান আর ফকিরের কোনো সঙ্ঘর্ষ ছিল না। সুলতান জানতেন এক ফকির থাকে তার রাজত্বের প্রান্তদেশে, নিজের মতো থাকে, তাই তাকে নিয়ে সুলতানের কোনো মাথাব্যথা ছিল না।
যেই সুলতান নগর তৈরি করার জন্য লোক লাগাতে চাইলেন, দেখা গেল লোকজন বেশিরভাগই ওই ফকিরের পুকুর কাটায় ব্যস্ত হয়ে রয়েছে। সুলতানের নগর তৈরিতে লোকজনের উৎসাহ সেরকম নেই। ব্যস, সুলতানের হলেন গোস্যা। আদেশ জারি করলেন, বন্ধ করো পুকুর কাটা। আগে আমার নগর তৈরি হবে তারপর হবে ফকিরের পুকুর।

কিন্তু তা বললে লোকে শুনবে কেন! পুকুর হচ্ছে সাধারণ মানুষের জন্য। তারা নিজেরা মন থেকে সেই কাজ করছে। আর নগর তো তৈরি হচ্ছে সুলতান আর রাজপুরুষদের জন্য। সেই কাজে লোকজনের মনের সাড়া নেই।
ঠিক এমন সময়ে বিদ্রোহ দেখা দিল বাংলায়। সুলতানকে ছুটতে হল বিদ্রোহ দমন করার জন্য। দিল্লির সিংহাসনে বসিয়ে গেলেন তার জ্যোষ্ঠ পুত্র মহম্মদকে আর হুমকি দিয়ে গেলেন, তিনি ফিরে এসে দেখে নেবেন ফকিরকে। কোথা থেকে এত সাহস হয় ফকিরের! শুনে ফকির মুচকি হেসেছিল একটু।

বাংলার বিদ্রোহ দমন করে সুলতান এবার ফিরে আসছেন দিল্লির দিকে। জ্যোষ্ঠ পুত্র যাকে তখত এ বসিয়ে গেছিলেন সে আবার ফকিরের গুণমুগ্ধ। মহম্মদ নিজে গিয়ে দাঁড়ালেন ফকিরের সামনে। বললেন, হুজুর আপনি এক্ষুনি চলে যান এখান থেকে। তা নাহলে আব্বাহুজুর এসে আপনার গর্দান নেবে।

এই কথা শুনে ফকির আবার সেই একটা মুচকি হাসি দিল। লোকজন যারা যারা ফকিরকে ভালোবাসত সবাই ফকিরকে অনুরোধ করল-'পালিয়ে যান এখান থেকে, সুলতান আর কদিনের মধ্যেই এসে পড়বে, আর এসেই আপনার গর্দান নেবে।'
ফকির আবার মুচকি হাসলেন। এবার কথাও বললেন। বললেন, 'দিল্লি দুর অস্ত'।,অর্থাৎ দিল্লি দূর আছে।
কিছুদিন বাদে আবার সবাই এলো ফকিরের কাছে। এবার জোরাজুরি, 'আপনি চলে যান এখান থেকে, সুলতান এসে গেলে আর কিছু করার থাকবে না।'
ফকির মুচকি হেসে বললেন, 'দিল্লি হনুজ দূর অস্ত'। অর্থাৎ দিল্লি এখনো দূর আছে। পাশে দাঁড়িয়ে শুনছিলেন সুলতানের বড় ছেলে মহম্মদ।

সুলতান পৌঁছে গেছেন দিল্লির কাছে। মহম্মদ দিল্লি প্রবেশের মুখে সুলতানের অভ্যর্থনার জন্য বানালেন এক বিশাল তোরণ আর তার সাথে এক বিশাল অস্থায়ী মঞ্চ। সেই মঞ্চে বসালেন সুলতানকে। সুলতান গিয়াসুদ্দিন বসলেন সেই মঞ্চে সাথে নিয়ে তার প্রিয় পুত্রকে। নাহ, মহম্মদ নয়। সুলতানের প্রিয় পুত্র তাঁর কনিষ্ঠ সন্তান যাকে নিয়ে বিদ্রোহ দমন করতে গেছিলেন। গিয়াসুদ্দিনের থেকে অনুমতি নিয়ে পুত্র মহম্মদ শুরু করলেন হাতির কুচকাওয়াজ। তিনি নিজে নিয়ন্ত্রণ করলেন হাতির পালকে। এভাবেই বিজয়ী পিতাকে অভ্যর্থনা জানাতে চাইলেন পুত্র.....

হঠাৎ বিশাল কড়কড় আওয়াজ। কী হল? কী হল?? বলতে বলতেই সবাই দেখল হাতির মাথা ঘোরানোর সাথে সাথে ভেঙে পড়ছে বিশাল সিংহাসন। চাপা পড়লেন সুলতান গিয়াসুদ্দিন তুঘলক তার প্রিয় পুত্রের সাথে। দিল্লি রয়ে গেল সুলতানের থেকে দুর অস্ত। আর কোনোদিনই দিল্লি পৌঁছন হল না সুলতানের। সিংহাসনে বসলেন মহম্মদ বিন তুঘলক আর সেই ফকির রয়ে গেলেন সবার চোখের মণি হয়ে, নিজামুদ্দিন আউলিয়া যার নাম। আর সেই মসজিদ পরিচিত হল নিজামুদ্দিন আউলিয়ার দরগাহ নামে। আজও নিজামুদ্দিন আউলিয়ার সেই অমর উক্তি যেকোন অসাধ্যের বিষয় 'দিল্লি দুর অস্ত' উদ্ধৃতি হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে।
সর্বশেষ এডিট : ১৪ ই নভেম্বর, ২০২১ সকাল ১১:১৬
৬টি মন্তব্য ৪টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

তুমি আমায় ডেকেছিলে ছুটির নিমন্ত্রণে – হুমায়ূন আহমেদ (কাহিনী সংক্ষেপ)

লিখেছেন মরুভূমির জলদস্যু, ২৪ শে জানুয়ারি, ২০২২ বিকাল ৪:২৬

বইয়ের নাম : তুমি আমায় ডেকেছিলে ছুটির নিমন্ত্রণে
লেখক : হুমায়ূন আহমেদ
লেখার ধরন : উপন্যাস
প্রথম প্রকাশ : ফেব্রুয়ারি ১৯৯৩
প্রকাশক : কাকলী প্রকাশনী... ...বাকিটুকু পড়ুন

হে তটিনী, সুপ্রিয় বহতা আমি তব নৌকো মাঝি…

লিখেছেন সেলিম আনোয়ার, ২৪ শে জানুয়ারি, ২০২২ বিকাল ৫:১৩



যদি তোমার লাগে ভালো—
ভোরের শিশির দূর্বা ঘাস রাতের তারা মেঘলা আকাশ আঁধার কালো
রিমিঝিমি বাদল ধারা সন্ধ্যা তারা জুনাক জ্বলা আঁধার রাতে
সব কিছুই আসুক তবে... ...বাকিটুকু পড়ুন

ফাবিআইয়্যিআলায়িরাব্বিকুমাতুকাজ্জিবান?

লিখেছেন জটিল ভাই, ২৪ শে জানুয়ারি, ২০২২ বিকাল ৫:২৩


(ছবি নেট হতে)

তোমায় ভালবেসে জীবন দিতে চাই,
সকল সময়ে তোমার চরণে দিও ঠাঁই।
জানি মোর পাপের পাল্লা অতিমাত্রায় ভারি,
কিন্তু বহুগুণ ভারিতো; করুনার পাল্লা তোমারি।
তাইতো কঠিন মাটিতে ফলাও শস্যদানা,
আবার সে মাটি হতেই দাও... ...বাকিটুকু পড়ুন

এক কাপ গুড়া দুধের মজার তুলতুলে রসমালাই রেসিপি

লিখেছেন নুরুন নাহার লিলিয়ান, ২৪ শে জানুয়ারি, ২০২২ রাত ৯:১১



এক কাপ গুড়া দুধের মজার তুলতুলে রসমালাই রেসিপি
উপরকরণঃ
এক কাপ গুড়া দুধ
বেকিং পাউডার ১/৪ চা চামচ
ডিম ১ টা
চিনি ১ কাপ
তরল দুধ ১ কেজি
গরম মশলা ঘ্রাণের... ...বাকিটুকু পড়ুন

বিস্ময়কর এবং ভয়ংকর সৌন্দর্যময় জলরাশি নায়াগ্রা জলপ্রপাত।

লিখেছেন নুরুন নাহার লিলিয়ান, ২৪ শে জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১০:০৬


জাপানে তখন রাত তিনটা।আমি তখন ঘুমে আচ্ছন্ন । আমার স্বামী পাশে বসে ল্যাপটপে কাজ করে। হঠাৎ ওর খুশিতে আত্মহারা হয়ে যাওয়ার চিৎকার । আমি চোখ খুলে দেখি তাঁর চোখে মুখে... ...বাকিটুকু পড়ুন

×