somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

নূর মোহাম্মদ নূরু
নূর মোহাম্মদ নূরু (পেশাঃ সংবাদ কর্মী), জন্ম ২৯ সেপ্টেম্বর প্রাচ্যের ভেনিস খ্যাত বরিশালের উজিরপুর উপজেলাধীন সাপলা ফুলের স্বর্গ সাতলা গ্রামে

ভারতীয় স্বাধীনতা সংগ্রামের সর্বকনিষ্ঠ বিপ্লবী ক্ষুদিরাম বসুর ১২৫তম জন্মবাষিকীতে ফুলেল শুভেচ্ছা

০৩ রা ডিসেম্বর, ২০১৪ বিকাল ৩:০৭
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের সর্বকনিষ্ঠ বিপ্লবীদের একজন ক্ষুদিরাম বসু। যখন তিনি স্বাধীনতা সংগ্রামে অংশগ্রহণ করেন এবং পরিণামে ফাঁসির দড়ির স্পর্স লাভ করনে তখন তিনি নিছক একটি শিশু। ফাঁসির সময় তার বয়স ছিল মাত্র ১৮ বছর, ৭ মাস ১১ দিন। ক্ষুদিরাম বসু বন্দে মাতারাম ও গীতা পবিত্র শব্দ থেকে স্বাধীতনা সংগ্রামে অংশ গ্রহণের অনুপ্রেরণা যুগিয়ে ছিলো। ১৮৮৯ সালের আজকের দিনে তিনি ভারতের মেদিনিপুর জেলায় জন্ম গ্রহণ করেন। আজ তার ১২৫তম জন্মবাষিকী। ভারতীয় স্বাধীনতা সংগ্রামের কিংবদন্তি বিপ্লবী ক্ষুদিরাম বসুর জন্মদিনে ফুলেল শুভেচ্ছা।


ক্ষুদিরাম বসু ১৮৮৯ সালের ৩ ডিসেম্বর ভারতের পশ্চিম বাংলার মেদিনীপুর জেলা শহরে কাছাকাছি হাবিবপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা ত্রৈলকানাথ পিতা বসু ছিল নাদাজল প্রদেশের শহরে আয় এজেন্ট। তার মা লক্ষীপ্রিয় দেবী। তিন কন্যার পর তিনি তার মায়ের চতুর্থ সন্তান। তার অপর দু'ভাই আগেই মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুর আশংকায় তার মা তখনকার সমাজের নিয়ম অনুযায়ী তার পুত্রকে তার বড় বোনের কাছে তিন মুঠি খুদের (শস্যের খুদ) বিনিময়ে বিক্রি করে দেন।খুদের বিনিময়ে ক্রয়কৃত শিশুটির নাম পরবর্তীতে ক্ষুদিরাম রাখা হয়।ক্ষুদিরাম বসু পরবর্তিতে তার বড় বোনের কাছেই বড় হন। তিনি গ্রামের স্কুলে তাঁর প্রাথমিক শিক্ষা শুরু করেন তারপর হ্যামিলটন স্কুল এবং পরে ১৯০৩ সালে মেদিনিপুর কলেজিয়েট স্কুল ভর্তি হন। সেখানে তিনি অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত পড়ালেকা করেন। ক্ষুদিরাম বসু তার প্রাপ্তবয়সে পৌছানোর অনেক আগেই একজন ডানপিটে, বাউন্ডুলে, রোমাঞ্চপ্রিয় তরুন হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেন। পড়া লেখায় ক্ষুদিরাম বসু ছিলেন একজন মেধাবী ছাত্র। কিন্তু কিশোরসুলভ সাহস এবং সত্যেন্দ্রনাথ বোস এবং গেয়ানানন্দ নাথ বোস এর দেশপ্রেমী কার্যক্রমের প্রচারাভিযান একটি গুপ্তসভার নেতৃত্ব তাকে ব্রিটিশ সরকারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার জন্য প্রভাবিত করেছিলো।


ভারতীয় স্বাধীনতা সংগ্রামের কিংবদন্তি সুপারহিরো ক্ষুদিরাম বসু ব্রিটিশ শাসকদেরআতঙ্কগ্রস্ত করে তুলেছিলো। ভারতীয় স্বাধীনতা সংগ্রামে ক্ষুদিরাম বসু ছিল একজন ব্যতিক্রমী মুক্তিযোদ্ধা। ভারতের জন্য তার তীব্র দেশ প্রেম ছিলো। তার যুদ্ধ ছিলো ব্রিটিশদের কাছ থেকে ভারতের মানুষের জন্মাধিকার "স্বাধীনতা" ছিনিয়ে আনার যুদ্ধ । এ সময় তিনি বাংলার পালনকর্তা ভারতের গভর্নর জেনারেল লর্ড কার্জনের (বড় লাট) বিরুদ্ধে সক্রিয়ভাবে স্বদেশী আন্দোলনে অংশ গ্রহণ করেন।১৯০৭ সালের ৬ ডিসেম্বর রেলওয়ে স্টেশনে Magistrate Kingsford এর উপর বোমা হামলায় সক্রিয় অংশ গ্রহণ করেন ক্ষুদিরাম। কিন্তু এই বোমা হামলায় ক্ষুদিরাম বসুর দুঃভাগ্য কারণ সৌভাগ্য ক্রমে বেঁচে যান Magistrate Kingsford কিন্তু নিহত হন ওয়াটসন এবং Bamfylde নামে দুই ব্রিটিশ নাগরিক।


১৯০৮ সালে, তিনি ওয়াটসন এবং Bamfylde, নামক দুই ব্রিটিশ হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত ছিলেন। হত্যাকাণ্ডে তার সম্পৃক্ততা প্রমানিত হলে তাকে মৃত্যু দণ্ড প্রদান করা হয় । ১৯০৮ সালের ১১ আগষ্ট ভোর ৬টায় মুজঃফরপুর জেলে ক্ষুদিরাম বসুকে ফাঁসির রজ্জুতে ঝুলিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়। ভারতের মুক্তি সংগ্রামে অন্যতম পথিকৃৎ ক্ষুদিরাম বসু,ফাঁসির মঞ্চে প্রথম শহীদ। তাঁর ফাঁসির খবরে কলকাতার অমৃতবাজার পত্রিকা (১২ অগাষ্ট১৯০৮) লেখেন "মুজফরপুর ১১ই আগষ্টঃ অদ্য ভোর ছয় ঘটিকার সময় ক্ষুদিরামের ফাঁসি হইয়া গিয়াছে। ক্ষুদিরাম দৃঢ় -পদক্ষেপে প্রফুল্ল চিত্তে ফাঁসির মঞ্চের দিকে অগ্রসর হয়।এমনকি যখন তাহার মাথার উপর টুপিটা টানিয়া দেওয়া হইল,তখনো সে হাসিতেছিল।"


ভারতীয় স্বাধীনতা সংগ্রামের সর্বকনিষ্ঠ বিপ্লবী ক্ষুদিরাম বসুর ১২৫তম জন্মবাষিকী আজ। ভারতের ব্রিটিশবিরোধী সংগ্রামের কিংবদন্তি বিপ্লবী ক্ষুদিরাম বসুর জন্মদিনে ফুলেল শুভেচ্ছা।
৬টি মন্তব্য ১টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

কুমিল্লা ইস্যুতে আরও কিছু কথা,

লিখেছেন সরোজ মেহেদী, ১৭ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ১০:৫২

অনেকেই সুর মেলাচ্ছেন সাম্প্রদায়িক অপশক্তির ষড়যন্ত্র, সাম্প্রদায়িক হামলা, সাম্প্রদায়িক ধ্বংশলিলা এসব আহ্লাদিত বাক্যমালার সাথে। আহ্লাদ করেন তবে ‘সাম্প্রদায়িক’ শব্দটার জায়গায় ‘রাজনৈতিক’ বসান। ক্ষমতালোভীও বসাতে পারেন (সে যে কোনো দল, এই... ...বাকিটুকু পড়ুন

আফ্রিকায় টিকাও নেই, ভাতও নেই

লিখেছেন চাঁদগাজী, ১৭ ই অক্টোবর, ২০২১ রাত ১০:৫৪



আফ্রিকার গ্রামগুলো মোটামুটি বেশ বিচ্ছিন্ন ও হাট-বাজারগুলোতে অন্য এলাকার লোকজন তেমন আসে না; ফলে, গ্রামগুলোতে করোনা বেশী ছড়ায়নি। বেশীরভাগ দেশের সরকার ওদের কত গ্রাম আছে তাও... ...বাকিটুকু পড়ুন

কবির সাথে সাক্ষাত

লিখেছেন স্বপ্নবাজ সৌরভ, ১৮ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ১০:৪১



কবির সাথে দেখা হয়না অনেকদিন।
আগে দেখা হতো নিয়মিত।
সকালটাকে তিনি বিকেলের
চৌরাস্তায় নিয়ে যেতে পারতেন, তীব্র গ্রীষ্মে বর্ষা নামাতেন তুমুল তোড়ে।
রোদের আক্রোশে গা এলিয়ে তিনি ভাসতেন জোছনাবিহারে।
শহরের অবাঞ্ছিত... ...বাকিটুকু পড়ুন

সামাজিক অনুষ্ঠান তথা বিয়ে বাড়ির খাওয়ার অভিজ্ঞতা....

লিখেছেন জুল ভার্ন, ১৮ ই অক্টোবর, ২০২১ সকাল ১০:৪৯

সামাজিক অনুষ্ঠান তথা বিয়ে বাড়ির খাওয়ার অভিজ্ঞতা....

যেকোনো সামাজিক অনুষ্ঠানের মধ্যে আমাকে যেটা সবথেকে টানে সেটা হল খাওয়াদাওয়ার অনুষ্ঠান, তা যতটা না খাবার জন্য তার থেকে অনেক বেশী খাদকদের আচরণ দেখতে।... ...বাকিটুকু পড়ুন

পরিত্যাক্ত রেল স্টেশনের নাম ভরত খালি

লিখেছেন প্রামানিক, ১৮ ই অক্টোবর, ২০২১ দুপুর ১২:৫৮


ভরত খালী স্টেশনের নাম ফলক এখনো অক্ষত আছে।

১৯৩৭ সালে ব্রিটিশ রেলওয়ে কোম্পানি যমুনা নদীর এপার ওপার ট্রেনের যাত্রী পারাপারের জন্য পূর্বপাড়ে জামালপুর অংশে বাহাদুরাবাদ ঘাট এবং পশ্চিম পাড়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

×