somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

স্বাধীনতার পর ২৫ জন খুনি আসামীর রাষ্ট্রপতির ক্ষমা: আওয়ামী লীগের এই আমলেই ক্ষমা ফাঁসির ২১ আসামি।

১৮ ই মার্চ, ২০১৩ ভোর ৪:৪১
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



বাংলাদেশে এই পর্যন্ত— মৃত্যুদন্ডে দন্ডিত যে ২৫ আসামি রাষ্ট্রপতির ক্ষমা পেয়েছেন, তার ২১ জনকেই দেয়া হয়েছে আওয়ামী লীগের বর্তমান আমলে। স্বাধীনতার পর থেকে ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের আগ পর্যন্ত রাষ্ট্রপতির ক্ষমা পাওয়া ফাঁসির আসামির সংখ্যা ছিল মাত্র চারজন। নবম সংসদের পঞ্চদশ অধিবেশনের প্রথম দিন বুধবার লিখিত এক প্রশ্নের উত্তরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহীউদ্দীন খান আলমগীর এই তথ্য জানান। আওয়ামী লীগের গত চার বছরের শাসনামলে ২০০৯ সালে একজন, ২০১০ সালে ১৮ জন এবং ২০১১ সালে দুজন ফাঁসির আসামি রাষ্ট্রপতির ক্ষমা পান। আদালতের রায়ে মৃত্যুদন্ডে দন্ডিতদের ওই দন্ড মওকুফ করে সাজা যাবজ্জীবন কারাদন্ডে নামিয়ে আনার অধিকার সংবিধান অনুযায়ী রাষ্ট্রপতির থাকলেও তার প্রয়োগ নিয়ে অনেক সময়ই সমালোচনা উঠেছে।

আওয়ামী লীগের এই আমলে ক্ষমা পাওয়া ২১ জনের মধ্যে রয়েছে লক্ষীপুরের চাঞ্চ্যকর এডভোকেট নূরুল ইসলাম হত্যা মামলায় ফাঁসির দন্ড পাওয়া এইচ এম বিপ্লব। লক্ষ্মীপুর পৌরসভার মেয়র ও আওয়ামী লীগের বিতর্কিত নেতা আবু তাহেরের ছেলে এ এইচ এম বিপ্লবের ফাঁসির দণ্ডাদেশ মওকুফ করেছেন রাষ্ট্রপতি। লক্ষ্মীপুর জেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও আইনজীবী নুরুল ইসলাম হত্যা মামলার রায়ে ২০০৩ সালে আদালত বিপ্লবের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন। আরও দুটি হত্যা মামলায় বিপ্লবের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয়েছে। তিনি লক্ষ্মীপুর জেলা কারাগারে আটক আছেন। দীর্ঘ ১০ বছরের বেশি সময় পলাতক থেকে বিপ্লব গত ২০১১ সালের ৪ এপ্রিল আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। এরপর তাঁর বাবা আবু তাহের ছেলে বিপ্লবের প্রাণভিক্ষা চেয়ে রাষ্ট্রপতির কাছে আবেদন করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান বিপ্লবের সাজা মওকুফ করেন। গত ২০১১ সালের ১৪ জুলাই এই সাজা মওকুফের আদেশ কার্যকর হয়।

আবার আলোচনায় লক্ষ্মীপুরের তাহের। তাহেরের ছেলে বিপ্লব। এই সেই তাহের, যে তার বিরুদ্ধে লিখলে সাংবাদিকদের হাত-পা কেটে নদীতে ভাসিয়ে দিতে চেয়েছিলেন। এ কথা বলেছিলেন প্রকাশ্য জনসভায়। তার আগেই যদিও হাত-পা কাটার কাজটি তার ছেলে বিপ্লব সম্পন্ন করেছিল। বিএনপি নেতা অ্যাডভোকেট নূরুল ইসলামকে অপহরণ করে হত্যার মধ্য দিয়ে।বিগত আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে ২০০০ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর রাতে লক্ষ্মীপুর শহরের বাসা থেকে নুরুল ইসলামকে অপহরণের পর হত্যা করা হয়। এটি তখন দেশজুড়ে আলোচিত ঘটনা ছিল। তখন সেখানকার পৌর চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু তাহেরও সন্ত্রাসের ‘গডফাদার’ হিসেবে ব্যাপক আলোচনায় ছিলেন। তখন আবু তাহের ও তাঁর ছেলেদের নেতৃত্বে সন্ত্রাসী বাহিনীর নানা অপরাধমূলক তৎপরতার কারণে লক্ষ্মীপুর ‘সন্ত্রাসের জনপদ’ নামে ব্যাপক পরিচিতি পায়।

১৯৭২-২০১১ সাল পর্যন্ত— কতজন ফাঁসির আসামি রাষ্ট্রপতির ক্ষমা পেয়েছে’- নোয়াখালীর স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য ফজলুল আজিমের এই প্রশ্নে মন্ত্রী আরো জানান, আওয়ামী লীগের এই আমলের আগে ২০০৮ সালে একজন, ২০০৫ সালে দুই জন এবং ১৯৮৭ সালে একজন রাষ্ট্রপতির ক্ষমা পেয়েছিলেন। স্বাধীনতার পর থেকে ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত— মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত কোনো আসামিকে ক্ষমা করা হয়নি। সামরিক শাসক হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের সময়ে এই ক্ষমার চর্চা শুরু হয়। আওয়ামী লীগ নেতা ময়েজউদ্দিন আহমেদ হত্যামামলার মৃত্যুদন্ডে দন্ডিত এক আসামিকে ১৯৮৭ সালে ক্ষমা করা হয়। গাজীপুরের নেতা ময়েজউদ্দিনের মেয়ে মেহের আফরোজ চুমকি বর্তমানে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য। ময়েজ হত্যা মামলায় সাজাপ্রাপ্তরা ছিলেন জাতীয় পার্টির নেতা-কর্মী। বিএনপি-জামায়াত নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকারের সময়ে ২০০৫ সালে রাষ্ট্রপতির ক্ষমা পান মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত দুই আসামি। সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে ফাঁসির এক আসামিকে রাষ্ট্রপতি ক্ষমা করেন।

১৬ কোটি জনগণ আশা করে রাষ্ট্রপতি তার ক্ষমতা সঠিকভাবে প্রয়োগ করবেন। যদি এ ক্ষমতা প্রয়োগের ক্ষেত্রে ‘সঠিক' বিবেচনা না করা হয়, তা হলে অন্যান্য খুনি বা বড়মাপের আসামিরা ক্ষমতা প্রয়োগের চেষ্টা করবে। রাজনৈতিক পরিচয়ের অপরাধীরা ক্ষমতা প্রয়োগ করে এভাবে ক্ষমা পাওয়ার পথ অনুসরণ করবে। যে দলই ক্ষমতায় থাকুক না কেন এই প্রতিযোগিতা অব্যাহত থাকলে তার পরিণাম কখনও শুভ হবে না।

রাজনৈতিক সরকার বা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় যদি রাষ্ট্রপতির প্রাতিষ্ঠানিক অবস্থানের মর্যাদা রক্ষায় সচেতন না হয়ে দলীয় রাজনৈতিক ক্যাডারদের পক্ষে কোন সিদ্ধান্ত নেবার অনাকাঙ্ক্ষিত আবেদন করে, তাহলে আমাদের মতো দুর্বল গণতান্ত্রিক দেশের রাষ্ট্রপতিদের প্রাতিষ্ঠানিক দৃঢ়তা ও বিবেকের দায় শোধ করা দুরূহ হতেই পারে। তবে রাষ্ট্রপতির প্রতিষ্ঠানের কাছে নাগরিকদের এমন প্রত্যাশাই থাকবে যে, দোষীরা যেন শাস্তি পায় এবং নির্দোষরা যেন মুক্তি পায়। আইনের শাসন ও রাষ্ট্রপতির প্রতিষ্ঠান যেন দলীয় প্রভাবে দুর্বল ও কলঙ্কিত না হয়, জনগণ সেটাই দেখতে চায়।

১২টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

রাজধানীতে শিশু ধর্ষণ , নির্যাতন, হত্যাকান্ড ও মানুষরুপি কিছু জানোয়ারের কথা ।

লিখেছেন সাখাওয়াত হোসেন বাবন, ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ দুপুর ১২:৩৯

ছবি : বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম , ইন্টারনেট ।

গতকাল ইবনে সিনা হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে গিয়ে যৌন হয়রানীর শিকার হয়েছে এক রাশিয়ান শিশু। অভিযোগ পাওয়ার পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দ্রুত গ্রেফতার করেছে নির্যাতনকারীকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

আর-রাহমান

লিখেছেন মহাজাগতিক চিন্তা, ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ দুপুর ১:৪৬




আর-রাহমান চির দয়াময় যিনি
পৃথিবী ভরিয়ে দিয়ে লতায় পাতায়
মাটিকে জীবন্ত করে সবুজ শোভায়
করেন ধরনীতল অনিন্দ সুন্দর।
সৃষ্টি তাঁর অপরূপে সাজালেন তিনি
রাতের প্রকৃতি ভাসে চাঁদ জোছনায়
গ্রীষ্মের রোদের তাপে তরু-বনছায়
শান্তির শীতল বায়ু... ...বাকিটুকু পড়ুন

=সকল ছেড়ে যেতে হবে=

লিখেছেন কাজী ফাতেমা ছবি, ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ বিকাল ৩:৫২



©কাজী ফাতেমা ছবি

কেউ রবো না এখান'টাতে
ইহকালের মোহ টানে
সাঙ্গ হবে ভবলীলা-
ভেসে যাবো মরণ বানে!

কেউ রবে না আপন হয়ে-
হাতটি ছেড়ে দেবে শেষে
যেতে হবে খালি হাতে
শেষের খেয়ায় একলা ভেসে!

সঙ্গে... ...বাকিটুকু পড়ুন

অক্টোপাসের বাহুতে

লিখেছেন মোগল সম্রাট, ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ বিকাল ৪:১২




রজর আলীর গাছীর বয়স সত্তুরের কাছাকাছি হলেও গায়-গতরে এখনো শক্তি সামর্থ্য সবই আছে। রোদে পুড়ে জলে ভিজে গড়া শরীরে কোন রকম বয়সের ভার চোখে পড়ে না। অগ্রাহায়নের শুরুতেই দুই গ্রামের... ...বাকিটুকু পড়ুন

শাহ সাহেবের ডায়রি ।। খেজুর

লিখেছেন শাহ আজিজ, ২৮ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ রাত ৯:৪০



খুব পুষ্টিকর ফল খেজুর । সেই খেজুরের ট্যাক্স কমিয়েও রক্ষা নেই । খেজুর বিক্রেতারা খেজুরের দাম আরেক দফা দাম বাড়িয়ে ভোক্তাদের বিব্রত করেছে । সরকার কার্যত ব্যার্থ... ...বাকিটুকু পড়ুন

×