somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

ফরমালিন ও নেতাদের চামচামি

২৬ শে জুন, ২০১৪ রাত ৩:৩১
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

"আমার এক বন্ধু একদিন বাজারে গিয়ে একটা রুই মাছ কিনলো। বিশাল সাইজের রুই! কানকোটাও টকটকে লাল! আমার বন্ধু আবার মাছের খুবই ভক্ত। এত তাজা এবং বড় মাছ দেখে বেচারা আর লোভ সামলাতে পারলোনা। কিনে ফেলল। দাম একটু বেশি নিল, কিন্তু তাতে সে কিছু মনে করলো না।
মাছওয়ালা বলেছিল মাছটা কেঁটে কুটে দিবে কিনা।
সে আর মাছ কাটালো না। সে তার বউকে মাছটা দেখাতে চায়। এত বড় মাছ দেখাতেও আনন্দ।
বাসায় ফিরতে ফিরতে দেশের বাড়ি থেকে ফোন এলো যে তার বাবা ভীষণ অসুস্থ হয়ে গেছেন। সে যেন যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বাড়িতে ফিরে আসে।
বন্ধু বুঝতে পারলো খবর ভাল না। কারন সাধারণত কোন নিকটাত্মীয়ের "ভীষণ অসুস্থতার" খবর মানে হচ্ছে মৃত্যু সংবাদ। আপনজনদের টেলিফোনে সরাসরি মৃত্যু সংবাদ না দেয়াটা হচ্ছে বাঙ্গালি সংস্কৃতি।
বন্ধু ফ্ল্যাটে আসার আগেই তার বউকে ফোন করে বলল ব্যাগ গুছিয়ে প্রস্তুত থাকতে। তারা এখনই বেরিয়ে যাবে।
বাসে করে দেশের বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হবার পরে বন্ধুপত্নীর খেয়াল হলো বিশাল সাইজের রুইটা ফ্রীজে ঢোকানো হয়নি। বাইরেই রেখে চলে এসেছে।
বন্ধু বেচারা তখন পিতৃশোকে বিহ্বল, মাছ নিয়ে তাকে তেমন চিন্তিত মনে হলো না।
বাবার জানাজা, কবর, মিলাদ এবং অন্যান্য আনুষ্ঠানিকতা সেরে ঢাকায় ফিরে আসতে তাদের দশ দিন লেগে গেল। বন্ধু বেচারা তখন সদ্য বাবাকে হারানোর যন্ত্রণায় ভাঙ্গা বুক সারাতে ব্যস্ত। মাছের কথা তারা ভুলেই গিয়েছিল।
ফ্ল্যাটের দরজা খুলে রান্না ঘরে এসে তারা দুজনই অবাক! মাছটা ঠিক তেমনই রয়ে গেছে। একদম অবিকৃত, টাটকা!
যেখানে মাছ মরার চার ঘন্টা পর থেকেই পঁচতে শুরু করে, সেখানে দশদিন পেরিয়ে যাবার পরেও কিছুই হলোনা, ব্যপারটা অবিশ্বাস্য!
ঘটনা বুঝতে বন্ধুর কোনই সমস্যা হলো না। মাছে ফরমালিন দেয়া হয়েছিল।
শখের মাছটিকে না খেতে পেরে এভাবে ফেলে দিতে তার বুকে আবারও নতুন করে ফাঁটল ধরলো।"
গল্পটি বলছিলেন আমাদের শ্রদ্ধ্যেয় শিক্ষক দেওয়ান নিয়ামুল করিম। "অর্গানাইজেশনাল বিহেভিওর" ক্লাসে লেকচারের ফাঁকে তিনি গল্পটি শুনিয়েছিলেন। সময়কাল দুই হাজার ছয়। ঠিক আট বছর আগের ঘটনা। খাবারে ফরমালিন মেশানো তারও আগে থেকে হয়ে আসছে। বাংলাদেশের ফল, মাছ, মাংস সবকিছুতেই বিষাক্ত কেমিক্যাল মিশিয়ে যুগের পর যুগ ধরে মানুষকে খাইয়ে এসেছেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সমাজ। সেই দেশের ফ্রুট জ্যুসে মেশানো হতো ইটের গুড়া, কনডেন্সড মিল্ক তৈরী হয় সাবানের উপাদান দিয়ে। টমেটো সসে মেশানো হত বিষাক্ত রং!
গণ মাধ্যমে এত সচেতনতার পরেও কোন সরকারকেই সেভাবে কোন পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি।
ভাম্যমান আদালত মাঝে মাঝে হানা দিয়েছেন কোথাও কোথাও, কিন্তু যেখানে কেমোথেরাপির প্রয়োজন, সেখানে এন্টিবায়োটিকে কাজ হয়?
সব পরিস্থিতিতেই মানিয়ে নিতে অভ্যস্ত বাঙ্গালি এই ভয়াবহ পরিস্থিতেও নিজেকে মানিয়ে নিল। কেউ কেউ রসিকতাও করলো, "ফরমালিন খেয়ে খেয়ে একটা লাভ হয়েছে, মরে গেলে আমাদের লাশ কবরে পচবে না। ইজিপশিয়ান মমি হয়ে বছরের পর বছর টিকে থাকতে পারবো। হাহাহা।"
নিরুপায় মানুষের কাষ্ঠ হাসি।
আহারে!
সেদিন পেপারে একটা দারুন সংবাদ দেখলাম। এখন থেকে নাকি খাদ্যে ফরমালিন পাওয়া গেলে সেই ব্যবসায়ীর বিপক্ষে "attempt to murder" চার্জে অভিযুক্ত করা হবে, এবং সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।
আলহামদুলিল্লাহ! যাক! যুগের পর যুগ পরে হলেও কোন এক সরকারের টনকতো নড়লো!
এর ফল স্বরূপ সেদিন দেখলাম রাজধানীর সব ফলের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা অনির্দিষ্ট কালের জন্য তাঁদের দোকান বন্ধ ঘোষণা করেছেন। তাঁদের অভিযোগ, ভ্রাম্যমাণ আদালত অহেতুক ফরমালিন মেশানোর অভিযোগে তাঁদের হয়রানী করে। যারা তাঁদের ফল ডিস্ট্রিবিউট করেন, সেই হীমাগার মালিকদের নাকি কেউ কিছু বলেনা। তাঁদের অভিযোগ, খাদ্যে ফরমালিন সেই হীমাগার মালিকেরাই মেশান।
এখন হীমাগার মালিকদের ধরা শুরু হলে আরও উপরের লেভেলের কারো নাম বেরোবে। তারপর আরও উপরের। এভাবে একটা সময়ে হয়তো বা সত্যি সত্যিই আমাদের দেশ ফরমালিন মুক্ত খাদ্য খেতে পারবে!
সরকারকে অভিনন্দন।
রাজনীতি নিয়ে যখন কথা তুলেছিই, তখন দুয়েকটা গল্পও শেয়ার করা যাক!
আজকের খবরে পড়লাম, সাংসদ মমতাজ নাকি বঙ্গবন্ধু এবং প্রধাণমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে সংসদে চমৎকার গান গেয়েছেন। প্যারোডি গানের কথা ছিল, ‘হায়রে বাঙালি, ওরে বাঙালি, তোরা বুঝবি রে একদিন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তোদের মাঝে থাকবে না যেদিন। শেখ হাসিনার জন্য আছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, তা না হলে ওসব কথা বলাই যেত না।...’
গানটি শুনে নাকি প্রধাণমন্ত্রী হেসে দিয়েছেন।
জাতীয় সংসদ এখন একটি পারিবারিক আড্ডার স্থান হয়ে গিয়েছে। সেখানে সবাই নিজেদের লোক। কিছুদিন আগে একজন আমাদের প্রধাণমন্ত্রীকে "অলী আল্লাহ" বানিয়ে দিয়েছিলেন। এখন শিল্পী মানুষ গান গেয়েও শোনাচ্ছেন। কোনই সমস্যা নাই।
এদিকে আরেকজন, যিনি কিনা বিরোধী দলের সাংসদ (বিরোধী দল মানে এখন কিন্তু জাতীয় পার্টি, বিএনপি আগামী পাঁচ বছরের জন্য সংসদের বাইরে) তিনি প্রস্তাব করেছেন পদ্মা সেতুর নাম বঙ্গবন্ধুর স্ত্রীর নামে রাখতে।
আমি নিশ্চিত, প্রস্তাবনাটি বিপুল ভোটে পাশও হবে।
একটি সেতুর নাম বঙ্গবন্ধু হোক, জিয়াউর রহমান হোক, কিংবা কুতুবউদ্দিন জায়গীরদার হোক, কিছুই যায় আসেনা। সেতু হওয়াটাই জরুরী।
বহুদিন ধরে ঝুলে থাকা পদ্মা সেতু কবে নির্মাণ শেষ হবে কেউ বলতে পারেনা। শেষে দেখা যাবে নামকরণ জটিলতার কারণে সেটা আরও কয়েক বছর পিছিয়ে গেছে! আমার কথা হচ্ছে, আপাতত তেল মারামারি পাশে থাকুক, সেতু নির্মাণ শেষ হোক। তারপরে যার যা খুশি একটা নাম দিয়ে দিক। সাধারণ মানুষের কাছে সেটা পদ্মা সেতুই থেকে যাবে।
আমাদের নেতাদের থাইল্যান্ড পাঠিয়ে দেয়া উচিৎ। তৈল মর্দন তাঁরা ভালই পারেন। এখন মাসাজের টেকনিকটাও যদি শিখে আসতে পারেন, তাহলে আর কষ্ট করে কাউকে এত পয়সা খরচ করে ব্যাংক যেতে হতো না। একেকজন ঘরে বসেই একেকটি "মাসাজ শিল্প প্রতিষ্ঠান" খুলে বসতে পারতেন।
২টি মন্তব্য ১টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

মাংস পোলাও

লিখেছেন ঠাকুরমাহমুদ, ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:০১



সেন্ট্রাল ঢাকার কথা মনে হলেই সামার সাহেবের মনে ও শরীরে শত সহস্র ক্লান্তি এসে ভর করে। রাজধানী ঢাকার সড়কে এতো এতো জ্যাম পেড়িয়ে সেন্ট্রাল ঢাকাতে যাওয়া সত্যি সত্যি এক... ...বাকিটুকু পড়ুন

যে চিঠির কারণে ভারতীয় উপমহাদেশের ট্রেনগুলোতে টয়লেট বানানো হয়েছিলো

লিখেছেন সত্যপথিক শাইয়্যান, ২৫ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:২১

অখিল বাবু অখণ্ড ভারতের আহমেদপুর স্টেশনে প্রাকৃতিক কাজ সারার জন্যে ট্রেন থেকে নেমেছেন। হঠাৎ করেই গাড়ি ছেড়ে দিলো। এতে তিনি খুব অপদস্থ হোন। অখিল বাবু এরপরে রেল বিভাগের উচ্চ কর্মকর্তার... ...বাকিটুকু পড়ুন

বাবনিক-৩য় পর্ব (দ্বিতীয় খন্ড)

লিখেছেন শেরজা তপন, ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:৪৪


আগের পর্বের জন্যঃ Click This Link
লিনার সাথে এর মাঝে কয়েকবার দেখা সাক্ষাৎ হয়েছে। দু-য়েকবার পার্কে আর বাকি সময় বাসাতেই। ওর মায়ের সাথে গল্প হয়েছে- তিনি একদিন আমাকে ঐতিহ্যবাহী বোরিশ স্যুপ রান্না করে... ...বাকিটুকু পড়ুন

ওয়েলস রাজ্যে গমন, ভ্রমন এবং একটা ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতা

লিখেছেন ভুয়া মফিজ, ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ দুপুর ১২:০৩



গত ১৭ তারিখ শুক্রবার সকালে অফিসে গিয়েই একাধারে দুঃসংবাদ এবং সুসংবাদ শুনলাম। আগে সুসংবাদটা বলি। সেটা হলো, সোমবার সকালে তিনদিনের জন্য আমাকে ওয়েলস যেতে হবে। আর দুঃসংবাদটা এক কথায়... ...বাকিটুকু পড়ুন

এর মধ্যে থেকে সেরা তিনটি ছবি নির্বাচন করুন

লিখেছেন অর্ক, ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ দুপুর ১২:১৫

আপনার দৃষ্টিতে এই ছবিগুলোর মধ্যে সেরা তিনটি ছবি কোন তিনটি? ক্রমিক দিয়ে জানান। অল্প কথায় নির্বাচনের কারণ জানালে তো আরও দারুণ হবে। সবাইকে অনেক ধন্যবাদ। শুভকামনা সবসময়।

১.


Sharmishtha Bera

... ...বাকিটুকু পড়ুন

×