somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

আসিফ মহিউদ্দীনের গ্রেফতার ও হয়রানির প্রতিবাদে অনুষ্ঠিত সমাবেশ পরবর্তী আপডেট

০১ লা অক্টোবর, ২০১১ রাত ১১:৪৬
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


পঞ্চম আপডেট
১. আজ ২রা অক্টোবর বিকাল ৪টা থেকে ৬টা পর্যন্ত ব্লগার-লেখক-বুদ্ধিজীবী-সাংবাদিকদের প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
২. সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন সর্বজন শ্রদ্ধেয় প্রফেসর আনু মোহাম্মদ।
৩. প্রায় শ'দুয়েক প্রতিবাদী জনতার কণ্ঠস্বর সোচ্চার হয়ে ওঠে চিন্তার স্বাধীনতা রুদ্ধের অপচেষ্টার বিরুদ্ধে।
৪. আগামী ৪ঠা অক্টোবর শহীদ মিনারে বিকাল ৪টায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতিবাদ সমাবেশে ব্লগারদের সংহতি প্রকাশ এবং সকল ব্লগারকে উপস্থিত থাকার আহবান।
৫। ব্লগার-অনলাইন এ্যাক্টিভিস্টদের ব্লগ পোস্ট বা যেকোনো প্রকারের মত প্রকাশের বিরুদ্ধে সরকারের অসহিষ্ণু আচরণ ও হয়রানিমূলক চাপ প্রয়োগের বিরুদ্ধে শীঘ্রই একটা মতবিনিময় সভার আয়োজন করার প্রস্তাব দেয়া হয়।


চতুর্থ আপডেট
১. আসিফের মুক্তির দাবীর সমাবেশ পরিণত হউক হয়রানির প্রতিবাদ আর জগন্নাথ সংহতির সমাবেশে: চলে আসুন ৪টায়, শাহবাগে
২. আসিফ মহিউদ্দীন মুক্তি পেলেও প্রতিবাদ-সংহতি সমাবেশ জরুরী। একজন ব্লগার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনের পক্ষে একটি লেখা লিখবেন ও সংহতি সমাবেশের আয়োজন করবেন আর তার জন্য তাকে ডিবি অফিসে ডেকে নিয়ে আটকে রাখা হবে, পারিবারিক মুচলেকা নিয়ে ছাড়া হবে.. এই ফ্যাসিবাদী আচরণের তীব্র প্রতিবাদ হওয়া জরুরী।

তৃতীয় আপডেট
১. মুক্তি পেয়েছেন আসিফ মহিউদ্দীন
২. একজন সচেতন নাগরিকের মত প্রকাশের অধিকারকে অবরুদ্ধ করার ঘৃণ্য প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে প্রতিবাদ সমাবেশ হবে।


দ্বিতীয় আপডেট
১. ডিবি বলছে আসিফকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে, বোন বলছে ‘না’
২. আসিফের আটক ও মুক্তি নিয়ে পুলিশের নাটকীয় অবস্থান আরো ভয়াবহ চিত্রের প্রতিফলন। যাই হোক না কেনো, মুক্ত আসিফকে নিয়ে অথবা আটক আসিফের মুক্তির দাবীতে এবং জগন্নাথের ছাত্রছাত্রীদের দাবীর প্রতি পূর্ণ সংহতি জানিয়ে প্রতিবাদ সমাবেশ হবে যথাসময়ে।

প্রথম আপডেট:

১. আসিফ মহিউদ্দীন এখনও পুলিশী হেফাজতে
২. শাহবাগ থানায় তার গ্রেফতারের কারণ অনুসন্ধানে কয়েকজন সাংবাদিক অবস্থান করছেন।
৩. মুক্তির দাবীতে আজ বিকেল ৪টায় প্রতিবাদ সমাবেশের ডাক দিয়েছে অনলাইন এক্টিভিস্ট গ্রুপ। স্থান: শাহবাগ (যাদুঘর ও শাহবাগ থানা সংলগ্ন)
৪. সকল পুরাতন-নতুন ব্লগারদের অংশগ্রহণের জন্য সনির্বন্ধ অনুরোধ জানিয়েছেন ব্লগাররা।
৫. কারো কাছে কোনো আপডেট থাকলে মন্তব্য জানাতে অনুরোধ করা হচ্ছে।


পাবলিক ইউনিভার্সিটিসমূহ বাংলাদেশে শিক্ষার সর্বোচ্চ বিদ্যাপিঠ। দেশের আর্থসামাজিক অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর সন্তানদের নর্থসাউথের মত পাঁচ তারকা বিশ্ববিদ্যালয় জোটে না। তাদের পড়তে হয় এসব পাবলিক ইউনিভার্সিটিতে। একটা উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে শিক্ষাখাতে সরকারের সর্বোচ্চ বরাদ্দ থাকবে সেটাই স্বাভাবিক। যা বাংলাদেশেও আছে।

গণতন্ত্র ও সমাজতন্ত্র সংবিধানে ঝুলিয়ে দেশের শিক্ষামন্ত্রী একজন সোশ্যালিস্ট। অথচ অবাক বিস্ময়ে আমাদের দেখতে হলো পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়কে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো কর্পোরেট কোম্পানীতে রূপান্তরের জঘন্য প্রচেষ্টা। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা পড়লো যার প্রথম এক্সপেরিমেন্টাল খড়গের কোপে।

এমন হীন প্রচেষ্টা রুখে দিতে সোচ্চার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা রাস্তায় নেমেছে। সরকার মুখে শিক্ষানীতির বিস্তারিত উদারীকরণের গল্প শুনিয়ে বিক্ষুব্ধ ছাত্রছাত্রীদের উপরে পুলিশি নির্যাতন চালালো। অথচ এই ঘটনার এমন পরিণতি হবার কথাই নয়। ছাত্রছাত্রীদের দাবী যে কেবল জগন্নাথ আর এর মুষ্টিমেয় শিক্ষার্থীদের নয়, সেটা অনুধাবনের মত ঠুঁটো জগন্নাথ সরকারের হবার কথা নয়। পাবলিক ইউনিভার্সিটিতে শিক্ষার্থীদের পড়ার খরচ বৃদ্ধির সংবাদ দেশের অন্য সকল পাবলিক ইউনিভার্সিটিতে দাবানলের মত জ্বলে ওঠার কথা।

শুধু তাই নয়, অভিভাবক ও শিক্ষক থেকে শুরু করে দেশের লাখো লাখো তরুণেরা যারা সদ্য পাশ করে বের হয়েছে, সবাই-ই ক্ষোভ প্রকাশ করবে - এটাই স্বাভাবিক।

সামাজিক নেটওয়ার্ক সাইট থেকে শুরু করে ব্লগোস্ফিয়ার সর্বত্রই মানুষের বিক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া পরিলক্ষিত হচ্ছে। বিশেষ করে অনলাইন ব্লগার অ্যাক্টিভিস্ট গ্রুপ এ নিয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সংহতি প্রকাশ করে গতকাল ৩০শে সেপ্টেম্বর সমাবেশ করেছে। বাংলাদেশের ব্লগোস্ফিয়ার এখন অন্য যেকোনো সময়ের চেয়ে অনেক বেশী দ্রুততার সাথে সংবাদ ছড়িয়ে দেয় কোটি মানুষের কাছে। ব্লগ গবেষকদের মতে, পরোক্ষভাবে দেশের কমপক্ষে ১ কোটি মানুষ ওয়েবস্ফিয়ারের নানা সংবাদ ও প্রতিক্রিয়ার খবরাখবার পেয়ে থাকেন। ফলে ব্লগারদের এই সংহতি বেশ শক্তিশালী বার্তা পৌঁছে দিয়ে থাকতে পারে প্রশাসনকে। এ বছরের শুরু থেকে সোশ্যাল মিডিয়ার বিশ্বব্যাপী বিপ্লব-এ্যাক্টিভিজম সরকারকে একধরণের ভীতি প্রদান করে থাকবে। গতকাল অনলাইন ব্লগার অ্যাক্টিভিস্ট গ্রুপের অন্যতম সংগঠক আসিফ মহিউদ্দীনের বাসায় ডিবি পুলিশ খুঁজতে যায়, না পেয়ে পরিবারের সদস্যদের তাকে থানায় রিপোর্ট করতে বলে। আজকে আসিফ মহিউদ্দীন তার বোনকে নিয়ে থানায় রিপোর্ট করলে, পুলিশ আটক করে। যার কোনো গ্রহণযোগ্য কারণ দেখানো হয়নি, তবে শোনা যাচ্ছে তার মোবাইল কল ট্রাক করা হচ্ছিলো।

কয়েক মাস আগে বাংলা ব্লগোস্ফিয়ারের প্রথম কোনো গ্রেফতারের ঘটনা ঘটেছিলো। জনপ্রিয় ব্লগার দিনমজুর ওরফে অনুপম সৈকত শান্ত গ্রেফতার হয়েছিলেন। এবার ঘটলো দ্বিতীয় ঘটনাটি। আসিফ মহিউদ্দীন একজন জনপ্রিয় ব্লগার এবং অ্যাক্টিভিস্ট, মুক্তমনা, শক্তিশালী লেখক ও যুক্তিবাদী, ব্লগের সকল ক্যাম্পেইনে থাকেন অগ্রসর সৈনিক হিসাবে।



সরকারী আমলাতন্ত্র সম্ভবত বিকল্প মিডিয়ার শক্তি সম্পর্কে অনভিজ্ঞ। আসিফ মহিউদ্দীন হতে পারে একটা মাত্র নাম - তবে ভার্চুয়াল অঙ্গনে এখন লাখো আসিফ মহিউদ্দিন সরব হয়ে আছেন। কোনো সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ছাড়া এমন আটকের ঘটনা দেশের পুলিশী ব্যবস্থাপনার ঘৃণ্য চরিত্র উন্মোচিত করে।

আসিফ মহিউদ্দীনের মুক্তি এখন হোক প্রতিটা ব্লগারের একমাত্র দাবী।

প্রতিবাদী ও সংশ্লিষ্ট পোস্টসমূহ
১. ফ্যাসিবাদ নিপাত যাক, বাক-স্বাধীনতা মুক্তি পাক
২. আওয়ামি মত প্রকাশের নমুনা! একজন ব্লগার ন্যায্য দাবীর প্রতি সম্মান জানানোর ফল হিসেবে গ্রেফতার।
৩. আসিফ মহিউদ্দীনের ফেসবুক ওয়াল থেকে
৪. পারসোনা ও আসিফ মহিউদ্দিন : মেইন স্ট্রিম মিডিয়া বনাম বিকল্প মিডিয়া
৫. আসিফ মহিউদ্দিনের কাছ থেকে বলদেরা শিখুক, লোকটার মুক্তি দাবি করছি
৬. ব্লগার আসিফ মহিউদ্দীন আটক!
৭. আসিফ আপনি একা নন, চিন্তার স্বাধীনতার জন্য লড়ব আমরা সবাই (ফটো ব্লগ)
সর্বশেষ এডিট : ০২ রা অক্টোবর, ২০১১ রাত ১০:৫৪
৩২৬টি মন্তব্য ২টি উত্তর পূর্বের ৫০টি মন্তব্য দেখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

এই তো আছি বেশ

লিখেছেন রানার ব্লগ, ১৯ শে অক্টোবর, ২০২১ দুপুর ১২:২১




বেশ হয়েছে বেশ করেছি
কানে দিয়েছি তুলো
জগত সংসার গোল্লায় যাক
আমি বেড়াল হুলো

আরাম করে হাই তুলে
রোজই দেখি পেপার
দেশ ভর্তি অরাজকতা
আচ্ছা!! এই ব্যাপার

কার ঘরেতে... ...বাকিটুকু পড়ুন

বাবনিক~২য় পর্ব (তৃতীয় খন্ড)

লিখেছেন শেরজা তপন, ১৯ শে অক্টোবর, ২০২১ দুপুর ১:৩৯


আগের পর্বের জন্যঃ Click This Link
ভোরের শুরু থেকে রাতের দ্বি-প্রহর পুরোটা সময় আমার এলিনার কাছে পিঠে থাকতে হয়। অল্প বয়সীরা যা হোক আকার ইঙ্গিত আর অতি ভাঙ্গা ইংরেজি বুঝে... ...বাকিটুকু পড়ুন

অন্বিষ্ট

লিখেছেন শিখা রহমান, ১৯ শে অক্টোবর, ২০২১ বিকাল ৪:৫৮


আজকাল কোন কিছুই আর অবাক করে না।
রাজপথে ফুটপাতে হেঁটে যাওয়া অগণিত মানুষের গল্প
খুব সাদামাটা মনে হয়;
কোন কবিতাই অবাক করে না আর,
উপমা-উৎপ্রেক্ষা শব্দের ব্যাঞ্জনা আশ্চর্য করে না আজকাল।

মহামারীতে উজাড় হয়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

কথায় কথায় ধর্মকে গালি ও উপহাস করবেন না.........

লিখেছেন জুল ভার্ন, ১৯ শে অক্টোবর, ২০২১ বিকাল ৫:১২

কথায় কথায় ধর্মকে গালি ও উপহাস করবেন না.........

ধর্মীয় উগ্রবাদ ও সংখ্যালঘুদের উপর অনাকাংখিত হামলার জন্য যে কোন ধর্মকে গালাগালি করা বা ধর্মকে দোষারোপ করা বন্ধ করুন।

১। মুসলমানদের মধ্যে একদল... ...বাকিটুকু পড়ুন

ধর্মীয়গ্রন্হ কে কিনতে পারবে, বহন করতে পারবে, কোথায় রাখতে পারবে?

লিখেছেন চাঁদগাজী, ১৯ শে অক্টোবর, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:২১



কে ধর্মীয় বই কিনতে পারবেন, পড়তে পারবেন, কোথায় রাখতে পারবেন, কোথায় ফেলে দিতে পারবেন, এই নিয়ে কোন নিয়ম কানুন আছে?

আমি বাংলাদেশের কথা জানি না, নিউইয়র্কের কথা বলি;... ...বাকিটুকু পড়ুন

×