somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

কোকোর ঘুষের টাকা যেভাবে ধরল FBI

২৮ শে আগস্ট, ২০১৩ রাত ৮:০৬
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

মুদ্রা পাচার মামলার বিবরণ অনুযায়ী, ২০০৫ সালে তারেক কোকো গং রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে কাজ পাইয়ে দেওয়ার জন্য ঘুষ নেন সিমেন্স কম্পানী থেকে। সিমেন্স জার্মান কম্পানী হলেও যুক্ত্রাষ্টের ওয়াল স্ট্রিট এ নিবন্ধনকৃত।
FBI এর তদন্তে দেখা যায় সিমেন্সের বড় একটি এমাউন্ট সিঙ্গাপুরের একটি যৌথ একাউন্টে ট্রান্সফার হয়েছে যার কোন ইনভয়েস নেই। একাউন্ট হোল্ডার জাজ ডিষ্টিলারিজের আরাফাত রহমান ও সিঙ্গাপুরের এক নাগরিক লিম ইউ চ্যাং নামে একজন (যৌথ একাউন্ট)
FBI এর অনুরোধে সিঙ্গাপুর পুলিশ মামলা দায়ের করে। এবং একাউন্টের সমুদয় টাকা বাজেয়াপ্ত করে। সিংগাপুর আদালতের রায় অনুযায়ী এই টাকা ক্ষতিগ্রস্থ দেশকে দিতে বলা হয়। কারন উভয় দেশই জাতিসঙ্ঘের "অন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী কনভেনশন" এর স্বাক্ষরকারি দেশ।
এছাড়াও চট্টগ্রাম বন্দরে নিউমুরিং কনটেইনার টার্মিনাল নির্মাণের ক্ষেত্রে অর্থ (ঘুষ) গ্রহণ করেন। পুরো অর্থই সিঙ্গাপুরে ঐ একাউন্টে জমা হয়। গত তত্তাবধায়ক আমলে এ ঘটনায় দুদকের উপপরিচালক আবু সাঈদ বাদী হয়ে আরাফাত রহমান ও সাবেক নৌপরিবহনমন্ত্রী আকবর হোসেনের ছেলে ইকবাল হোসেনকে আসামি করে কাফরুল থানায় মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনে মামলা করেন। এরপর ২০১১ সালের ২৩ জুন মানি লন্ডারিংয়ের অপরাধে আদালত কোকোর ছয় বছরের কারাদন্ডসহ ৩৮ কোটি ৮৩ লাখ টাকা জরিমানার রায় দেন এবং একই সঙ্গে বিদেশে পাচার করা অর্থ দেশে ফেরত আনার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন।

দেখুন, খালেদাজিয়ার গুনধর পুত্রদের ঘুষের টাকা কিভাবে সিঙ্গাপুরে কোকোর জয়েন্ট একাউন্টে! এখানে FBI ও বাংলাদেশী আইনি সংস্থা সমন্নিত ভাবে কাজ করেছে। এটা ২০০৯ এর মার্কিন জাস্টিস ডিপার্টমেন্টের বুলেটিন -
FBI অফিসিয়াল সাইটে ..
Click This Link

এই লেখাটিও পড়ুন -
Click This Link

গত ২৩ জুন ২০১২ প্রথম কিস্তির টাকা আনার পর আমার একটি লেখা, যা প্রথম পাতায় প্রকাশীত হয়নি ব্লগ নিক বিকল থাকার কারনে। পড়ুন -
Click This Link
সর্বশেষ এডিট : ৩১ শে আগস্ট, ২০১৩ সকাল ১০:৪২
১৫টি মন্তব্য ১৫টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

Miles to go before I sleep

লিখেছেন ঋণাত্মক শূণ্য, ১৭ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১০:২৮

কবিতা আমার তেমন একটা পছন্দ না। খুব বেছে খুটে গোটা দশেক কবিতার কথা আমি বলতে পারি যা আমি টুকটাক পছন্দ করি।



ব্লগে কবিতা দেখলে কেমন যেন লাগে। আমি সাধারণত কবিতার পোষ্ট... ...বাকিটুকু পড়ুন

কখন, কিভাবে বুঝবেন আপনি ছোটলোক?

লিখেছেন ফারহানা শারমিন, ১৮ ই জানুয়ারি, ২০২২ রাত ১২:৩৬


মোশাররফ করিমের একটা নাটকের ডায়ালগ আমার খুব মনে ধরেছে , সেটা হচ্ছে গরিব ধনী হয় কিন্তু ছোটলোক কোনদিন বড়লোক হয় না। ধরেন আপনার জন্ম এক হতদরিদ্র পরিবারে।দু এক জায়গায় ছোটলোক... ...বাকিটুকু পড়ুন

ব্যবহারে বংশের পরিচয় আর মন্তব্যে ব্লগারের

লিখেছেন রূপক বিধৌত সাধু, ১৮ ই জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ১০:০৬

'১৩ সালে সামহোয়্যার ইন ব্লগের সাথে পরিচয়। তখন অবশ্য সক্রিয় ছিলাম না। '১৫ সাল থেকে '১৬ পর্যন্ত সক্রিয় ছিলাম। এরপর থেকে নিষ্ক্রিয় হয়ে গেলাম। গত বছর একেবারেই নিষ্ক্রিয়।

তো এই... ...বাকিটুকু পড়ুন

রোহিঙ্গা সংকট সমাধান হবে কবে?

লিখেছেন হাবিব , ১৮ ই জানুয়ারি, ২০২২ সকাল ১০:২৮



আরসা প্রধানের ভাই বাংলাদেশের জাতীয় পরিচয়পত্র পেয়েছে। ঠিকানা দিয়েছে চট্টগ্রামের কোন এক এলাকার। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বিনামূল্যে গ্যাস সিলিন্ডার দেয়া হয়েছে যাতে তারা কাঠ কেটে বন ধ্বংস না করে। অথচ... ...বাকিটুকু পড়ুন

এগিয়ে চলেছে বেয়াদবির কালচার!

লিখেছেন ঋণাত্মক শূণ্য, ১৮ ই জানুয়ারি, ২০২২ দুপুর ১:৩১

একটা সময় ছিলো, যখন প্রচুর মুভি দেখতাম। মুভি দেখা প্রথম শুরু হয়েছিলো মূলত ইংরেজী শেখার নাম করে। ২০১৪ এর দিকে এসে পরিচয় ঘটে একটা টিভি সিরিজ The Big Bang Theory... ...বাকিটুকু পড়ুন

×