somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

নিজ দেশকে উগান্ডা বলাদের জন্য কিছু কথা

১২ ই মে, ২০২২ ভোর ৪:৫০
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

বাংলাদেশের অবস্থা শ্রীলঙ্কার মত হবে না।

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় শক্তি বাংলাদেশের জনসংখা। শ্রীলঙ্কার প্রায় ৯ গুন।
বঙ্গবন্ধু অবস্য প্রায়ই বলতেন জনগনই আমাদের সবচেয়ে বড় শক্তি, তখন সেটা ছিল রাজনৈতিক বক্তব্য, তখন ছিল বেশী জনসংখা মানেই বেশী ক্ষুধা বেশী দারিদ্র।
বর্তমানে সময় বদলেছে। বর্তমানে বাংলাদেশে বিশাল জনসংখা মানেই বিশাল সম্পদ। সেটা তৈরি করেছেন শেখ হাসিনা।
বিপুল বাঘা বাঘা অর্থনীতিবিদের হুশিয়ারি উপেক্ষা করে বিপুল ব্যায়ে অতি উচ্চমুল্য দিয়ে দেশে শতভাগ বিদ্যুৎ পৌছে দিয়েছেন।
অতি সামান্য ব্যাতিক্রম বাদে প্রত্যেক বাড়ীতে বিদ্যুত, প্রত্যেক বাড়ীতে ফোন প্রত্যেক বাড়ীতে ইন্টারনেট, রাস্তা ঘাট সেতু হয়েছে, এখন বাংলাদেশের যে কোন প্রান্ত থেকে ১০-১২ ঘন্টার ভেতর ঢাকা পৌছানো যাচ্ছে।
সবাই কিছু না কিছু করছে। মৎস উৎপাদনে পৃথিবীতে ২য়, ছাগল গরু মুরগী, দুধ ডিম, শাক সবজি উৎপাদনেও ভাল অবস্থানে। পর্যাপ্ত বিদ্যুৎ প্রাপ্তির কারনে উদ্যক্তা, কৃষক, মাছমুরগী চাষিদের উৎপাদন ৫০গুন বৃদ্ধি পেয়েছে।

বিদেশী রেমিটেন্সের কথা বাদ, এখন অনেকে ঘরে বসেই রেমিটেন্স আনছে।
ফ্রিল্যান্সিংএ বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্বের ভেতর ২য়, ভারতের পরেই ।
অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অক্সফোর্ড ইন্টারনেট ইন্সটিটিউট (ওআইআই) এর এক গবেষণায় প্রকাশিত হয়েছে যে অনলাইন শ্রমিক সরবরাহে বাংলাদেশে গড়ে উঠেছে এখন বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ।
বাংলাদেশের ফ্রিল্যান্সার এর অংশ বিশ্বের ১৬ শতাংশ।
এছাড়া বাণিজ্যবিষয়ক পত্রিকা ফোর্বস এর তথ্যমতে ফ্রিল্যান্সিং থেকে আয়ে এগিয়ে থাকা শীর্ষ ১০ দেশের মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ। ফ্রিল্যান্সিং মোট আয়ে বাংলাদেশ এর অবস্থান অষ্টম এবং দ্রুত প্রবৃদ্ধি হচ্ছে। বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি ২৭ শতাংশ।
বিশ্বে বছরে এক ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলারের বাজার রয়েছে আউটসোর্সিংয়ে। বাংলাদেশে এই খাতে আয় ১ বিলিয়ন হলেও, সম্ভাবনা আছে ৫ বিলিয়ন ডলারের।
এছাড়া বিচ্ছিন্ন ভাবে একক অনলাইনে ভিডিও কন্টেন্ট, জামা কাপড় ও বিভিন্ন বেচাকেনা ও এটা সেটা করেও উপার্যন চলছে।


এক্সপোর্ট বড় মাত্রায় কমে গেলেও বাংলাদেশের অর্থনীতি খুব একটা ধাক্কা খাবে না।
এর কারন দেশে ইতিমধ্যেই তৈরি হয়ে গেছে একটি বিশাল সংখক সক্ষম ক্রেতা ভোক্তা।
বাংলাদেশের দেসজ উৎপাদনের শিংহভাগই ক্রেতাই আভ্যন্তরিন, শৃলংকার মত এক্সপোর্ট নির্ভর জিডিপি নয়। বিশাল সংখক ভোক্তা, ভোক্তার সক্ষমতাও অনেক বেড়েছে। ইস্পাত শিল্প, সিমেন্ট, কাঁচ, মাছ গরু মুরগী .. সব ক্রেতাই আভ্যন্তরিন। চা রপ্তানির তুলনায় দেশেই বেশী বিক্রি হয়। ধিরে ধিরে দেশে তৈরি হয়েছে কোটি কোটি সক্ষম ক্রেতা। বড় শিল্প বাদেই তৃনমুলে উৎপাদন ও সেবার নতুন নতুন ক্ষেত্র তৈরি হচ্ছে। ফুটপাথ ভিত্তিক অর্থনীতিও একটা বিশাল ক্ষেত্র।

বাংলাদেশের পর্যটন শিল্প শ্রীলঙ্কার মত বিদেশী পর্যটক নির্ভর নয়।
পর্যটন শিল্প ৯৯% দেশি পর্যটক নির্ভর। লাখ লাখ দেশী টুরিষ্ট, বিদেশে টুরিষ্ট দরকার পরে না। দেশী পর্যটকদের পকেটে বিদেশী পর্যটকদের চেয়েও বেশী টাকা। হোটেল রিসোর্ট ভাড়া উন্নতদেশের সমপর্যায়ে বা তারচেয়ে বেশী ভাড়া, কোন হোটেল রিসোর্ট খালি থাকে না। ৩০ টাকার নাস্তা ৭০০ টাকায় বিক্রি এর পরেও ভিড়ে উপচে পড়ে।
ঢাকার ও পুরোনো ঢাকার রেষ্টুরেন্টগুলোও পর্যন্টন স্পট হয়ে উঠছে, এখন মফস্বলেও দেখা যাচ্ছে। শত অভাবেও কেউ বলছেনা বেশী মুল্যের কারনে কাষ্টোমার পাচ্ছে না।
কারন আমাদের আছে শ্রীলঙ্কার চেয়ে ১০ গুন বেশী সক্ষম ক্রেতা ভোক্তা।

বাংলাদেশের দেসজ উৎপাদনের (জিডিপির) শিংহভাগই ক্রেতাই আভ্যন্তরিন,
শৃলংকার মত এক্সপোর্ট নির্ভর জিডিপি নয়। বিশাল বিশাল ইস্পাত শিল্প, বড় বড় সিমেন্ট শিল্প, কাঁচ শিল্প, মাছ গরু মুরগী .. সব ক্রেতাই আভ্যন্তরিন। দেশের বিপুল চা উৎপাদনের চা রপ্তানির তুলনায় দেশেই বেশী বিক্রি হয়।


তাই এক্সপোর্ট ও রেমিটেন্স বড় মাত্রায় কমে গেলেও বাংলাদেশের অর্থনীতি খুব একটা ধাক্কা খাবে না।
সরকারের আয় কিছু কমবে।
সরকার একটু তৎপর হলে সেটা কমবে না। ট্যাক্স ও ভ্যাট ব্যাবস্থা সম্পুর্নভাবে মেকানাইজড করা হলে এসব খাতে বড় অর্থ ঘুষখোরদের হাতে না যেয়ে সবটাই সরকারের হাতে আসবে।




বৈদেশিক ঋণের কারনেও বাংলাদেশের অবস্থা খারাপ হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম।
বাংলাদেশের বৈদেশিক ঋণের পরিমান ১৩১.১৪ বিলিয়ন, যা ২০২০ সালের জিডিপির মাত্র ৩৪.৮১%; দক্ষিন এশিয়ার মাঝে সবচেয়ে ভাল।

মোট বৈদেশিক ঋণ জিডিপির অনুপাতে

Kuwait 17.78%
Bangladesh 34.81% দেবপ্রীয়রা অবস্য বলছে আভ্যন্তরিন ঋন সহ ৪০%
Malaysia 56.32%
Pakistan 77.00%
Sri Lanka 82.99% বর্তমানে ১১২%
Venezuela 214.45%

সুত্র - World Population Review ও IMF:

[
sb]রেমিটেন্স
বিএনপি আমল
2002–2003 - US$ 3,061.97 M
2003–2004 - US$ 3,371.97 M
2004–2005 - US$ 3,848.29 M
2005–2006 - US$ 4,802.41 M


রেমিটেন্স বর্তমান আমল
2016–2017- US$ 12,769.45 M
2017–2018- US$ 14,981.69 M
2018–2019- US$ 16,419.63 M 5.73%
2019–2020 -US$ 18,205.01 M
2020-2021 - $ 22 billion

সুত্র উইকিপিডিয়া।


বাংলাদেশের অবস্থাও শ্রীলঙ্কার মত হবে, এমনটা হবেই বলে যাচ্ছেন নিজ দেশকে উগান্ডা বলা বিপুল সংখক মানুষ।
এমন বড় সংখার উন্নয়ন অনিচ্ছুক, বিজ্ঞান অনিচ্ছুক জনগোষ্ঠি যে দেশের নাগরিক সেই দেশের সর্বনাশ ঠেকানো আসলেই মুশকিল।
নিজের ভালোতো পাগলেও চায়। দেশটা কার ভাই? উগান্ডা বাসিদের? দেশটাতো আমার, আপনার সবার।
উগান্ডা সরকারের না। তাইলে শেখ হাসিনার উপর প্রতিশোধ নিতে গিয়ে আপনি নিজের দেশের নিজের পরিবারের সর্বনাশের স্বপ্নে উল্লাস করছেন। কী ভাই?

বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অবস্থা রাজা পাকশের শ্রীলঙ্কার দিকে যাবেনা।
কারণ শেখ হাসিনা রাজাও না পাকশে না।
পাকশে ব্যক্তিগতভাবে দুর্নীতিবাজ ছিলো এবং তার পরিবার ক্ষমতার অংশ ছিলো। শেখ হাসিনার পরিবার দুর্নীতিতে অংশ নেয়নি।
সর্বশেষ এডিট : ১৬ ই মে, ২০২২ রাত ১২:৩২
৫১টি মন্তব্য ১৮টি উত্তর পূর্বের ৫০টি মন্তব্য দেখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

বাংলাদেশে কি ইনফ্লেশান শুরু হয়েছে?

লিখেছেন সোনাগাজী, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ সকাল ১০:০৩



আমি দেশ থেকে দুরে আছি, দেশের কি অবস্হা, ইনফ্লেশান কি শুরু হয়েছে? কোভিড ও ইউক্রেন যুদ্ধ মিলে ইউরোপ, আমেরিকাকে ভয়ংকর ইনফ্লেশানের মাঝে ঠেলে দিয়েছে; বাংলাদেশে ইহা এখন... ...বাকিটুকু পড়ুন

ছদ্মবেশী রম্য!!!

লিখেছেন ভুয়া মফিজ, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ সকাল ১০:৩৪



আমার ফেসবুকে একটা নামমাত্র একাউন্ট আছে। সেখানে যাওয়া হয় না বলতে গেলে। তবে ইউটিউবে সময় পেলেই ঢু মারি, বিভিন্ন রকমের ভিডিও দেখি। ভিডিওগুলোর মন্তব্যে নজর বুলানো আমার একটা অভ্যাস। সেখানে... ...বাকিটুকু পড়ুন

ঘোওওল....মাখন.....মাঠায়ায়ায়া.....

লিখেছেন জুল ভার্ন, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ দুপুর ২:৪৬

ঘোওওল....মাখন.....মাঠায়ায়ায়া.....

আমার ছোট বেলায় আমাদের এলাকায় ২/৩ জন লোক বয়সে প্রায় বৃদ্ধ, ঘোল-মাখন বিক্রি করতেন ফেরি করে। তাঁদের পরনে থাকত ময়লা ধুতি মালকোঁচা দেওয়া কিম্বা ময়লা সাদা লুংগী পড়া। খালি পা।... ...বাকিটুকু পড়ুন

পাঠের আলোচনায় ব্লগারদের বই!

লিখেছেন মনিরা সুলতানা, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ বিকাল ৫:২৬

আমার আত্মজরা আমার চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের মাঝে যে বৈশিষ্ট্য নিয়ে মাঝেমাঝে হতাশা প্রকাশ করে! সেটা হচ্ছে আমার খুব অল্পে তুষ্ট হয়ে যাওয়া ( আলাদা ভাবে উল্লেখ করেছে অবশ্যই তাদের... ...বাকিটুকু পড়ুন

'সহবাসের জন্য আবেদন'...

লিখেছেন নান্দনিক নন্দিনী, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ রাত ১০:১৯



রোকেয়া হলে আবাসিক ছাত্রী হিসেবে দীর্ঘ ৭বছর কেটেছে। হলের নানা গল্পের একটা আজ বলি। হলের প্রতিটি কক্ষে ৪টা বেড থাকলেও থাকতে হতো ৫জনকে। মানে রুমের সব থেকে জুনিয়র দুইজনকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

×