somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

কেমন হবে দারুল ইসলাম?

২৮ শে জুলাই, ২০২০ বিকাল ৫:০৬
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

১৭৪৫ সালে শিখ সম্প্রদায়ের একজন মানুষ ভাই তারু সিংহকে হত্যা করে মোগল শাসকেরা, তখন পাঞ্জাবের শাসক ছিলেন জাকারিয়া খান। সে সময় পাঞ্জাব অঞ্চলে মোগল তহশিলদারদের অত্যাচার বেড়ে গিয়েছিল, তারা শিখদের ধর্মান্তরিত হতে বাধ্য করছিল। এর প্রতিবাদে কিছু শিখ একত্রিত হয়ে বিদ্রোহ করেছিলেন, তারু সিংহ ছিলেন সেই বিদ্রোহীদের একজন। তারু সিংহ পেশায় ছিলেন একজন কৃষক, মোগলদের অত্যাচার কোন পর্যায়ে পৌঁছালে একজন সাধারণ কৃষকও বিদ্রোহী হয়ে হঠে তা ভাবতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয়। বিদ্রোহী তারু সিংহ মোগলদের হাতে ধরা পড়ে যান, প্রথমে তাকে জেলে বন্দী রাখা হয়, তারপর তাকে ধর্মান্তরিত হয়ে মুসলমান হবার প্রস্তাব দেওয়া হয়। তারু সিংহ সেই প্রস্তাব প্রত্যাখান করেন। এরপর শুরু হয় তারু সিংহের ওপর নৃশংস নির্যাতন। তার চুল সমেত মাথার খুলির ওপরের অংশ তুলে নেওয়া হয়, এই অত্যাচারেই ১৭৪৫ সালে লাহোরে ভাই তারু সিংহ মারা যান। পরে শিখরা তার স্মরণে সেখানে শহীদি আস্তান ভাই তারুজি গুরুদ্বার নির্মাণ করে। স্থানীয় মুসলমান এবং পাকিস্তান সরকার এখন সেই গুরুদ্বারটিকে মসজিদে রূপান্তরিত করার চেষ্টা করছে।

কিছুদিন আগে পাকিস্তানের হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের জন্য রাজধানী ইসলামাবাদে কৃষ্ণ মন্দির নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছিল ইমরান খানের সরকার। মন্দির গড়ার জন্য দশ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছিল পাকিস্তান সরকার। শুরু হয়েছিল মন্দিরের নির্মাণকাজও। কিন্তু তারপর? ইসলামী সংগঠন জামিয়া আশরাফিয়া ফতোয়া জারি করে সেখানে মন্দির নির্মাণ করা যাবে না, মন্দির নির্মাণ করলে সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। মন্দির নির্মাণবিরোধীদের আন্দোলনের ভয়ে ইমরান খানের সরকার তড়িত গতিতে মন্দিরের নির্মাণ কাজ স্থগিত করে।

আমাদের বাংলাদেশের কোনো কোনো মুসলমান হয়তো বলবেন, ‘ইসলাম ইহা সমর্থন করে না, ইহা সহি ইসলাম নহে।’

আসুন দেখি এ বিষয়ে ইসলামী পণ্ডিতরা কী বলেন। পাকিস্তানের প্রসিদ্ধ আলেম মুফতি মুহাম্মদ তাকি উসমানী এবং দেশটির চাঁদ দেখা কমিটির চেয়ারম্যান মাওলানা মুনিবুর রহমানসহ দেশটির একাধিক শীর্ষ আলেম বলেছেন, ‘মুসলিম সরকারের পক্ষ থেকে অমুসলিম সম্প্রদায়ের উপাসনালয়ের সংস্কারকাজে সহায়তা করা বৈধ থাকলেও সরকারি জমিতে ও সরকারি অর্থায়নে অমুসলিম সম্প্রদায়ের জন্য নতুন করে উপাসনালয় নির্মাণ করে দেয়া বৈধ নয়। ইসলাম এ কাজ সমর্থন করে না।’ তথ্যসূত্র: দৈনিক যুগান্তর অনলাইন, ৪ জুলাই, ২০২০।

হ্যাঁ ভাই, এটাই সহি ইসলাম। নবী মুহাম্মদও কোরাইশদের কাবা মন্দির দখল করেছিলেন। এটাই ইসলামী সংস্কৃতি। পৃথিবীর সমস্ত ইসলামী দেশে এবং ভারতবর্ষে এভাবেই অসংখ্য মন্দির, গীর্জা, গুরুদ্বার, প্যাগোডাকে মসজিদে রূপান্তরিত করা হয়েছে। ইসলামাবাদে কৃষ্ণমন্দিরটি নির্মাণ করতে দেওয়া হলে সেটাই হতো ইসলামাবাদের প্রথম মন্দির! খেয়াল করুণ, প্রথম মন্দির! কী অদ্ভুত না? ইসলামাবাদের ভূ-খণ্ড তো আর আরব থেকে এনে বসিয়ে দেওয়া হয় নি, সেখানে অমুসলিমরা বাস করতো, তাদের ধর্ম ছিল, সংস্কৃতি ছিল, উপাসনালয় ছিল। সে-সব কোথায় গেল? জবরদস্তিমুলক রূপান্তরের চক্রে হারিয়ে গেছে!

পাকিস্তান দ্রুত গতিতে দারুল ইসলামের দিকে এগিয়ে চলেছে। কেমন হবে দারুল ইসলাম? এই প্রশ্নের মোটামুটি একটা চিত্র পাওয়া যায় পাকিস্তানে, সেখানে জোর করে অমুসলিমদের ধর্মান্তর করা হয়, অমুসলিম তরুণীদের বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে কখনো বিয়ে করা হয়, কখনো অমুসলিম নারীদের ধর্ধষ করে হত্যা করা হয়! অমুসলিমদের উপাসনালয় নির্মাণ করতে দেওয়া হয় না, বরং উপাসনালয় ভেঙে মসজিদ নির্মাণ করা হয়। এসবই দারুল ইসলামের দিকে এগিয়ে যাবার আলামত।

সারা পৃথিবীব্যাপী দারুল ইসলাম প্রতিষ্ঠার চেষ্টায় এই যে মুনিন ভাইয়েরা এতো খাটা-খাটনি করছে- বোমা বিস্ফোরণে মানুষ হত্যা করছে, গুলি করছে, জবাই করছে। এমনকি আত্মঘাতী বোমা মেরে নিজের জীবন পর্যন্ত উৎসর্গ করছে। এ কী কম পরিশ্রমে কাজ! এতো পরিশ্রম করে তারা যে ‘দারুল ইসলাম’ প্রতিষ্ঠা করতে চায়, কেমন হবে সেই ‘দারুল ইসলাম’?

দারুল ইসলামে কোনো ভিন্ন ধর্মাবলম্বী, ভিন্ন মতাবলম্বী, ভিন্ন সংস্কৃতির মানুষ থাকবে না। সব পুরুষকে দাড়ি রেখে জোব্বা পরতে হবে। ওই শেভ করে গাল চকচকা রাখা, প্যান্ট-শার্ট বা টাই-কোট পরা ওসব চলবে না হে বাপু! গায়ে উল্কি আঁকা চলবে না। নারীদের বোরকায় আবৃত এবং ঘরে থেকে কেবল পুরুষকে যৌনসঙ্গ দেওয়া, বাচ্চা জন্ম দেওয়া এবং লালন-পালন করতে হবে। বাইরে গিয়ে কাজ করা চলবে না। স্বামীর সোহাগে সতীন আর দাসীদের ভাগ বসবে! ওসব ভ্রূ প্লাক করা চলবে না আপুনি, ঠোঁটে লিপস্টিক দেওয়া, রঙ-বেরঙের জামা পরে বাইরে যাওয়া সব ভুলে যেতে হবে। গান-বাজনা? তওবা তওবা, ভুলেও ওসব শোনা চলবে না। সিনেমা দেখা যাবে না। ভণ্ড মুমিন মুশফিক ভাইটির মতো ক্রিকেট খেলা চলবে না। তীর নিক্ষেপ, সাঁতার আর অশ্বদৌড় ব্যতিত সব খেলা হারাম। হয়তো চিকিৎসা বিদ্যার জন্য হাসপাতালে লাশ কাটাও নিষিদ্ধ হতে পারে! পাশ্চাত্যের কোনো দেশে জঙ্গিরা মানুষ হত্যা করলে খুশিতে পিচ্চি ছাগলের বাচ্চার মতো লাফানো মুমিন ভাইটি শোনো হে, নিজের স্বাধীন মতো চলতে পারবে না, জব্বার চাচার অবাধ্য হয়ে মোবাইলে এখনকার মতো পর্ণ রাখতে পারবে না, প্রেম করতে পারবে না!

আমাদের সামনে এখন দুটো পথ- হয় সভ্য জগত, নয়তো দারুল ইসলাম!

জুলাই, ২০২০।



সর্বশেষ এডিট : ২৮ শে জুলাই, ২০২০ বিকাল ৫:০৬
৪টি মন্তব্য ৪টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

৪৫ বছরের অপ-উন্নয়ন, ইহা ফিক্স করার মতো বাংগালী নেই

লিখেছেন চাঁদগাজী, ১০ ই আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৫:০৫



প্রথমে দেখুন প্রাইভেট ইউনিভার্সিটিগুলো; উইকিপেডিয়াতে দেখলাম, ১০৩ টি প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি আছে; ঢাকা ইউনিভার্সিটি যাঁরা যেই উদ্দেশ্যে করেছেন, নর্থ-সাউথ কি একই উদ্দেশ্যে করা হয়েছে? ষ্টেমফোর্ড ইউনিভার্সিটি কি চট্টগ্রাম... ...বাকিটুকু পড়ুন

ব্লগ মাতানো ব্লগাররা সবাই কোথায় হারিয়ে গেল ?

লিখেছেন ঢাবিয়ান, ১০ ই আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৩৪

ইদানিং সামু ব্লগ ব্লগার ও পোস্ট শূন্যতায় ভুগছে। ব্লগ মাতানো হেভিওয়েট ব্লগাররা কোথায় যেন হারিয়ে গেছেন।কাজের ব্যস্ততায় নাকি ব্লগিং সম্পর্কে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন ঠিক বোঝা যাচ্ছে না। আমি কিছু ব্লগারের... ...বাকিটুকু পড়ুন

আজকের ডায়েরী- ৬৪

লিখেছেন রাজীব নুর, ১০ ই আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:২৫



সুরভি বাসায় নাই। সে তার বাবার বাড়ি গিয়েছে।
করোনা ভাইরাস তাকে আটকে রাখতে পারেনি। তবে এবার সে অনেকদিন পর গেছে। প্রায় পাঁচ মাস পর। আমি বলেছি, যতদিন ভালো... ...বাকিটুকু পড়ুন

কবিতাঃ অমঙ্গল প্রদীপ (পাঁচশততম পোস্ট)

লিখেছেন খায়রুল আহসান, ১০ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ১১:১৪

প্রদীপের কাজ আলো জ্বালিয়ে রাখা।
কিন্তু টেকনাফের একটি ‘অমঙ্গল প্রদীপ’
ঘরে ঘরে গিয়ে আলো নিভিয়ে আসতো,
নারী শিশুর কান্না তাকে রুখতে পারতো না।

মাত্র বাইশ মাসে দুইশ চৌদ্দটি... ...বাকিটুকু পড়ুন

গণপ্রজাতন্ত্রী সোমালিয়া দেশে চাকরি সংকট

লিখেছেন ঠাকুরমাহমুদ, ১১ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ১২:২০



গণপ্রজাতন্ত্রী সোমালিয়া সরকার মন্ত্রী পরিষদে কতোজান বিসিএস অফিসার আছেন? তাছাড়া সততার সাথে সোমালিয়া সরকার চাইলেও সঠিক ও যোগ্য মন্ত্রীপদে কতোজন বিসিএস অফিসার দিতে পারবেন?

(ক) মন্ত্রী, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় - একজন... ...বাকিটুকু পড়ুন

×